Connect with us

চিত্র-বিচিত্র

কেএনএফ এত শক্তিধর হয়ে উঠলো যেভাবে

Published

on

পুঁজিবাজারে

বাংলাদেশের পার্বত্য জেলা বান্দরবানে চলতি মাসের শুরুতে ষোল ঘণ্টার ব্যবধানে দুটি ব্যাংকের তিনটি শাখায় ডাকাতির ঘটনার পর কুকি চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট বা কেএনএফ-এর বিরুদ্ধে যৌথ অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনীগুলো। এ ঘটনার দু বছর আগেই সামাজিক মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করেছিলো সরকারের দৃষ্টিতে ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন কেএনএফ’। তবে এক পর্যায়ে জঙ্গি সংগঠনের সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেয়ার অভিযোগে র‍্যাবের বড় ধরনের অভিযানের মুখে পড়ে তারা।

এরপর নানা ঘটনা প্রবাহের পর বান্দরবান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে গঠিত শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটির সঙ্গে আলোচনা চলমান থাকা অবস্থায় চলতি মাসের শুরুতে রুমা ও থানচিতে ব্যাংকে হামলা, ব্যাংক ম্যানেজার অপহরণ ও অস্ত্র লুটের ঘটনার পর এ প্রশ্নও উঠছে যে হুট করে এ শক্তি কোথায় পেলো কেএনএফ।

সংগঠনটি তাদের আনভেরিফায়েড ফেসবুক পাতায় এক বিবৃতিতে দাবি করেছে, প্রতিবেশী একটি দেশে সশস্ত্র প্রশিক্ষণ নিয়েছে তাদের সদস্যরা। যদিও এটি আদৌ তাদের বক্তব্য কি-না তা নিরপেক্ষ কোন সূত্র থেকে যাচাই করা সম্ভব হয়নি। তবে নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা মনে করছেন অর্থ সংকটে পড়েই দেশি অস্ত্র নিয়ে ওই হামলা করেছে কেএনএফ। শান্তি আলোচনা চলাকালে বান্দরবানে ‘নিরাপত্তা ব্যবস্থায় শিথিলতা’ আসাটাও তাদের হামলার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পারে বলে তারা ধারণা করছেন।

যদিও বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনীর চোখ এড়িয়ে আঞ্চলিক কিছু গোষ্ঠীর সহায়তা পেয়ে শক্তি সঞ্চয় করাটাও কেএনএফ-এর জন্য অস্বাভাবিক নয় বলেও তারা কেউ কেউ মনে করেন। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ সীমান্ত সংলগ্ন মিয়ানমারের চিন প্রদেশের কুকি চিনদের দিকেই ইঙ্গিত করেন বিশ্লেষকরা।

২০২২ সালের অক্টোবর থেকে কেএনএফ ও জঙ্গি বিরোধী যে ব্যাপক অভিযান র‍্যাব পরিচালনা করেছিলো তাতে সংগঠনটি দুর্বল হয়ে পড়েছিলো বলেই মনে করা হচ্ছিলো। র‍্যাব তখন সংগঠনটির বিরুদ্ধে জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ দেয়ার অভিযোগ এনেছিলো। যদিও কেএনএফ তাদের আনভেরিফায়েড ফেসবুক পাতায় বরাবরই এ অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে।

কিন্তু এতো বড় অভিযানের পর শান্তি আলোচনার মধ্যে এভাবে দিনে দুপুরে হামলার শক্তি কেএনএফ কীভাবে পেতে পারে– এমন এক প্রশ্নের জবাবে বান্দরবানের জেলা প্রশাসক শাহ্ মোজাহিদ উদ্দিন বলছেন, “পাহাড়ে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে। অপরাধীদের আটক করা হচ্ছে। তারা কীভাবে করলো বা কেউ তাদের সহায়তা করেছে কি-না সবকিছুই খতিয়ে দেখা হবে”।

এর আগে ঘটনার পরে গত সাতই এপ্রিল পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে গিয়ে সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের বলেছিলেন ‘শান্তি আলোচনা শুরুর পর তাদের (কেএনএফ) বিশ্বাস করেছিলাম, কিন্তু তারা যেহেতু বিশ্বাসভঙ্গ করেছে, সুতরাং আর ছাড় দেওয়ার সুযোগ নেই’।

কেএনএফের হুট করে আক্রমণ যেভাবে

গত নভেম্বর থেকে সরাসরি শান্তি আলোচনায় অংশ নিচ্ছিলো কেএনএফ। এর মধ্যেই হুট করে ব্যাংকে হামলা করে ব্যাংক ম্যানেজার অপহরণ ও অস্ত্র লুটের ঘটনায় বিস্মিত করেছে অনেককেই। তবে বিশ্লেষকরা কেউ কেউ মনে করেন বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনগুলো অনেক সময় আলোচনার টেবিলে নিজেদের গুরুত্ব বোঝাতে এমন ঘটনা ঘটান, যার নজির এই অঞ্চলের দেশগুলোতে আছে।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) শামীম কামাল বলছেন অনেক জায়গা থেকে সেনা ক্যাম্প প্রত্যাহারের পর অনেকদিন ধরেই সেখানে কাউকে দায়িত্ব দেয়া হয়নি, এমনকি এপিবিএন যাওয়ার কথা থাকলেও সেটিও হয়নি। তাদের প্রায় চারশো লোকের ভরণ পোষণসহ নানা খরচের জন্য টাকার জন্যই তারা ডেসপারেট হয়ে ব্যাংকে হামলা করেছে বলে আমি মনে করি। সেনাবাহিনী থাকলে হয়তো এত সহজে এটি করতে পারতো না তারা।

