কৃষি মজুররা তুলনামূলক সুবিধাজনক অবস্থানে

ধানচাষী মাঝারি ও বড় কৃষকদের সংকট বৃদ্ধি পাচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২১-০১-১৩ ১৫:৩৩:৩২, আপডেট: ২০২১-০১-১৩ ১৫:৫১:০১

একদিকে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন মাধ্যমে বাংলাদেশের খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা ঘোষনা, অন্যদিকে গত দশ বছরে প্রায় এক কোটি মেট্রিক টন চালের আমদানী। একদিকে সার, বীজ, কীটনাশক ও শ্রমের মূল্যসহ ধানের উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি, অন্যদিকে ধানের বিক্রয় মূল্য কমতে থাকা।

একদিকে ধানচাষী কৃষকদের বছরের পর বছর ধরে লোকসান দেওয়া, অন্যদিকে বিভিন্ন কর্পোরেট গ্রুপের লোভনীয় মূল্যে জমি কিনে নেওয়ার প্রস্তাব। সার্বিকভাবে বাংলাদেশের ধানচাষী কৃষকেরা বিশেষ করে যাদের নিজস্ব জমি রয়েছে তারা ধান চাষের প্রতি দিন দিন আগ্রহ হারাচ্ছে।

এ বাস্তবতায় ভূমিহীন কৃষি মজুরদের তুলনায় জমির মালিক মাঝারি ও বড় কৃষকদের সংকট বৃদ্ধি পাচ্ছে। সংকট নিরসনে সরকারের পক্ষ থেকে ধান ক্রয়ের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে প্রচার করা হলেও তা আসলে প্রয়োজনের তুলনায় নগন্য। ২০১৯-২০ সালে সরকার সারা দেশে মোট ৪ লক্ষ মেট্রিক টন অর্থাৎ ১ কোটি ৭ লক্ষ মণ বোরো ধান ক্রয় করেছিল, যা সারা দেশের মোট উৎপাদিত বোরো ধানের ১.৩০ শতাংশ মাত্র । সারা দেশে ১ কোটি ৬৯ লক্ষ নিবন্ধিত কৃষকের মাঝে ভাগ করলে প্রতিটি কৃষক পরিবারের ভাগে পড়ে মাত্র ২৪ কেজি পরিমাণে।

এ বিষয়গুলো উঠে এসেছে গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের সমাজবিজ্ঞান ও নৃবিজ্ঞান বিভাগের দুইজন শিক্ষক ড. আবুল হোসেন ও আহসান হাবীবের গবেষণায়। বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের কয়েকটি জেলায় মাঠ গবেষণার মাধ্যমে গবেষকদ্বয় বাংলাদেশের কৃষক সমাজের বিশেষ করে ধানচাষী কৃষকদের সংকটের এই নতুন মাত্রাসমূহ তুলে নিয়ে এসেছেন।

তাদের গবেষণাকর্মের ভিত্তিতে লিখিত ‘ধানচাষী কৃষক: সংকটের নতুন ধারা’ বইটি এ বছরের নভেম্বর মাসে টাঙ্গন প্রকাশনী প্রকাশ করেছে। বইতে গবেষকদ্বয় লিখেন ‘ধানের উৎপাদন খরচ বেশি হওয়ায় ও ন্যায্য বিক্রয় মূল্য না পাওয়ায় কৃষক ধান উৎপাদন ও তাদের মালিকানাধীন জমি নিয়ে সংকটে রয়েছে।

এ সুযোগে বড় বড় কোম্পানি জমি কিনে নিচ্ছে। এক্ষেত্রে তারা একসাথে বড় অংশের জমি কেনাকে প্রাধান্য দেয়। জমিতে বিভিন্ন শিল্প কারখানা প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি বাণিজ্যিক উৎপাদনেও অনেকে বিনিয়োগ করছে। এর মাধ্যমে কৃষির উৎপাদন কৃষকের হাত থেকে পুঁজিপতি ব্যবসায়ীদের হাতে চলে যাওয়ার ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। ফলশ্রুতিতে অদূর ভবিষ্যতে কৃষি জমির পরিমাণ কমতে থাকবে। যার পরিপ্রেক্ষিতে বিশাল সংখ্যক কৃষিমজুর, কৃষক ও কৃষির সাথে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মানুষ কর্মহীন ও বেকার জনশক্তিতে রূপান্তরিত হতে পারে।

লেখক-ড. আবুল হোসেন ও আহসান হাবীব
শিক্ষক -গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।