Connect with us

ব্যাংক

আরটিজিএস লেনদেনে যুক্ত হচ্ছে চীনা মুদ্রা

Published

on

ডিএসই

দেশের তাৎক্ষণিক লেনদেনে যুক্ত হচ্ছে চাইনিজ ইউয়ান। এই চীনা মুদ্রা তাৎক্ষণিক লেনদেন নিষ্পত্তির ব্যবস্থা রিয়েল টাইম গ্রোস সেটেলমেন্ট (আরটিজিএস)-এ যুক্ত হবে। বাংলাদেশ ব্যাংক জানিয়েছেন, আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে চাইনিজ মুদ্রা ইউয়ান আরটিজিএস লেনদেন শুরু হবে।

বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) বাংলাদেশ ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেমস ডিপার্টমেন্ট থেকে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে দেশের সব তফসিলি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠিয়েছে।

প্রসঙ্গত, বিশ্বের অন্যান্য উন্নত দেশের মতো পেমেন্ট সিস্টেমে বৈদেশিক মুদ্রায় লেনদেন ব্যবস্থা চালু করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এরই অংশ হিসেবে ২০২২ সালে মার্কিন ডলার, পাউন্ড স্টার্লিং, ইউরো, জাপানিজ ইয়েন ও কানাডিয়ান ডলার এই পাঁচটি বৈদেশিক মুদ্রায় আরটিজিএস ব্যবস্থার মাধ্যমে আন্তঃব্যাংক লেনদেন শুরু হয়। এবার যুক্ত হয়েছে চাইনিজ ইউয়ান।

আরটিজিএস ব্যবস্থায় চাইনিজ ইউয়ান যুক্ত করার প্রসঙ্গে সার্কুলারে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক বৈদেশিক মুদ্রায় ক্লিয়ারিং কার্যক্রম আধুনিক, যুগোপযোগী ও তাৎক্ষণিকভাবে নিষ্পত্তির লক্ষ্যে ২০২২ সালের ৪ সেপ্টেম্বর থেকে এফডিডির পরিবর্তে আরটিজিএস ব্যবস্থার মাধ্যমে ৫টি বৈদেশিক মুদ্রায় (মার্কিন ডলার, পাউন্ড স্টার্লিং, ইউরো, জাপানিজ ইয়েন ও কানাডিয়ান ডলার) অটোমেটেড ক্লিয়ারিং কার্যক্রম শুরু হয়। এরই ধারাবাহিকতায় আরটিজিএস ব্যবস্থায় চাইনিজ ইউয়ান (সিএনওয়াই) অন্তর্ভুক্ত করা হলো।

আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে আরটিজিএস ব্যবস্থায় চাইনিজ ইউয়ান মুদ্রায় লেনদেন চালু করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ব্যাংকগুলোকে অনুরোধ জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ বিষয়ে ইতোপূর্বে জারিকৃত ‘গাইড লাইনস অব এফসি ক্লিয়ারিং থ্রো বিডি-আরটিজিএস’ সিস্টেম অনুসরণ করতে হবে।

উল্লেখ্য, রিয়েল টাইম গ্রোস সেটেলমেন্ট (আরটিজিএস) একটি নিরাপদ, সুরক্ষিত ও দক্ষ আন্তঃব্যাংক পেমেন্ট সিস্টেম। বাংলাদেশ ব্যাংক তার ডিজিটালাইজেশনে অন্তর্ভুক্ত উদ্যোগের অংশ হিসেবে ২৯ অক্টোবর ২০১৫ সাল থেকে রিয়েল টাইম গ্রোস সেটেলমেন্ট (আরটিজিএস) সিস্টেম চালু করেছে।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

ব্যাংক

আর্থিক প্রতিষ্ঠানের এমডি নিয়োগে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্যানেল গঠন

