Connect with us

অর্থনীতি

রোজার পণ্যের ওপর শুল্ক কমানোর ব্যাপারে কাজ করছি: এনবিআর চেয়ারম্যান

Published

on

ইবিএল ফার্স্ট

পবিত্র রমজান মাস সামনে রেখে ভোজ্যতেল, চিনি ও খেজুরের ওপর শুল্ক-কর কিছুটা কমাতে গত সোমবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) চিঠি পাঠিয়েছিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ওই চিঠির বিষয়ে এনবিআর কাজ করছে বলে জানিয়েছেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম।

আজ বৃহস্পতিবার কাস্টমস দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এনবিআরের চেয়ারম্যান এ কথা জানান। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এনবিআরের সম্মেলনকক্ষে এই সংবাদ সম্মেলন হয়।

এনবিআরের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেন, ‘রমজানে নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কিছু পণ্যের শুল্ক কমানোর প্রস্তাব করেছে। আমরা সেই প্রস্তাব পেয়েছি। এনবিআর এ নিয়ে কাজ করছে। শুল্ক কমানো হলে ভোক্তা পর্যায়ে পণ্য তিনটির দাম কমবে বলে মনে করা হচ্ছে।’

এর আগে গত রোববার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সভাপতিত্বে আন্তমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে নিত্যপণ্যের সরবরাহ, মজুত ও মূল্য পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে খাদ্য, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ, কৃষি ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীরা উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, বছরে ২০ লাখ টন চাহিদার চিনি আমদানিতে বর্তমানে পাঁচ ধরনের শুল্ক-কর আছে। প্রতি টন অপরিশোধিত চিনিতে আগে আমদানি শুল্ক ছিল নির্ধারিত তিন হাজার টাকা। গত নভেম্বরে তা কমিয়ে অর্ধেক, অর্থাৎ ১ হাজার ৫০০ টাকা করা হয়। এর বাইরে অপরিশোধিত চিনি আমদানিতে ১৫ শতাংশ ভ্যাট, ২ শতাংশ অগ্রিম আয়কর (এআইটি), ৩ শতাংশ অগ্রিম কর (এআইটি) ও ৩০ শতাংশ নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক (আরডি) আছে।

পরিশোধিত চিনিতে বর্তমানে আমদানি শুল্ক নির্ধারিত ৩ হাজার টাকা, ভ্যাট ১৫ শতাংশ, এআইটি ৫ শতাংশ, এআইটি ৫ শতাংশ ও আরডি আছে ৩০ শতাংশ। দুই ধরনের চিনিতে এ শুল্ক-কর কাঠামো আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এই দুই ধরনের চিনি আমদানিতেই ৩০ শতাংশ আরডি প্রত্যাহারের অনুরোধ করেছে এনবিআরকে।

বর্তমানে বছরে ২০ লাখ টন ভোজ্যতেলের চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে ২ লাখ টন স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত হয়, বাকি ১৮ লাখ টন আমদানি করতে হয়। ভোজ্যতেল আমদানির ওপর বর্তমানে ভ্যাট রয়েছে ১৫ শতাংশ। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় গতকাল বুধবার এনবিআরকে এই ভ্যাট ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করার অনুরোধ করেছে।

ভোজ্যতেলের মূল্য স্থিতিশীল রাখতে সয়াবিন ও পাম তেলের ওপর ২০২২ ও ২০২৩ সালজুড়ে কয়েক দফায় ভ্যাট ছাড় দিয়েছে সরকার। সর্বশেষ ভ্যাটছাড় সুবিধা ছিল গত বছরের ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত। আমদানি পর্যায়ে শুধু ৫ শতাংশ ভ্যাট ছিল। এরপর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় গত বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত ছাড়-সুবিধা বহাল রাখার অনুরোধ জানালেও এনবিআর আর তা মানেনি। ফলে বর্তমানে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আছে।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

অর্থনীতি

বিশ্বব্যাংকের এমডির সঙ্গে বৈঠকে অর্থমন্ত্রী

Published

on

ইবিএল ফার্স্ট

ঢাকায় সফররত বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) অ্যানা বেজার্ডের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। আজ রবিবার সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে মন্ত্রীর নিজ দপ্তরে এ বৈঠক চলছে।

বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার, ইআরডি সচিব মো. শাহরিয়ার কাদের ছিদ্দিকী, বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইসারসগ সংস্থাটির ঢাকা অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিস জানায়, অ্যানা বেজার্ড বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী এবং অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, সুশীলসমাজ এবং বেসরকারি খাতের নেতাদের সঙ্গে দেখা করার কথা রয়েছে। তার সঙ্গে রয়েছে দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইসার।

