Connect with us

চিত্র-বিচিত্র

পৃথিবীতে যে ৭ ভাষায় সবচেয়ে বেশি মানুষ কথা বলে

Published

on

শেয়ারবাজার

ছোটবেলা থেকে আমরা শুনে আসছি, মনের ভাব প্রকাশের প্রধান মাধ্যম হলো ভাষা। কিন্তু পৃথিবীর একেক অঞ্চলের মানুষ একেক ভাষায় কথা বলার মাধ্যমে তাদের মনের ভাব প্রকাশ করে। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সামার ইন্সটিটিউট অফ লিঙ্গুইস্টিক্‌স (এসআইএল) ইন্টারন্যাশনাল-এ র ভাষা নিয়ে গবেষণাকারী প্রতিষ্ঠান ‘এথনোলগ’ বলছে, পৃথিবীতে বর্তমানে সাত হাজার ১৬৮টি ভাষা আছে। কিন্তু, এর ৪২ শতাংশ ভাষাই ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ অবস্থায় আছে; অর্থাৎ, তিন হাজার ৪৫টি ভাষা এখন বিলুপ্তির পথে।

এর আগেও সময়ের সাথে সাথে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে অনেক ভাষা চিরতরে হারিয়ে গেছে।

তবে যেসব ভাষা পৃথিবীতে এখনও বহাল তবিয়তে টিকে আছে, সেগুলোর মাঝে সবচেয়ে বহুল ব্যবহৃত ভাষা কোনগুলো, আমরা কী তা জানি? কিংবা, পৃথিবীতে কোন ভাষায় মানুষ সবচেয়ে বেশি কথা বলে? এবং কোন কোন দেশে এসব ভাষা ব্যবহার করা হয়?

আজ আমরা এমন সাতটি ভাষার বিষয়ে জানবো, যেগুলোর ব্যবহার সবচেয়ে বেশি।

ইংরেজি বা ইংলিশ

যদি বহুল ব্যবহৃত ভাষার কথা বলতে হয়, তবে নিঃসন্দেহে প্রথমেই সেখানে ইংলিশের নাম উঠে আসবে। পৃথিবীতে খুব অল্প কয়েকটি দেশের মাতৃভাষা ইংরেজি, কিন্তু পৃথিবীতে এমন দেশ বিরল যেখানে মাতৃভাষার পর ইংলিশকে প্রাধান্য দেয়া হয় না।

এথনোলগ-এর তথ্য অনুযায়ী, ৮০০ কোটি মানুষের পৃথিবীতে প্রায় ১৫০ কোটি মানুষই ইংলিশে কথা বলে। যদিও পৃথিবীর মাত্র ৩৮ কোটি মানুষের মাতৃভাষা ইংলিশ এবং মাতৃভাষাভাষীর সংখ্যার বিচারে এর অবস্থান বিশ্বে তৃতীয়। এই ভাষার আঁতুড়ঘর হলো যুক্তরাজ্য, অর্থাৎ ইউনাইটেড কিংডম।

বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠীর মাতৃভাষা না হওয়া সত্ত্বেও পৃথিবী জুড়ে ইংলিশের এত বিস্তৃতির পেছনে মূল ভূমিকা রেখেছে কয়েকশো বছর ধরে পৃথিবীজুড়ে চলা ব্রিটিশ উপনিবেশবাদ। ঐ সময় ব্রিটিশরা আফ্রিকা, দক্ষিণ আমেরিকা, এশিয়া এবং ক্যারিবীয় অঞ্চলে তাদের উপনিবেশ স্থাপন করে। সাধারণত উপনিবেশ প্রতিষ্ঠার পেছনে উদ্দেশ্য থাকে ঐ অঞ্চলে ওপর অর্থনৈতিক আধিপত্য তৈরি করা।

ভারতীয় উপমহাদেশসহ পৃথিবীর অন্যান্য দেশগুলো থেকে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অবসান ঘটলেও উপনিবেশবাদের প্রভাব রয়ে গেছে। ইংলিশের জনপ্রিয়তা হিসেবে এই প্রভাবকে উদাহরণ হিসেবে দেখা হয়। ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের পতনের পর সারাবিশ্বে যুক্তরাষ্ট্র একক আধিপত্য বিস্তার করে। যুক্তরাষ্ট্রের মাতৃভাষাও ইংলিশ হওয়ায় মার্কিন সংস্কৃতির অংশ হিসেবেই সেটি বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে আরও প্রভাবশালী হয়ে উঠে।

এথনোলগ অনুযায়ী, পৃথিবীর মোট ১৪৬টি দেশে ইংলিশ ভাষাভাষী মানুষ পাওয়া যায়। এর মাঝে উল্লেখযোগ্য হলো অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা এবং ইউরোপ ও এশিয়ার অনেক দেশ। উল্লেখ্য, ইংলিশ বা ইংরেজি ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা পরিবারের একটি ভাষা।

ম্যান্ডারিন চাইনিজ

চীনের অধিকাংশ মানুষ কথা বলে ম্যান্ডারিন চাইনিজ ভাষায়। যদি শুধুমাত্র মাতৃভাষার কথা বিবেচনা করা হয়, তাহলে পৃথিবীতে ম্যান্ডারিন চাইনিজ ভাষাভাষীর সংখ্যাই সর্বোচ্চ। এথনোলগ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, পৃথিবীর ৯৪ কোটি মানুষের মাতৃভাষা ম্যান্ডারিন চাইনিজ। এছাড়া, পৃথিবীর প্রায় ১১০ কোটি মানুষ ম্যান্ডারিন চাইনিজে কথা বলে। সেক্ষেত্রে, ইংলিশের পরেই এর অবস্থান।

