Connect with us

অন্যান্য

ডলার সংকট কাটাতে মার্চেই চালু ‘ক্রলিং পেগ’

Published

on

ঘরে বসে উপার্জন করার ৮ উপায়

দেশের মধ্যে ডলার সংকট শুরু বেশ পুরোনো। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ পরিস্থিতির পর তা আরও বেড়েছে। মার্কিন এ মুদ্রাটির সংকট নিয়ে মহাসমুদ্রে হাবুডুবু খাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেওয়া কোনো উদ্যোগই কাজে আসছে না। অন্যদিকে, বাজার পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে বৈদেশিক মুদ্রার মজুত বা রিজার্ভ থেকে প্রতিনিয়ত ডলার বিক্রি করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এতেও দূর হচ্ছে না সংকট।

বিপরীতে আড়াই বছরে রিজার্ভ অর্ধকে নেমে যায়। অর্থাৎ এ সময়ের মধ্যে রিজার্ভ ৪৮ বিলিয়নের ডলার থেকে কমে ২৪ বিলিয়ন ডলারের ঘরে নেমে যায়।

ডলার দর নিয়ন্ত্রিত ও বাজারভিত্তিক করতে দ্রুত ক্রলিং পেগ পদ্ধতি চালুর পরিকল্পনা করা হচ্ছে। আসছে মার্চের প্রথম সপ্তাহ থেকে ক্রলিং পেগ পদ্ধতিতে ডলারের বিনিময় হার নির্ধারণ করা হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের একাধিক সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, ডলার সংকট কাটাতে নেওয়া নানা উদ্যোগের কোনোটিই কাজে আসছে না। রিজার্ভও কমে অর্ধেকে নেমেছে। এবার ডলার সংকট কাটাতে এর দর নিয়ন্ত্রিত ও বাজারভিত্তিক করতে আগামী মার্চের প্রথম সপ্তাহ থেকে ক্রলিং পেগ পদ্ধতিতে ডলারের বিনিময় হার নির্ধারণ করা হতে পারে। বিশ্বের অনেক দেশেই এটি কার্যকর ভূমিকা পালন করেছে।

এ পদ্ধতি টাকার বিপরীতে ডলারের দামের ভিত্তি হবে রিয়াল ইফেকটিভ একচেঞ্জ রেট (রিয়ার) ও নমিনাল ইফেকটিভ একচেঞ্জ রেট (নিয়ার)। বৈশ্বিক মানদণ্ডের আলোকে ‘ক্রলিং পেগ’ রেটের সঙ্গে ৫০ পয়সা থেকে ১ টাকার করিডোর রাখা হবে। আর স্মার্ট সুদহারের আলোকে বাংলাদেশ ফরেন একচেঞ্জ ডিলার অ্যাসোসিয়েশন (বাফেদা) ডলারের দর নির্ধারণ করবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক কর্মকর্তা জানান, ডলার সংকট কাটছে না। সংকটের সুযোগে কারসাজিতে জড়িয়ে পড়েছে ব্যাংক-এক্সচেঞ্জ হাউজ। অন্যদিকে, রিজার্ভও তলানিতে। এ পরিস্থিতিতে ডলারের দর শতভাগ বাজারের ওপর ছেড়ে দেওয়ার পরিবেশ নেই। তাই গভর্নর ক্রলিং পেগ পদ্ধতি দ্রুত বাস্তবায়নের নির্দেশ দিয়েছেন।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বা আইএমএফের কারিগরি কমিটি ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাংলাদেশে আসার আমন্ত্রণে অসম্মতি জানিয়ে বিলম্ব করার প্রস্তাব দিয়েছে। এই বিলম্বকে কেন্দ্র করে ক্রলিং পেগ মার্চেই দ্রুত বাস্তবায়নের নির্দেশ দেন গভর্নর রউফ তালুকদার। পরবর্তীতে আইএমএফের সুপারিশ চলমান প্রক্রিয়ায় সমন্বয় হবে।

দেশে সাময়িকভাবে ডলারের ধকল সামলাতে ক্রলিং পেগ চালু হচ্ছে। বৈদেশিক মুদ্রার সংকট কাটাতে ল্যাটিন আমেরিকার উরুগুয়েতে প্রথম ক্রলিং পেগের প্রচলন ঘটে। বর্তমানে বতসোয়ানা, হন্ডুরাস ও নিকারাগুয়ায় ক্রলিং পেগ পদ্ধতি চালু রয়েছে।