আবার শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটির সাথে আলোচনার পর সেখানে নিরাপত্তায় কোন ঘাটতি থাকলে তারও সুযোগ নেয়ার চিন্তা থেকে হামলাটি হতে পারে বলে মনে করেন অনেকে। কিন্তু তাদের শক্তিটা এলো কোথা থেকে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “তারা তো স্থানীয় মানুষ। কোথায় কোথায় নিরাপত্তা বাহিনী আছে সব তাদের জানা। কোথায় পুলিশ বা আনসার কাজ করছে, কতজন আছে সব তারা দেখছে। হামলার ভিডিওতে তো দেখা গেছে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা করেছে তারা। স্বয়ংক্রিয় কোন অস্ত্র নেই। তার মানে শক্তির চেয়ে সময় ও কৌশল এখানে বেশি ভূমিকা রেখেছে”।

এদিকে কেএনএফের প্রধান সমন্বয়ক রোয়ান লিন বম ও চেওসিম বমকে গত সাতই এপ্রিলই আটকের খবর দিয়েছে র‍্যাব। এর আগে ও পরে আরও অনেককে আটক করে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। যদিও কেএনএফ তাদের আনভেরিফায়েড ফেসবুক পাতায় আটককৃতদের সাধারণ বম জনগোষ্ঠীর সদস্য হিসেবে দাবি করেছে। শামীম কামাল বলছেন বিচ্ছিন্নতাবাদীদের বৈশিষ্ট্যই হলো সাধারণ মানুষের সঙ্গে মিশে থাকা।

আরেকজন নিরাপত্তা বিশ্লেষক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) মো. বায়েজিদ সারোয়ার বলছেন যে অভিযানের সঙ্গে জড়িতদের এ কারণেই খুব সতর্ক থাকা দরকার যাতে মানুষের মধ্যে মিশে থাকা অপরাধীকে সঠিকভাবে যাচাই করে আটক করা সম্ভব হয়। তার মতে হুট করে কেএনএফ যে শক্তি প্রদর্শন করতে চেয়েছে তার কয়েকটি কারণ থাকতে পারে। এগুলো হলো আলোচনার টেবিলে নিজেদের শক্তি বোঝানোর চেষ্টা, আঞ্চলিক শক্তির প্রভাব কিংবা নিরাপত্তায় শিথিলতা।

“তারা হয়তো এসেস করে দেখেছে যে শান্তি আলোচনা চলছে তা নিরাপত্তা কিছুটা শিথিল। আবার এটিও কিছুটা সত্য যে ভিন্ন ধরনের ভূ প্রাকৃতিক অবস্থানের কারণে ওই অঞ্চলে বিদ্রোহী বা গেরিলারা ইচ্ছে করলে এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে পারে,” বলছিলেন মি. সারোয়ার।

তিনি বলেন, “শো অফ করার জন্যও হতে পারে। আবার অনেক সময় বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনগুলো আলোচনার টেবিলে শক্তি দেখানোর জন্য এ ধরনের কাজ করে থাকে। এমন নজির আছে। অবশ্য আগে পার্বত্য চট্টগ্রামে যখন এ ধরনের আলোচনা হতো তখন বিশেষ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়া হতো”।

তবে গত দু’বছরের বেশি সময় ধরে কেএনএফ ফেসবুকে তাদের তৎপরতার বিবরণ দিয়ে আসছে। সেখানে তারা দাবি করেছে তারা কীভাবে কোথা থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে সশস্ত্র দল তৈরি করেছে।

মিয়ানমারের চীন প্রদেশের তৃতীয় বৃহত্তম জনগোষ্ঠী হলো কুকিরা। অর্থ ও রসদ সরবরাহ না থাকলে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন পরিচালনা কঠিন। সে কারণেই কেএনএফ এর হুট করে শক্তি সঞ্চয়ের পেছনে অনেকে আঞ্চলিক সহায়তার কথাও বলে থাকেন। তবে বিচ্ছিন্নতাবাদী এই সংগঠনের নামে থাকা আনভেরিফায়েড ফেসবুক পাতায় অবশ্য দাবি করা হয়েছে যে কেএনএফ শুরুতে সরকারের নিবন্ধিত একটি সংগঠন হিসেবে যাত্রা শুরু করলেও ২০১৭ সালে ‘সশস্ত্র শাখায়’ রূপ নেয়।

তারা আরও দাবি করেছে যে, “পরবর্তীতে মনিপুর রাজ্যের এবং মিয়ানমারের বিদ্রোহী গ্রুপগুলোর সাথে সম্পর্কোন্নয়ন হয়। অতঃপর একই বছরে সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটি সংগঠনের কয়েক শত সদস্যকে মনিপুর রাজ্যে সামরিক প্রশিক্ষণে পাঠানো হয়। পরবর্তীকালে শতাধিক সক্রিয় সদস্য কাচিন, কারেন প্রদেশ এবং মনিপুর রাজ্যে আবার প্রশিক্ষণে পাঠায়”।

তবে বিবিসি কোন নিরপেক্ষ সূত্র থেকে গত আটই এপ্রিল কেএনএফ এর ফেসবুক পাতায় দেয়া এই বিবৃতির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি।

শক্তি প্রদর্শন নাকি দুর্বলতা প্রকাশ

শামীম কামাল বলছেন তিনি মনে করেন হুট করে হামলার মাধ্যমে শক্তির চেয়ে নিজেদের দুর্বলতার বেশী বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছে কেএনএফ। তিনি বলেন, দেখুন হামলাকারীরা বেথেলপাড়া পাড় হয়ে রুমা পাহাড়ে চলে গেলে তাদের খুঁজে পাওয়া কঠিন হতো। ভিডিওতে দেখুন কারও হাতে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নেই। সব দেশী অস্ত্র। আবার এত বড় ঘটনার পর লুকালো বান্দরবান শহরে। এসব কিছু বিশ্লেষণ করলে মনে হয় তাদের প্রকট সাংগঠনিক দুর্বলতাই ফুটে উঠেছে এবারের হামলায়।

এছাড়া বারই এপ্রিল বিজু বা বৈসাবি উৎসব শুরুর আগে ব্যাংকে হামলার ঘটনা পার্বত্য অঞ্চলে সাধারণ মানুষের মধ্যেও কেএনএফকে কিছুটা নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া তৈরি করেছে বলে মনে করেন অনেকে। পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলায় নদী-হ্রদের পানিতে ফুল ভাসিয়ে বা ‘ফুল বিজু’ উদযাপনের মধ্য দিয়ে মঙ্গলবার তিন দিনের এ বিজু উৎসব শুরু হয়েছে।

রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী খুমিদের সাংক্রাই, ত্রিপুরাদের বৈসু, চাকমাদের বিজু, মারমাদের সাংগ্রাই, ম্রোদের চানক্রান, খিয়াংদের সাংগ্রান ও তঞ্চঙ্গ্যাদের বিষুর আদ্যাক্ষর নিয়ে দাঁড়িয়েছে ‘বৈসাবি’। তাই এই উৎসবকে সম্মিলিতভাবে ‘বৈসাবি’ বলে অনেকেই।

বায়েজিদ সারোয়ার বলছেন বৈসাবি উৎসব ওই অঞ্চলের মানুষের জন্য খুবই আবেগের ও গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু কেএনএফ -এর হামলার জের ধরে তৈরি হওয়া পরিস্থিতির কারণে মানুষ এবার এই উৎসব ঠিক মতো করতে পারছে না।

এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

চিত্র-বিচিত্র

মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডস পেলেন ১৫ সাংবাদিক

Published

on

পুঁজিবাজারে

বারো ক্যাটাগরিতে ১৮তম মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডস পেলেন ১৫ সাংবাদিক। সোমবার (২২ এপ্রিল) বিকেলে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলের গ্র্যান্ড বলরুমে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাদের এ অ্যাওয়ার্ড তুলে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী পুরস্কার বিজয়ীদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, শিশুদের প্রয়োজনগুলো সবার সামনে তুলে ধরার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। শিশু সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো নিয়ে তাদের অন্তর্দৃষ্টিমূলক বিশ্লেষণ, সমাজ ও নীতিনির্ধারক উভয়ের জন্য গুরুত্বপূর্ণ পথনির্দেশনা হিসেবে কাজ করে। যার ফলে শিশু অধিকারগুলো নিশ্চিতে কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়া সহজ হয়।

তিনি বলেন, পুরস্কারবিজয়ী ও পুরস্কারের জন্য মনোনীত সাংবাদিকেরা যে গল্প তুলে ধরেছেন, তাতে শিশু ও তাদের জীবনের ওপর প্রভাব বিস্তারকারী নানা জরুরি বিষয় উঠে এসেছে। যেমন জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত শিশুর পরিস্থিতি; পিরিয়ডকালীন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা মেনে চলার ক্ষেত্রে কন্যাশিশুদের চ্যালেঞ্জসমূহ; পথশিশুদের অবস্থা এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর শিশুদের গল্প।

বাংলাদেশে ইউনিসেফের রিপ্রেজেন্টেটিভ শেলডন ইয়েট বলেন, আমরা শিশুদের কথাগুলো শোনা, তাদের স্বপ্ন পূরণের সুযোগ করে দেওয়া এবং তাদের অধিকারগুলোর নিশ্চিত করার যে অঙ্গীকার রয়েছে তা পুনর্ব্যক্ত করছি।

ইউনিসেফ মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডস ২০২৩ বিজয়ীরা (১৮ বছর ও তদূর্ধ্ব) প্রিন্ট সাংবাদিকতা- শিক্ষা ও শিশু ক্যাটাগরিতে পেয়েছেন প্রথম আলোর আহমাদুল হাসান, ঢাকা পোস্টের মো. রাকিবুল হাসান তামিম, মো. জসীম উদ্দীন, মুছা মল্লিক, নজরুল ইসলাম, ঢাকা নোটের রবিউল আলম, দৈনিক প্রতিদিনের বাংলাদেশ এর সাধন কুমার সরকার, সিভয়েস ২৪ ডটকমের শারমিন রিমা, ট্রিবিউনের উদিসা ইসলাম।

ফটো সাংবাদিকতায় প্রথম আলোর মো. সাজিদ হোসেন এবং ভিডিও সাংবাদিকতায় যমুনা টেলিভিশনের মো. বনি আমিন ও ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের মো. সবুজ মাহমুদ পুরস্কার পেয়েছেন।

১৮ বছরের নিচে ইউনিসেফ চিলড্রেনস মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডস ২০২৩ বিজয়ীরা হলেন- আলোকচিত্র সাংবাদিকতায় দৈনিক আজকের সুন্দরবনের মো. সাফায়েত হোসেন শান্ত, ভিডিও সাংবাদিকতায় এটিএন বাংলার মো. মুজাহিদ ইসলাম, প্রিন্ট সাংবাদিকতায় ইকোনোমিক নিউজ২৪ ডটকমের মো. নাঈম ইসলাম।

বিচারক প্যানেলের একজন সদস্য এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. গীতিআরা নাসরিন বলেন, মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডস প্রতি বছর আমাদের শিশুদের অধিকার রক্ষার গুরু দায়িত্বের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। আমি আত্মবিশ্বাসী যে, সম্ভাবনাময় শিশু সাংবাদিকসহ আমাদের সাংবাদিক কমিউনিটি, বাংলাদেশে শিশুদের জীবনের ওপর প্রভাব বিস্তারকারী জরুরি বিষয়গুলো নিয়ে তাদের এই লেখা চালিয়ে যাবেন।

পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দ্যা ডেইলি স্টার পত্রিকার সম্পাদক মাহফুজ আনাম; বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক ড. মো. জাহাঙ্গীর আলম; শিক্ষাবিদ, ঔপন্যাসিক ও শিশুদের গল্প লেখক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল; ঢাকা ট্রিবিউন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক রিয়াজ আহমেদ এবং চলচ্চিত্র নির্মাতা ও পাঠশালা ইনস্টিটিউটের প্রভাষক শামীম আখতার। এ ছাড়াও, উপস্থিত ছিলেন ইউনিসেফের ন্যাশনাল অ্যাম্বাসেডর বিদ্যা সিনহা মীম ইউনিসেফের চাইল্ড অ্যাডভোকেটস এবং বিভিন্ন দাতা সংস্থা ও গণমাধ্যমের প্রতিনিধিবৃন্দ।

এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

চিত্র-বিচিত্র

ক্যালেন্ডারের পাতা মাটিতে পুঁতলেই গাছ!

