Connect with us

আন্তর্জাতিক

উবারে ৬২ টাকার ভাড়া এলো সাড়ে ৭ কোটি!

Published

on

শেয়ারবাজার

রাইড শেয়ারিংয়ের মতো আধুনিক স্টার্টআপেও ‘ভুতুড়ে’ কাণ্ড। আনুমানিক ৬২ টাকার ভাড়ার দূরত্বের ভাড়া এসেছে সাড়ে ৭ কোটি! এমন আজগুবি বিলের ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তর প্রদেশের নয়ডায়। গত শুক্রবার উবারে অটো ‘বুক’ করার সময় ভাড়া দেখিয়েছিল ৬২ টাকা। কিন্তু গন্তব্যে পৌঁছে অটোর ভাড়া দেখে মাথায় বাজ পড়ল যুবকের! দীপক টেঙ্গুরিয়া নামে ওই যাত্রীকে বিল দেখায় ৭.৬৬ কোটি টাকা।

এমন ঘটনার পর বিস্মিত ওই যুবক সেই অভিজ্ঞতা সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করেছেন।

জানা যায়, অফিসে যাওয়ার জন্য তিনি উবার অ্যাপ থেকে অটো বুক করেছিলেন। ভাড়া দেখিয়েছিল ৬২ টাকা। কিন্তু নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছনোর পর তিনি যখন পেমেন্ট করতে গেলেন, তখন দেখলেন ৬২ টাকা নয়, অ্যাপে দেখাচ্ছে তার ভাড়া বাবদ বকেয়া ৭ দশমিক ৬৬ কোটি রুপি। কোটি টাকার বিল পেয়ে হকচকিয়ে যান দীপক। উবারের এই কীর্তি তিনি তার এক্স হ্যান্ডেলে পোস্ট করেন। পোস্টটি ভাইরাল হওয়ার পর উবার কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে ক্ষমা চাওয়া হয়। পাশাপাশি বিষয়টি খতিয়ে দেখার হচ্ছে বলেও জানায় উবার।

এদিকে, এ ঘটনা নিয়ে দীপক ও তার বন্ধু আশীষ মিশ্র এক্স হ্যান্ডেলে একটি ভিডিও পোস্ট করেন। তাতে তাদের উবারের পাঠানো বিল নিয়ে আলোচনা করতে দেখা যায়। ভিডিওতে আশীষ দীপককে বলেন, কত টাকা বিল এসেছে, তা দেখাতে। দীপক তার মোবাইল খুলে দেখান, ৭ কোটি ৬৬ লাখ ৮৩ হাজার ৭৬২ রুপি বিল পাঠানো হয়েছে। পুরো বিলের মধ্যে ওয়েটিং চার্জ বাবদ ৫ কোটি ৯৯ লাখ ৯ হাজার ১৮৯ রুপি ও প্রোমোশন কস্ট বাবদ ৭৫ রুপি ধরা হয়েছে। অথচ দীপকের দাবি, উবার থেকে যে অটোটি এসেছিল, তার জন্য এক মিনিটও অপেক্ষা করতে হয়নি।

কাফি

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আন্তর্জাতিক

ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবি, নিহত ৯

Published

on

শেয়ারবাজার

ভূমধ্যসাগরে অভিবাসন প্রত্যাশীদের দুটি আলাদা নৌকা ডুবির ঘটনায় ৯ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এ সময় ৫৯ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। শুক্রবার মার্কিন বার্তা সংস্থা এপি এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, অভিবাসন প্রত্যাশীদের বহনকারী নৌকা দুটি ডুবে গেলে ভূমধ্যসাগরের মধ্যাঞ্চল থেকে ইতালির কোস্ট গার্ড হতাহতদের উদ্ধার করে। প্রথম অভিযানে ৯ অভিবাসনপ্রত্যাশীর মরদেহ ও ২২ জনকে জীবিত উদ্ধার করে কোস্ট গার্ড। পরের অভিযান চালিয়ে ৩৭ জনকে উদ্ধার করা হয়।

জাতিসংঘ শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউনাইটেড নেশনস হাই কমিশনার ফর রিফিউজিস– ইউএনএইচসিআর জানায়, গ্রীষ্মকালে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মধ্যে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দেয়ার প্রবণতা বৃদ্ধি পায়।

