Connect with us

লাইফস্টাইল

যেসব খাবার খেলে হতে পারে ফ্যাটি লিভার

Published

on

লাফার্জ

ফ্যাটি লিভারের সমস্যায় বর্তমানে অনেকেই ভুগছেন। অনেকটা নীরবেই লিভারকে অকেজো করে দেয় এই অসুখ। অনিয়মিত জীবন-যাপন ও অতিরিক্ত ওজনের কারণে অনেকেই ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত হন। এই রোগের ফাঁদে পড়লে লিভার ফাইব্রোসিস থেকে শুরু করে লিভার সিরোসিস সহ একাধিক জটিল রোগের খপ্পরে পড়ার আশঙ্কা বাড়ে।

তবে চিকিৎসকরা বলছেন, আমাদের দৈনন্দিন খাবারের তালিকায় এমন কিছু খাবার থাকে যা ফ্যাটি লিভার হতে সাহায্য করে। জেনে নিন এমন কিছু ক্ষতিকর খাবার সম্পর্কে। এরপর এগুলো যত দ্রুত সম্ভব ডায়েট থেকে বের করে দিন।

মিষ্টি
আমাদের মধ্যে অনেকেই মিষ্টি খেতে ভালোবাসেন। মিষ্টি ফ্যাটি লিভারের অন্যতম এক কারণ। তাই সুস্থ জীবন কাটাতে দ্রুত মিষ্টি খাওয়ার অভ্যাসটা ছাড়তে হবে। এই কাজটা করলেই আপনি সুস্থ-সবল জীবন কাটাতে পারবেন।

ভাজাপোড়া খাবার
নিয়মিত যাদের বাইরের ভাজাপোড়া ফাস্টফুড, বিরিয়ানি খাওয়ার অভ্যাস তাদের ফ্যাটি লিভারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা তত বেশি। তাই এখন থেকেই এসব খাবার থেকে দূরত্ব তৈরি করে নিন। নইলে যে অচিরেই পিছু নেবে ফ্যাটি লিভার।

পাস্তা
এই ধরনের রিফাইন খাবারে খুবই কম পরিমাণে ফাইবার থাকে। বরং এইসব খাবার হলো সিম্পেল কার্বের ভাণ্ডার। আর এই উপাদান দেহে প্রবেশ করার পর তা ফ্যাটে রূপান্তরিত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা বাড়ে। সেই সুবাদে লিভারে জমতে পারে ফ্যাট। তাই এবার থেকে এই ধরনের খাবার খাওয়ার লোভ সামলে চলুন।

লাল মাংস
অনেকেই ছুটির দিনে গরু বা খাসির মাংস ছাড়া খেতেই পারেন না। আপনার অভ্যাসও যদি হয় লাল মাংস মাংস খাওয়া তাহলে এখনই বাদ দিন। লাল মাংসে বেশ কিছুটা পরিমাণে স্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে। আর এই উপাদান শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। এমনকি এই ফ্যাট ফ্যাটি লিভার ডিজিজের আশঙ্কাও বাড়িয়ে দেয়।

লবণ
প্রতিদিন অত্যধিক পরিমাণে লবণ খেলেও এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে। তাই সুস্থ থাকতে আপনাকে লবণ সমৃদ্ধ খাবার কম খেতে হবে। অনেকেই ভাতের সঙ্গে কাঁচা লবণ খান। এটি খুবই ক্ষতিকর। ফ্যাটি লিভারের সঙ্গে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যাও দেখা দিতে পারে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

লাইফস্টাইল

সজনে ডাটা খাওয়ার ৫ উপকারিতা

Published

on

লাফার্জ

বসন্ত শুরু হতেই বাজারে দেখা মিলছে সজনে ডাঁটার। স্বাস্থ্যগুণে ভরপুর এই সবজি বিভিন্নভাবে রান্না করা যায়। সজনে ডাঁটায় প্রোটিন, ফ্যাট, ভিটামিন, ক্যালশিয়াম, কার্বোহাইড্রেট, আয়রন, কপার এবং ফসফরাসের মতো উপাদান রয়েছে। আবহাওয়ার পরিবর্তনে এই সময়ে সংক্রমণজনিত নানা রোগ দেখা যায়। সেই প্রকোপ থেকে বাঁচতে নিয়মিত ডাঁটা খাওয়ার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদরা।