Published

on

পুঁজিবাজারে

ক্যালেন্ডারের পাতা মাটিতে পুঁতে দিলে গাছ জন্মাবে এমন কথা হয়তো আগে কেউ শুনেনি। তবে কল্পিত এই ভাবনাকে বাস্তবে ফেসবুক ও অনলাইনে দেশি গয়নাসহ বিভিন্ন দৈনন্দিন ব্যবহার্য পণ্যের বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান ‘হরপ্পা’।

জানা যায়, ‘বনকাগজ’ নামের ভিন্ন এক কাগজে বাংলা বর্ষপঞ্জিকা তৈরি করছে প্রতিষ্ঠানটি। হাতে তৈরি রিসাইকেল করা বিশেষ ধরনের এ কাগজের ভেতর থাকে গাছের বীজ। ফলে মাস শেষ হওয়া ক্যালেন্ডারের পাতা কেউ ছিঁড়ে ফেলে দিলে এই পাতা থেকে গাছ জন্ম নিবে।

বনকাগজ উৎপাদনের খরচ বেশি, তাই ক্যালেন্ডারের দামও কিছুটা বেশি। কিন্তু, প্রকৃতি-পরিবেশের কথা চিন্তা করে এমন উদ্যোগ হাতে নিয়েছে এ অনলাইন প্রতিষ্ঠান।

বনকাগজ কী

বনকাগজ হলো পুরোনো কাগজ রিসাইকেল করে উৎপাদিত এক কাগজ। যেখানে গাছের বীজ থাকে। ব্যতিক্রমী পদ্ধতিতে বনকাগজ বানাতে হয়। বনকাগজ থেকে বানানো হয় বিশেষ ক্যালেন্ডার।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বনকাগজ তৈরিতে পরিত্যক্ত কাগজ টুকরো করে পানিতে ভিজিয়ে পুরোপুরি গলিয়ে মণ্ড তৈরি করতে হয়। পরে মণ্ড থেকে কাগজ তৈরির সময় বিশেষ পদ্ধতির মাধ্যমে এর ভেতরে বীজ দেওয়া হয়। এভাবে তৈরি হওয়ার ছয় মাসের মধ্যে কাগজ মাটিতে পুঁতে দিলে গাছ জন্মায়।

এ ধরনের কাগজেই ক্যালেন্ডার ছাপানো ভালো, কারণ ক্যালেন্ডারের ব্যবহার নির্দিষ্ট সময়ের জন্য। তেরো পাতার একটি ক্যালেন্ডারের প্রতিটির পাতার আয়ু এক মাস। মাস শেষে অপ্রয়োজনীয় হয়ে যাওয়া পাতাটি থেকে গাছের জন্ম হতে পারে।

এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

চিত্র-বিচিত্র

সোমালিয়ার জেলেরা যেভাবে জলদস্যু হয়ে উঠল

Published

on

পুঁজিবাজারে

সোমালিয়ার জলদস্যুদের কুখ্যাতি বিশ্বব্যাপী শ্রুত। কিন্তু দরিদ্র এ দেশটির অনেকের দস্যুবৃত্তিকে প্রায় পেশা হিসেবে বেছে নেওয়ার বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার (১২ মার্চ) মোজাম্বিকের মাপুতু বন্দর থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে যাওয়ার পথে এমভি আবদুল্লাহ নামক একটি বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজের নিয়ন্ত্রণ নেয় সোমালি জলদস্যুরা। চট্টগ্রামের কবির (কেএসআরএম) গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান এসআর শিপিং লিমিটেডের মালিকানাধীন এ জাহাজে ২৩ জন বাংলাদেশি নাবিক রয়েছেন।

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, জলদস্যুদের হাতে জিম্মি বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আব্দুল্লাহ’র নাবিকদের উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। তবে কবে তাদের উদ্ধার করা যাবে, সেটা এখনই বলা যাচ্ছে না।

২০১০ সালেও একই শিপিং কোম্পানির মালিকানাধীন এমভি জাহান মনি সোমালি জলদস্যুদের ছিনতাইয়ের শিকার হয়েছিল। ওইসময় জাহাজে ২৫ ক্রু এবং ক্যাপ্টেনের স্ত্রীসহ মোট ২৬ ব্যক্তি ছিলেন। ১০৫ কোটি টাকা মুক্তিপণ দিয়ে ১০০ দিন পর ওই ব্যক্তিদের ফিরিয়ে আনা হয়।

সোমালিয়ার জলদস্যুদের কুখ্যাতি বিশ্বব্যাপী শ্রুত। কিন্তু দরিদ্র এ দেশটির অনেকের দস্যুবৃত্তিকে প্রায় পেশা হিসেবে বেছে নেওয়ার বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে।

জীর্ণ পোশাক, ভারী অস্ত্র, জিপিএস ফোন তাদের এ বেশভূষা দেখে মনে করার উপায় নেই তারা কেবল মরিয়া হয়ে দস্যুবৃত্তির পথে নেমেছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, সোমালিয়ায়, বিশেষ করে সোমালি উপকূলে যথাযথ আইন-শৃঙ্খলা ও নিরাপত্তা পরিস্থিতি না থাকারই সুযোগ নেয় এ জলদস্যুরা।

তবে টাইম ম্যাগাজিনের এক প্রতিবেদনের তথ্যমতে, সোমালিয়ায় করুণ পরিস্থিতির সুযোগ কিন্তু কেবল এ জলদস্যুরাই নেয়নি। বরং বাকি বিশ্বের অবহেলা ও স্বেচ্ছাচারিতাও এ দস্যুবৃত্তি উত্থানের একটি অন্যতম কারণ।