ইতালির অতি-ডান-নেতৃত্বাধীন সরকার সম্প্রতি দাতব্য সংস্থার নৌকাগুলোকে উদ্ধারের পর উত্তর বন্দরে যাওয়ার নির্দেশ দিচ্ছে। তাদের কার্যক্রম কমিয়েছে। নিয়ম লঙ্ঘন করেছে বলে নৌকাগুলোকে আটক করছে।

ইউএনএইচসিআর-এর মুখপাত্র ফেদেরিকো ফসি বলেন, গ্রীষ্মকাল আসার সঙ্গে সঙ্গে এমন ঘটনা আরও ঘটতে পারে। কারণ এ সময় আরও বেশি সংখ্যক মানুষ সম্পূর্ণ অপ্রস্তুত নৌকা নিয়ে ইতালি যাচ্ছে।

ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন জানিয়েছে, চলতি বছর এ পর্যন্ত উত্তর আফ্রিকা থেকে ইতালিতে আসার পথে ভূমধ্যসাগরে ৩৮৫ জন নিখোঁজ হয়েছেন। ২০১৪ সালে নিখোঁজ অভিবাসী প্রকল্প চালু করার পর থেকে ২৩ হাজার ১০৯ জন নিখোঁজ হয়েছে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

কলম্বিয়ায় সাধারণ মানুষকে গোসল না করার আহ্বান

Published

on

শেয়ারবাজার

দক্ষিণ আমেরিকার দেশ কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোতার সাধারণ মানুষকে গোসল না করার আহ্বান জানানো হয়েছে। বৃষ্টির অভাবে জলাধারের পানি শুকিয়ে যাওয়ায় বোগোতার মেয়র কার্লোস ফার্নান্দো গালান এমন আহ্বান জানিয়েছেন। এছাড়া যুগল ও দম্পতিদের একসঙ্গে গোসল করতে অনুরোধ করেছেন তিনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার (১১ এপ্রিল) পানি সরবরাহ ব্যবস্থা থেকে কলম্বিয়ার রাজধানীর বেশিরভাগ অঞ্চল বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। আবহাওয়ার বিশেষ অবস্থা এল নিনোর প্রভাবে কলম্বিয়ায় খরা চলছে। যার প্রভাব পড়েছে জলাধারগুলোতে।

এই জলাধারগুলো থেকেই সাধারণ মানুষের কাছে পানি সরবরাহ করা হয়। কিন্তু বৃষ্টি না হওয়ায় এগুলো শুকাতে শুকাতে এমন একটি পর্যায়ে পৌঁছে গেছে যে এখন পানির সরবরাহ নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

গোসল না করার পরামর্শ দিয়ে তিনি সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে বলেছেন, যদি রোববার অথবা সপ্তাহের যে কোনো দিন আপনি বাড়ি থেকে বের না হন, এটির সুযোগ নিন এবং গোসল করবেন না।

এল নিনোর প্রভাবে দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলোতে বৃষ্টিপাত কম হয়। এই এল নিনোর কারণে এ বছর এমন খরা দেখা দিয়েছে যে, ওই অঞ্চলের প্রশাসকদের জরুরি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হয়েছে।

কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোতা আন্দেস পর্বতমালায় অবস্থিত। যা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২ হাজার ৬০০ মিটার উঁচু। বোগোতাতে সাধারণত বেশি বৃষ্টিপাত হয়।

কিন্তু তা সত্ত্বেও বর্তমানের গরম আবহাওয়ার কারণে বোগোতার আশপাশের বিভিন্ন অঞ্চলে দাবানল দেখা দিয়েছে। এসব দাবানলের ধোঁয়ার কারণে সাধারণ মানুষের দমবন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। এসবের মধ্যেই এখন আবার জলাধারগুলোর পানি কমে গেছে।

দেশটির রাজধানীর মোট চাহিদার ৭০ শতাংশ পানি সরবরাহ করা হয় চিনগাজা জলাধার থেকে। বর্তমানে এই জলাধারে ধারণ ক্ষমতার মাত্র ১৬ শতাংশ পানি রয়েছে। যা আগে কখনো হয়নি।