ম্যান্ডারিন ভাষাভাষীর সংখ্যা এত বেশি হওয়ার কারণ, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম জনবহুল দেশ চীন। ওয়ার্ল্ড স্ট্যাটিসটিকস অব চায়না-এর তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে দেশটির মোট জনসংখ্যা ১৪০ কোটির একটু বেশি।

এথনোলগ বলছে, চীনের ৮১ শতাংশ মানুষ ম্যান্ডারিন চাইনিজে কথা বলে। এছাড়া, কানাডা, মিয়ানমার, মঙ্গোলিয়া, ভিয়েতনাম, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডসহ মোট ৩৭টি দেশে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ম্যান্ডারিন ভাষাভাষী রয়েছে।

বলা হয়ে থাকে যে চীনে জন্ম নেয়া ম্যান্ডারিন চাইনিজ পৃথিবীর অন্যতম কঠিন ভাষা। ৫০০০ বছরের বিবর্তনে তৈরি এই ম্যান্ডারিন চাইনিজ সিনো-তিব্বতীয় ভাষা পরিবারের একটি ভাষা।

হিন্দি

জনসংখ্যার দিক থেকে তৃতীয় অবস্থানে আছে হিন্দি ভাষাভাষীরা। এথনোলগ-এর তথ্য অনুযায়ী, পৃথিবীর প্রায় ৬০ কোটি ৯০ লাখ মানুষ হিন্দিতে কথা বলে। এদের মাঝে ৩৫ কোটি মানুষের মাতৃভাষা হিন্দি। হিন্দি ভাষাভাষী মানুষের বসবাস ভারতেই বেশি। তবে ১৪০ কোটি মানুষের দেশ ভারতে হিন্দি ছাড়াও আরও অনেক ভাষা আছে। সেই হিসেবে করলে, দেশটির মোট জনসংখ্যার প্রায় ২৫ শতাংশ মানুষের মাতৃভাষা হিন্দি।

ভারতের শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, দেশটির মোট ২২টি দাপ্তরিক ভাষার মাঝে হিন্দি অন্যতম।

১৯৪৭ সালে স্বাধীনতা অর্জনের পর ১৯৪৯ সালের ১৪ই সেপ্টেম্বর ভারতে হিন্দিকে সরকারি ভাষা হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছিল। বর্তমানে এ দিনটি হিন্দি দিবস হিসেবে পালন করা হয়। হিন্দির সাথে আরও কিছু ভাষার উচ্চারণগত মিল রয়েছে। যেমন, বাংলা, উর্দু, নেপালি, ভোজপুরি, রাজস্থানি ইত্যাদি।

উল্লেখ্য, ১৯৫০ সালের পর থেকে বলিউড ইন্ডাস্ট্রি, অর্থাৎ বলিউড সিনেমার উত্থানও হিন্দি ভাষাকে বিশ্বব্যাপী নতুন করে পরিচয় করে দিয়েছে।

স্প্যানিশ

পৃথিবীতে প্রায় ৫৬ কোটি মানুষ স্প্যানিশে কথা বলে। সে হিসেবে বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম ভাষা স্প্যানিশ। মাতৃভাষা হিসেবে পৃথিবীর প্রায় ৪৯ কোটি মানুষ স্প্যানিশে কথা বলে। এদিক দিয়ে ম্যান্ডারিনের পরেই স্প্যানিশের অবস্থান। অর্থাৎ, মাতৃভাষা হিসেবে এটি পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম ভাষা।

এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, মেক্সিকোতে স্প্যানিশ ভাষাভাষী মানুষের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। এরপরই আছে কলম্বিয়া, আর্জেন্টিনা, যুক্তরাষ্ট্র ও স্পেন। ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা-পরিবারের রোমান্স শাখার ভাষা স্প্যানিশ বর্তমানে মোট ১৮টি দেশের দাপ্তরিক ভাষা।

তবে স্প্যানিশ কিন্তু শুরুতেই এতটা বহুল ব্যবহৃত ভাষা ছিল না। ব্রিটেনের মতো স্পেনও এক সময় পৃথিবীর অনেক দেশকে নিজেদের কলোনি করে রাখে এবং পরবর্তীতে সেইসব কলোনিতে ভাষাটির প্রভাব রয়ে যায়। যার প্রায় সবগুলোই ল্যাটিন আমেরিকায়।

উল্লেখ্য, ইংলিশসহ মোট ছয়টি ভাষাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা বলা হয়। সেই ছয়টি ভাষার একটি স্প্যানিশ।

ফরাসি

ফরাসি বা ফ্রেঞ্চও জাতিসংঘের অন্যতম দাপ্তরিক ভাষা। অধিকাংশ আন্তর্জাতিক সংস্থা ইংরেজির পাশাপাশি ফ্রেঞ্চকে তাদের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে ব্যবহার করে। এথনোলগ অনুযায়ী, বর্তমান পৃথিবীতে ফ্রেঞ্চ বা ফরাসি ভাষাভাষী মানুষের সংখ্যা ৩০ কোটির চেয়ে কিছুটা বেশি।

ব্রিটানিকা বলছে, বিশ্বের ২৫টিরও বেশি দেশে দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে এর ব্যবহার আছে। এর মাঝে উল্লেখযোগ্য হলো- ফ্রান্স এবং কানাডা। এর বাইরে রয়েছে আফ্রিকার বেশ কয়েকটি দেশ। এছাড়া সুইজারল্যান্ড, বেলজিয়াম, ইতালি, যুক্তরাষ্ট্রসহ অনেক দেশে প্রচুর ফ্রেঞ্চ ভাষাভাষী পাওয়া যায়।

