Connect with us

আন্তর্জাতিক

পাকিস্তানে এক ডজন ডিমের দাম ৪০০ রুপি

Published

on

ডিমের বদলে কী খাবো?

পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের রাজধানী লাহোরে এক ডজন দিমের দাম ৪০০ রুপিতে পৌঁছেছে। রোববার (১৪ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে পাক সংবাদমাধ্যম এআরওয়াই নিউজ।

পাকিস্তানে পণ্যের লাগাম টেনে ধরতে হিমশিম খাচ্ছে স্থানীয় প্রশাসন। তাদের ব্যর্থতার কারণে সেখানে মাত্র ১২টি ডিমের দাম ৪০০ রূপিতে স্পর্শ করেছে।

এছাড়া লাহোরে এক কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৩০ থেকে ২৫০ রুপিতে। যদিও সরকার পেঁয়াজের দাম ১৭৫ রুপি নির্ধারণ করে দিয়েছিল।

এআরওয়াই নিউজ আরও জানিয়েছে, লাহোরে এক কেজি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৬১৫ রুপিতে।

গতমাসে দেশটির ইকোনোমিক কো-অর্ডিনেশন কমিটি জাতীয় মনিটরিং কমিটিকে পণ্যের মূল্য নিয়ে প্রাদেশিক সরকারের সঙ্গে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছিল।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আন্তর্জাতিক

বিটকয়েনের বিনিময় হার দুই বছরের সর্বোচ্চে

Published

on

লেনদেন

বিশ্ববাজারে ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েনের বিনিময় হার দুই বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো ৫৭ হাজার ডলার ছুঁয়েছে। বড় বড় কোম্পানি ও বিনিয়োগকারীরা ডিজিটাল মুদ্রাটিতে অর্থলগ্নি করায় বিনিময় হারে এমন উল্লম্ফন দেখা গেছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। খবর রয়টার্স।

গতকাল বিটকয়েনের পাশাপাশি প্রতিদ্বন্দ্বী ইথারের বিনিময় হারও বেড়েছে। এদিন প্রথমবারের মতো ৩ হাজার ২০০ ডলার স্পর্শ করেছে দ্বিতীয় বৃহত্তম ভার্চুয়াল মুদ্রাটির বিনিময় হার।

রয়টার্স জানিয়েছে, ক্রিপ্টোকারেন্সির বিনিময় হার ট্র্যাক করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সিকিউরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি) সম্প্রতি এক্সচেঞ্জ ট্রেডেড ফান্ড বা ইটিএফের মাধ্যমে বিটকয়েনে বিনিয়োগের অনুমোদন দেয়। পাশাপাশি চলতি বছর মার্কিন ফেডারেল রিজার্ভের সুদের হার কমারও সম্ভবনা রয়েছে। এসব বিষয়ও প্রভাবশালী ডিজিটাল মুদ্রার বিনিময় হারকে আরো শক্তিশালী করতে ভূমিকা রাখছে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা।

গত সোমবারের দুই সেশনে বিটকয়েনের দাম বেড়েছে ১০ শতাংশের বেশি। এতে ভূমিকা রেখেছে ক্রিপ্টো ইনভেস্টর অ্যান্ড সফটওয়্যার ফার্ম মাইক্রোস্ট্র্যাটেজি। সম্প্রতি কোম্পানিটি ১৫ কোটি ৫০ লাখ ডলার বিনিয়োগ করে ৩ হাজার বিটকয়েন কিনেছে বলে জানিয়েছে।

এশিয়ান মর্নিংয়ে বিটকয়েনের দাম ৫৭ হাজার ৩৬ ডলার পর্যন্ত বেড়েছে, যা ২০২১ সালের শেষ থেকে সর্বোচ্চ। এছাড়া ইথারের দাম বেড়ে দাঁড়ায় ৩ হাজার ২৭৫ ডলার, যা ২০২২ সালের এপ্রিল থেকে সর্বোচ্চ।

বিটকয়েনের বিনিময় হারে সাম্প্রতিক উল্লম্ফনের পেছনে প্রাথমিক প্রভাবক হিসেবে কাজ করছে স্পট ইটিএফে অনুমোদন—এমনটাই জানিয়েছেন ফিনটেক ইনভেস্টমেন্ট ফার্ম ফিনেকিয়া ইন্টারন্যাশনালের রিসার্চ এনালিস্ট মাত্তেও গ্রেকো।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

