জাবি আমাকে পরিপূর্ণ মানুষ হতে সহায়তা করেছে : মুশফিক

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২১-০১-১২ ১৩:০৪:৩০

আজ পঞ্চাশ বছর পূর্ণ করল দেশের একমাত্র পূর্ণাঙ্গ আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস বিভাগের ছাত্র ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীম।

নিজের প্রিয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পঞ্চাশ বছর পূর্তিতে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মুশফিক। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের অফিসিয়াল পেজে এক ভিডিওবার্তায় মুশফিক জানিয়েছেন, তার জীবনে পরিপূর্ণ একজন মানুষ হতে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

সেই ভিডিওবার্তায় মুশফিক বলেন, ‘আসসালামু আলাইকুম। আশা করি আপনারা সবাই ভালো আছেন। জাহাঙ্গীরনগরের পঞ্চাশ বছর পূর্তিতে আমি সম্মানিত সাবেক, বর্তমান সকল শিক্ষার্থী-শিক্ষকসহ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সবাইকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। আমি একজন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে সবসময় গর্ব অনুভব করি।’

‘বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা আমাকে একজন পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে। বিশেষ করে, আমি আমার প্রিয় ডিপার্টমেন্ট, ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মচারীসহ আমার ব্যাচের সকল বন্ধু-বান্ধবীদের নিকট চির কৃতজ্ঞ। আমি আশা করছি, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মান ও গবেষণা কার্যক্রম উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাবে।’

‘বর্তমানে কোভিড-১৯ মোকাবিলা করে খুব শিগগিরই আমাদের প্রিয় ক্যাম্পাস শিক্ষার আলোয় আলোকিত হয়ে পুনরায় ফিরে আসবে, এই আশা ব্যক্ত করছি। পরিশেষে উক্ত আয়োজনে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের সবাইকে আবারও ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সবাই নিরাপদে থাকুন, সুস্থ থাকুন। আল্লাহ্‌ হাফেজ।’

উল্লেখ্য, ১৯৭০ সালের ২০ আগস্ট তৎকালীন সরকার এক অধ্যাদেশের মাধ্যমে ঢাকার পূর্বনাম অনুসারে রাজধানীর অদূরে সাভারে ‘জাহাঙ্গীরনগর মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়’ নামের এ বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করে।

১৯৭১ সালের ১২ জানুয়ারি তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য রিয়ার অ্যাডমিরাল এস এম আহসান আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্বোধন করেন। চারটি বিভাগে ২৩ জন শিক্ষক ও ১৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে পথচলা শুরু হয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের।

স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাদেশ পাস হলে মুসলিম শব্দটি বাদ দিয়ে নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়’। ২০০১ সাল থেকে ১২ জানুয়ারিকে ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে প্রতিবারের মতো এবারও নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে করোনা ভাইরাসের কারণে সব কিছু অনলাইনে সীমাবদ্ধ থাকছে।

তবে ৫০ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে ক্যাম্পাস। এছাড়া দিবসটি পালন উপলক্ষে মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) সকালে বিজনেস স্টাডিজ অনুষদ চত্বরে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম অনলাইনে বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের কর্মসূচি উদ্বোধন করেন।

এরপর দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য ও শিক্ষকদের নিয়ে স্মৃতিচারণমূলক ভার্চুয়াল আলোচনা সভা এবং সন্ধ্যায় সাবেক-বর্তমান শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে অনলাইন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান রয়েছে। এছাড়া বুধবার (১৩ জানুয়ারি) বর্তমান শিক্ষক ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের নিয়ে অনলাইনে স্মৃতিচারণমূলক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।