স্প্যানিশের মতো ফ্রেঞ্চের বিস্তৃতির পেছনেও অন্যতম কারণ উপনিবেশবাদ। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তাদের কলোনি বিস্তার করেছিলো ফ্রান্স, যার অধিকাংশই আফ্রিকা মহাদেশে। ‌এই কারণেও ফরাসি ভাষা মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ে।

আরবি

এথনোলগের তথ্য অনুযায়ী, পৃথিবীতে আরবি ভাষাভাষীর সংখ্যা ২৭ কোটির কিছুটা বেশি। সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইনের মতো মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের মানুষের মাতৃভাষা হচ্ছে আরবি। আবার অনেক দেশের মাতৃভাষা না হলেও সেখানে ব্যাপক হারে আরবির প্রচলন রয়েছে।

বর্তমানে পৃথিবীর প্রায় ৩০টি দেশের দাপ্তরিক ভাষা আরবি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য আলজেরিয়া, মিশর, ইরাক, জর্ডান, কুয়েত, লেবানন, মরক্কো, ওমান, সৌদি আরব, সুদান, সিরিয়া ইত্যাদি। ধর্মীয় কারণে মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রায় অনেকে কম-বেশি আরবি লিখতে, পড়তে, বলতে জানেন।

সেমেটিক ভাষা পরিবারের বৃহত্তম ভাষা এই আরবি জাতিসংঘের অন্যতম একটি দাপ্তরিক ভাষাও। আরবি ভাষার সাথে অন্যান্য ভাষার একটি বিশেষ পার্থক্য রয়েছে। আরবি লিপি লেখা হয় ডান থেকে বামে।

বাংলা

এথনোলগ অনুযায়ী, বর্তমান পৃথিবীতে বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা ২৭ কোটির কিছুটা বেশি। পৃথিবীর বহুল ব্যবহৃত ভাষাগুলোর মাঝে বাংলা সপ্তম। পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি বাংলা ভাষাভাষী মানুষ বসবাস করে বাংলাদেশে এবং এরপর ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও আসামে।

১৯৪৭ সালে দ্বিজাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে ভারতবর্ষ ভাগের আগে থেকেই ভাষা নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছিলো। ১৯৪৮ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার নির্দেশ দেয় এবং পাকিস্তান সরকারের এমন ঘোষণার বিরোধিতা করে বর্তমান বাংলাদেশের জনগণ।

তৎকালীন পূর্ব বাংলা তথা বাংলাদেশে এই নিয়ে আন্দোলন চলতে থাকে। সেটি সংঘাতে রূপ নেয় ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি। সেদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থী ও রাজনৈতিক কর্মীরা মিলে তৎকালীন পাকিস্তান সরকারের জারি করা ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করেন।

কিন্তু সেই মিছিল যখন ঢাকা মেডিকেল কলেজের কাছাকাছি যায়, তখন পুলিশ আন্দোলনকারীদের ওপর গুলি চালায়। সেই গুলিতে সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, শফিউরসহ আরও অনেকে শহীদ হন। তবে ছাত্রদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালানোর কারণে সেদিন সারাদেশে বিদ্রোহ শুরু হয়।

ক্রমবর্ধমান আন্দোলনের চাপে শেষ পর্যন্ত ১৯৫৪ সালের ৭ মে পাকিস্তান গণপরিষদে বাংলা তৎকালীন পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসেবে গৃহীত হয়। পরবর্তীতে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করার পর বাংলাকে দেশের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা করা হয়।

সবশেষে, বাংলা ভাষা রক্ষার জন্য আন্দোলন এবং ভাষার অধিকারের প্রতি সম্মান জানিয়ে ১৯৯৯ সালের ১৭ই নভেম্বর ইউনেস্কো ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

চিত্র-বিচিত্র

ক্যালেন্ডারের পাতা মাটিতে পুঁতলেই গাছ!

Published

on

শেয়ারবাজার

ক্যালেন্ডারের পাতা মাটিতে পুঁতে দিলে গাছ জন্মাবে এমন কথা হয়তো আগে কেউ শুনেনি। তবে কল্পিত এই ভাবনাকে বাস্তবে ফেসবুক ও অনলাইনে দেশি গয়নাসহ বিভিন্ন দৈনন্দিন ব্যবহার্য পণ্যের বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান ‘হরপ্পা’।

জানা যায়, ‘বনকাগজ’ নামের ভিন্ন এক কাগজে বাংলা বর্ষপঞ্জিকা তৈরি করছে প্রতিষ্ঠানটি। হাতে তৈরি রিসাইকেল করা বিশেষ ধরনের এ কাগজের ভেতর থাকে গাছের বীজ। ফলে মাস শেষ হওয়া ক্যালেন্ডারের পাতা কেউ ছিঁড়ে ফেলে দিলে এই পাতা থেকে গাছ জন্ম নিবে।

বনকাগজ উৎপাদনের খরচ বেশি, তাই ক্যালেন্ডারের দামও কিছুটা বেশি। কিন্তু, প্রকৃতি-পরিবেশের কথা চিন্তা করে এমন উদ্যোগ হাতে নিয়েছে এ অনলাইন প্রতিষ্ঠান।