দক্ষিণ কোরিয়ায় জন্মহার সর্বকালের সর্বনিম্নে

Published

on

লেনদেন

দক্ষিণ কোরিয়ার জন্মহার ইতিহাসের সর্বনিম্ন পর্যায়ে পৌঁছেছে। দেশটির জন্মহার একজন নারী তার জীবদ্দশায় যতগুলো শিশুর জন্ম দেবেন সেটি ২০২৩ সালে ০ দশমিক ৭২ শতাংশে এ নেমে গেছে। যা ২০২২ সালের তুলনায় ৮ শতাংশ কমেছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার পরিসংখ্যান বিভাগের প্রাথমিক হিসাব-নিকাশ থেকে জানা গেছে এ তথ্য। বর্তমানে দেশটির জনসংখ্যা হলো ৫১ মিলিয়ন বা ৫ কোটি ১০ লাখ। এই জনসংখ্যা ধরে রাখতে প্রতি নারীকে দুটি (২ দশমিক ১) শিশুর জন্ম দিতে হবে। বর্তমান হার এই প্রয়োজনীয়তা থেকে অনেক কম।

যদি জন্মহার এভাবে চলতে থাকে তাহলে ২১০০ সালে দক্ষিণ কোরিয়ার জনসংখ্যা অর্ধেক কমে যাবে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট ফর হেলথ মেট্রিক্স অ্যান্ড এভালুয়েশন।

দক্ষিণ কোরিয়ার পরিসংখ্যান বিভাগের জনসংখ্যা জরিপ বিভাগের প্রধান লিম ইয়ং-ইল সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ২০২৩ সালে তাদের দেশে মাত্র ২ লাখ ৩০ হাজার শিশুর জন্ম হয়েছে। যা ২০২২ সালের তুলনায় ১৯ হাজার ২০০ কম।

অপরদিকে প্রতি এক হাজার জনে জন্মহার ৪ দশমিক ৫ শতাংশে নেমে এসেছে। যেখানে ২০২২ সালে এটি ছিল ৪ দশমিক ৯।

নারীদের শিশু জন্মদানে উদ্বুদ্ধ করতে দক্ষিণ কোরিয়া কয়েকশ বিলিয়ন ডলার খরচ করেছে। শিশু জন্ম দেওয়া মায়েদের নগদ অর্থ দেওয়ার মতো উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে। তা সত্ত্বেও প্রতি বছর জন্মহার শুধু কমছেই।

পরিসংখ্যান বিভাগের জনসংখ্যা জরিপ বিভাগের প্রধান লিম ইয়ং-ইল আরও বলেছেন, “সদ্য জন্ম নেওয়া শিশু, জন্মহার, প্রতি হাজারে জন্মহার সবকিছু ১৯৭০ সালের পর সবচেয়ে কম। ওই সময় জন্মহারের তথ্য লিপিবদ্ধ করা শুরু হয়।”

তিনি আরও জানিয়েছেন,ইকোনোমিক কো-অপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ওইসিডি)-ভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে দক্ষিণ কোরিয়ার জন্মহার সবচেয়ে কম।

এছাড়া দক্ষিণ কোরিয়ায় নারীদের জন্মদানের গড় বয়স হলো ৩৩ দশমিক ৬। এটিও ওইসিডিভুক্ত অন্যান্য দেশগুলোর তুলনায় বেশি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দক্ষিণ কোরিয়ায় কম জন্মহারের জন্য বেশ কয়েকটি বিষয় দায়ী। এরমধ্যে অন্যতম হলো শিশুদের লালন পালনের খরচ অনেক বেশি, সম্পদের দাম অনেক বেশি এবং সমাজ খুবই প্রতিদ্বন্বিতাপূর্ণ। এখানে একটি ভালো বেতনের চাকরি পেতে অনেক কষ্ট করতে হয়।

এছাড়া যেসব মা কাজ করেন তাদের শিশুদের লালন-পালন করার বিষয়টিও অনেক কঠিন হয়। এটিও কম জন্মহারের অন্যতম কারণ।

দক্ষিণ কোরিয়ায় জন্মহার কম হলেও; মানুষের আয়ুষ্কাল বেশি। ফলে দেশটিতে তরুণদের চেয়ে বয়স্কের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর এ বিষয়টি একটা সময় বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়াবে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