বোগোতার পানি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান জানিয়েছে, রাজধানীতে আর মাত্র ৫৪ দিনের পানি অবশিষ্ট আছে।

পানির সংকটের বিপর্যয় ঠেকাতে বোগোতাকে নয়টি জোনে ভাগ করা হয়েছে। যেগুলোতে ২৪ ঘণ্টা করে পানি সরবরাহ বন্ধ থাকবে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

ভারত সফর করবেন বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় শতকোটিপতি ইলন মাস্ক

Published

on

শেয়ারবাজার

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় শতকোটিপতি এবং বৈদ্যুতিক গাড়ি প্রস্তুতকারক টেসলার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ইলন মাস্ক তাঁর সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম তথা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এক্সে (সাবেক টুইটার) ভারত সফরের ঘোষণা দিয়েছেন। মূলত ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দেখা করতেই তিনি এই সফরে যাবেন।

মাস্ক অবশ্য এই সফরের দিন–তারিখ উল্লেখ করেননি। তবে তিনি ভারতে বড় ধরনের বিনিয়োগ পরিকল্পনা ঘোষণা করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্সে গত বুধবার মাস্ক একটি পোস্টে লিখেছেন, ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য উন্মুখ হয়ে আছি!’

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার গত মাসে বৈশ্বিক গাড়ি নির্মাতাদের জন্য বৈদ্যুতিক গাড়ির (ইভি) আমদানি শুল্ক কমিয়েছে। যাঁরা অন্তত ৫০০ মিলিয়ন বা ৫০ কোটি মার্কিন ডলারের সমপরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করতে চান এবং তিন বছরের মধ্যে ভারতে স্থাপিত কারখানায় গাড়ি উৎপাদন শুরু করার অঙ্গীকার করবেন, তাঁরাই কেবল করছাড়ের এই সুযোগ পাবেন।

এর আগে ২০২১ সালে টেসলার বস ইলন মাস্ক বলেছিলেন যে ভারতের উচ্চহারে আমদানি শুল্ক আরোপের কারণে বিশ্বের দ্রুততম বর্ধনশীল এই অর্থনীতিতে তাঁর কোম্পানি টেসলার বৈদ্যুতিক গাড়ির প্রচলন বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে।

ইলন মাস্ক শুধু টেসলার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাই (সিইও) নন, তিনি মহাকাশযান প্রস্তুতকারক, উৎক্ষেপণ পরিষেবা প্রদানকারী ও স্যাটেলাইট যোগাযোগ প্রতিষ্ঠান স্পেস এক্সপ্লোরেশন টেকনোলজিস করপোরেশনের (যা স্পেসএক্স নামে সমধিক পরিচিত) চিফ টেকনোলজি অফিসার (সিটিও) এবং প্রতিরক্ষা ঠিকাদারও।

যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্বখ্যাত ফোর্বস ম্যাগাজিনে সম্প্রতি প্রকাশিত ২০২৪ সালের বৈশ্বিক বিলিয়নিয়ার বা শতকোটিপতিদের তালিকায় তৃতীয় স্থানে আছেন ইলন মাস্ক। ফোর্বসের তথ্য অনুযায়ী তাঁর সম্পদের নিট মূল্য ১৯ হাজার ২০ কোটি ডলার। অন্যদিকে ব্লুমবার্গের বিলিয়নিয়ার ইনডেক্সে ইলন মাস্কের পতন ঘটেছে। তাঁকে টপকে বিশ্বের তৃতীয় শীর্ষ অতিধনীর অবস্থানে উঠে এসেছেন মেটার (ফেসবুক) মার্ক জাকারবার্গ। গত মাসের শুরুর দিকে ব্লুমবার্গ বিলিয়নিয়ার্স ইনডেক্সে প্রথম স্থানে ছিলেন টেসলার প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্ক।

এদিকে ভারতের এক জ্যেষ্ঠ সরকারি কর্মকর্তা আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিবিসিকে জানান, মোদি–মাস্কের বৈঠকটি চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে হওয়ার কথা এবং এটি রাজধানী নয়াদিল্লিতে মোদির সরকারি বাসভবনে অনুষ্ঠিত হবে।