সংস্থাটি আরও জানায়, স্বাধীনতার পর বাংলাদেশকে সহায়তাকারী প্রথম উন্নয়ন সহযোগীদের মধ্যে বিশ্বব্যাংক ছিল অন্যতম। দেশ স্বাধীনের পর বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশে ৪১ বিলিয়নের বেশি প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এ ঋণের বেশিরভাগই অনুদান বা রেয়াতি ঋণ। বাংলাদেশে বর্তমানে বিশ্বব্যাংক গ্রুপের ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইডিএ) দ্বারা সমর্থিত বৃহত্তম চলমান কর্মসূচি রয়েছে।

কাফি

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অর্থনীতি

শিল্পের মূলধনি যন্ত্রপাতিতে কমেছে এলসি নিষ্পত্তি

Published

on

ব্যবসা খাতের প্রধান যে পাঁচ চ্যালেঞ্জ

ডলারের অভাবে আমদানি কমার ধারা অব্যাহত আছে। এর প্রভাবে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে নতুন শিল্প স্থাপন ও উৎপাদন। চলতি অর্থবছরের জানুয়ারি পর্যন্ত সাত মাসে এলসি নিষ্পত্তি কমেছে প্রায় সাড়ে ১৫ শতাংশ। এ সময়ে শিল্পে ব্যবহৃত কাঁচামালে কমেছে প্রায় ২৮ শতাংশ। আর মূলধনি যন্ত্রপাতিতে কমেছে সাড়ে ২৬ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ পরিসংখ্যানে এমন তথ্য উঠে এসেছে।

বিশ্লেষকদের মতে, শিল্প উৎপাদন, নতুন কারখানা স্থাপন ও বিনিয়োগের অবস্থা বোঝার অন্যতম একটি উপায় হচ্ছে কাঁচামাল ও মূলধনি যন্ত্রপাতির আমদানি পরিস্থিতি দেখা। ডলার সংকটের কারণে ২০২২ সালের জুলাই থেকে এলসি খোলায় কড়াকড়ি করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বাড়তি দর দিয়েও অনেকে এখন এলসি খুলতে পারছেন না। কেন্দ্রীয় ব্যাংকও ডলার সংস্থান ছাড়া ব্যাংকগুলোকে এলসি খুলতে নিষেধ করেছে। এর মধ্যে বিশ্ববাজারে সুদহার অনেক বেড়েছে। ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ে ছিল নানা অনিশ্চয়তা। ফলে ট্রেডিং খাতের প্রভাবশালীরা ছাড়া অন্যরা তেমন এলসি খুলতে পারেননি। যে কারণে নতুন শিল্প স্থাপনের অন্যতম অনুষঙ্গ মূলধনি যন্ত্রপাতি এবং শিল্পে ব্যবহৃত কাঁচামাল আমদানির এলসি নিষ্পত্তি কমেছে সবচেয়ে বেশি হারে। যদিও কিছুটা আশার বিষয় হলো, অনেক দিন পর জানুয়ারিতে মূলধনি যন্ত্রপাতির জন্য নতুন এলসি খোলা বেড়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত জানুয়ারি পর্যন্ত এলসি নিষ্পত্তি হয়েছে ৩ হাজার ৯৬৫ কোটি ডলারের। আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় যা ১৫ দশমিক ৩৭ শতাংশ কম। গত অর্থবছর এলসি নিষ্পত্তি কমেছিল ২০ দশমিক ১৪ শতাংশ। গত জানুয়ারি পর্যন্ত ভোগ্যপণ্যের এলসি নিষ্পত্তি কমেছে ২০ দশমিক ১৯ শতাংশ। এলসি নিষ্পত্তি কমেছে মধ্যবর্তী পণ্যে ১০ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ, পেট্রোলিয়ামে ৪ দশমিক ১৭ শতাংশ এবং অন্যান্য পণ্যে ১ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ।

প্রথম সাত মাসে সব মিলিয়ে মোট ৩ হাজার ৯২৬ কোটি ডলারের এলসি খোলা হয়েছে। আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় যা ২ দশমিক ৯৫ শতাংশ কম। গত অর্থবছর এলসি খোলা কমেছিল ৩১ দশমিক ১৯ শতাংশ। অবশ্য জানুয়ারি পর্যন্ত মূলধনি যন্ত্রপাতির এলসি খোলা বেড়েছে ১ দশমিক ৭৪ শতাংশ। আর অন্যান্য পণ্যের এলসি বেড়েছে ১১ দশমিক ৭০ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, ডলার সংকট কাটাতে নানা উদ্যোগ নিলেও তেমন কাজ হচ্ছে না। আবার ডলারের দরও স্থিতিশীল হচ্ছে না। ব্যাংকগুলো এখনও রেমিট্যান্স কিনছে ১২২ থেকে ১২৩ টাকা দরে। আর আমদানিকারকদের ১২৫ টাকা পর্যন্ত দরে ডলার কিনতে হচ্ছে। যদিও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মধ্যস্থতায় এখন ডলারের দর ঠিক করা আছে ১১০ টাকা।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অর্থনীতি