১৯৯১ সালে গৃহযুদ্ধের ফলে সোমালিয়ায় সর্বশেষ কার্যকর সরকারটিরও পতন ঘটে। আফ্রিকা মহাদেশের সবচেয়ে বড় উপকূলের মালিক সোমালিয়া। সরকারি বিধিনিষেধ ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকায় তিন হাজার ৩৩০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এ উপকূলীয় অঞ্চলের সমুদ্রে বিদেশি নৌযানের লুটাপাটের বিপুল নজির রয়েছে।

সেই ২০০৬ সালেই জাতিসংঘের একটি রিপোর্টে বলা হয়েছিল, সোমালিয়ায় কোনো সক্রিয় কোস্টগার্ড না থাকায় দেশটির জলসীমায় এসে বিদেশি নৌযান মাছ ও সিফুড আহরণ করে নিয়ে যায়। আর প্রতি বছর সোমালিয়ার সমুদ্র থেকে কেবল ৩০০ মিলিয়ন ডলারেরই সিফুড লুট করে বিদেশি গোষ্ঠীগুলো।

এমন পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছিলেন উপকূলীয় এলাকায় বাস করা সোমালি জনগণ। নিজেদের সমুদ্রে মাছ ধরতে গেলে তাদেরকে সারাক্ষণ সতর্ক থাকতে হতো বহিঃশত্রুর আক্রমণের বিরুদ্ধে। এভাবে বিদেশি ট্রলারের হামলা থেকে রক্ষা পেতে ১৯৯০-এর দশকে সোমালিয়ায় প্রথম জলদস্যুদলের বিস্তার ঘটে।

কোনো একসময়ে দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, স্পেনের মতো দেশের মাছ ধরার ট্রলারও সোমালিয়ার জলসীমায় এসে মাছ ধরে নিয়ে যেত। বলা বাহুল্য, এসব ট্রলারের সোমালি উপকূলে মাছ ধরার কোনো বৈধতা বা লাইসেন্স থাকত না। প্রায় দুই দশকের মতো সময় সোমালিয়ার সমুদ্র এলাকায় এভাবে শোষণ চালিয়েছে এসব বিদেশিরা।

এ ধরনের অবৈধ ট্রলার সোমালিদের জলদস্যু হওয়ার পেছনে বড় প্রভাবক হিসেবে কাজ করেছে। অতীতে এসব ট্রলার আটক করার পর দ্রুতই মুক্তিপণের অর্থ পেয়ে যেত দস্যুরা। কারণ বিদেশি এসব গোষ্ঠীগুলোও চাইত না তারা যে আন্তর্জাতিক জলসীমা লঙ্ঘন করেছে তা প্রকাশ্যে আসুক।

এভাবেই ছোট ছোট ট্রলার জিম্মি করার মাধ্যমে নিজেদের কৌশলগত নেটওয়ার্ক বাড়িয়ে তোলে দস্যুরা। একসময় মাছ ধরার ট্রলারের পাশাপাশি পণ্যবাহী সমুদ্রগামী জাহাজের দিকে নজর পড়ে তাদের।

এছাড়া দারিদ্র্য, অরাজকতা, আইনের শাসনের অভাবের পাশাপাশি গৃহযুদ্ধের ফলে সৃষ্ট অস্থিতিশীলতা, সহিংসতাও এ ধরনের অপরাধের পেছনে বড় কারণ হিসেবে কাজ করছে।

শাসনব্যবস্থা শক্তিশালী না থাকায় এ জলদস্যুরা দেশটির অনেক প্রতিষ্ঠানের ওপরই ছড়ি ঘোরাতে পারে। মুক্তিপণের টাকা বিনিয়োগ করে নিজেদের অপরাধের পরিসরও বাড়ায় তারা। বেকার সোমালি তরুণদের বড় অঙ্কের অর্থের লোভ দেখিয়ে নিজেদের দলে ভেড়ায় এ জলদস্যুরা।

তবে গত ১৫ বছর ধরে সোমালি উপকূলে দস্যুবৃত্তি কমানোর চেষ্টাও কম হয়নি। ছয়টি আন্তর্জাতিক শিপিং প্রতিষ্ঠান মিলে ২০১২ সালে ঘোষণা দেওয়া হয়, সোমালি উপকূলে জলদস্যু সমস্যা বৈশ্বিক শিপিংয়ের জন্য আর কোনো ঝুঁকি নয়।

২০২৩ সালেও সংস্থাটি জানায়, ভারত মহাসাগরেও দস্যুবৃত্তির আর বড় ঝুঁকি নেই। কারণ ২০১৮ সালে সোমালি জলদস্যুরা এ মহাসাগরে আর কোনো আক্রমণ চালায়নি। কিন্তু এমভি আবদুল্লাহ ছিনতাইয়ের পর আফ্রিকার এ সমুদ্রপথটি দিয়ে বাণিজ্য আবার ঝুঁকির মুখে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হলো।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

চিত্র-বিচিত্র

পাঁচ মিনিটে ২ হাজার টাকা আয়, ফোনকলে নতুন প্রতারণা!

Published

on

পুঁজিবাজারে

অনলাইনে নানান প্রলোভন আর প্রতারণার ফাঁদে পা দিয়ে টাকা খোয়াচ্ছেন দেশের নানান শ্রেণির মানুষ। একইসাথে প্রতারকের নানান চক্র চতুর্মুখীভাবে সক্রিয় হয়ে উঠছে। দেশে নতুন করে আলোচনায় আসছে ‘ফোনকল’ প্রতারক চক্র। স্বল্প সময়ে মোটা অঙ্কের টাকা উপার্জনের প্রলোভন দেখিয়ে মানুষ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এ চক্রটি।

নতুন চক্রের শুরুটাও ভিন্নভাবে। স্থানীয় নম্বর থেকে ফোন কল দিয়ে শুরু হয়। কোন পরিচয় কিংবা অতিরিক্ত আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই আসে কাজের কথায়। ওপার থেকে বিদেশি কণ্ঠে জিজ্ঞেস করা হয়, ‘বাসায় বসে হাজার ডলার উপার্জন করতে আগ্রহী কিনা?’ আগ্রহী না হলে সেখানেই কলের সমাপ্তি। কিন্তু মোটা অঙ্কের উপার্জনের লোভ সামলাতে না পেরে যারা আগ্রহ দেখান তারাই পড়েন ফাঁদে।