পেট্রল রপ্তানিতে রাশিয়ার ৬ মাসের নিষেধাজ্ঞা

Published

on

লেনদেন

বাজারে ক্রমবর্ধমান চাহিদার মাঝে দাম স্থিতিশীল রাখতে ছয় মাসের জন্য পেট্রল রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে দ্বিতীয় বৃহত্তম তেল রপ্তানিকারক রাশিয়া। আগামী ১ মার্চ থেকে পেট্রল রপ্তানির এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে দেশটি। মঙ্গলবার ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী আলেকজান্ডার নোভাকের একজন মুখপাত্র পেট্রল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞার তথ্য নিশ্চিত করেছেন। রাশিয়ার বিশাল জ্বালানি খাতের নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে রয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের অন্যতম ঘনিষ্ঠ মিত্র আলেকজান্ডার নোভাক।

রুশ সংবাদমাধ্যম আরবিসি প্রথম এই নিষেধাজ্ঞার তথ্য প্রকাশ করেছে। অজ্ঞাত একটি সূত্রের বরাত দিয়ে আরবিসি বলেছে, গত ২১ ফেব্রুয়ারি পেট্রল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী মিখাইল মিশুস্তিনের কাছে চিঠি লিখেছিলেন নোভাক। পরে প্রধানমন্ত্রী পেট্রল রপ্তানির নিষেধাজ্ঞায় অনুমোদন দেন।

দেশটির একটি সূত্র রয়টার্সকে বলেছে, পেট্রল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও এখনও এই বিষয়ে কোনও আদেশ জারি করা হয়নি। চিঠিতে নোভাক বলেছিলেন, পেট্রলের অত্যধিক চাহিদা পূরণ ও দেশীয় বাজারে দাম স্থিতিশীল রাখতে সহায়তার লক্ষ্যে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

আগামী ১৫ থেকে ১৭ মার্চের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে বিশ্বের বৃহত্তম গম রপ্তানিকারক দেশটিতে জ্বালানির চাহিদা ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। সম্প্রতি ইউক্রেনের ড্রোন হামলায় রাশিয়ার কিছু তেল শোধনাগার ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় উৎপাদন হ্রাস পেয়েছে। যে কারণে গাড়িচালক ও কৃষকদের জন্য পেট্রলের দাম অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিষয় হয়ে উঠেছে।

আরবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাশিয়ার পেট্রল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞার এই সিদ্ধান্ত ইউরাশিয়ান ইকোনমিক ইউনিয়নের (ইএইইউ) সদস্য দেশগুলোর জন্য কার্যকর হবে না। এসব দেশের মধ্যে রয়েছে আর্মেনিয়া, বেলারুশ, কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান, মঙ্গোলিয়া, উজবেকিস্তান এবং জর্জিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া আবখাজিয়া ও সাউথ ওসেটিয়া।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

১০ শতাংশ ভাড়া বাড়াবে রায়ানএয়ার

Published

on

লেনদেন

আসন্ন গ্রীষ্মে ফ্লাইটের ভাড়া বাড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছে উড়োজাহাজ পরিষেবা কোম্পানি রায়ানএয়ার। নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িং উড়োজাহাজ সরবরাহে দেরি করায় এমন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে আয়ারল্যান্ডের কোম্পানিটি।

রায়ানএয়ারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মাইকেল ও’লেরি বলেন, বোয়িংয়ের বিলম্বিত ডেলিভারি আমাদের যাত্রী পরিবহন ক্ষমতাকে সীমাবদ্ধ করবে। ফলে আসছে গ্রীষ্মে রায়ানএয়ারের টিকিটের দাম ১০ শতাংশ পর্যন্ত ব্যয়বহুল হতে পারে।

আয়ারল্যান্ডের ডাবলিনকেন্দ্রিক আকাশ পরিষেবা প্রতিষ্ঠান রায়ানএয়ার হোল্ডিং পিএলসি। কম খরচের ক্যারিয়ারের জন্য বেশ পরিচিত কোম্পানিটি।

কোম্পানিটির সিইও আরো বলেন, রায়ানএয়ার কিছু ক্ষতিপূরণ পাওয়ার আশা করছে। তবে উড়োজাহাজ সরবরাহ করার দিকেই বেশি মনোনিবেশ করছে তারা।