কর্মসংস্থান বাড়াতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বেসরকারি খাতের চুক্তি

Published

on

ইবিএল ফার্স্ট

বাংলাদেশের তরুণদের কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়াতে এবং দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য একসঙ্গে কাজ করতে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে ইউএসএআইডি এবং বাংলাদেশের বেসরকারি খাতের প্রতিনিধিরা।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) ঢাকায় মার্কিন দূতাবাস এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়।

এতে জানানো হয়, বাংলাদেশের যুব সংগঠন এবং বেসরকারি খাতের নেতারা যেন একস‌ঙ্গে কাজ করতে পারে সেজন্য তাদের মধ্যে নতুন অংশীদারিত্ব স্থাপনের জন্য কাজ করছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির উন্নয়ন সংস্থা ইউএসএআইডি-এর মাধ্যমে বাস্তবায়িত এ উদ্যোগের উদ্দেশ্য হলো যুবদের কর্মসংস্থানের মাধ্যমে দেশের সমৃদ্ধি অর্জন।

এরই অংশ হিসেবে কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়ানোর লক্ষ্যে বাংলাদেশের তরুণদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য একস‌ঙ্গে কাজ করতে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে ইউএসএআইডি এবং বাংলাদেশের বেসরকারি খাতের প্রতিনিধিরা।

এ সময় ইউএসএআইডি থেকে উপস্থিত ছিলেন এশিয়া অঞ্চলের অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাডমিনিস্ট্রেটর মাইকেল শিফার, ইউএসএআইডি বাংলাদেশের মিশন ডিরেক্টর রিড অ্যাশলিম্যান।

বেসরকারি খাতের প্রতিনিধি হিসেবে সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেছেন শিক্ষা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান শিখো’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহীর চৌধুরী।

মা‌র্কিন দূতাবাস জানায়, ডিজিটাল পেমেন্ট প্রতিষ্ঠান ভিসা, শিক্ষা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান শিখো’র মতো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জাগো এবং বাংলাদেশ ইয়ুথ লিডারশিপ সেন্টারের মতো বাংলাদেশের যুব সংগঠনগুলোর সংযোগ ঘটাতে ইউএসএআইডি’র উদ্যোগে দেশে প্রথম বারের মতো অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘ইয়ুথ-প্রাইভেট সেক্টর মার্কেটপ্লেস’। এর ফলে দেশের কর্মশক্তি আধুনিকায়নের জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা চিহ্নিত করে, সে বিষয়ে দক্ষ হওয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশের তরুণরা দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে আরও সক্রিয়ভাবে অবদান রাখতে সক্ষম হবে।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অর্থনীতি

ঢাকায় বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক

Published

on

ইবিএল ফার্স্ট

বিশ্বব্যাংকের অপারেশন্স সম্পর্কিত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আনা বিয়ার্ড এক দিনের সফরে ঢাকায় এসেছেন। শনিবার সন্ধ্যায় তিনি ঢাকায় পৌঁছান। এটি বাংলাদেশে তাঁর প্রথম দাপ্তরিক সফর।

বিশ্বব্যাংক ঢাকা কার্যালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, সফরকালে আনা বিয়ার্ড প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে দেখা করবেন। এ ছাড়া বেশ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ সরকারি কর্মকর্তা, সিভিল সোসাইটি ও বেসরকারি খাতের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি। তাঁর সফরসঙ্গী হিসেবে আছেন বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইজার।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্বাধীনতার পর এ দেশের প্রথম উন্নয়ন সহযোগীদের একটি হচ্ছে বিশ্বব্যাংক। সংস্থাটি এ পর্যন্ত বাংলাদেশকে ৪১ বিলিয়ন ডলার অর্থায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, যার বেশির ভাগই সহজ শর্তের ঋণ ও অনুদান। বিশ্বব্যাংক গ্রুপের ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের (আইডিএ) সবচেয়ে বড় কর্মসূচি চলছে বাংলাদেশে।