বিবিসি জানায়, মোদি–মাস্ক বৈঠকে প্রধানত ভারতে টেসলা কোম্পানির বৈদ্যুতিক গাড়ি উত্পাদন শুরু করার পরিকল্পনা নিয়েই আলোচনা হবে। এ নিয়ে বিবিসি যোগাযোগ করলেও টেসলার পক্ষ থেকে তাৎক্ষিণকভাবে কোনো মন্তব্য করা হয়নি।

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের পরিস্থিতিতেই ইলন মাস্ক এ সফর করছেন। ভারতে ছয় সপ্তাহব্যাপী লোকসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু হবে ১৯ এপ্রিল। নরেন্দ্র মোদির হিন্দু জাতীয়তাবাদী দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) এবার তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতায় আসার চেষ্টায় আছে। ফলে নির্বাচনের সময় টেসলার বিনিয়োগের ঘোষণা নরেন্দ্র মোদির ব্যবসাবান্ধব উদ্যোগকে আরও জোরালো করবে বলে আশা করা হচ্ছে। তিনি বিভিন্ন বিদেশি কোম্পানিকে ভারতে উত্পাদন কার্যক্রম শুরু ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির বিষয়ে আহ্বান জানিয়ে আসছেন।

এর আগে গত বছরের জুনে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ইলন মাস্ক দেখা করেছিলেন। তখন বৈশ্বিক প্রযুক্তি খাতের মাল্টি বিলিয়নিয়ার শতকোটিপতি মাস্ক বলেছিলেন, ‘মোদি আমাদের ভারতে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন, যা আমরাও করতে চাই।’

অবশ্য ভারতে টেসলার বৈদ্যুতিক গাড়ি উৎপাদনে যাওয়ার পরিকল্পনাটি এমন এক সময়ে নেওয়া হয়েছে, যখন যুক্তরাষ্ট্র ও চীনে কোম্পানিটির গাড়ি বিক্রি কমছে। টেসলার ইউরোপীয় কারখানায় অগ্নিকাণ্ড, বৈশ্বিক শিপিং তথা জাহাজীকরণে বিঘ্ন ও ক্রমবর্ধমান প্রতিযোগিতার কারণে এ বছরের প্রথম তিন মাসে তাদের গাড়ি সরবরাহ হ্রাস পেয়েছে। বিশেষ করে চীনা কোম্পানি বিওয়াডির মতো প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে তীব্র প্রতিযোগিতায় পড়ে টেসলা তার বৈদ্যুতিক গাড়ির দাম বারবার কমিয়েছে। চলতি বছরে তাদের গাড়ি বিক্রি এক–তৃতীয়াংশ কমেছে।

ভারতের বাজার খুবই সম্ভাবনাময়। দেশটি ২০২২ সালে যুক্তরাষ্ট্রকে হটিয়ে বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতি হিসেবে আবির্ভূত হয়, যাদের ২০২৩ সালের ডিসেম্বর প্রান্তিকে মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) ৮ দশমিক ৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

বদলে যাচ্ছে বিমার নিয়ম, এক ছাদের নিচে ভারতের সব বিমা

Published

on

শেয়ারবাজার

বদলে যাচ্ছে বিমা। জীবন বিমা। স্বাস্থ্যবিমা বা অন্য যে কোনো বিমা। এবার থেকে ইন্স্যুরেন্স করালে আপনি আর কোনও কাগজের সার্টিফিকেট বা বন্ড পাবেন না। পহেলা এপ্রিল থেকেই ভারতে শুরু হয়ে গেছে নতুন নিয়ম। বিমা রাখা থাকবে ই-ইন্স্যুরেন্স অ্যাকাউন্টে। তবে বিষয়টা এখনও অনেকে জানেন না। অনেকে আবার শুনে থাকলেও ঠিক ধারণা নেই।