আগ্রহী ব্যক্তিকে একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত করা হয়। সেখানেও উপার্জনের লোভ দেখালে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় টেলিগ্রাম চ্যানেলে। সেখানে থাকে ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করার মতো বিভিন্ন কাজ। প্রতি চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করার বিনিময়ে ফাঁদে পড়ার ব্যক্তির অ্যাকাউন্টে জমা হয় ১০০ টাকা করে। তারপর নতুন চুক্তি আঁকে প্রতারক চক্র। নির্ধারিত অঙ্কের অর্থ বিনিয়োগের নামে থাকে দ্বিগুণ ফেরতের লোভনীয় অফার।

তিনি যদি এই সুযোগ না গ্রহণ করেন, তাহলে তাকে ভিডিও সাবস্ক্রাইব করার জন্য কোন অর্থ প্রদান করা হবে না। কিন্তু অধিকাংশ মানুষ প্রতারকদের জালে পা দিয়ে বিনিয়োগে আগ্রহী হয়ে ওঠে।

বিনিয়োগে আগ্রহ দেখালে একটি বিকাশ মার্চেন্ট নম্বর দেওয়া হয়। সেখানে বিনিয়োগ করে প্রতারণার প্রাথমিক ধাপে পা দেয় আগ্রহী ব্যক্তিরা। পর্যায়ক্রমে নানান বাহানায় প্রতারক চক্র আরও টাকা আদায় করে। একটা সময় বিনিয়োগের নামে স্বর্বস্বান্ত হওয়া লোকটা বুঝতে পারেন তিনি প্রতারক চক্রের ফাঁদে পড়েছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব কলের মাধ্যমে প্রতারক চক্র ফিশিং স্ক্যামের জন্য একজন ব্যক্তির পুরো নাম, মায়ের নাম, জন্ম তারিখ এবং ফোন নম্বরসহ নানান তথ্য নিয়ে থাকে। এতে তারা বিভিন্ন উপায়ে মানুষকে ফাঁদে জড়িয়ে ক্ষতি করে।

এছাড়া, ব্যক্তির ফোন কলগুলো রেকর্ড করে অন্যান্য মানুষের কাছে (আত্মীয়) একই কণ্ঠস্বরকে নকল করে উপস্থাপন করা হয়। এতে অনেকেই তাদের প্রতারণা ফাঁদে পড়ে অর্থ খুঁইয়েছে।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

চিত্র-বিচিত্র

ফোটানো কলের পানিতে দূর হয় ৯০ শতাংশ প্লাস্টিক কণা

Published

on

পুঁজিবাজারে

টেপের পানিতে প্রায়ই ক্ষুদ্র প্লাস্টিকের কণা ভাসতে থাকে। যা খালি চোখে নিরূপণ করা অনেকটা দুরূহ ব্যাপার। আবার এই প্লাস্টিক কণার কিছু অংশ স্বাস্থ্যের জন্য বেশ ক্ষতিকর। তবে নতুন গবেষণায় দেখা গেছে, পানিকে পাঁচ মিনিট ফোটালে বেশির ভাগ মাইক্রোপ্লাস্টিকই দূর হয়ে যায়।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওশানিক অ্যান্ড অ্যাটমসফিরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (নোয়া) দেওয়া তথ্য বলছে, মাইক্রোপ্লাস্টিক হলো ০.২ ইঞ্চির (৫ মিলিমিটার) চেয়ে কম দৈর্ঘ্যের প্লাস্টিক কণা।

গবেষণা অনুসারে পানি পান করার আগে ফোটালে অন্তত ৯০ শতাংশ সম্ভাব্য ক্ষতিকর মাইক্রোপ্লাস্টিক দূর করা সম্ভব।

শিল্পবর্জ্য এবং ভোগ্যপণ্যের এই ভাঙা অবশিষ্টাংশগুলো এড়ানো মোটামুটি অসম্ভব। এগুলো সমুদ্র এবং বায়ুমণ্ডলজুড়ে থাকে। বোতলজাত জলের ভেতরে এবং এমনকি মানুষের মলের মধ্যেও এদের পাওয়া যায়।

ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের তথ্য অনুসারে মাইক্রোপ্লাস্টিক কীভাবে মানব স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে, তা নিয়ে গবেষণা এখনো একেবারেই অপ্রতুল এবং যা হয়েছে তাতেও সিদ্ধান্তে পৌঁছা যায়নি। এখন অবধি কিছু প্লাস্টিক ক্ষতিকর বলে মনে করা হয়। এদিকে পলিস্টাইরিনের মতো অন্যগুলো মানুষের কোষকে ধ্বংস করে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে।

লাইভ সায়েন্সের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি লেটারস জার্নালে ২৮ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত একটি নতুন গবেষণায় বিজ্ঞানীরা পানীয় জল থেকে ক্ষুদ্র প্লাস্টিক অপসারণের জন্য ব্যবহারিক ঘরোয়া পদ্ধতিগুলোর দিকে নজর দিয়েছেন। একটি বিষয়ে তারা বিশেষভাবে দৃষ্টি দেন, তা হলো জলকে ফুটিয়ে মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষণ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব কি না।

‘ফোটানো জল পান করা অনেক এশীয় দেশে একটি প্রাচীন ঐতিহ্য। মানব স্বাস্থ্যের জন্য এটি উপকারী বলে ধরা হয়। কারণ, ফোটানো হলে পানির কিছু রাসায়নিক এবং বেশির ভাগ জৈবিক পদার্থ দূর হয়ে যায়, নতুন গবেষণাপত্রে লেখা হয়। তবে, কলের জলে এনএমপি (ন্যানো/মাইক্রোপ্লাস্টিক) অপসারণে ফুটানো কার্যকর কি না—তা এখনো স্পষ্ট নয়।’

