Connect with us

আন্তর্জাতিক

সাত বছরে প্রথমবারের মতো রফতানি কমলো চীনের

Published

on

লাফার্জ

গত বছরে চীনের অর্থনীতি বেশ খারাপ সময় পার করেছে। গাড়ি বাদে দেশটির উৎপাদিত সব পণ্যের চাহিদাই গত বছর কম ছিল। ফলে ২০১৬ সালের পর দেশটির সামগ্রিক বার্ষিক রফতানি প্রথমবারের মতো কমে গেছে।

শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) প্রকাশিত দেশটির কাস্টমসের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে সিএনএন।

বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ বাজারে চীনা পণ্যের চাহিদা ব্যাপক হারে কমে গেছে। কাস্টমসের তথ্য মতে, ২০২৩ সালে চীন ৩ দশমিক ৩৮ ট্রিলিয়ন ডলার মূল্যের পণ্য রফতানি করেছে, যা আগের বছরের তুলনায় ৪ দশমিক ৬ শতাংশ কম। যেখানে ২০২২ সালেরও দেশটির রফতানি তার আগের বছরের তুলনায় ৭ শতাংশ বেড়েছিল। এর আগে সবশেষ ২০১৬ সালে দেশটির রফতানি এত পরিমাণে পড়ে গিয়েছিল। ওই বছর দেশটির রফতানি কমেছিল ৭ দশমিক ৭ শতাংশ।

তবে বছর ব্যবধানে ডিসেম্বর মাসে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় রফতানি বেড়েছে ২ দশমিক ৩ শতাংশ। ফলে টানা ২ মাসে দেশটির রফতানি বেড়েছে, যা বিশ্ববাজারে দেশটির পণ্যের চাহিদা বাড়ার দিকেই ইঙ্গিত দেয়। নভেম্বরের আগে দেশটির রফতানি টানা ৬ মাস কমেছে।

২০২৩ সালের রাশিয়ার সঙ্গে রেকর্ড পরিমাণ বাণিজ্য করেছে চীন। যার আকার ২৪০ বিলিয়ন ডলার। এটি আগের বছরের তুলনায় ২৬ শতাংশ বেশি এবং চীনের মোট বাণিজ্যের ৪ শতাংশ।

বছর ব্যবধানে রফতানির পাশাপাশি কমেছে দেশটির আমদানিও। গত বছর চীনের আমদানি ৫ দশমিক ৫ শতাংশ কমে ঠেকেছে ২ দশমিক ৫৬ ট্রিলিয়ন ডলারে। ফলে গত বছর বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির উদ্বৃত্ত দাঁড়ায় ৮২৩ বিলিয়ন ডলারে।

দেশটির সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, ২০২৪ সালেও অর্থনীতির মন্দাভাব কাটিয়ে ওঠা কঠিন হয়ে উঠবে। পণ্যের চাহিতা কম থাকায় চীনের রফতানি বাণিজ্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) বেইজিংয়ের অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে কাস্টমসের জেনারেল অ্যামিনিস্ট্রেশনের মুখপাত্র লিউ ডালিয়াং বলেন, গত বছর বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার দুর্বল ছিল। পণ্যের চাহিতা কম থাকার চীনের রফতানি বাণিজ্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

তবে চীনের রফতানি বাজারের বিদ্যমান এ সমস্যা অব্যাহত থাকবে, এমন আশঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বরেন, বিশ্বব্যাপী পণ্যের দুর্বল চাহিদা থাকতে পারে।

রফতানি কমার পাশাপাশি মূল্যস্ফীতির চাপে নাজেহাল বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশটি। ২০২৩ সালে দেশটির ভোক্তা মূল্যস্ফীতি ছিল ১৪ বছরের মধ্যে সবচেয়ে দুর্বল। বছর ব্যবধানে ডিসেম্বরে টানা তৃতীয় মাসে দেশটির কনজুমার প্রাইস ইনডেক্স পড়ে যায়, যা ২০০৯ সালের পর সবচেয়ে দীর্ঘতম।

