ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিধস : নিহত ১১

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২১-০১-১০ ১৭:০৪:০৭

ইন্দোনেশিয়ায় পশ্চিমাঞ্চলে ভারি বৃষ্টিপাতের কারণে সৃষ্ট ভূমিধসে ১১ জন ও ১৮ জন আহত হয়েছেন। দেশটির পশ্চিম জাভা প্রদেশে শনিবার এ দুর্ঘটনা ঘটে। আল জাজিরার সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

আজ রোববার ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বোর্ডের মুখপাত্র রাদিত্য জাতি এক বিবৃতিতে জানান, রাজধানী জার্কাতা থেকে ১৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে পশ্চিম জাভার কিহানজুয়াং গ্রামে শনিবার স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা ও সন্ধ্যা ৭টা ৩০ মিনিটে দুটি ভূমিধস হয়।

রাদিত্য জাতি বলেন, প্রথম ভূমিধসটি প্রবল বর্ষণ ও আলগা মাটির কারণে ঘটেছে। এর পরের ভূমিধসটি যখন ঘটে তখন উদ্ধারকারীরা প্রথম ভূমিধসের এলাকায় উদ্ধারকাজ চালাচ্ছিলেন। সারাদিন ধরে মুষলধারে বৃষ্টি ও বজ্রপাতের কারণে উদ্ধারকাজ বিঘ্নিত হতে পারে।

ব্যানডাং উদ্ধার সংস্থার মুখপাত্র সেনি উলান্দারি এএফপিকে বলেন, প্রথম ভূমিধসে অনেকে যোগ দিয়েছিলেন, তাই দ্বিতীয় ভূমিধসের পর কতজন নিখোঁজ হয়েছেন তা আমরা এখনো তালিকা করছি। ভূমিধসের কারণে রাস্তা ও ব্রিজ বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কারের উদ্দেশ্যে ভারী যন্ত্র নিয়ে যেতে বেগ পেতে হচ্ছে।

এর আগে, গত অক্টোবরে প্রেসিডেন্ট জোকো উইডোডো সতর্ক করে দিয়েছিলেন যে, লা নিনা আবহাওয়ার কারণে প্রবল বর্ষণ হতে পারে; ফলে বন্যা ও ভূমিধসের ঘটনা ঘটতে পারে। বর্ষাকালে ঘন ঘন প্রবল বর্ষণের ফলে ইন্দোনেশিয়ার দ্বীপগুলোতে ভূমিধস ও আকস্মিক বন্যা প্রায়ই হয়।

উল্লেখ্য, গত বছর সেপ্টেম্বরে বর্নেও দ্বীপের সুলাওয়েসিতে ভূমিধসে ১১ জন নিহত হয়েছিলেন। ইন্দোনেশিয়ার দুর্যোগ সংস্থার মতে, দেশটির সাড়ে ১২ কোটি জনগণ ভূমিধসের ঝুঁকিতে রয়েছে

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।