বনকাগজ কী

বনকাগজ হলো পুরোনো কাগজ রিসাইকেল করে উৎপাদিত এক কাগজ। যেখানে গাছের বীজ থাকে। ব্যতিক্রমী পদ্ধতিতে বনকাগজ বানাতে হয়। বনকাগজ থেকে বানানো হয় বিশেষ ক্যালেন্ডার।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বনকাগজ তৈরিতে পরিত্যক্ত কাগজ টুকরো করে পানিতে ভিজিয়ে পুরোপুরি গলিয়ে মণ্ড তৈরি করতে হয়। পরে মণ্ড থেকে কাগজ তৈরির সময় বিশেষ পদ্ধতির মাধ্যমে এর ভেতরে বীজ দেওয়া হয়। এভাবে তৈরি হওয়ার ছয় মাসের মধ্যে কাগজ মাটিতে পুঁতে দিলে গাছ জন্মায়।

এ ধরনের কাগজেই ক্যালেন্ডার ছাপানো ভালো, কারণ ক্যালেন্ডারের ব্যবহার নির্দিষ্ট সময়ের জন্য। তেরো পাতার একটি ক্যালেন্ডারের প্রতিটির পাতার আয়ু এক মাস। মাস শেষে অপ্রয়োজনীয় হয়ে যাওয়া পাতাটি থেকে গাছের জন্ম হতে পারে।

এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

চিত্র-বিচিত্র

সোমালিয়ার জেলেরা যেভাবে জলদস্যু হয়ে উঠল

Published

on

শেয়ারবাজার

সোমালিয়ার জলদস্যুদের কুখ্যাতি বিশ্বব্যাপী শ্রুত। কিন্তু দরিদ্র এ দেশটির অনেকের দস্যুবৃত্তিকে প্রায় পেশা হিসেবে বেছে নেওয়ার বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার (১২ মার্চ) মোজাম্বিকের মাপুতু বন্দর থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে যাওয়ার পথে এমভি আবদুল্লাহ নামক একটি বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজের নিয়ন্ত্রণ নেয় সোমালি জলদস্যুরা। চট্টগ্রামের কবির (কেএসআরএম) গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান এসআর শিপিং লিমিটেডের মালিকানাধীন এ জাহাজে ২৩ জন বাংলাদেশি নাবিক রয়েছেন।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, জলদস্যুদের হাতে জিম্মি বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আব্দুল্লাহ’র নাবিকদের উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। তবে কবে তাদের উদ্ধার করা যাবে, সেটা এখনই বলা যাচ্ছে না।

২০১০ সালেও একই শিপিং কোম্পানির মালিকানাধীন এমভি জাহান মনি সোমালি জলদস্যুদের ছিনতাইয়ের শিকার হয়েছিল। ওইসময় জাহাজে ২৫ ক্রু এবং ক্যাপ্টেনের স্ত্রীসহ মোট ২৬ ব্যক্তি ছিলেন। ১০৫ কোটি টাকা মুক্তিপণ দিয়ে ১০০ দিন পর ওই ব্যক্তিদের ফিরিয়ে আনা হয়।

সোমালিয়ার জলদস্যুদের কুখ্যাতি বিশ্বব্যাপী শ্রুত। কিন্তু দরিদ্র এ দেশটির অনেকের দস্যুবৃত্তিকে প্রায় পেশা হিসেবে বেছে নেওয়ার বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে।

জীর্ণ পোশাক, ভারী অস্ত্র, জিপিএস ফোন তাদের এ বেশভূষা দেখে মনে করার উপায় নেই তারা কেবল মরিয়া হয়ে দস্যুবৃত্তির পথে নেমেছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, সোমালিয়ায়, বিশেষ করে সোমালি উপকূলে যথাযথ আইন-শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা পরিস্থিতি না থাকারই সুযোগ নেয় এ জলদস্যুরা।

তবে টাইম ম্যাগাজিনের এক প্রতিবেদনের তথ্যমতে, সোমালিয়ায় করুণ পরিস্থিতির সুযোগ কিন্তু কেবল এ জলদস্যুরাই নেয়নি। বরং বাকি বিশ্বের অবহেলা ও স্বেচ্ছাচারিতাও এ দস্যুবৃত্তি উত্থানের একটি অন্যতম কারণ।

১৯৯১ সালে গৃহযুদ্ধের ফলে সোমালিয়ায় সর্বশেষ কার্যকর সরকারটিরও পতন ঘটে। আফ্রিকা মহাদেশের সবচেয়ে বড় উপকূলের মালিক সোমালিয়া। সরকারি বিধিনিষেধ ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকায় তিন হাজার ৩৩০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এ উপকূলীয় অঞ্চলের সমুদ্রে বিদেশি নৌযানের লুটাপাটের বিপুল নজির রয়েছে।

সেই ২০০৬ সালেই জাতিসংঘের একটি রিপোর্টে বলা হয়েছিল, সোমালিয়ায় কোনো সক্রিয় কোস্টগার্ড না থাকায় দেশটির জলসীমায় এসে বিদেশি নৌযান মাছ ও সিফুড আহরণ করে নিয়ে যায়। আর প্রতি বছর সোমালিয়ার সমুদ্র থেকে কেবল ৩০০ মিলিয়ন ডলারেরই সিফুড লুট করে বিদেশি গোষ্ঠীগুলো।

এমন পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছিলেন উপকূলীয় এলাকায় বাস করা সোমালি জনগণ। নিজেদের সমুদ্রে মাছ ধরতে গেলে তাদেরকে সারাক্ষণ সতর্ক থাকতে হতো বহিঃশত্রুর আক্রমণের বিরুদ্ধে। এভাবে বিদেশি ট্রলারের হামলা থেকে রক্ষা পেতে ১৯৯০-এর দশকে সোমালিয়ায় প্রথম জলদস্যুদলের বিস্তার ঘটে।