গত ১২ জানুয়ারি ন্যাশনাল ব্যুরো অব স্ট্যাটিস্টিকস বলেছে, ডিসেম্বরে চীনের কনজুমার প্রাইস ইনডেক্স (সিপিআই) নভেম্বরের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে। তবে তা ২০২২ সালের একই সময়ের তুলনায় শূন্য দশমিক ৩ শতাংশ কমেছে। সামগ্রিকভাবে ২০২৩ সালে আগের বছরের তুলনায় ভোগ্যপণ্যের দাম বেড়েছে মাত্র শূন্য দশমিক ২ শতাংশ, যা ২০০৯ সালের পর সবচেয়ে দুর্বল। ওই সময়ে বিশ্বব্যাপী মন্দা থাকার কারণে সিপিআই শূন্য দশমিক ৭ শতাংশ কমে গিয়েছিল।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আন্তর্জাতিক

কার অব দ্য ইয়ার পুরস্কার জিতেছে ‘‌রেনো সিনিক ই-টেক’

Published

on

লাফার্জ

২০২৪ সালের কার অব দ্য ইয়ারের জন্য মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার জিতেছে ‘‌রেনো সিনিক ই-টেক’। মোট ৩২৯ পয়েন্ট নিয়ে বিএমডব্লিউ ও পিউশোকে পরাজিত করে শীর্ষস্থানে উঠে এসেছে মডেলটি। ২২টি ইউরোপীয় দেশের ৫৯ জন অটোমোবাইল খাতের সাংবাদিক নিয়ে গঠিত জুরি বোর্ড এ পুরস্কার ঘোষণা করেছে।

জেনেভা মোটর শোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সম্প্রতি এ ঘোষণা দেয়া হয়। প্রায় চার বছর পরে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এ পুরস্কার ঘোষণা করা হলো।

ফরাসি বিদ্যুচ্চালিত এসইউভি বিএমডব্লিউ ৫ সিরিজ ও পিউশো ৩০০৮-এর সঙ্গে প্রতিযোগিতায় ছিল বিওয়াইডি সিল, কিয়া ইভি৯, টয়োটা সি-এইচআর ও ভলভো এক্স৩০-এর চারটি মডেল। সবাইকে পেছনে ফেলে যথাক্রমে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে বিএমডব্লিউ ও পিউশো।

ভোট অনুসারে, রেনো মডেলটি তুরস্ক, হাঙ্গেরি, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, স্পেন, নেদারল্যান্ডস, ইতালি, লুক্সেমবার্গ ও বেলজিয়ামে জনপ্রিয়। এটি দেখতে পারিবারিক গাড়ির মতো। এর রয়েছে অত্যাধুনিক বৈদ্যুতিক ইঞ্জিন।

রেনো সিনিক ই-টেক মডেলটির দাম ও চাহিদার কারণে টেসলা মডেল ওয়াইয়ের একটি প্রতিযোগী হয়ে উঠেছে। ফরাসি ব্র্যান্ডের মডেলটির রয়েছে শক্তিশালী বৈদ্যুতিক দীর্ঘ-রেঞ্জ ব্যাটারি। এটি টানা ৩৭৯ মাইল (৬১০ কিলোমিটার) পর্যন্ত চলতে পারে। ফ্রান্সে মডেলটির প্রারম্ভিক মূল্য ৩৯ হাজার ৯৯০ ইউরো।

ইভেন্টটি জনসাধারণের জন্য ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩ মার্চ ২০২৪ পর্যন্ত সুইজারল্যান্ডের জেনেভার প্যালেক্সপোতে উন্মুক্ত থাকবে। এ বছরে ইভেন্টটিতে ১৫টি গাড়ির প্রিমিয়ার হওয়ার কথা।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

মালয়েশিয়ায় ১৩৪ বাংলাদেশি আটক

Published

on

লাফার্জ

বাংলাদেশিসহ ২৩২ অবৈধ অভিবাসীকে গ্রেপ্তার করেছে মালয়েশিয়ার অভিবাসন পুলিশ। বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) রাত ১১টা থেকে শুরু হওয়া অভিযান চলে দিবাগত রাত ৩টা পর্যন্ত। গ্রেপ্তারের আগে ৩৫৬ জন বিদেশি নাগরিকের কাগজপত্র পরীক্ষা করা হয়।