এই সময় খাদ্যতালিকায় সজনে ডাঁটা রাখলে যেসব উপকারিতা পাওয়া যায়-

আর্দ্রতা বজায় রাখে: সজনে ডাঁটায় পানির পরিমাণ বেশি। এ কারণে শরীরে পানির ঘাটতি দূর করতে পারে এই সবজি। গরমে শরীর ঠান্ডা রাখতে ডাঁটার জুড়ি নেই। কোনও কারণে পানি কম খাওয়া হলেও শরীর ডিহাইড্রেটেড রাখতে ভূমিকা রাখে সজনে ডাঁটা।

পুষ্টিগুণে ভরা: শরীরে বিভিন্ন ভিটামিন এবং খনিজের চাহিদা পূরণ করতে কার্যকর সজনে ডাঁটা। এতে রয়েছে ভিটামিন এ, সি, ই-য়ের পাশাপশি, ক্যালশিয়াম, পটাশিয়াম আয়রন রয়েছে। এসব উপাদান হাড় ভালো রাখতে এবং বিপাকহার উন্নত করতে সাহায্য করে।

শরীর ঠান্ডা রাখে:প্রাকৃতিকভাবেই সজনে ডাঁটা ঠান্ডা। এ কারণে অতিরিক্ত গরম পড়লেও শরীরকে ভেতর থেকে ঠান্ডা করতে পারে এই সবজি। শরীর গরম হয়ে গেলে অতিরিক্ত ঘাম হয়, ক্লান্ত লাগে। হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও বাড়তে পারে। এ কারণে গরম কালে নিয়মিত ডাঁটা খাওয়ার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদরা।

হজমে সহায়ক: গ্যাস, অম্বল, পেটফাঁপা এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে নিয়মিত খেতে পারেন সজনে ডাঁটা। অন্ত্রের স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও সাহায্য করে এই সবজি।

রোগ প্রতিরোধ শক্তি বাড়িয়ে তোলে: ডাঁটায় থাকা ভিটামিন সি রোগ প্রতিরোধ শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। এ ছাড়াও ডাঁটায় থাকা অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট ফ্রি র‌্যাডিক্যালের হাত থেকে ত্বককে রক্ষা করে।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

লাইফস্টাইল

নাক বন্ধের ঘরোয়া সমাধান

Published

on

লাফার্জ

শীত এলেই আমাদের শরীরে কিছু সমস্যাও দেখা দিতে শুরু করে। ঠাণ্ডা লেগে নাক বন্ধ হয়ে যাওয়ার সমস্যায় কম-বেশি সবারই ভুগতে হয়। বন্ধ নাকে কোনো কাজেই মন বসে না। নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে আসে, অস্বস্তি বোধ হয়। এই সমস্যার সঙ্গে সর্দি দেখা দিতে পারে, নাও পারে।

বাড়িতেই হাতের কাছে থাকা কিছু উপাদান দিয়ে বন্ধ নাকের সহজ চিকিৎসা হতে পারে। আসুন দেখে নেই কয়েকটি ঘরোয়া সমাধান:

লবণ-পানি

কুসুম গরম পানিতে কয়েক চামচ লবণ গুলিয়ে নিন। কয়েক ফোঁটা পানি ড্রপার দিয়ে নাকে ঢুকান। এতে জমে থাকা ধূলিকণা দূর হবে, কফ তরল হয়ে শ্বাসকষ্ট কমবে।

রসুন

রসুনের ওষুধি গুণ সম্পর্কে বলার অপেক্ষা রাখে না। এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বন্ধ নাকের জন্যেও কার্যকরী। রসুনের স্যুপ বা একটি কোয়াই বন্ধ নাকের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে।