কোনো একসময়ে দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, স্পেনের মতো দেশের মাছ ধরার ট্রলারও সোমালিয়ার জলসীমায় এসে মাছ ধরে নিয়ে যেত। বলা বাহুল্য, এসব ট্রলারের সোমালি উপকূলে মাছ ধরার কোনো বৈধতা বা লাইসেন্স থাকত না। প্রায় দুই দশকের মতো সময় সোমালিয়ার সমুদ্র এলাকায় এভাবে শোষণ চালিয়েছে এসব বিদেশিরা।

এ ধরনের অবৈধ ট্রলার সোমালিদের জলদস্যু হওয়ার পেছনে বড় প্রভাবক হিসেবে কাজ করেছে। অতীতে এসব ট্রলার আটক করার পর দ্রুতই মুক্তিপণের অর্থ পেয়ে যেত দস্যুরা। কারণ বিদেশি এসব গোষ্ঠীগুলোও চাইত না তারা যে আন্তর্জাতিক জলসীমা লঙ্ঘন করেছে তা প্রকাশ্যে আসুক।

এভাবেই ছোট ছোট ট্রলার জিম্মি করার মাধ্যমে নিজেদের কৌশলগত নেটওয়ার্ক বাড়িয়ে তোলে দস্যুরা। একসময় মাছ ধরার ট্রলারের পাশাপাশি পণ্যবাহী সমুদ্রগামী জাহাজের দিকে নজর পড়ে তাদের।

এছাড়া দারিদ্র্য, অরাজকতা, আইনের শাসনের অভাবের পাশাপাশি গৃহযুদ্ধের ফলে সৃষ্ট অস্থিতিশীলতা, সহিংসতাও এ ধরনের অপরাধের পেছনে বড় কারণ হিসেবে কাজ করছে।

শাসনব্যবস্থা শক্তিশালী না থাকায় এ জলদস্যুরা দেশটির অনেক প্রতিষ্ঠানের ওপরই ছড়ি ঘোরাতে পারে। মুক্তিপণের টাকা বিনিয়োগ করে নিজেদের অপরাধের পরিসরও বাড়ায় তারা। বেকার সোমালি তরুণদের বড় অঙ্কের অর্থের লোভ দেখিয়ে নিজেদের দলে ভেড়ায় এ জলদস্যুরা।

তবে গত ১৫ বছর ধরে সোমালি উপকূলে দস্যুবৃত্তি কমানোর চেষ্টাও কম হয়নি। ছয়টি আন্তর্জাতিক শিপিং প্রতিষ্ঠান মিলে ২০১২ সালে ঘোষণা দেওয়া হয়, সোমালি উপকূলে জলদস্যু সমস্যা বৈশ্বিক শিপিংয়ের জন্য আর কোনো ঝুঁকি নয়।

২০২৩ সালেও সংস্থাটি জানায়, ভারত মহাসাগরেও দস্যুবৃত্তির আর বড় ঝুঁকি নেই। কারণ ২০১৮ সালে সোমালি জলদস্যুরা এ মহাসাগরে আর কোনো আক্রমণ চালায়নি। কিন্তু এমভি আবদুল্লাহ ছিনতাইয়ের পর আফ্রিকার এ সমুদ্রপথটি দিয়ে বাণিজ্য আবার ঝুঁকির মুখে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হলো।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

চিত্র-বিচিত্র

পাঁচ মিনিটে ২ হাজার টাকা আয়, ফোনকলে নতুন প্রতারণা!

Published

on

শেয়ারবাজার

অনলাইনে নানান প্রলোভন আর প্রতারণার ফাঁদে পা দিয়ে টাকা খোয়াচ্ছেন দেশের নানান শ্রেণির মানুষ। একইসাথে প্রতারকের নানান চক্র চতুর্মুখীভাবে সক্রিয় হয়ে উঠছে। দেশে নতুন করে আলোচনায় আসছে ‘ফোনকল’ প্রতারক চক্র। স্বল্প সময়ে মোটা অঙ্কের টাকা উপার্জনের প্রলোভন দেখিয়ে মানুষ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এ চক্রটি।

নতুন চক্রের শুরুটাও ভিন্নভাবে। স্থানীয় নম্বর থেকে ফোন কল দিয়ে শুরু হয়। কোন পরিচয় কিংবা অতিরিক্ত আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই আসে কাজের কথায়। ওপার থেকে বিদেশি কণ্ঠে জিজ্ঞেস করা হয়, ‘বাসায় বসে হাজার ডলার উপার্জন করতে আগ্রহী কিনা?’ আগ্রহী না হলে সেখানেই কলের সমাপ্তি। কিন্তু মোটা অঙ্কের উপার্জনের লোভ সামলাতে না পেরে যারা আগ্রহ দেখান তারাই পড়েন ফাঁদে।

আগ্রহী ব্যক্তিকে একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত করা হয়। সেখানেও উপার্জনের লোভ দেখালে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় টেলিগ্রাম চ্যানেলে। সেখানে থাকে ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করার মতো বিভিন্ন কাজ। প্রতি চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করার বিনিময়ে ফাঁদে পড়ার ব্যক্তির অ্যাকাউন্টে জমা হয় ১০০ টাকা করে। তারপর নতুন চুক্তি আঁকে প্রতারক চক্র। নির্ধারিত অঙ্কের অর্থ বিনিয়োগের নামে থাকে দ্বিগুণ ফেরতের লোভনীয় অফার।