যারা শেয়ার কেনা-বেচা করেন তাঁরা জানেন ডি-ম্যাট অ্যাকাউন্টে সমস্ত সংস্থার শেয়ার একসঙ্গে রাখা থাকে। এবার সেই ব্যবস্থাই সব ধরনের বিমার ক্ষেত্রেও চালু হতে চলেছে। ভারতের বিমা নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ ইন্স্যুরেন্স রেগুলেটরি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (আইআরডিএআই) নির্দেশ দিয়েছে এখন থেকে বিমা সংস্থাগুলিকে বাধ্যতামূলকভাবে গ্রাহককে ডিজিটাল মাধ্যমে পলিসি ডকুমেন্ট দিতে হবে। সমস্ত বিমা জমা থাকবে একটিমাত্র বৈদ্যুতিন ই-ইন্স্যুরেন্স অ্যাকাউন্টে।

১লা এপ্রিল থেকেই যে নিয়ম চালু হয়ে গেছে। ফলে এবার আপনি কোনও বিমা কিনতে গেলে প্রথমেই ই-ইন্স্যুরেন্স অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। এজন্য কোনও টাকা লাগবে না। ই-ইন্স্যুরেন্স অ্যাকাউন্ট খোলার পর যতবার যে কোনও সংস্থার যে কোনও বিমা কেনা হবে, তা সবই ওই একটা অ্যাকাউন্টে জমা থাকবে। বিমাকারী সেখানে গিয়েই পলিসির সব তথ্য দেখতে পারবেন।

জীবন বিমা। স্বাস্থ্যবিমা। গাড়িবিমা। সবক্ষেত্রে একই নিয়ম। তবে যাদের কাছে এখনই পুরনো বিমার কাগজ আছে। মানে যারা কোনও পলিসি কন্টিনিউ করছেন। তাদের ক্ষেত্রে ই-ইন্স্যুরেন্স অ্যাকাউন্ট খোলাটা বাধ্যতামূলক নয়। পুরনো পেপার ডকুমেন্ট দেখিয়েই তাঁরা ক্লেম করতে পারবেন।

তবে কেউ যদি চায় যে পুরনো বিমা ই-ইন্স্যুরেন্স অ্যাকাউন্টে রাখবেন তাহলে নতুন অ্যাকাউন্ট খুলে তা রাখতে পারবেন। আরেকটা বিষয় হল নতুন বিমার ক্ষেত্রে ই-ইন্স্যুরেন্স অ্যাকাউন্ট খুলতে তো হবে। তবে বিমাকারী চাইলে কাগুজে নথি দিতে বাধ্য থাকবে বিমা সংস্থা। এই অধিকার বিমাকারীর থাকছে।

আর আইআরডিএআই’র নির্দেশ অনুযায়ী যে সংস্থার কাছে নতুন বিমা করানো হবে, তারাই বিমাকারীর ই-ইন্স্যুরেন্স অ্যাকাউন্ট খোলানোর ব্যবস্থা করবে। এজন্য বিমাকারীকে ঝামেলা পোয়াতে হবে না। ডিজিটাল মাধ্যমে বিমা রাখার জন্য রিপজিটরি হিসাবে চারটে সংস্থাকে বাছাই করা হয়েছে। তাদের সঙ্গে বিমাকারীর কোনও সরাসরি লেনাদেনা থাকবে না। তারা বিমাকারীর ই-ইন্স্যুরেন্স অ্যাকাউন্টটার দেখভাল করবে।

এবার দেখা যাক-এ ব্যবস্থায় সুবিধা কী হবে। বিমা শিল্পমহল বলছে সুবিধা অনেক। অনেক সময় কাগজের পলিসি বন্ড হারিয়ে যাওয়ায় টাকা পেতে সমস্যায় পড়েন বিমাকারী বা তাঁর পরিবার। নয়া ব্যবস্থায় সেই হয়রানি কমবে। ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার ব্যবহার করে যে কেউ তার পলিসির স্টেটাস চেক করতে পারবেন। নতুন বিমা কিনলে আপনা থেকেই তা ই-অ্যাকউন্টে জুড়ে যাবে। সহজে বদলানো যাবে ঠিকানা, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও নমিনি সংক্রান্ত তথ্য। একাধিক পলিসির ক্ষেত্রে তথ্য সংশোধনের জন্য আলাদা আলাদা করে আবেদন করতে হবে না।