পরীক্ষার জন্য গবেষকেরা ট্যাপের জলের এমন নমুনাগুলোর তৈরি করেছেন, যেখানে মাইক্রোপ্লাস্টিক পলিস্টাইরিন, পলিথিলিন এবং পলিপ্রোপিলিনের পাশাপাশি অন্য সাধারণ খনিজ পদার্থের উপস্থিতি আছে। গবেষকেরা ক্যালসিয়াম কার্বনেটের ঘনত্ব নিয়ন্ত্রণ করে জলের নমুনার ‘হার্ডনেস’ বা খরতা পরিবর্তন করেন। খর পানিতে উচ্চ মাত্রায় খনিজ উপাদান রয়েছে।

নমুনাগুলোকে ৫ মিনিট উত্তপ্ত করার পরে এবং সেগুলোকে শীতল করার জন্য রেখে দেওয়ার পর গবেষকেরা মাইক্রোপ্লাস্টিকের পরিমাণে মারাত্মক হ্রাস লক্ষ্য করেন। হার্ডওয়্যাটার বা কঠিন জলের বেলায় মাইক্রোপ্লাস্টিকগুলোতে প্রায় ৯০ শতাংশ হ্রাস পায়। কারণ, জলের ক্যালসিয়াম কার্বোনেট উচ্চ তাপমাত্রায় শক্ত হয়ে গিয়ে প্লাস্টিকের কণাগুলোকে আটকে রাখে।

গবেষকেরা বলছেন, কঠিন ক্যালসিয়াম অপসারণের জন্য একটি সাধারণ কফি ফিল্টারের পাশাপাশি এই পদ্ধতিটি ব্যবহার করা স্বাস্থ্যের জন্য সম্ভাব্য ক্ষতিকারক কণাগুলো অপসারণের একটি সহজ উপায় হতে পারে।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

শেয়ারবাজারের সর্বশেষ

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার5 hours ago

নারী বিনিয়োগকারী আসলে পুঁজিবাজারে প্রবৃদ্ধি আরও বাড়বে: বিএসইসি চেয়ারম্যান

পুরুষের পাশাপাশি যত বেশি নারী বিনিয়োগকারী আসবে দেশের পুঁজিবাজারে তত বেশি প্রবৃদ্ধি বাড়বে বলে মন্তব্য করেছেন নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার6 hours ago

পুঁজিবাজারে নারীর অংশগ্রহণের সম্ভাবনা অপার: স্পিকার

পুঁজিবাজার একটা বিশেষায়িত ক্ষেত্র। পুঁজিবাজারে নারীর অংশগ্রহণের সম্ভাবনা অপার। মেয়েরা যেভাবে সকল ক্ষেত্রে এগিয়ে আসছে, পুঁজিবাজারেও তারা এগিয়ে আসবে এবং...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার9 hours ago

বিএসইসির স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী পুরস্কার পেলো ১১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান

দেশের পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) পুরস্কার পেয়েছে ১১ ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠান। স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী ও শুদ্ধাচারে...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার15 hours ago

সিএসই চেয়ারম্যানের চীনা কমোডিটি ট্রেডিং প্লাটফর্ম পরিদর্শন

বাংলাদেশ কমোডিটি ডেরিভেটিভস মার্কেটের ভবিষ্যত সহযোগিতার জন্য চীনের গুয়াংডেং অবস্থিত কিয়ানহাই মার্কেন্টাইল এক্সচেঞ্জ (কিউএমই) পরিদর্শন করেছেন চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ পিএলসির...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
আন্তর্জাতিক15 hours ago

নির্বাচনের গতি পাল্টাতে পুঁজিবাজারকে হাতিয়ার বানাচ্ছে বিজেপি

ভারতে ১৮তম লোকসভার নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে গত ১৯ এপ্রিল। সাত পর্বের এই নির্বাচনে ইতোমধ্যে ৫ম পর্বের ভোট গ্রহণ চলছে।...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার20 hours ago

শেয়ারবাজার বন্ধ আজ

বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব বুদ্ধ পূর্ণিমা বা বৈশাখী পূর্ণিমা উপলক্ষে সরকারি ছুটি থাকায় আজ শেয়ারবাজার বন্ধ থাকবে। আগামীকাল যথাযথ...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার1 day ago

বিএসইসির স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী পুরস্কার প্রদান আজ

দেশের পুঁজিবাজারের সেরা মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে বার্ষিক স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী পুরস্কার দেবে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। গত বছর অর্থাৎ ২০২৩...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার1 day ago

ডিবিএইচ ফাইন্যান্সের লভ্যাংশ অনুমোদন

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ডিবিএইচ ফাইন্যান্স পিএলসির ২৮তম বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) সম্প্রতি ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় ৩১ ডিসেম্বর,২০২৩ তারিখে...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার1 day ago

বিএসইসির আইনে কমিটি, বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়মে বেতন-ভাতা

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আর্থিক খাতের কোম্পানিগুলোকে নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানে (এনবিএফআই) নিয়োগ ও ভাতা নির্ধারণ সংক্রান্ত বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

ব্লকে ৭০ কোটি টাকার লেনদেন

সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্লকে ৩৯টি কোম্পানির মোট ৭০ কোটি ৪৮ লাখ ৭৭ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

চার কোম্পানির লেনদেন বন্ধ বৃহস্পতিবার

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত চার কোম্পানির শেয়ার লেনদেন আগামী বৃহস্পতিবার (২৩ মে) রেকর্ড ডেটের কারণে বন্ধ থাকবে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের ভারপ্রাপ্ত এমডি হলেন কামরুজ্জামান

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত লংকাবাংলা ফাইন্যান্স পিএলসির ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন এ.কে.এম. কামরুজ্জামান। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্র...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

সিকদার ইন্স্যুরেন্সের সর্বোচ্চ দরপতন

সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনে অংশ নেওয়া ৩৯৩টি কোম্পানির মধ্যে ২৩৫ কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে।...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