মালয়েশিয়ার মেলাকা রাজ্যের তিয়াং দুয়া এলাকায় নির্মাণাধীন টেরেসা হাউজে অভিযান চালিয়ে রাতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এতে পুত্রজায়া ইমিগ্রেশন, মেলাকা এবং নেগেরি সেম্বিলান, জাতীয় নিবন্ধন বিভাগ ও সিভিল ডিফেন্স ফোর্সের সমন্বয়ে ১৬০ জন কর্মকর্তা এবং সদস্যরা অভিযানে অংশ নেন।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে মেলাকার অভিবাসন বিভাগের পরিচালক অনির্বান ফৌজি মোহম্মদ আইনি জানিয়েছেন, গ্রেপ্তারদের মধ্যে ৮২ জন ইন্দোনেশিয়ান পুরুষ ও ১২ জন নারী, ১৩৪ জন বাংলাদেশি, একজন পাকিস্তানি এবং তিনজন মিয়ানমারের পুরুষ রয়েছেন। অভিযানের সময় অবৈধ অভিবাসীরা ড্রেনে লুকিয়ে পালানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

অনির্বান বলেন, ধারা ৬(১)(সি) ও ১৯৫৯/৬৩ অনুসারে বৈধ ভ্রমণ নথি উপস্থাপন করতে ব্যর্থ হওয়ার এবং অতিরিক্ত থাকার জন্য একই আইনের ১৫(১)(সি) ধারা অনুসারে তদন্ত করা হয়। গ্রেপ্তারদের মাচাপ উম্বু ইমিগ্রেশন ডিটেনশন ডিপোতে রাখা হয়েছে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

ক্যানসার চিকিৎসায় বাজারে নতুন ওষুধ আনছে টাটা

Published

on

লাফার্জ

ভারতের অন্যতম বৃহৎ শিল্পগোষ্ঠী টাটা ক্যানসারের নতুন একটি ওষুধ তৈরি করেছে। ‘আর+সিইউ নামের এই ওষুধটি দেহের ভেতরের ক্যানসারের প্রভাবক উপাদানগুলোকে নির্মূল করতে সক্ষম বলে দাবি করেছে টাটা গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠিত গবেষণা প্রতিষ্ঠান টাটা মেমোরিয়াল সেন্টারের (টিএমসি) একটি গবেষক দল।

টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতাল মুম্বাই শাখার জ্যেষ্ঠ ক্যানসার সার্জন ডা. রাজেন্দ্র বাদভে রয়েছেন এই দলে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভিকে ডা. বাদভে বলেছেন, টানা দশ বছর গবেষণার পর সাফল্য পেয়েছেন তারা।

এক সাক্ষাৎকারে এনডিটিভিকে ডা. বাদভে বলেন, ক্যানসার এখন খুব দূরারোগ্য কোনো ব্যাধি নয়। যেসব রোগী ক্যানসারের প্রাথমিক কিংবা মাঝামাঝি অবস্থায় থাকেন, বর্তমানে রেডিয়েশন থেরাপি, কেমো থেরাপি অথবা সার্জারির মাধ্যমে তাদের ক্যানসার আক্রান্ত কোষ নির্মূল করে সুস্থ করে তোলা সম্ভব।

কিন্তু সমস্যা হলো ক্যানসার আক্রান্ত কোষগুলো ধ্বংস হওয়ার পর এগুলো অতি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র কণায় ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়; চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় এসব ধ্বংসাবশেষকে বলা হয় ক্রোমাটিন। রক্তপ্রবাহের মাধ্যমে ক্যানসার রোগীর পুরো দেহে ক্রোমাটিন ছড়িয়ে পড়ে এবং দেহের সুস্থ কোষগুলোকে আক্রমণ করে। তাই অনেক সময়েই আমরা দেখি যে ক্যানসার রোগীরা একবার চিকিৎসা নিয়ে সম্পূর্ণ সুস্থ হওয়ার পর দ্বিতীয় বার ফের ক্যানসারে আক্রান্ত হন। বস্তুত চিকিৎসা নিয়ে সেরে ওঠা প্রত্যেক ক্যানসার রোগীরই দ্বিতীয়বার ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার উচ্চ ঝুঁকি থাকে।

