রাবি উপাচার্যের বাসভবনে তালা,রাতভর অবরুদ্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২১-০১-১২ ১০:২৮:৩০

চাকরির দাবিতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানসহ দুই উপ-উপাচার্য ও প্রক্টরকে উপাচার্যের বাসভবনে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন চাকরি প্রত্যশী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান কমিটির নেতা-কর্মীরা।

সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে চাকরি প্রত্যাশী সাবেক ও বর্তমান ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা উপাচার্যের বাসভবন তালাবদ্ধ করে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে। বর্তমানে প্রায় ৩০ জন চাকরি প্রত্যাশী প্রার্থী উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান করছেন।

জানা গেছে, সোমবার অফিস চলাকালে জালাল নামের একজনকে সেকশন অফিসার পদে এডহক নিয়োগ দেয়। এর পর থেকে অন্যান্য চাকরি প্রার্থীরা সন্ধ্যার পর থেকে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে জড়ো হতে থাকেন। তারপর রাত সারে ৯টায় তালাবদ্ধ করেন।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, সোমবার দুপুরে রাবির রেজিস্ট্রার দফতরে জালাল নামের একজন প্রতিবন্ধীর চাকরি নিশ্চিত হলে সন্ধ্যার দিকে অন্য চাকরি প্রত্যাশীরা উপাচার্য ভবনের সামনে জড়ো হতে থাকেন। কিছুক্ষণ অবস্থানের পর সন্ধ্যা ৭ টার দিকে চাকরি প্রত্যাশী ও রাবি ছাত্রলীগের সাবেক নেতা সাদেকুল ইসলাম স্বপন এবং রাবি ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির সভাপতি গোলাম কিবরিয়া এবং সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ইলিয়াছ হোসেনের নেতৃত্বে ৬ জনের একটি প্রতিনিধিদল উপাচার্যের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে বাসভবনের ভেতরে যান। তবে উপাচার্য বিশ্রামে থাকায় তিনি ছাত্রলীগ নেতাদের সঙ্গে দেখা করতে চাননি। এরপর বাহিরে এসে তারা উপাচার্যের ভবনে তালা ঝুলিয়ে দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি আজ এডহক ভিত্তিতে একজনের চাকরি হয়েছে। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কেন চাকরি হচ্ছে না আমরা সেটি জানতে উপাচার্যের কাছে গিয়েছিলাম।’

উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে একটি চিঠি দেয়া হয়েছে প্রতিবন্ধী একটা ছেলেকে চাকরি দেয়ার জন্য। যেহেতু নিয়োগ বন্ধে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা রয়েছে, তাই আমি বিষয়টি সচিবকে জানিয়েছি। তিনি আমাকে নিয়োগ দিতে বলেছেন এবং নিয়োগ দিয়েছি। এর প্রেক্ষিতে সন্ধ্যার দিকে ছাত্রলীগ নেতারা এসে চাকরির দাবি করে। আমি জানিয়েছি, সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী নিয়োগ বন্ধ রাখা হয়েছে। এখন আমি নিয়োগ দিতে পারব না।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান বলেন, ‘বাসভবনের মধ্যে অবরুদ্ধ আছেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহান, উপ-উপাচার্য আনন্দ কুমার সাহা, উপ-উপাচার্য চৌধুরী মোহাম্মদ জাকারিয়া, প্রক্টর এবং কয়েকজন সহকারী প্রক্টর। মূলত করোনার আগে বেশ কয়েকটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ছিল। করোনার কারণে সেগুলোর নিয়োগ কার্যক্রম শেষ করা যায়নি। অনেক চাকরি প্রত্যাশী আছেন। কিন্তু শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা আছে তাই স্যার কিছু করতে পারবেন না। একটি স্বাভাবিক পরিস্থিতি যেন তৈরি হয়, সেজন্য আমরা আছি।’

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।