Published

on

দেশে মূল্যস্ফীতি কমাতে নীতি সুদহার বৃদ্ধি

দীর্ঘদিন যাবত দেশের প্রায় এক ডজন ব্যাংক-বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান চলছে ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) বা প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ছাড়া। দীর্ঘদিন ধরে এসব প্রতিষ্ঠান এমডি খুঁজে পাচ্ছে না। তাই এখন বাংলাদেশ ব্যাংক এসব প্রতিষ্ঠানে এমডি নিয়োগের জন্য একটি প্যানেল গঠন করেছে।

এখন থেকে প্রতিষ্ঠান এই প্যানেল থেকে তাদের পছন্দমতো এমডি নিয়োগ করতে পারবে। পাশাপাশি এই প্যানেল থেকে স্বতন্ত্র পরিচালকও নিয়োগ করা যাবে। ইতোমধ্যে অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা ও অভিজ্ঞ ব্যাংকারের খোঁজে কয়েকটি বাণিজ্যিক ব্যাংককে চিঠিও দিয়েছে আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে এই তথ্য জানা যায়।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, গত এক থেকে দুই বছর যাবত বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান এমডি ছাড়াই চলছে। আবার কিছু প্রতিষ্ঠান কয়েক মাস ধরে চলছে এমডি ছাড়া। এসব প্রতিষ্ঠান চলাচ্ছেন অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এএমডি), উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) এবং অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। তারা ভারপ্রাপ্ত এমডি বা সিইও হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

অভিযোগ রয়েছে বোর্ডের পছন্দমতো কাজ না করলে কিছু প্রতিষ্ঠান এমডিদের বিদায় করে দিচ্ছে। আবার নিজস্ব লোক নিয়োগ দেয়ার জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যোগ্য এমডি পেলেও নিয়োগ দিচ্ছে না।

এমডি ছাড়া চলছে ইউনিয়ন ক্যাপিটাল, ফাস ফাইন্যান্স, বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্স কোম্পানি (বিআইএফএস), দি ইউনাইটেড আরব আমিরাত-বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড, জিএসপি ফাইন্যান্স কোম্পানি (বাংলাদেশ), আভিভা ফাইন্যান্স, বে লিজিং, ফার্স্ট ফাইন্যান্স, ফিনিক্স ফাইন্যান্স, এসএফআইএল, আইপিডিসি ফাইন্যান্স এবং অগ্রণী এসএমই ফাইন্যান্স।

এই বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা জানায়, বিভিন্ন ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও অভিজ্ঞ ব্যাংকার দ্বারা প্যানেল তৈরি করার কাজ শুরু করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। প্যানেল তৈরির জন্য সরকারি-বেসরকারি ৭-৮টি ব্যাংককে অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের তালিকা পাঠাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে চিঠিও দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে-সোনালী ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, উত্তরা ব্যাংক ও পূবালী ব্যাংক। ব্যাংকগুলোকে অবসরপ্রাপ্ত জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) থেকে তার ঊর্ধ্বতন ব্যাংক কর্মকর্তাদের তালিকা পাঠাতে বলা হয়, যাদের বয়সসীমা হবে সর্বোচ্চ ৬৫ বছর। পাশাপাশি কর্মজীবনে স্বচ্ছ ও ভাবমূর্তি এবং যোগ্য লোকের তালিকা পাঠাতে বলা হয়েছে। ইতোমধ্যে একটি ব্যাংক ২০ থেকে ২৫ জনের তালিকা পাঠিয়েছে। সব মিলিয়ে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে এখন পর্যন্ত ৩০ থেকে ৪০ জনের তালিকা এসেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হাতে। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মেজবাউল হক এই বিষয়ে সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান এমডি নিয়োগে ব্যর্থ হচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন ধরে এমডি ছাড়াই চলছে। তাই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উদ্যোগে প্যানেল করা হচ্ছে। কোনো প্রতিষ্ঠান এমডি না পেলে এই প্যানেল থেকে নিতে পারবে। ইতোমধ্যে অভিজ্ঞ ব্যাংকারদের কাছ থেকে কিছু সিভি পেয়েছি, যারা এসব প্রতিষ্ঠানে এমডি হিসেবে নেতৃত্ব দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