তিনি বলেন, আগামী মার্চের মধ্যে বোয়িং ম্যাক্স ৭৩৭ মডেলের ৫৭টি উড়োজাহাজ ডেলিভারি দেয়ার কথা ছিল। তবে সংস্থাটি মনে করছে, গ্রীষ্ম মৌসুমে কেবল ৪০-৪৫টির মতো তারা সরবরাহ করতে পারবে।

গত জানুয়ারিতে বোয়িংয়ের একটি যাত্রীবাহী উড়োজাহাজে চলন্ত অবস্থায় এক টুকরো খসে পড়ে। এ ঘটনায় তদন্তের মুখোমুখি হয়েছে নির্মার্তা প্রতিষ্ঠানটি। আলাস্কা এয়ারলাইনসের ওই যাত্রীবাহী ফ্লাইটটি গুরুতর কোনো ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়নি। প্রাণঘাতী দুর্ঘটনার আগেই জরুরি অবতরণ করতে সক্ষম হয়। মার্কিন নিয়ন্ত্রক ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বিষয়টি তদন্ত করছে।

মাইকেল ও’লেরি বলেন, জ্বালানি হেজিংয়ের মাধ্যমে কিছুটা খরচ সাশ্রয় হয়েছে। তার মানে বোঝা যাচ্ছে, রায়ানএয়ারের ভাড়া বৃদ্ধি পেলেও ২০২৩ সালের মতো ১৭ শতাংশের বেশি হবে না।

তিনি বলেন, ‌উড়োজাহাজে সংখ্যা পর্যাপ্ত না হওয়ায় অন্যান্য এয়ারলাইনসেরও যাত্রী পরিবহন ক্ষমতায় সীমাবদ্ধতা থাকবে। ফলে ইউরোপে আসন্ন গ্রীষ্মে উচ্চ ভাড়ার প্রবণতা বজায় থাকতে পারে।

২০২৫ সালে মার্চের শেষ পর্যন্ত এক বছরের জন্য রায়ানএয়ারের পূর্বাভাস ছিল, ২০ কোটি ৫০ লাখ যাত্রী বহন করবে তারা, যা আগের ১২ মাসে ছিল ১৮ কোটি ৩৫ লাখ। রায়ানএয়ার সিইও বলেন, যদি এয়ারক্রাফট বাড়ানো সম্ভব হয়, তাহলে ভাড়া কমতে পারে।

কভিডের পর ভ্রমণের চাহিদা বাড়ায় সরবরাহ চেইনে ব্যাঘাত এভিয়েশন খাতে পর্বতসম চাপ তৈরি করেছে, যা কাটিয়ে উঠতে হিমশিম খাচ্ছে উড়োজাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোআসন্ন গ্রীষ্মে ফ্লাইটের ভাড়া বাড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছে উড়োজাহাজ পরিষেবা কোম্পানি রায়ানএয়ার। নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িং উড়োজাহাজ সরবরাহে দেরি করায় এমন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে আয়ারল্যান্ডের কোম্পানিটি। খবর বিবিসি।

রায়ানএয়ারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মাইকেল ও’লেরি বলেন, বোয়িংয়ের বিলম্বিত ডেলিভারি আমাদের যাত্রী পরিবহন ক্ষমতাকে সীমাবদ্ধ করবে। ফলে আসছে গ্রীষ্মে রায়ানএয়ারের টিকিটের দাম ১০ শতাংশ পর্যন্ত ব্যয়বহুল হতে পারে।

আয়ারল্যান্ডের ডাবলিনকেন্দ্রিক আকাশ পরিষেবা প্রতিষ্ঠান রায়ানএয়ার হোল্ডিং পিএলসি। কম খরচের ক্যারিয়ারের জন্য বেশ পরিচিত কোম্পানিটি।

কোম্পানিটির সিইও আরো বলেন, রায়ানএয়ার কিছু ক্ষতিপূরণ পাওয়ার আশা করছে। তবে উড়োজাহাজ সরবরাহ করার দিকেই বেশি মনোনিবেশ করছে তারা।

তিনি বলেন, আগামী মার্চের মধ্যে বোয়িং ম্যাক্স ৭৩৭ মডেলের ৫৭টি উড়োজাহাজ ডেলিভারি দেয়ার কথা ছিল। তবে সংস্থাটি মনে করছে, গ্রীষ্ম মৌসুমে কেবল ৪০-৪৫টির মতো তারা সরবরাহ করতে পারবে।