এ পদ্ধতিতে বিনিময় হার সমন্বয়ের একটি নির্দিষ্ট বিনিময় হারসহ ধীরে ধীতে নির্ধারিত সীমার মধ্যে ওঠানামার সুযোগ রাখা হয়। কিছু দিন পর পর সমন্বয় করা যায়। এতে উচ্চ বিনিময় হারের অস্থিরতা, মুদ্রাস্ফীতি, অর্থনৈতিক অস্থিরতার সময় দেশীয় মুদ্রার অবমূল্যায়নের হুমকি এড়াতে নিয়ন্ত্রণমূলক ক্রলিং পেগ কার্যকর ভূমিকা রাখে। তবে মুদ্রাবাজার সংকট কেটে গেলে ক্রলিং পেগ কার্যকর থাকে না।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

অন্যান্য

বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে যা বললেন মুশফিক

Published

on

পর্ষদ সভা

চলতি বছরের জুনে মাঠে গড়াবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। আর এবারের বিশ্বকাপ খেলা অনুষ্ঠিত হবে আমেরিকা এবং ওয়েস্ট-ইন্ডিজে। আসন্ন সেই বিশ্বকাপকে সামনে রেখে আগেভাগেই নিজেদের প্রস্তুত করছে টাইগাররা। মাঠের ক্রিকেটে সর্বোচ্চ দেওয়ায় থাকবে নাজমুল হোসেন শান্তর দলের প্রধান লক্ষ্য।

বাংলাদেশ দলের অভিজ্ঞ ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি থেকে অবসর নিয়েছেন অনেক আগে। তবে তিনি আশা করছেন বাংলাদেশ এবার বিশ্বকাপে ভালো কিছু করবে। গতকাল ঈদের দিনে নিজ শহর বগুড়ায় গণমাধ্যমে মুখোমুখি হন তিনি।

সেখানে মুশফিক বলেন, ইনশাআল্লাহ চেষ্টা করছে সবাই যার যার দিক থেকে। আশা করছি, সবাই সেভাবেই প্রস্তুতি নিবে। এবং ইনশাআল্লাহ আশা করি, সামনে যে বিশ্বকাপ আছে সেখানে বাংলাদেশ দল ভালো করবে।

মুশফিক সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি গরিব অসহায়দের খোঁজ নেওয়ার তাগিদ দিয়েছেন, ‘আশা করব, সবাই যার যার পরিবার, আত্মীয়স্বজন নিয়ে ঈদ করবেন। সবাই যেন নিরাপদে ঈদ উদযাপন করেন ও গরীব-অসহায় মানুষ আছেন যারা, তাদের সবার দিকে খেয়াল রাখবেন। এবং সবার সুখ ও সমৃদ্ধি কামনা করে আমি দোয়া করি, আমাদের জন্যও দোয়া করবেন।’

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অন্যান্য

মার্চে মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৯.৮১ শতাংশ

Published

on

পর্ষদ সভা

মার্চ মাসে দেশের সার্বিক মূল্যস্ফীতি বেড়েছে ০.১৪ শতাংশ। এর ফলে মাসটিতে মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৯.৮১ শতাংশ। যা ফেব্রুয়ারি মাসে ছিল ৯.৬৭ শতাংশ।

মঙ্গলবার (০৯ এপ্রিল) বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) মূল্যস্ফীতির প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

বিবিএস জানায়, বছরের শুরুতে দেশে হঠাৎ বেড়ে যাওয়া খাদ্য মূল্যস্ফীতি গত ফেব্রুয়ারিতে কিছুটা কমলেও মার্চে আবার বেড়েছে। এ মাসে সার্বিক খাদ্য মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৯.৮৭ শতাংশ। ফেব্রুয়ারিতে যেটি ছিল ৯.৪৪ শতাংশ। এদিকে ফেব্রুয়ারিতে সার্বিক খাদ্য-বহির্ভূত মূল্যস্ফীতি ছিল ৯.৩৩ শতাংশ, যা মার্চে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯.৬৪ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

এছাড়া মার্চে গ্রামাঞ্চলে সার্বিক মূল্যস্ফীতি ০.২০ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯.৬৮ শতাংশে। এর মধ্যে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ৯.৮৬ শতাংশ ও খাদ্য-বহির্ভূত মূল্যস্ফীতি ৯.৪১ শতাংশ।