ব্যাংক

বাংলাদেশ ব্যাংকের জেনারেল ও ক্যাশ পদের নাম পরিবর্তন

Published

on

ডিএসই

বাংলাদেশ ব্যাংকের জেনারেল সাইড ও ক্যাশ সাইডের পদের নামে পরিবর্তন আনা হয়েছে। সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

নতুন নির্দেশনার ফলে এখন থেকে কারেন্সি অফিসারের নতুন পদ নাম হবে নির্বাহী পরিচালক (কারেন্সি), মহাব্যবস্থাপক (ক্যাশ) পদের নাম হবে পরিচালক (ক্যাশ), যুগ্ম ব্যবস্থাপক (ক্যাশ) হবে যুগ্ম পরিচালক (ক্যাশ), উপ-মহাব্যবস্থাপক হবে উপপচিরালক, সহকারী ব্যবস্থাপক (ক্যাশ) সহকারী পরিচালক (ক্যাশ), সহকারী ব্যবস্থাপক পদনাম হবে সহকারী পরিচালক। এছাড়া এমএলএসএস-১ম মান হবে অফিস সহায়ক- প্রথম মান এবং এমএলএসএস-দ্বিতীয় মান পদটির এখন থেকে নতুন নাম হবে অফিস সহায়ক-দ্বিতীয মান।

কার্যালয়ের সঙ্গে দাপ্তরিক প্রয়োজনে পত্র/ই-মেইলসহ সবধরনের যোগাযোগের ক্ষেত্রে পরিবর্তিত পদনাম ব্যবহার করার কথা জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ফিন্যান্স কোম্পানি আইন, ২০২৩ এর ৪১ (২) (ঘ) ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

ব্যাংক

ইউসিবি ব্যাংকের সব সেবা ২৪ ঘণ্টা বন্ধ

Published

on

ইউসিবি

সিস্টেম উন্নয়নের জন্য ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের (ইউসিবি) সব ধরনের লেনদেনসহ সেবা ২৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে

শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়া‌রি) সকাল ৮টা থেকে শনিবার (১৭ ফেব্রুয়া‌রি) সকাল ৮টা পর্যন্ত সেবার মান উন্নয়নের কাজ করা হবে। এ সময়ে ব্যাংকটির এটিএম বুথসহ সব ধরনের সেবা বন্ধ থাকবে।

আজ শুক্রবার ইউসিবি ব্যাং‌কের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, সেবার মান উন্নয়নের জন্য ইউসিবি এর সব ব্যাংকিং পরিষেবা ১৬ ফেব্রুয়া‌রি সকাল ৮টা থেকে ১৭ ফেব্রুয়া‌রি সকাল ৮টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