পেঁয়াজ

পেঁয়াজের ঝাঁঝালো গন্ধে থাকা উপাদান নাক ও চোখের পানি বের করে দেয়। হ্যাঁ, এতেই কাজ হবে। ৫ মিনিট পেঁয়াজের গন্ধ নিন। বন্ধ নাক খুলে যাবে।

লেবু

লেবু ভিটামিন ‘সি’, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর। দু’চামচ লেবুর রসের সঙ্গে এক চিমটি গোলমরিচ ও লবণের মিশ্রণ নাকে দিয়ে কয়েক মিনিট রাখুন। তারপর দেখুন যাদু।

তুলসী

চিকিৎসা শাস্ত্রে তুলসী পাতার কদর বহুগুণ। কয়েকটি তাজা পাতা সকালের নাস্তার আগে চিবোলে বন্ধ নাক খুলে যাবে। সকালে তুলসী চাও সমাধান হতে পারে।

আদা

প্রদাহবিরোধী উপাদান থাকায় আদা সর্দি কমাতে পারে। ভালো ফল পেতে আদা চা বা আদার টুকরা চিবানো যেতে পারে। বন্ধ নাকের চিকিৎসায় আদার ব্যবহার সব থেকে কার্যকরী।

তবে সমস্যা তীব্র হলে অ্যালার্জির ওষুধ ও চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী নাকের স্প্রে ব্যবহার করতে পারেন।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

লাইফস্টাইল

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে উপকারী চার ফল

Published

on

লাফার্জ

বিশ্বব্যাপী অনেক মানুষেরই ডায়াবেটিস রয়েছে। পারিবারিক ইতিহাস বা অস্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রা- যে কারণেই হোক না কেন, এটি নিয়ন্ত্রণ করা বেশ চ্যালেঞ্জিং হতে পারে। ডায়াবেটিস কখনো দূর হয় না, তবে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার মাধ্যমে এটি নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেন, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে আমাদের খাদ্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। প্রতিদিন আমাদের খাদ্যতালিকায় কোন ধরনের খাবার যোগ করতে হবে বা বাদ দিতে হবে সে বিষয়ে অবশ্যই জানতে হবে। ডায়াবেটিসের জন্য উপকারী ৪টি ফল সম্পর্কে চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১. আপেল

প্রতিদিন একটি আপেল যেমন ডায়াবেটিসকে দূরে রাখে তেমনি ডাক্তারকেও দূরে রাখে। এটি ডায়েটারি ফাইবার সমৃদ্ধ, ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য একটি উপযুক্ত ফল। আপেল খেলে তা রক্তে শর্করার মাত্রায় কোনো আকস্মিক স্পাইক সৃষ্টি করে না। তবে প্রতিদিন একটি আপেল খাওয়াই যথেষ্ট, এর বেশি প্রয়োজন নেই।
২. পেয়ারা

আপনার ডায়াবেটিস ডায়েটে পেয়ারা অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। এটি একটি কম গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (GI), যার মানে এটি রক্তে শর্করার মাত্রা ধীরে ধীরে বৃদ্ধির দিকে নিয়ে যায়। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ হেলথ (এনআইএইচ) অনুসারে, খোসা ছাড়া পেয়ারা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আরও কার্যকরী।

৩. কমলা

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য কমলা একটি নিরাপদ ফল। এটি ফাইবার সমৃদ্ধ এবং এতে কম জিআই রয়েছে, যা আপনার ডায়েটে একটি দুর্দান্ত সংযোজন হতে পারে। এগুলো উপভোগ করার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো বাড়িতে তাজা জুস তৈরি করে খাওয়া।

৪. কিউই

একটি ফল যা আপনি কোনো চিন্তা ছাড়াই খেতে পারেন তা হলো কিউই। এটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ এবং এই ফল খেলে গ্লুকোজ ধীরে ধীরে রক্ত ​​প্রবাহে মেশে। আপনি এটি সালাদে যোগ করতে পারেন, স্মুদি তৈরি করে খেতে পারেন বা এটি কাঁচাই খেতে পারেন।