দরবৃদ্ধির শীর্ষে প্রাইম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড

সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনে অংশ নেওয়া ৩৯৩ কোম্পানির মধ্যে ১০২টির শেয়ারদর বৃদ্ধি পেয়েছে।...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

লেনদেনের শীর্ষে ওরিয়ন ফার্মা

সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ৩৯৩টি কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিট হাতবদল হয়েছে। এদিন লেনদেনের শীর্ষে...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

সূচক কমলেও লেনদেন বেড়েছে শেয়ারবাজারে

সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) মূল্য সূচকের পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। তবে আগের দিন থেকে টাকার অংকে লেনদেন...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

বৃহস্পতিবার স্পট মার্কেটে যাচ্ছে ৪ কোম্পানি

রেকর্ড ডেটের আগে আগামী বৃহস্পতিবার (২৩ মে) স্পট মার্কেটে যাচ্ছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত চার কোম্পানি। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

ঢাকা ব্যাংকের ক্রেডিট রেটিং সম্পন্ন

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি ঢাকা ব্যাংক পিএলসির ক্রেডিট রেটিং সম্পন্ন হয়েছে। কোম্পানিটির ক্রেডিট রেটিং নির্ণয় করেছে ইমার্জিং ক্রেডিট রেটিং লিমিটেড। ঢাকা...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

পর্ষদ সভা করবে স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড পর্ষদ সভার তারিখ ঘোষণা করেছে। আগামী ২৬ মে বিকাল ৩টায় কোম্পানিটির পর্ষদ সভা...

পুঁজিবাজারে পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার2 days ago

বোনাস লভ্যাংশ প্রদানে সম্মতি পায়নি ইউসিবি

সমাপ্ত ২০২৩ হিসাববছরের জন্য ঘোষিত বোনাস লভ্যাংশ প্রদানে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) থেকে এখনো সম্মতি পায়নি...

Advertisement

ফেসবুকে অর্থসংবাদ

পুঁজিবাজারে
লাইফস্টাইল5 hours ago

কড়া সুগন্ধিতে মাথা ধরে যায়?

পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার5 hours ago

নারী বিনিয়োগকারী আসলে পুঁজিবাজারে প্রবৃদ্ধি আরও বাড়বে: বিএসইসি চেয়ারম্যান

পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার6 hours ago

পুঁজিবাজারে নারীর অংশগ্রহণের সম্ভাবনা অপার: স্পিকার

পুঁজিবাজারে
আন্তর্জাতিক6 hours ago

বিশ্ববাজারে চিনির দাম কমলো

পুঁজিবাজারে
জাতীয়6 hours ago

অব্যাহত থাকবে চলমান তাপপ্রবাহ

পুঁজিবাজারে
জাতীয়7 hours ago

ধর্ম উপলব্ধির বিষয়, তর্কের নয়: রাষ্ট্রপতি

পুঁজিবাজারে
রাজধানী7 hours ago

শনিবারেও খোলা দক্ষিণ সিটির রাজস্ব বিভাগ

পুঁজিবাজারে
টেলিকম ও প্রযুক্তি7 hours ago

টাটা মোটরসের নতুন ৩ গাড়ি আসছে বাজারে

পুঁজিবাজারে
লাইফস্টাইল7 hours ago

গরমে বাইরে বের হলে ডিহাইড্রেশন থেকে মুক্তির উপায়

পুঁজিবাজারে
আন্তর্জাতিক8 hours ago

যুক্তরাজ্যে জাতীয় নির্বাচন কবে জানালেন ঋষি সুনাক

পুঁজিবাজারে
জাতীয়8 hours ago

ডিসি-ইউএনওদের জন্য কেনা হচ্ছে ২৬১ বিলাসবহুল গাড়ি

পুঁজিবাজারে
জাতীয়9 hours ago

কুড়িগ্রাম সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফ পতাকা বৈঠক

পুঁজিবাজারে
বিনোদন9 hours ago

হিটস্ট্রোক করে হাসপাতালে ভর্তি শাহরুখ খান

পুঁজিবাজারে
জাতীয়9 hours ago

সিলেট থেকে সরাসরি হজ ফ্লাইট চালু

পুঁজিবাজারে
পুঁজিবাজার9 hours ago

বিএসইসির স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী পুরস্কার পেলো ১১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান

পুঁজিবাজারে
সারাদেশ9 hours ago

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হঠাৎ দুর্বৃত্তদের গুলিবর্ষণ, আহত ৪

পুঁজিবাজারে
আবহাওয়া9 hours ago

১২ জেলায় রাতের মধ্যে ৬০ কি.মি. বেগে ঝড়ের পূর্বাভাস

পুঁজিবাজারে
জাতীয়10 hours ago

এমপি আনার হত্যা, শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা

পুঁজিবাজারে
জাতীয়10 hours ago

দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করতে রাষ্ট্রপতির আহ্বান

পুঁজিবাজারে
কর্পোরেট সংবাদ10 hours ago

শুরু হচ্ছে বিকাশ ও বিজ্ঞানচিন্তার আয়োজনে ‘বিজ্ঞান উৎসব’

পুঁজিবাজারে
জাতীয়10 hours ago

এমপি আনার হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা গ্রেপ্তার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পুঁজিবাজারে
কর্পোরেট সংবাদ11 hours ago

ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে মিলিয়নিয়ার হলেন চট্টগ্রামের আবু আলম

পুঁজিবাজারে
রাজনীতি11 hours ago

গণহত্যার সমর্থকদের নিষেধাজ্ঞায় মাথা ব্যথা নেই: কাদের

পুঁজিবাজারে
জাতীয়11 hours ago

স্বনির্ভর অর্থনীতির দেশ গড়তে কাজ করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী: ডেপুটি স্পিকার

পুঁজিবাজারে
আন্তর্জাতিক11 hours ago

ভিয়েতনামের নতুন প্রেসিডেন্ট তো লাম

২০১৮ সাল থেকে ২০২৩

অর্থসংবাদ আর্কাইভ

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১