আর শহরে সার্বিক মূল্যস্ফীতি ০.৬ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯.৯৪ শতাংশে। এর মধ্যে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ৯.৯৮ শতাংশ ও খাদ্য-বহির্ভূত মূল্যস্ফীতি ৯.৭১ শতাংশ।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অন্যান্য

ফোর্বসের বিলিয়নিয়ার তালিকায় বাংলাদেশের আজিজ খান

Published

on

পর্ষদ সভা

২০২৪ সালের বার্ষিক বিলিয়নিয়ারের তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগাজিন। শীর্ষ দশে কিছুটা রদবদল হলেও ঘুরেফিরে কার্যত একই ব্যক্তিদের নাম এসেছে। তবে এই তালিকায় কিছু চমকও রয়েছে।

ফোর্বসের বিলিয়নিয়ারের তালিকায় একমাত্র বাংলাদেশি হিসেবে জায়গা করে নিয়েছেন সামিট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আজিজ খান। সম্পদের হিসাবে বৈশ্বিক তালিকায় অবশ্য অনেক পেছনে রয়েছেন তিনি। ফোর্বসের বিলিয়নিয়ার তালিকায় ৬৯ বছর বয়সী এ ব্যবসায়ী রয়েছেন ২ হাজার ৫৪৫তম স্থানে।

আজিজ খানের মোট সম্পদের পরিমাণ বলা হয়েছে ১১০ কোটি মার্কিন ডলার, বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ১২ হাজার ১০০ কোটি টাকা।

জ্বালানি, বন্দর, ফাইবার অপটিকস এবং রিয়েল এস্টেটসের ব্যবসা রয়েছে তার মালিকানাধীন সামিট গ্রুপের। আজিজ খান বর্তমানে সিঙ্গাপুরে বসবাস করেন। ছোট্ট দেশটির শীর্ষ ৫০ ধনীর তালিকায় তার নাম রয়েছে।

ফোর্বসের হিসাবে, বিশ্বে মোট বিলিয়নিয়ারের সংখ্যা ২ হাজার ৭৮১ জন, যা গত বছরের তুলনায় ১৪১ জন বেশি। তাদের মোট সম্পত্তির পরিমাণ ১৪ দশমিক ২ ট্রিলিয়ন ডলার, যা ২০২৩ সালের তুলনায় দুই ট্রিলিয়ন ডলার বেশি।

তবে অধিকাংশ সম্পদই শীর্ষ ২০ জনের দখলে। ২০২৩ সালের পর তারা সমন্বিতভাবে ৭০০ বিলিয়ন ডলার যোগ করেছেন।

বিলিয়নিয়ারের তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের ৮১৩ জন স্থান পেয়েছেন, তাদের সমন্বিত সম্পত্তির পরিমাণ ৬ দশমিক ৭ ট্রিলিয়ন ডলার।

৪৭৩ জন নিয়ে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে চীন। দেশটির বিলিয়নিয়ারদের মোট সম্পত্তির পরিমাণ ১ দশমিক ৭ ট্রিলিয়ন ডলার।

২০০ জন বিলিয়নিয়ার নিয়ে তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে ভারত। তাদের সমন্বিত সম্পত্তির পরিমাণ ৯৫৪ বিলিয়ন ডলার।

এককভাবে ২৩৩ বিলিয়ন ডলারের সম্পত্তি নিয়ে ধনীদের তালিকায় শীর্ষস্থানে রয়েছেন ফরাসি ব্যবসায়ী ও এলভিএমএইচের সিইও বার্নার্ড আর্নল্ট। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের বৈদ্যুতিক গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেসলার প্রধান নির্বাহী ইলন মাস্ক। তার সম্পত্তির পরিমাণ ১৯৫ বিলিয়ন ডলার।

তৃতীয় হয়েছেন অ্যামাজন প্রধান জেফ বেজোস, চতুর্থ মেটা সিইও মার্ক জুকারবার্গ, পঞ্চম ওরাকলের ল্যারি এলিসন, ষষ্ঠ বার্কশায়ার হাথওয়ের ওয়ারেন বাফেট, সপ্তম মাইক্রোসফটের বিল গেটস, অষ্টম মাইক্রোসফটের স্টিভ বালমার, নবম রিলায়েন্স গ্রুপের মুকেশ আম্বানি এবং ১০ম স্থানে রয়েছেন গুগলের সাবেক সিইও ল্যারি পেজ।