ব্যাংক

টাকা-ডলার অদলবদলের সুবিধা চালু করলো বাংলাদেশ ব্যাংক

Published

on

ডিএসই

টাকার সঙ্গে ডলার অদলবদল বা সোয়াপ ব্যবস্থা চালু করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। নতুন এ ব্যবস্থার ফলে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো এখন থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে ডলারের সঙ্গে টাকার অদলবদল করতে পারবে। সর্বনিম্ন ৭ থেকে সর্বোচ্চ ৯০ দিনের জন্য টাকা-ডলার অদলবদলের এ ব্যবস্থা চালু করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। আজ বৃহস্পতিবার এ-সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক বলেছে, নতুন এ ব্যবস্থা প্রজ্ঞাপন জারির পরপরই কার্যকর বলে বিবেচিত হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর কাছে উদ্বৃত্ত ডলার থাকলে এখন তা বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা দিয়ে তারা সমপরিমাণ টাকা ধার নিতে পারবে। এতে বাংলাদেশ ব্যাংক ও বাণিজ্যিক ব্যাংক উভয় পক্ষই লাভবান হবে। কারণ, উদ্বৃত্ত ডলারের বিপরীতে ব্যাংকগুলো তাৎক্ষণিকভাবে টাকা পেয়ে যাবে। আবার নির্ধারিত সময় পর টাকা ফেরত দিয়ে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সমপরিমাণ ডলার পেয়ে যাবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো নিজেদের প্রয়োজনে একে অপরের মধ্যে ডলার ও টাকার অদলবদল করে থাকে। এখন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে এ অদলবদলের সুবিধা চালু হলো। মুদ্রা ব্যবস্থাপনার আওতায় নতুন এ বিধান চালু করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, এ ব্যবস্থার আওতায় সর্বনিম্ন ৫০ লাখ ডলার বা তার সমপরিমাণ টাকা অদলবদল করা যাবে। অদলবদলের মেয়াদ হবে সর্বনিম্ন ৭ থেকে সর্বোচ্চ ৯০ দিন। মুদ্রা অদলবদলের এ সুবিধা নিতে হলে আগ্রহী ব্যাংকগুলোর সঙ্গে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের চুক্তি হবে। সেই চুক্তি অনুযায়ী, বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো যেদিন বাংলাদেশ ব্যাংকে ডলার জমা দেবে, ওই দিনের ডলারের বিনিময়মূল্য হিসেবে সমপরিমাণ টাকা পেয়ে যাবে। একইভাবে নির্ধারিত সময় পর টাকা জমা দিয়ে ডলার ফেরত নিতে পারবে।

উদাহরণ হিসেবে ধরা যাক, কোনো একটি বাণিজ্যিক ব্যাংক ৩০ দিনের চুক্তিতে আজ বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে এক কোটি ডলার অদলবদল করছে। তাহলে ওই ব্যাংক ডলারের আজকের ১১০ টাকা দাম হিসাবে ১১০ কোটি টাকা পেয়ে যাবে। এরপর চুক্তি অনুযায়ী, ৩০ দিন পর ওই ব্যাংক এক কোটি ডলার ফেরতে নিতে পারবে। তবে সে ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলোকে বার্ষিক ৫ থেকে ৬ শতাংশ সুদ হিসাব করে টাকা ফেরত দিতে হতে পারে। এর মধ্যে ডলারের দামে ওঠানামা হলেও সমপরিমাণ ডলার ফেরত পাবে ব্যাংকগুলো।

বাংলাদেশ ব্যাংক ও বাণিজ্যিক ব্যাংক- সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, এ ব্যবস্থার ফলে সুবিধা হবে উভয় পক্ষের। কারণ হিসেবে তাঁরা বলছেন, বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশ ব্যাংকগুলোর সাধারণ ব্যাংকিং থেকে অফশোর ইউনিটে ডলার স্থানান্তর বন্ধ রয়েছে। পাশাপাশি মূল ব্যাংক থেকে অফশোর ইউনিটে যে অর্থ দেওয়া হয়েছে, তা-ও চলতি বছরের মধ্যে ফেরত আনতে বলা হয়েছে। অফশোর ব্যাংকিংয়ে ডলার স্থানান্তর বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ব্যাংকগুলো ব্যবসার জন্য বিদেশি বিভিন্ন ব্যাংক থেকে যে ডলার ধার এনেছে, তা ব্যবহার করতে পারছে না। এখন এসব ডলার কেন্দ্রীয় ব্যাংকে জমা দিয়ে টাকা নিতে পারলে সেই অর্থ ঋণ হিসেবে দিতে পারবে ব্যাংকগুলো। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় ব্যাংকে ডলারের জমা বাড়লে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও বাড়বে। তাই ডলার-টাকা অদলবদলে বাণিজ্যিক ব্যাংকের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় ব্যাংকেরও লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, বর্তমানে বাণিজ্যিক ব্যাংকের হাতে থাকা অতিরিক্ত ডলার কেন্দ্রীয় ব্যাংক বা অন্য ব্যাংকের কাছে বিক্রি করা যায়। তবে প্রয়োজনের সময় ওই ডলার আবার ফেরত পাওয়া যাবে, এ নিশ্চয়তা নেই। কিন্তু অদলবদল বা সোয়াপ ব্যবস্থায় সেই নিশ্চয়তা রয়েছে। এ জন্য বেশির ভাগ ব্যাংক সোয়াপ করতে আগ্রহী।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