বিশ্বব্যাংকের ওয়েবসাইটের তথ্যমতে, সংস্থাটির সর্বোচ্চ পদ হচ্ছে প্রেসিডেন্ট। তার পর আছেন একজন জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপনা পরিচালক। এর পর ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদে রয়েছেন তিনজন। তাদের একজন এই আনা বিয়ার্ড।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অর্থনীতি

লিড স্বীকৃতি পেলো দেশের আরও ২ পোশাক কারখানা

Published

on

ইবিএল ফার্স্ট

লিডারশিপ ইন এনার্জি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল ডিজাইন বা লিড স্বীকৃতি পেয়েছে দেশের আরও দুটি পরিবেশবান্ধব পোশাক কারখানা। যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিল (ইউএসজিবিসি) কারখানা দুটিকে লিড প্লাটিনাম স্বীকৃতি দিয়েছে।

লিড প্লাটিনাম স্বীকৃতি পাওয়া কারখানা দুটি হলো টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের গোরাইয়ে অবস্থিত কমফিট, ইকো ভিলে এবং নারায়ণগঞ্জের কায়েমপুরে অবস্থিত ফকির ইকো নিটওয়্যারস লিমিটেড। নতুন স্বীকৃতি পাওয়া উভয় কারখানাই ৮৫ পয়েন্ট নিয়ে প্লাটিনাম সনদ পেয়েছে।

বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) আজ শনিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

এ নিয়ে দেশের লিড সনদ পাওয়া কারখানার সংখ্যা দাঁড়াল ২০৯টিতে। এর মধ্যে প্লাটিনাম মানের কারখানা ৭৯টি ও গোল্ড মানের কারখানা ১১৬টি। এ ছাড়া ১০টি সিলভার ও ৪টি সার্টিফায়েড কারখানা রয়েছে।

বিজিএমইএর সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বর্তমানে বিশ্বের শীর্ষ ১০০টি পরিবেশবান্ধব কারখানার মধ্যে ৫৪টি এবং শীর্ষ ২০টি লিড সনদপ্রাপ্ত গ্রিন কারখানার ১৮টিই বাংলাদেশে অবস্থিত।

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, বাংলাদেশে লিড স্বীকৃত পরিবেশবান্ধব কারখানার সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। এই সংখ্যা দেশের টেকসই তৈরি পোশাকশিল্পের বিষয়ে আমাদের যে প্রতিশ্রুতি রয়েছে, তার প্রমাণ। আমাদের সদস্যরা পরিবেশবান্ধব চর্চা, জ্বালানি সাশ্রয়ী পদক্ষেপ ও পানির ব্যবহার কমানোর মতো উদ্যোগ গ্রহণ করে যাচ্ছেন। এ কাজে ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলোও এগিয়ে আসছে এবং বিনিয়োগ করছে; যা খুবই ইতিবাচক।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন
ইবিএল ফার্স্ট
পুঁজিবাজার7 mins ago

ইবিএল ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের সর্বোচ্চ দরপতন

ইবিএল ফার্স্ট
পুঁজিবাজার9 mins ago

দর বৃদ্ধির শীর্ষে মনোস্পুল পেপার

বেস্ট হোল্ডিংস লিমিটেড
পুঁজিবাজার42 mins ago

লেনদেনের শীর্ষে বেস্ট হোল্ডিংস

ইবিএল ফার্স্ট
পুঁজিবাজার44 mins ago

২৪৩ কোম্পানির দরপতন, কমেছে লেনদেন

ইবিএল ফার্স্ট
জাতীয়1 hour ago

আইজিপি ব্যাজ পাচ্ছেন ৪৮৮ পুলিশ সদস্য

ইবিএল ফার্স্ট
আইন-আদালত1 hour ago

তথ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সংসদে কিছু আইন আসবে: আইনমন্ত্রী

ইবিএল ফার্স্ট
আন্তর্জাতিক1 hour ago

রমজানে ১০ হাজার পণ্যের দাম কমেছে আমিরাতে

ইবিএল ফার্স্ট
জাতীয়2 hours ago

মঙ্গলবার থেকে হাসপাতালগুলোতে অভিযান শুরু: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ইবিএল ফার্স্ট
কর্পোরেট সংবাদ2 hours ago

মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ডিরেক্ট সেলস টিমের প্রশিক্ষণ

ইবিএল ফার্স্ট
কর্পোরেট সংবাদ2 hours ago

রূপালী ব্যাংকের বরিশাল বিভাগীয় ব্যবসায়িক সম্মেলন

Advertisement
Advertisement

ফেসবুকে অর্থসংবাদ

২০১৮ সাল থেকে ২০২৩

অর্থসংবাদ আর্কাইভ

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