যে ওষুধটি আমরা তৈরি করেছি, সেটির মূল উপাদান রেভেরাট্রল (এক প্রকার জৈব রাসায়নিক উপাদান) এবং দস্তা। রেডিশেন, কেমো বা সার্জারির পর এই ওষুধটি সেবন করা হলে মানবদেহে অক্সিজেন সমৃদ্ধ একপ্রকার প্রোটিন তৈরি হয় এবং এই প্রোটিন দেহের অভ্যন্তরে রয়ে যাওয়া ক্রোমাটিন ধ্বংস করে। এছাড়া কেমো বা রেডিয়েশন থেরাপির ফলে দেহে যেসব পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়, সেসব নির্মূলেও কার্যকর আর+সিইউ।

‘আর+সিইউ’ একটি মুখে খাওয়ার ট্যাবলেট বা বড়ি। এনডিটিভিকে ডা. বাদভে জানান, ওষুধটির অনুমোদন ও জরুরি অবস্থায় ব্যবহার বিষয়ক ছাড়পত্রের জন্য ভারতের অন্যতম নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ডস অথরিটি অব ইন্ডিয়া (এফএসএসআই) বরাবর আবেদন করা হয়েছে। আগামী জুনের আগেই ছাড়পত্র মিলবে বলে আশা করছে টিএমসি।

আমাদের টানা ১০ বছরের নিরলস গবেষণার ফলাফল এই আর+সিইউ। এফএসএসআই অনুমোদন হলে আগামী জুন-জুলাই মাস থেকেই বাজারে সহজলভ্য হবে ট্যাবলেটটি। খুচরা পর্যায়ে প্রতিটি আর+সিইউ ট্যাবলেটের দাম দাম ধার্য করা হয়েছে ১০০ রুপি,’ সাক্ষাৎকারে এনডিটিভিকে বলেন ডা. রাজেন্দ্র ভাদভে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যাটারি উৎপাদনে বিনিয়োগ করবে টাটা

Published

on

লাফার্জ

বিদ্যুচ্চালিত গাড়ির (ইভি) ব্যাটারি উৎপাদনে প্রায় ৪০০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করতে যাচ্ছে ভারতীয় প্রতিষ্ঠান টাটা। যুক্তরাজ্যের সমারসেটের ব্রিজওয়াটারে তারা কারখানা স্থাপন করবে। নতুন এ পরিকল্পনার ফলে প্রায় চার হাজার কর্মসংস্থান তৈরির পাশাপাশি আরো বেশকিছু সুযোগ তৈরি হবে বলে আশা করা হচ্ছে। খবর বিবিসি।

বিশ্বব্যাপী টাটার ব্যাটারি ব্যবসা পরিচালনা করে আগ্রাটাস কোম্পানি। পরবর্তী কারখানাটিও তারাই নির্মাণ করবে করবে বলে টাটার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। ভারতের বাইরে এটিই তাদের প্রথম কাজ, যা যুক্তরাজ্যের পিউরিটনের গ্র্যাভিটি স্মার্ট ক্যাম্পাসে হতে যাচ্ছে। কারখানা নির্মাণে গ্র্যাভিটি স্মার্ট ক্যাম্পাসের প্রায় ৫০ শতাংশ জমি নিয়ে কাজ করবে আগ্রাটাস।

টাটা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, কারখানাটিতে ২০২৬ সালের মধ্যে ব্যাটারি উৎপাদন শুরু হবে। কোম্পানিটির দাবি, ২০৩০ সালের মধ্যে যুক্তরাজ্যের মোট ব্যাটারি উৎপাদনের প্রায় অর্ধেক চাহিদা পূরণ করবে এ কারখানা।

কারখানাটি প্রতি বছর সামগ্রিকভাবে ৪০ গিগাওয়াট ব্যাটারি সেল তৈরিতে সক্ষম, যা প্রায় চার লাখ যাত্রীবাহী যানবাহনে সরবরাহ করার জন্য যথেষ্ট।

প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, নতুন কারখানাটি হিঙ্কলে পয়েন্ট সি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে মাত্র ২৪ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এটি ইউরোপের সবচেয়ে বৃহত্তম উৎপাদন কারখানা হতে চলেছে। এ কারখানা থেকে প্রাথমিকভাবে রেঞ্জ রোভার, ডিফেন্ডার ও জাগুয়ার ল্যান্ড রোভার গাড়ির জন্য ব্যাটারি তৈরি করা হবে। তবে অন্যান্য গাড়ি প্রস্তুতকারক কোম্পানিগুলোকে ব্যাটারি সরবরাহ করার পাশাপাশি বাণিজ্যিক শক্তি সঞ্চয়ের পরিকল্পনা রয়েছে টাটা কর্তৃপক্ষের।