প্রথমবারের মতো বিলিয়নিয়ারের তালিকায় নাম লিখিয়েছেন মার্কিন সংগীতশিল্পী টেইলর সুইফট। এক ট্যুরেই তিনি মিউজিক ইন্ডাস্ট্রির ইতিহাস ভেঙে কামিয়েছেন প্রায় ১০০ কোটি ডলার। পোলস্টারের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বজুড়ে চলা এরাস ট্যুরের প্রথম ৬০টি শো থেকেই আয় হয়েছে ১০৪ কোটি ডলার। এই ট্যুরের ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকা মহাদেশের শো এখনো বাকি।

এশিয়ার প্রথম ব্যবসায়ী হিসেবে ১০ হাজার কোটি ডলারের ক্লাবে নাম লিখিয়েছেন ভারতের মুকেশ আম্বানি। রিলায়েন্স গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের আওতায় নানা ধরনের ব্যবসা থেকে এই অর্থ উপার্জন করেছেন তিনি। আম্বানির সম্পদের পরিমাণ উল্লেখ করা হয়েছে ১১ হাজার ৬০০ মার্কিন ডলার।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অন্যান্য

চক্রের মাধ্যমে নয়, দাপ্তরিক প্রয়োজনে পরিচালকের দপ্তরে সার্ভেইল্যান্স সংযোগ: বিএসইসি

Published

on

পর্ষদ সভা

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সার্ভেইল্যান্স বিভাগের পরিচালকের দপ্তরে বিদ্যমান সংযোগ কোনো চক্রের মাধ্যমে নয়, বরং দাপ্তরিক প্রয়োজনেই দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে কমিশন। এ বিষয়ে বিভ্রান্ত না হতে সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে বিএসইসি। সেই সঙ্গে জাতীয় দৈনিক যুগান্তরে এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রতিবেদনে তথ্য পাচারের যে অভিযোগ করা হয়েছে, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট প্রমাণসহ বিএসইসিকে অবহিত করার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

আজ সোমবার (১ এপ্রিল) বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ৩১ মার্চ দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় প্রকাশিত ‘পুঁজিবাজারে নজরদারি সফটওয়্যার: গোপন তথ্যভাণ্ডারে অবৈধ সংযোগ’ শীর্ষক শিরোনামের প্রতিবেদন এবং ১ এপ্রিল ‘সাভিইল্যান্স অনিরাপদ হলে আস্থা হারাবে শেয়ারবাজার’ শিরোনামের প্রতিবেদনের বিষয়ে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের বক্তব্য রয়েছে। কমিশনের সার্ভেইল্যান্স ডিপার্টমেন্ট পুঁজিবাজারে প্রতিদিনের লেনদেন পর্যবেক্ষণ অথবা নজরদারি করে থাকে। দাপ্তরিক প্রয়োজনে অর্পিত দায়িত্বের কারণে বিএসইসির পরিচালক (সার্ভেইল্যান্স) কমিশনের সার্ভেইল্যান্স সংক্রান্ত ডাটা অথবা তথ্য পর্যালোচনাপূর্বক কমিশনে বিভিন্ন ধরনের প্রয়োজনীয় রিপোর্ট উপস্থাপন কাজে নেতৃত্ব দেন। পুঁজিবাজার সংক্রান্ত সব তথ্য স্পর্শকাতর হওয়ায় অন্যান্য বিষয়ের মতো সার্ভেইল্যান্স ডিপার্টমেন্টের সব ডাটা অথবা তথ্যের নিরাপত্তা ও গোপনীয়তা কমিশন কর্তৃক সার্বক্ষণিকভাবে নিশ্চিত করা হয়। বিএসইসির পরিচালকের (সার্ভেইল্যান্স) বিদ্যমান সংযোগটি কোনো চক্রের মাধ্যমে নয়, বরং দাপ্তরিক প্রয়োজনেই দেওয়া হয়েছে। এটা সুদীর্ঘকাল ধরে বলবৎ রয়েছে। তাই, সংশ্লিষ্ট সবাইকে উল্লিখিত সংবাদে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ করা হচ্ছে।