গত জানুয়ারিতে বোয়িংয়ের একটি যাত্রীবাহী উড়োজাহাজে চলন্ত অবস্থায় এক টুকরো খসে পড়ে। এ ঘটনায় তদন্তের মুখোমুখি হয়েছে নির্মার্তা প্রতিষ্ঠানটি। আলাস্কা এয়ারলাইনসের ওই যাত্রীবাহী ফ্লাইটটি গুরুতর কোনো ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়নি। প্রাণঘাতী দুর্ঘটনার আগেই জরুরি অবতরণ করতে সক্ষম হয়। মার্কিন নিয়ন্ত্রক ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বিষয়টি তদন্ত করছে।

মাইকেল ও’লেরি বলেন, জ্বালানি হেজিংয়ের মাধ্যমে কিছুটা খরচ সাশ্রয় হয়েছে। তার মানে বোঝা যাচ্ছে, রায়ানএয়ারের ভাড়া বৃদ্ধি পেলেও ২০২৩ সালের মতো ১৭ শতাংশের বেশি হবে না।

তিনি বলেন, উড়োজাহাজে সংখ্যা পর্যাপ্ত না হওয়ায় অন্যান্য এয়ারলাইনসেরও যাত্রী পরিবহন ক্ষমতায় সীমাবদ্ধতা থাকবে। ফলে ইউরোপে আসন্ন গ্রীষ্মে উচ্চ ভাড়ার প্রবণতা বজায় থাকতে পারে।

২০২৫ সালে মার্চের শেষ পর্যন্ত এক বছরের জন্য রায়ানএয়ারের পূর্বাভাস ছিল, ২০ কোটি ৫০ লাখ যাত্রী বহন করবে তারা, যা আগের ১২ মাসে ছিল ১৮ কোটি ৩৫ লাখ। রায়ানএয়ার সিইও বলেন, যদি এয়ারক্রাফট বাড়ানো সম্ভব হয়, তাহলে ভাড়া কমতে পারে।

কভিডের পর ভ্রমণের চাহিদা বাড়ায় সরবরাহ চেইনে ব্যাঘাত এভিয়েশন খাতে পর্বতসম চাপ তৈরি করেছে, যা কাটিয়ে উঠতে হিমশিম খাচ্ছে উড়োজাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

পেট্রল রপ্তানিতে ছয় মাসের নিষেধাজ্ঞা রাশিয়ার

Published

on

লেনদেন

বাজারে ক্রমবর্ধমান চাহিদার মাঝে দাম স্থিতিশীল রাখতে ছয় মাসের জন্য পেট্রল রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে দ্বিতীয় বৃহত্তম তেল রপ্তানিকারক রাশিয়া। আগামী ১ মার্চ থেকে পেট্র রপ্তানির এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে দেশটি। মঙ্গলবার ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী আলেকজান্ডার নোভাকের একজন মুখপাত্র পেট্রল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞার তথ্য নিশ্চিত করেছেন। রাশিয়ার বিশাল জ্বালানি খাতের নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে রয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের অন্যতম ঘনিষ্ঠ মিত্র আলেকজান্ডার নোভাক।

রুশ সংবাদমাধ্যম আরবিসি প্রথম এই নিষেধাজ্ঞার তথ্য প্রকাশ করেছে। অজ্ঞাত একটি সূত্রের বরাত দিয়ে আরবিসি বলেছে, গত ২১ ফেব্রুয়ারি পেট্রল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী মিখাইল মিশুস্তিনের কাছে চিঠি লিখেছিলেন নোভাক। পরে প্রধানমন্ত্রী পেট্রল রপ্তানির নিষেধাজ্ঞায় অনুমোদন দেন।

দেশটির একটি সূত্র রয়টার্সকে বলেছে, পেট্রল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও এখনও এই বিষয়ে কোনও আদেশ জারি করা হয়নি। চিঠিতে নোভাক বলেছিলেন, পেট্রলের অত্যধিক চাহিদা পূরণ ও দেশীয় বাজারে দাম স্থিতিশীল রাখতে সহায়তার লক্ষ্যে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

আগামী ১৫ থেকে ১৭ মার্চের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে বিশ্বের বৃহত্তম গম রপ্তানিকারক দেশটিতে জ্বালানির চাহিদা ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। সম্প্রতি ইউক্রেনের ড্রোন হামলায় রাশিয়ার কিছু তেল শোধনাগার ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় উৎপাদন হ্রাস পেয়েছে। যে কারণে গাড়িচালক ও কৃষকদের জন্য পেট্রলের দাম অত্যন্ত স্পর্শকাতর বিষয় হয়ে উঠেছে।

আরবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাশিয়ার পেট্রল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞার এই সিদ্ধান্ত ইউরাশিয়ান ইকোনমিক ইউনিয়নের (ইএইইউ) সদস্য দেশগুলোর জন্য কার্যকর হবে না। এসব দেশের মধ্যে রয়েছে আর্মেনিয়া, বেলারুশ, কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান, মঙ্গোলিয়া, উজবেকিস্তান এবং জর্জিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া আবখাজিয়া ও সাউথ ওসেটিয়া।

এর আগে, গত বছরের সেপ্টেম্বরে শীত মৌসুম শুরুর আগে জ্বালানি তেল রপ্তানি নিষিদ্ধ করেছিল রাশিয়া। ওই সময় জ্বালানির চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশটির তেলের বাজারে দাম বেড়ে যায়। তখনও বেলারুশ, কাজাখস্তান, আর্মেনিয়া ও কিরগিজস্তান রাশিয়ার তেল রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা তালিকার বাইরে ছিল।

জ্বালানি ও যুদ্ধের রসদ সরবরাহ শৃঙ্খলা বিঘ্নিত এবং প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলার জন্য একে অপরের জ্বালানি অবকাঠামোকে লক্ষ্যবস্তু করে হামলা চালিয়ে আসছে রাশিয়া ও ইউক্রেন। প্রায় দুই বছর ধরে চলা যুদ্ধ অব্সানের কোনও লক্ষণ দেখা না যাওয়ায় কৌশলগত অবকাঠামোতে পাল্টাপাল্টি হামলা করছে দেশ দুটি।

তেল, তেল পণ্য এবং গ্যাসের রপ্তানিতে বিশ্বে এখন পর্যন্ত রাশিয়ায় বৃহত্তম রপ্তানিকারক। রাশিয়ার ১ দশমিক ৯ ট্রিলিয়ন ডলার অর্থনীতিতে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের প্রধান উৎসও এই জ্বালানি খাত। বিশ্বজুড়ে জ্বালানি রাজনীতির তালিকায় শীর্ষ স্থানে রয়েছে মস্কো।

ইউক্রেনের সাথে যুদ্ধের মাঝেও গত বছর ৪ কোটি ৩৯ লাখ টন পেট্রল উৎপাদন করেছিল রাশিয়া। উৎপাদিত এই পেট্রেলের অন্তত ৫৭ লাখ ৬০ হাজার টন রপ্তানি করেছিল দেশটি। রাশিয়ার পেট্রলের সবচেয়ে আমদানিকারক দেশের তালিকায় শীর্ষে আছে আফ্রিকার নাইজেরিয়া, লিবিয়া, তিউনিসিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন
লেনদেন
ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ার4 mins ago

চবি’র ভর্তি পরীক্ষা শুরু ২ মার্চ

লেনদেন
স্বাস্থ্য13 mins ago

করোনায় নতুন শনাক্ত ৪৭ জন

লেনদেন
আন্তর্জাতিক26 mins ago

বিটকয়েনের বিনিময় হার দুই বছরের সর্বোচ্চে

লেনদেন
পুঁজিবাজার37 mins ago

দরপতনে লেনদেন কমেছে এসএমই মার্কেটে

লেনদেন
লাইফস্টাইল38 mins ago

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে উপকারী চার ফল

লেনদেন
অর্থনীতি51 mins ago

বিমা দিবসে উদ্বোধন হচ্ছে ব্যাংকাস্যুরেন্স সেবা

লেনদেন
কর্পোরেট সংবাদ56 mins ago

ওয়ালটনের পৃষ্ঠপোষকতায় বুয়েটে রিসার্চ ল্যাব উদ্বোধন

লেনদেন
আন্তর্জাতিক59 mins ago

দক্ষিণ কোরিয়ায় জন্মহার সর্বকালের সর্বনিম্নে

লেনদেন
জাতীয়1 hour ago

শপথ নিলেন সংরক্ষিত আসনের নারী সংসদ সদস্যরা

লেনদেন
অর্থনীতি1 hour ago

কোল্ড স্টোরেজে বিনিয়োগের আহ্বান সালমান এফ রহমানের

Advertisement
Advertisement

ফেসবুকে অর্থসংবাদ

২০১৮ সাল থেকে ২০২৩

অর্থসংবাদ আর্কাইভ

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