তিনি যদি এই সুযোগ না গ্রহণ করেন, তাহলে তাকে ভিডিও সাবস্ক্রাইব করার জন্য কোন অর্থ প্রদান করা হবে না। কিন্তু অধিকাংশ মানুষ প্রতারকদের জালে পা দিয়ে বিনিয়োগে আগ্রহী হয়ে ওঠে।

বিনিয়োগে আগ্রহ দেখালে একটি বিকাশ মার্চেন্ট নম্বর দেওয়া হয়। সেখানে বিনিয়োগ করে প্রতারণার প্রাথমিক ধাপে পা দেয় আগ্রহী ব্যক্তিরা। পর্যায়ক্রমে নানান বাহানায় প্রতারক চক্র আরও টাকা আদায় করে। একটা সময় বিনিয়োগের নামে স্বর্বস্বান্ত হওয়া লোকটা বুঝতে পারেন তিনি প্রতারক চক্রের ফাঁদে পড়েছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব কলের মাধ্যমে প্রতারক চক্র ফিশিং স্ক্যামের জন্য একজন ব্যক্তির পুরো নাম, মায়ের নাম, জন্ম তারিখ এবং ফোন নম্বরসহ নানান তথ্য নিয়ে থাকে। এতে তারা বিভিন্ন উপায়ে মানুষকে ফাঁদে জড়িয়ে ক্ষতি করে।

এছাড়া, ব্যক্তির ফোন কলগুলো রেকর্ড করে অন্যান্য মানুষের কাছে (আত্মীয়) একই কণ্ঠস্বরকে নকল করে উপস্থাপন করা হয়। এতে অনেকেই তাদের প্রতারণা ফাঁদে পড়ে অর্থ খুঁইয়েছে।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

চিত্র-বিচিত্র

ফোটানো কলের পানিতে দূর হয় ৯০ শতাংশ প্লাস্টিক কণা

Published

on

শেয়ারবাজার

টেপের পানিতে প্রায়ই ক্ষুদ্র প্লাস্টিকের কণা ভাসতে থাকে। যা খালি চোখে নিরূপণ করা অনেকটা দুরূহ ব্যাপার। আবার এই প্লাস্টিক কণার কিছু অংশ স্বাস্থ্যের জন্য বেশ ক্ষতিকর। তবে নতুন গবেষণায় দেখা গেছে, পানিকে পাঁচ মিনিট ফোটালে বেশির ভাগ মাইক্রোপ্লাস্টিকই দূর হয়ে যায়।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওশানিক অ্যান্ড অ্যাটমসফিরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (নোয়া) দেওয়া তথ্য বলছে, মাইক্রোপ্লাস্টিক হলো ০.২ ইঞ্চির (৫ মিলিমিটার) চেয়ে কম দৈর্ঘ্যের প্লাস্টিক কণা।

গবেষণা অনুসারে পানি পান করার আগে ফোটালে অন্তত ৯০ শতাংশ সম্ভাব্য ক্ষতিকর মাইক্রোপ্লাস্টিক দূর করা সম্ভব।

শিল্পবর্জ্য এবং ভোগ্যপণ্যের এই ভাঙা অবশিষ্টাংশগুলো এড়ানো মোটামুটি অসম্ভব। এগুলো সমুদ্র এবং বায়ুমণ্ডলজুড়ে থাকে। বোতলজাত জলের ভেতরে এবং এমনকি মানুষের মলের মধ্যেও এদের পাওয়া যায়।

ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের তথ্য অনুসারে মাইক্রোপ্লাস্টিক কীভাবে মানব স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে, তা নিয়ে গবেষণা এখনো একেবারেই অপ্রতুল এবং যা হয়েছে তাতেও সিদ্ধান্তে পৌঁছা যায়নি। এখন অবধি কিছু প্লাস্টিক ক্ষতিকর বলে মনে করা হয়। এদিকে পলিস্টাইরিনের মতো অন্যগুলো মানুষের কোষকে ধ্বংস করে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে।

লাইভ সায়েন্সের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি লেটারস জার্নালে ২৮ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত একটি নতুন গবেষণায় বিজ্ঞানীরা পানীয় জল থেকে ক্ষুদ্র প্লাস্টিক অপসারণের জন্য ব্যবহারিক ঘরোয়া পদ্ধতিগুলোর দিকে নজর দিয়েছেন। একটি বিষয়ে তারা বিশেষভাবে দৃষ্টি দেন, তা হলো জলকে ফুটিয়ে মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষণ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব কি না।

‘ফোটানো জল পান করা অনেক এশীয় দেশে একটি প্রাচীন ঐতিহ্য। মানব স্বাস্থ্যের জন্য এটি উপকারী বলে ধরা হয়। কারণ, ফোটানো হলে পানির কিছু রাসায়নিক এবং বেশির ভাগ জৈবিক পদার্থ দূর হয়ে যায়, নতুন গবেষণাপত্রে লেখা হয়। তবে, কলের জলে এনএমপি (ন্যানো/মাইক্রোপ্লাস্টিক) অপসারণে ফুটানো কার্যকর কি না—তা এখনো স্পষ্ট নয়।’

পরীক্ষার জন্য গবেষকেরা ট্যাপের জলের এমন নমুনাগুলোর তৈরি করেছেন, যেখানে মাইক্রোপ্লাস্টিক পলিস্টাইরিন, পলিথিলিন এবং পলিপ্রোপিলিনের পাশাপাশি অন্য সাধারণ খনিজ পদার্থের উপস্থিতি আছে। গবেষকেরা ক্যালসিয়াম কার্বনেটের ঘনত্ব নিয়ন্ত্রণ করে জলের নমুনার ‘হার্ডনেস’ বা খরতা পরিবর্তন করেন। খর পানিতে উচ্চ মাত্রায় খনিজ উপাদান রয়েছে।