এতে আরও বলা হয়, প্রকাশিত সংবাদে তথ্য পাচার সংক্রান্ত যে বিষয়টি এসেছে, তা রহিত করার নিমিত্তে কোনো সুনিদিষ্ট তথ্য থাকলে প্রমাণসহ কমিশনকে অবহিত করতে অনুরোধ করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অন্যান্য

এটিঅ্যান্ডটির ৭ কোটি গ্রাহকের তথ্য ফাঁস

Published

on

পর্ষদ সভা

যুক্তরাষ্ট্রের বহুজাতিক টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান এটিঅ্যান্ডটির প্রায় ৭ কোটি ৩০ লাখ গ্রাহকের তথ্য চুরি হয়েছে। সম্প্রতি এ ঘটনার তদন্ত শুরুর কথা জানিয়েছে কোম্পানিটি।

চলতি সপ্তাহে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে টেলিযোগাযোগ কোম্পানিটি জানায়, দুই সপ্তাহ আগে ডার্ক ওয়েবে নতুন ও পুরাতন গ্রাহকদের তথ্য ফাঁস হয়েছে। এর মধ্যে অ্যাকাউন্ট হোল্ডারদের সামাজিক সুরক্ষা নাম্বার রয়েছে। কোম্পানি জানায়, এসব তথ্য এটিঅ্যান্ডটি থেকেই চুরি হয়েছে নাকি অন্য কোথাও থেকে তা জানা যায়নি। তবে এখন পর্যন্ত এটিঅ্যান্ডটি এর সিস্টেমে অনধিকার কোনো প্রবেশের তথ্য পায়নি, যার মাধ্যমে তথ্য হাতিয়ে নেয়া হয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, ২০১৯ ও তার আগের সময় থেকে তথ্য চুরি হয়েছে। এতে আর্থিক কোনো তথ্য বা কল হিস্ট্রি নেই বলে জানিয়েছে এটিঅ্যান্ডটি। কোম্পানি জানায়, মোট চুরি হওয়া তথ্যের মধ্যে ৭৬ লাখ নতুন এবং ৬ কোটি ৫৪ লাখ পুরনো ব্যবহারকারী রয়েছে।

অ্যাকাউন্টের পাসকোড পরিবর্তনের জন্য গ্রাহকদের কোম্পানির পক্ষ থেকে জানানো হচ্ছে। এছাড়াও ক্রেডিট প্রতিবেদন বা অ্যাকাউন্টে যে কোনো পরিবর্তনের বিষয়েও সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছে এটিঅ্যান্ডটি।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন
পর্ষদ সভা
জাতীয়4 mins ago

মুক্তি পাওয়া নাবিকদের পরিবারে আনন্দের বন্যা

পর্ষদ সভা
পুঁজিবাজার1 hour ago

তিন কোম্পানির পর্ষদ সভা কাল

পর্ষদ সভা
খেলাধুলা1 hour ago

রাতে মাঠে নামছে চেন্নাই, একাদশে থাকবেন মুস্তাফিজ?

পর্ষদ সভা
জাতীয়2 hours ago

দস্যুমুক্ত এমভি আবদুল্লাহ দুবাই পৌঁছাবে যেদিন

পর্ষদ সভা
ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ার2 hours ago

আনোয়ার খান হাসপাতালে চাকরির সুযোগ

পর্ষদ সভা
আন্তর্জাতিক3 hours ago

ভারতের রিজার্ভ বেড়ে সর্বকালের সর্বোচ্চ

পর্ষদ সভা
জাতীয়3 hours ago

জাহাজ ও নাবিকদের এত দ্রুত মুক্তির ঘটনা নজিরবিহীন: নৌ প্রতিমন্ত্রী

পর্ষদ সভা
আন্তর্জাতিক3 hours ago

আমি প্রেসিডেন্ট থাকলে ইসরায়েলে হামলা হতো না: ট্রাম্প

পর্ষদ সভা
জাতীয়4 hours ago

রমনার বটমূলে শেষ হলো বর্ষবরণ অনুষ্ঠান

পর্ষদ সভা
আন্তর্জাতিক4 hours ago

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠক

ফেসবুকে অর্থসংবাদ

২০১৮ সাল থেকে ২০২৩

অর্থসংবাদ আর্কাইভ

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০