চলে গেলেন কলিন ম্যাকডোনাল্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২১-০১-১২ ১২:৪৯:৪৫

ঢেকে রাখা হতো না উইকেট, মাথায় ছিল না হেলমেট। সেই যুগেই বুক চিতিয়ে লড়াই করে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটের ইতিহাসে আলাদা জায়গা পেয়ে গেছেন কলিন ম্যাকডোনাল্ড। জীবনের ইনিংসেও তিনি উইকেট আঁকড়ে ছিলেন লম্বা সময়। অবশেষে থেমে গেল সব কিছু। পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করলেন বিশ্বের একসময়ের এক নম্বর ব্যাটসম্যান ম্যাকডোনাল্ড। ৯২ বছর বয়সে গতকাল মারা গেছেন ম্যাকডোনাল্ড।

ইএসপিএনক্রিকইনফোর খবরে জানা গেছে, ১৯৫২ থেকে ১৯৬১ সাল পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ৪৭টি টেস্ট খেলেছেন ম্যাকডোনাল্ড।

১৯৫২ সালে সিডনিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক হয়েছিল ম্যাকডোনাল্ডের। টেস্ট ক্যারিয়ারে পাঁচটি সেঞ্চুরি ও ১৭টি হাফসেঞ্চুরি করা ম্যাকডোনাল্ডকে সেই সময়ের সেরা ওপেনার হিসেবে বিবেচনা করা হতো।

এছাড়া ১৯২টি প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট ম্যাচে ১১,৩৭৫ রান করেছেন ম্যাকডোনাল্ড। ২৪টি সেঞ্চুরি ও ৫৭টি হাফসেঞ্চুরি করেছেন ঘোরোয়া আসরে।

১৯৫৫ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর ও দেশের মাটিতে ১৯৫৮-৫৯ অ্যাশেজে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেছিলেন ম্যাকডোনাল্ড। সেই দুটি সিরিজ ছিল তাঁর ক্যারিয়ারের সেরা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজে দুটি সেঞ্চুরিতে ৬৪.১৪ গড়ে ৪৪৯ রান করেছিলেন ম্যাকডোনাল্ড। অ্যাশেজে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি সেঞ্চুরিতে ৫১৯ রান করেছিলেন তিনি।

ম্যাকডোনাল্ডের মৃত্যুতে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান আর্ল এডিংস বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন কলিন। ইংল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারত ও পাকিস্তান সফরে পেসারদের বিপক্ষে দারুণ খেলতেন তিনি। স্পিনারদেরও ভালোভাবে সামলাতেন তিনি।’

খেলা শেষে টেনিস প্রশাসকের দায়িত্ব সামলেছেন। ক্রিকেট ধারাভাষ্যকার হিসেবেও কাজ করেছেন ম্যাকডোনাল্ড।

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।