অর্থসংবাদ/এমআই

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

আন্তর্জাতিক

ইউক্রেন প্রেসিডেন্টের হঠাৎ সৌদি সফর

Published

on

লাফার্জ

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি মঙ্গলবার হঠাৎ সৌদি আরব সফর করেছেন। জেলেনস্কি তার শান্তি পরিকল্পনাকে এগিয়ে নিতে এবং মস্কোর সঙ্গে নতুন বন্দি বিনিময়ে রিয়াদের সমর্থন পেতে হঠাৎ এ সফর।

জেলেনস্কি তার ফেসবুক পেজে লিখেছেন, প্রথম বিষয় শান্তি ফর্মুলা। গত বছর জেদ্দায়, আমরা এটির বাস্তবায়ন নিয়ে আলোচনা করার জন্য একটি কার্যকর উপদেষ্টার সভা করেছি। এটি ছিল আগস্টে জেদ্দায়, লক্ষ্য ছিল একটি শান্তি শীর্ষ সম্মেলন করা যাতে বিশ্ব নেতারা যোগ দেবেন।

তিনি আরও লিখেছেন, আমরা এখন প্রথম শান্তি সম্মেলনের কাছাকাছি চলে এসেছি এবং সৌদি আরবের চলমান সক্রিয় সমর্থনের ওপর নির্ভর করছি। সৌদি আরব অতীতে ইউক্রেনকে রাশিয়ার সঙ্গে বন্দি বিনিময় স্থাপনে সহায়তা করেছে। যার ফলে ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরে একটি চুক্তির মধ্যস্থতায় ২১৫ ইউক্রেনীয় বন্দিকে মুক্ত করা সম্ভব হয়।

জেলেনস্কি বলেছেন, তিনি সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে নিয়মিত সংলাপ বজায় রেখেছেন। সৌদি আরবের নেতৃত্ব এরই মধ্যে আমাদের জনগণের মুক্তিতে অবদান রেখেছে। আমি আত্মবিশ্বাসী যে এ বৈঠকটিও ফলাফল দেবে।

বৈঠকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট এবং সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স অর্থনৈতিক সহযোগিতার প্রতিশ্রুতিশীল ক্ষেত্র এবং ইউক্রেনের পুনর্গঠনে সৌদি আরবের অংশগ্রহণ নিয়ে আলোচনা করেন

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন
লাফার্জ
শিল্প-বাণিজ্য19 mins ago

স্থলবন্দর ও শুল্ক স্টেশনের চার্জ সহনীয় করার দাবি ব্যবসায়ীদের

লাফার্জ
টেলিকম ও প্রযুক্তি30 mins ago

রক্ষণাবেক্ষণের কাজ স্থগিত, স্বাভাবিক থাকবে ইন্টারনেট পরিষেবা

দেশে মূল্যস্ফীতি কমাতে নীতি সুদহার বৃদ্ধি
অর্থনীতি42 mins ago

আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ১৫ পরিচালকের বেশি নয়

লাফার্জ
রাজধানী50 mins ago

বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্তোরাঁর ভবনে আগুন

লাফার্জ
কর্পোরেট সংবাদ1 hour ago

ব্র্যাক ব্যাংক ও জেপি মরগান চেজ ব্যাংকের মধ্যে চুক্তি

লাফার্জ
আবহাওয়া1 hour ago

আগামী সপ্তাহে বৃষ্টিপাতের আভাস দিলো আবহাওয়া অফিস

লাফার্জ
জাতীয়2 hours ago

মন্ত্রিসভায় শিগগিরই আসতে পারে নতুন মুখ

লাফার্জ
জাতীয়2 hours ago

রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক পেলেন হামিদা পারভীন

লাফার্জ
আন্তর্জাতিক2 hours ago

কার অব দ্য ইয়ার পুরস্কার জিতেছে ‘‌রেনো সিনিক ই-টেক’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ঢাবি
ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ার2 hours ago

ঢাবিতে বিজ্ঞান ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা কাল

Advertisement
Advertisement

ফেসবুকে অর্থসংবাদ

২০১৮ সাল থেকে ২০২৩

অর্থসংবাদ আর্কাইভ

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