ব্যাংক

প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত হবে ইউনিয়ন ক্যাপিটাল

Published

on

ডিএসই

বেসরকারি খাতের প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত হচ্ছে ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান ইউনিয়ন ক্যাপিটাল। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদিত পথ নকশায় অপেক্ষাকৃত সবল কোম্পানির সঙ্গে দুর্বল কোম্পানির একীভূতকরণের উদ্যোগ নিয়ে আলোচনার মাঝে এ সিদ্ধান্ত জানা গেছে।

সূত্রে জানা যায়, প্রাইম ব্যাংক এবং ইউনিয়ন ক্যাপিটাল উভয় প্রতিষ্ঠানের সম্মতিতে শর্তসাপেক্ষে একীভূতকরণের নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। শিগগিরই আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দিয়ে উভয় প্রতিষ্ঠানকে জানানো হবে। প্রতিষ্ঠান দুটির পরিচালনা পর্ষদে কর্তৃত্বে রয়েছেন জ্বালানি খাতের ব্যবসায়ী ও প্রাইম ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান আজম জে চৌধুরী পরিবারের সদস্যরা। আজম জে চৌধুরী ব্যাংকটির সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমানে পরিচালক। তাঁর ছেলে তানজিল চৌধুরী প্রাইম ব্যাংকের বর্তমান চেয়ারম্যান। আমানতকারীর জমা অর্থ যথাসময়ে ফেরত দিতে না পারা, টানা পাঁচ বছর ধরে বড় লোকসানসহ বিভিন্ন সংকটে থাকা ইউনিয়ন ক্যাপিটালকে প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত করার মূল উদ্যোগ নেন আজম জে চৌধুরী।

সংশ্লিষ্টরা জানান, এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে ব্যাংকের সঙ্গে ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান একীভূত হওয়ার ঘটনা হবে প্রথম। অবশ্য এর আগে ব্যাংকের সঙ্গে ব্যাংক কিংবা সরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সরকারি প্রতিষ্ঠান একীভূত হওয়ার ঘটনা রয়েছে। চরম খারাপ অবস্থায় থাকা আরও কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান অন্য ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে একীভূতকরণের কাজ চলছে বলে জানা গেছে। আর্থিক খাত সংস্কারের লক্ষ্যে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নীতিগত অনুমোদনের পর এখন একীভূতকরণ-পরবর্তী ইউনিয়ন ক্যাপিটালের আমানতকারীর অর্থ কীভাবে পরিশোধ করা হবে, তার পরিকল্পনা জানাতে হবে। এ ছাড়া সম্পদের মূল্যায়ন, মূলধন, ঋণ আদায় প্রক্রিয়া, কর্মীদের পুনর্বহালসহ সব বিষয়ে দুই প্রতিষ্ঠানের মধ্যে একটি চুক্তি করতে হবে। তালিকাভুক্ত হওয়ায় এ বিষয়ে উভয় প্রতিষ্ঠান শেয়ারবাজারে ঘোষণা দেবে। সে আলোকে পুরো প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হওয়ার পর পরবর্তী কার্যক্রম পরিচালনা হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, গত পাঁচ বছরে ইউনিয়ন ক্যাপিটালের লোকসান হয়েছে ৬২৮ কোটি টাকা। মূলত শেয়ারবাজারে সীমাতিরিক্ত বিনিয়োগ করে লোকসানের কারণে আর্থিক প্রতিষ্ঠানটি সংকটে পড়েছে। ইউনিয়ন ক্যাপিটাল থেকে এর সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইউনিক্যাপ ইনভেস্টমেন্টে ঋণ রয়েছে ৪৭৩ কোটি টাকা। বিপুল অঙ্কের এ ঋণের বিপরীতে দীর্ঘদিন ধরে কোনো আদায় নেই। এর বাইরে আরও কিছু ঋণ আটকে গেছে। ফলে অনেক ক্ষেত্রে আমানতকারীর অর্থ যথাসময়ে ফেরত দিতে পারছে না ইউনিয়ন ক্যাপিটাল। বিএটি বাংলাদেশের শ্রমিক কল্যাণ তহবিলের ১০৮ কোটি ২৫ লাখ টাকাসহ অনেক আমানত দীর্ঘদিন ধরে আটকে আছে। এ কারণে ২০২১ সালের নভেম্বর থেকে আমানত পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত ১ কোটি টাকার বেশি ঋণ বিতরণে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পূর্বানুমতি নিতে হচ্ছে। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানটির স্বার্থসংশ্লিষ্ট ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও সাবসিডিয়ারিতে নতুন ঋণ এবং সুদ মওকুফ বা অবলোপনের ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এসব কারণে প্রতিষ্ঠানটি এখন অনেকটাই নিষ্ক্রিয়।