নমুনাগুলোকে ৫ মিনিট উত্তপ্ত করার পরে এবং সেগুলোকে শীতল করার জন্য রেখে দেওয়ার পর গবেষকেরা মাইক্রোপ্লাস্টিকের পরিমাণে মারাত্মক হ্রাস লক্ষ্য করেন। হার্ডওয়্যাটার বা কঠিন জলের বেলায় মাইক্রোপ্লাস্টিকগুলোতে প্রায় ৯০ শতাংশ হ্রাস পায়। কারণ, জলের ক্যালসিয়াম কার্বোনেট উচ্চ তাপমাত্রায় শক্ত হয়ে গিয়ে প্লাস্টিকের কণাগুলোকে আটকে রাখে।

গবেষকেরা বলছেন, কঠিন ক্যালসিয়াম অপসারণের জন্য একটি সাধারণ কফি ফিল্টারের পাশাপাশি এই পদ্ধতিটি ব্যবহার করা স্বাস্থ্যের জন্য সম্ভাব্য ক্ষতিকারক কণাগুলো অপসারণের একটি সহজ উপায় হতে পারে।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

চিত্র-বিচিত্র

বিশ্বের দ্রুততম ১০ ট্রেন ও গতির পরিমাণ

Published

on

শেয়ারবাজার

আধুনিক যাতায়াত ব্যবস্থায় দ্রুত গতির ট্রেনগুলো প্রযুক্তিগত উৎকর্ষের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। সাধারণত যেসব ট্রেন ঘণ্টায় কমপক্ষে ২০০ কিলোমিটার গতিতে চলে সেগুলোকে দ্রুতগতির ট্রেন বলা হয়। ১৯৬৪ সালে জাপানে প্রথম দ্রুত গতির রেল ব্যবস্থা চালু হয়, যা বুলেট ট্রেন নামে পরিচিত। তারপর থেকে অনেক দেশ দ্রুত গতির ট্রেন তৈরি করেছে।

এই র‍্যাঙ্কিংটি বাণিজ্যিক কার্যক্রম, সর্বোচ্চ রেকর্ড গতি, সাধারণ দিনে চলাচলের সময় সর্বাধিক গতি ও যুগান্তকারী প্রযুক্তির বিষয় সহ বেশ কয়েকটি মানদণ্ডের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে। খবর র‍্যাংকরেড, সিএনএন।

চলুন দেখে নেওয়া যাক বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুততম ১০টি ট্রেন সম্পর্কে।

১. এলজিরো সিরিজ শিনকানসেন

রেকর্ড গতি: ঘণ্টায় ৬০৩ কিলোমিটার
দৈনন্দিন চলার সময় সর্বোচ্চ গতি: ঘণ্টায় ৫০০ কিলোমিটার
জাপানের এলজিরো সিরিজের দ্রুত গতির ম্যাগলেভ ট্রেনটি বর্তমানে উন্নয়ন ও পরীক্ষামূলক পর্যায়ে রয়েছে। সেন্ট্রাল জাপান রেলওয়ে কোম্পানি ও রেলওয়ে টেকনিক্যাল রিসার্চ ইনস্টিটিউটের তৈরি এই ট্রেনে চৌম্বকীয় লেভিটেশন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে।

২. টিজিভি পিওএস

রেকর্ড গতি: ঘণ্টায় ৫৭৫ কিলোমিটার
দৈনন্দিন চলার সময় সর্বাধিক গতি: ঘণ্টায় ৩২০ কিলোমিটার
ফ্রান্সের টিজিভি পিওএস (ট্রেন আ গ্রান্দে ভিতেসে পেন্দুলেয়ার) ট্রেনটিতে যত দ্রুত গতিতে মোড় নেয়, তখনো ভেতরে যাত্রীরা আরামে বসে থাকতে পারেন। এর কারণ, ট্রেনটি মোড় ঘোরানোর সময় পেন্ডুলামের মতো কাঁত হয়ে যায়। এ জন্যই এই ফরাসি ট্রেনের নামে পেন্ডুলামের উল্লেখ রয়েছে।

ট্রেনটি দীর্ঘ সময় ধরে দ্রুত গতিতে চলতে পারে। এ কারণে এটা দূরপাল্লার ভ্রমণের জন্য বিশেষ উপযোগী।

৩. টিজিভি আটলান্টিক

রেকর্ড গতি: ঘণ্টায় ৫১৫ কিলোমিটার
দৈনন্দিন চলার সময় সর্বাধিক গতি: ঘণ্টায় ৩০০ কিলোমিটার
ফ্রান্সের জাতীয় রেল কোম্পানি চালিত টিজিভি আটলান্টিকের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয় ১৯৯০ সালে। এটি তখন বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুতগতির ট্রেন হিসেবে নতুন রেকর্ড সৃষ্টি করেছিল।

৪. সাংহাই ম্যাগলেভ

রেকর্ড গতি: ঘণ্টায় ৫০১ কিলোমিটার
দৈনন্দিন চলার সময় সর্বাধিক গতি: ঘণ্টায় ৪৩১ কিলোমিটার
জার্মানির কারিগরি সহায়তায় নির্মিত চীনের সাংহাই ম্যাগলেভ বিশ্বের দ্রুততম বাণিজ্যিক ইলেকট্রিক ট্রেন।