খেয়াল রাখুন

যারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত বা যাদের ক্ষেত্রে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি রয়েছে তারা নিয়মিত এই ফলগুলো খেতে পারেন। তবে ভরা পেটে মানে খাওয়ার পরপরই কোনো ফল খাবেন না। কারণ ফল হজম হতে কম সময় লাগে অপরদিকে প্রোটিন বা কার্বোহাইড্রেট হজমে তার চেয়ে বেশি সময় নেয়। তাই অন্যান্য খাবারের সঙ্গে ফল খেলে তখন হজমে সমস্যা হতে পারে। এতে শরীর পুষ্টি থেকেও বঞ্চিত হয়। তাই মূল খাবারের অন্তত আধা ঘণ্টা আগে বা পরে ফল খাবেন।

কাফি

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

লাইফস্টাইল

বাতের ব্যথা বাড়িয়ে দেয় যেসব খাবার

Published

on

লাফার্জ

বাতের ব্যথার যন্ত্রণা ভুক্তভোগী মাত্রই জানেন। এই সমস্যার কারণে আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে যেতে পারে। হাড়ের ভেতরে ব্যথা এবং ফোলাভাব বাড়তে শুরু করে বাতের সমস্যার কারণে। শুরুতেই এই সমস্যার দিকে মনোযোগী না হলে পরবর্তীতে ভুগতে হতে পারে। নিয়মিত যত্ন না নিলে সমস্যা পুরো শরীরে ছড়িয়ে পড়ে।

উদ্ভিজ্জ তেল
যারা বাতের সমস্যায় ভুগছেন তারা খাবার তৈরির ক্ষেত্রে ডায়েটে উদ্ভিজ্জ তেল ব্যবহার করবেন না। এ ধরনের তেলে উচ্চ ওমেগা এবং ফ্যাটি উপাদান থাকায় তা শরীরের পেশীগুলোর প্রদাহকে আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে। তাই বাতের সমস্যা থাকলে এ ধরনের তেল ব্যবহারের ক্ষেত্রে সতর্ক হোন।

কমলা
কমলা একটি উপকারী ফল, সন্দেহ নেই। কিন্তু আপনার যদি বাতের সমস্যা থাকে তাহলে কমলার মতো সাইট্রাস ফল খাওয়া এড়িয়ে চলুন। কারণ এই ফল ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, তাই এটি হাড়ের উপরে জমে থাকা ক্যালসিয়ামের স্তরকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। যে কারণে কমলা বা লেবু জাতীয় ফল খেলে বাড়ে বাতের সমস্যা।

বেগুন
বেগুন ভাজা অনেকেরই পছন্দের খাবার। কিন্তু এই বেগুন বাতের রোগীদের জন্য উপকারী নয়। কারণ এতে সোলানাইন নামে একটি যৌগ বেশি থাকে, যা বাতের সমস্যার ক্ষেত্রে ক্ষতিকর। তাই বাতের ব্যথায় ভুগলে বেগুন খাওয়া বাদ দিন। কারণ এমন অবস্থায় বেগুন খেলে হাড় দুর্বল হয়ে পড়ে।

কফি
কফি পান করতে পছন্দ করেন? কিন্তু আপনার যদি বাতের সমস্যা থাকে তাহলে কফি পান করা বাদ দিতে হবে। কারণ এতে থাকে উচ্চ মাত্রার ক্যাফেইন। এটি হাড় দুর্বল করে জয়েন্টের ব্যথা বাড়িয়ে দেয়। তাই যাদের বাতের সমস্যা আছে তারা এ ধরনের পানীয় পান থেকে বিরত থাকুন।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

লাইফস্টাইল

কেউ বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হলে তৎক্ষণাৎ কী করবেন

Published

on

লাফার্জ

প্রত্যেকের বাড়িই নানা ধরনের যন্ত্রে ভর্তি। তার বেশির ভাগই বিদ্যুৎচালিত। এর যে কোনোটি থেকেই আচমকা কেউ কখনও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হতে পারেন। এমন ঘটনা যদি ঘটে, তাহলে কী করবেন, তা আগে থেকে জেনে রাখা দরকার।