প্রাপ্ত তথ্য মতে, বর্তমানে প্রাইম ব্যাংকের আমানত রয়েছে ৩৪ হাজার কোটি টাকার মতো। আর গত ডিসেম্বর পর্যন্ত ঋণস্থিতি দাঁড়িয়েছে ৩১ হাজার ৩০২ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপিতে পরিণত হয়েছে ১ হাজার ৫০ কোটি টাকা বা ৩ দশমিক ৩৫ শতাংশ। ব্যাংকটি ২০২২ সালে নিট মুনাফা করে ৪০২ কোটি টাকা। ২০২১ সালে নিট মুনাফার পরিমাণ ছিল ৩১১ কোটি টাকা।

কাফি

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন
ডিএসই
সারাদেশ14 mins ago

নাটোরে বিয়ে করতে এসে ধরা দুই কিশোরী

ডিএসই
অর্থনীতি38 mins ago

বিনিয়োগে প্রযুক্তির সুবিধা নিতে হবে: বিডা চেয়ারম্যান

ডিএসই
আন্তর্জাতিক55 mins ago

অনুমতি ছাড়া হজ করলে কঠোর শাস্তির হুঁশিয়ারি সৌদির

ডিএসই
ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ার1 hour ago

ঢাবির ‌‘সি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আগামীকাল

বিশ্ববাজারে তেলের দাম ফের বেড়েছে
আন্তর্জাতিক2 hours ago

বিশ্ব বাজারে আরও কমলো জ্বালানি তেলের দাম

ডিএসই
জাতীয়2 hours ago

ওআইসি সম্মেলনে যোগ দিতে তুরস্কে তথ্য প্রতিমন্ত্রী

ডিএসই
পুঁজিবাজার3 hours ago

সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসইর লেনদেন কমেছে ৫৫ শতাংশ

ডিএসই
আন্তর্জাতিক3 hours ago

শিশুর সামনে ধূমপান করলে দেড় লাখ টাকা জরিমানা

ডিএসই
শিল্প-বাণিজ্য5 hours ago

বাংলাদেশে ৫০ হাজার টন পেঁয়াজ রফতানি করবে ভারত

ডিএসই
অর্থনীতি7 hours ago

দেশে ডলার সংকট নেই: সালমান এফ রহমান

Advertisement
Advertisement

ফেসবুকে অর্থসংবাদ

২০১৮ সাল থেকে ২০২৩

অর্থসংবাদ আর্কাইভ

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