আরেকটা বিষয় হলো- যে সংস্থার কাছ থেকে বিমা কেনা হবে, বিমাকারীকে সেই সংস্থার কাছে যেতে হয়। আইআরডিএআই একটা অনলাইল ইন্যুরেন্স মার্কেটপ্লেস নিয়ে আসছে যার নাম Bima Sugam. এখানে এক ছাদের নীচেই যে কোনও সংস্থার যে কোনওরকম বিমা কেনা যাবে। অভিযোগ জানানো যাবেন। প্রিমিয়াম দেওয়া যাবে। ক্লেম করা যাবে। এনিয়ে বিমা সংস্থাগুলোর সঙ্গে আইআরডিএআই’র কথাবার্তা শেষ হলেই দ্রুত চালু হয়ে যাবে নতুন ব্যবস্থা।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

এই প্রথম জাপানি কেউ চাঁদে পা রাখবেন

Published

on

শেয়ারবাজার

২০২৬ সালের মধ্যে চাঁদে মহাকাশচারী পাঠানোর পরিকল্পনা করেছে আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। ‘আর্টেমিস’ অভিযানের তোড়জোড় চলছে। তার মাঝেই আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জানিয়ে দিলেন, নাসার অভিযানের সঙ্গে চাঁদে পা রাখতে চলেছেন নন-আমেরিকান। এত দিন পর্যন্ত শুধু আমেরিকার নাগরিকেরাই চাঁদে পা রেখেছেন। এ বার নাসার হাত ধরেই সেই কৃতিত্ব পাবে অন্য এক দেশও। প্রথম নন-আমেরিকান হিসাবে চাঁদে পা রাখবেন এক জাপানি।

সম্প্রতি জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিয়ো কিশিদা আমেরিকা সফরে গিয়েছেন। তাকে সঙ্গে নিয়ে করা সাংবাদিক বৈঠকেই এই ঘোষণা করেছেন বাইডেন। জাপানের সঙ্গে হাত মিলিয়ে নাসার চন্দ্র অভিযান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নাসার ভবিষ্যতের অভিযানে দুজন জাপানি মহাকাশচারী থাকবেন। তাদের মধ্যে এক জন হবেন চাঁদে পা রাখা প্রথম ব্যক্তি, যিনি আমেরিকান নন।

বাইডেনের এই ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে তিনি এ-ও জানিয়েছেন, নাসার আর্টেমিস অভিযানে শামিল হওয়ার মতো একটি আস্ত রোভার তৈরি করে দেবে তার দেশ।

বস্তুত, চাঁদে প্রথম পা রেখেছিলেন আমেরিকার মহাকাশচারী নীল আর্মস্ট্রং। তার সঙ্গে ছিলেন এডুইন অলড্রিনও। ১৯৬৯ সালের জুলাই থেকে ১৯৭২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত নাসার অ্যাপোলো অভিযানের শরিক হিসাবে মোট ১২ জন মহাকাশচারী চাঁদে গিয়েছেন। তারা প্রত্যেকেই আমেরিকান। এখনও পর্যন্ত আমেরিকার বাইরের কোনও দেশের চাঁদে পা রাখার কৃতিত্ব নেই। ২০২৬ সালে নাসার আর্টেমিস অভিযান যদি সফল হয়, তবে এক জাপানি হবেন চাঁদে পা রাখা প্রথম মহাকাশচারী, যিনি আমেরিকান নন।

চাঁদে মহাকাশচারী পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে চিনেরও। ২০৩০ সালের মধ্যে তারাও এই কৃতিত্বের অধিকারী হবে বলে দাবি করেছে। আর্টেমিস অভিযানকে সফল করতে নাসার সঙ্গে হাত মিলিয়েছে জাপানের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা জাক্সা।

সম্প্রতি তারা চাঁদে নিজস্ব মহাকাশযানও পাঠিয়েছে। গত জানুয়ারিতেই চাঁদের মাটি ছুঁয়েছে জাপানের ‘স্লিম’। এর মাধ্যমে আমেরিকা, রাশিয়া, চিন এবং ভারতের পর জাপান চাঁদে পৌঁছতে পারা পঞ্চম দেশ হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে। এ বার সেই দেশের নাগরিকই চাঁদের মাটি ছুঁতে চলেছেন।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

ফেসবুকে অর্থসংবাদ

২০১৮ সাল থেকে ২০২৩

অর্থসংবাদ আর্কাইভ

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০