এই রেল প্রকল্পটি সম্পূর্ণ করতে ১৩০ কোটি ডলার খরচ হয়। তবে এই ট্রেন পরিচালনার খরচ অনেক বেশি। সে অনুযায়ী যাত্রী সংখ্যা কম থাকার সাংহাই ম্যাগলেভ প্রতি বছর মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে।

৫. সিআরএইচ৩৮০বি/বিএল হেক্সি

রেকর্ড গতি: ঘণ্টায় ৪৮৭ দশমিক ৩ কিলোমিটার
দৈনন্দিন চলার সময় সর্বাধিক গতি: ঘণ্টায় ৩৮০ কিলোমিটার
২০১১ থেকে চায়না রেলওয়ে কর্পোরেশন চালিত চীনের আরেকটি দ্রুত গতির ট্রেন সিআরএইচ৩৮০বি/বিএল হেক্সি। ট্রেনটির অ্যারোডাইনামিক আকৃতি এবং বর্ধিত ট্র্যাকশন শক্তি এর কার্যক্ষমতাকে অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে।

৬. সিআরএইচ৩৮০এ হেক্সি

রেকর্ড গতি: ঘণ্টায় ৪৮৬ কিলোমিটার
দৈনন্দিন চলার সময় সর্বাধিক গতি: ঘণ্টায় ৩৫০ কিলোমিটার
দ্রুত গতির ট্রেনের জগতে চীনের প্রভাব লক্ষণীয়। সিআরএইচ৩৮০বি/বিএল হেক্সির পরই রয়েছে এর আগের বছর থেকে চালু হওয়া ট্রেন সিআরএইচ৩৮০এ হেক্সি।

পরবর্তীতে ট্রেনটিকে আবারো বিদেশী ডিজাইনের ভিত্তিতে ঢেলে সাজানো হয়।

৭. সিআরএইচ৩৮০ডি

রেকর্ড গতি: ঘণ্টায় ৪৮৩ কিলোমিটার
দৈনন্দিন চলার সময় সর্বাধিক গতি: ঘণ্টায় ৩৫০ কিলোমিটার
সিআরএইচ৩৮০ডি চীনের সিআরএইচ৩৮০ সিরিজের সিরিজের একটি উন্নত সংস্করণ। এই ট্রেনটিও জায়গা করে নিয়েছে সবচেয়ে দ্রুতগামী ট্রেনের তালিকায়।

৮. ফুকসিং সিআর৪০০এএফ/বিএফ

রেকর্ড গতি: ঘণ্টায় ৪২০ কিলোমিটার
দৈনন্দিন চলার সময় সর্বাধিক গতি: ঘণ্টায় ৩৫০ কিলোমিটার
২০১৬ সাল থেকে চায়না রেলওয়ে কর্পোরেশন ফুকসিং সিরিজের এএফ ও বিএফ নামে দুই ধরনের ট্রেন পরিচালনা করছে। দ্রুততম, কিন্তু ম্যাগলেভ নয় এমন ট্রেনের মধ্যে এগুলো অন্যতম।

৯. এভিই ক্লাস ১০৩

রেকর্ড গতি: ঘণ্টায় ৪০৪ কিলোমিটার
দৈনন্দিন চলার সময় সর্বাধিক গতি: ঘণ্টায় ৩১০ কিলোমিটার
স্পেনের রেনফে-অপারেডোরা ২০০৬ সাল থেকে এভিই ক্লাস ১০৩ ট্রেনটি পরিচালনা করে আসছে। এভিই’র পূর্ণরূপ ‘আল্টা ভেলোসিদাদ এস্পাওলা’, যার মানে ‘স্প্যানিশ দ্রুত গতি’ এবং এর সংক্ষিপ্ত রূপ এভই’র অর্থ ‘পাখি’। এভিই রেল সিস্টেম ইউরোপের দীর্ঘতম দ্রুত গতির রেল নেটওয়ার্ক। এটি ৩ হাজার ৯৬৬ কিলোমিটার জুড়ে রয়েছে, যা চীনের পরে বিশ্বের দ্বিতীয় দীর্ঘতম।

১০. সিআরএইচ৩সি

রেকর্ড গতি: ঘণ্টায় ৩৯৪ কিলোমিটার
দৈনন্দিন চলার সময় সর্বাধিক গতি: ঘণ্টায় ৩১০ কিলোমিটার
দ্রুততম ট্রেনের তালিকা জুড়ে চীনের আধিপত্য বেশ স্পষ্ট। এরইমধ্যে এখানে আবার জায়গা করে নিয়েছে দেশটির সিআরএইচ৩সি মডেলের দ্রুত গতির আরেকটি ট্রেন। ২০০৮ থেকে চলমান ট্রেনটি বিশ্বের দ্রুততম বাণিজ্যিক ট্রেনগুলোর মধ্যে একটি।

২০২২ সালের শেষ নাগাদ চীনে ৪২ হাজার কিলোমিটারের দ্রুত গতির রেল নেটওয়ার্ক ছিল। যা বিশ্বের মোট নেটওয়ার্কের দুই-তৃতীয়াংশেরও বেশি। দ্রুতগামী ট্রেনের এই প্রতিযোগিতায় চীন তার সকল প্রতিযোগীকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে। অপরদিকে এই তালিকায় ক্রমাগত নতুন নতুন ট্রেনের নাম যোগ করে যাচ্ছে চীন।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

ফেসবুকে অর্থসংবাদ

২০১৮ সাল থেকে ২০২৩

অর্থসংবাদ আর্কাইভ

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০