• প্রথমেই মনে রাখতে হবে- কেউ বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হলে, সেই অবস্থায় তার গায়ে হাত দেওয়া যাবে না। তাহলে যিনি হাত দেবেন বা আক্রান্তকে বিদ্যুৎ থেকে মুক্ত করতে যাবেন তিনিও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হবেন।

• কেউ বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হলে সঙ্গে সঙ্গে বাড়ির মেইন সুইচ-টি বন্ধ করে দিতে হবে।

• কাঠের বা প্লাস্টিকের লাঠি দিয়ে ধাক্কা দিয়ে আক্রান্তকে বিদ্যুতের উৎস থেকে আলাদা করতে হবে। কোনো ধাতব লাঠি ব্যবহার করা যাবে না।

• যদি লাঠি না থাকে, তাহলে একেবারে শুকনো কাপড় দিয়ে ধরে তাকে বিদ্যুতের উৎস থেকে আলাদা করতে হবে।

• এবার দেখতে হবে আক্রান্ত ব্যক্তির শ্বাস চলাচল স্বাভাবিক কিনা। যদি তা না হয়, যদি শ্বাস বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে কৃত্রিমভাবে তার শ্বাস চালু করার চেষ্টা করতে হবে। পরিসংখ্যান বলছে, তিন মিনিটের ভেতরে শ্বাস চালু করা গেলে বেশির ভাগ আক্রান্তই বেঁচে যান।

আক্রান্তের যত্ন নেবেন যেভাবে

• আক্রান্ত মানুষটির শ্বাস স্বাভাবিক থাকলে তাকে চিৎ করে শুইয়ে দিন। কোমর থেকে পা একটু উঁচু জায়গায় রাখুন। এতে শ্বাস নিতে সুবিধা হবে।

• আক্রান্তের গলা শুকিয়ে গেলে অল্প পানি খেতে দিন। গায়ে বা মাথায় পানি লাগতে দেবেন না।

• আক্রান্ত মানুষটি যদি কিছু খেতে পারেন, তাহলে তাকে গরম দুধ বা চা দিন।

মনে রাখবেন, এ সবের পরেও চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি। এমন দুর্ঘটনা ঘটলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। আর বিদ্যুতের যে উৎস থেকে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে, কোনো পেশাদারকে ডেকে সেই জায়গাটির মেরামত করিয়ে নিন।

কাফি

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন
লাফার্জ
ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ার1 min ago

চাকরির সুযোগ দিচ্ছে এসিআই মটরস

লাফার্জ
রাজধানী48 mins ago

রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না শনিবার

লাফার্জ
জাতীয়1 hour ago

শপথ নিলেন নতুন সাত প্রতিমন্ত্রী 

লাফার্জ
জাতীয়2 hours ago

জলবায়ু অর্থায়নে বেসরকারি খাতের সম্পৃক্ততা জরুরি: সাবের হোসেন

ঘরে বসে উপার্জন করার ৮ উপায়
অর্থনীতি2 hours ago

সপ্তাহের ব্যবধানে রিজার্ভ বাড়লো ৩৭ কোটি ডলার

লাফার্জ
শিল্প-বাণিজ্য2 hours ago

শুক্রবার রাতেই মেগা ক্যাম্পেইন নিয়ে আসছে ইভ্যালি

লাফার্জ
খেলাধুলা3 hours ago

ফাইনালে টস জিতে ফিল্ডিংয়ে তামিমের বরিশাল

লাফার্জ
আন্তর্জাতিক3 hours ago

ভারতে ফের বাড়লো বাণিজ্যিক গ্যাসের দাম

লাফার্জ
জাতীয়3 hours ago

ক্রীড়া খাতের উন্নয়নে বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করবে চীন

লাফার্জ
প্রবাস3 hours ago

ইতালিতে স্পন্সর ভিসার অনলাইন আবেদন শুরু

Advertisement
Advertisement

ফেসবুকে অর্থসংবাদ

২০১৮ সাল থেকে ২০২৩

অর্থসংবাদ আর্কাইভ

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১