ভারতে উদ্ভাবিত কোভ্যাক্সিন টিকার অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২১-০১-০৩ ১১:৫৪:৫০, আপডেট: ২০২১-০১-০৩ ১১:৫৫:৩২

ভারতে কোভ্যাক্সিনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।ভারতের বিজ্ঞান গবেষণা সংস্থা এবং ভারত বায়োটেকের যৌথ উদ্যোগে উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের টিকা কোভ্যাকসিন অনুমোদনের সুপারিশ করেছে দেশটির ওষুধ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের বিশেষজ্ঞ কমিটি। এর আগে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার উদ্ভাবিত টিকার অনুমোদনের সুপারিশ করে ওই কমিটি।এই নিয়ে ভারতে জরুরীভিত্তিতে দুইটি করোনা টিকার অনুমোদন দেওয়া হলো।

ভারতীয় বার্তা সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে শনিবার কোভ্যাকসিনের অনুমোদন দেয় বিশেষজ্ঞ কমিটি। ওষুধ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ চূড়ান্ত অনুমোদন দিলে এসব টিকা প্রয়োগ শুরু হবে।

নতুন বছরের প্রথম দিনেই অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনা টিকার অনুমোদন দেয় ভারতের বিশেষজ্ঞ কমিটি। এর পরদিনই দেওয়া হলো নিজেদের উদ্ভাবিত টিকার অনুমোদন। এখন ড্রাগ কন্ট্রোলারের অনুমোদন পেলেই টিকাদান কর্মসূচির প্রক্রিয়া শুরু হয়ে যাবে। তখন কবে থেকে ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হবে তা কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়ে দেবে। আশা করা হচ্ছে আসন্ন সপ্তাহেই চূড়ান্ত অনুমোদন পাওয়া যাবে।

আশা করা হচ্ছে ভারতের ওষুধ নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ একটি সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে এসব টিকাকে ছাড়পত্র দেওয়ার কথা ঘোষণা দিতে পারেন। রবিবার স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় একটি সংবাদ সম্মেলন আহ্বান করেছে কর্তৃপক্ষটি।

অক্সফোর্ডের টিকাটি ভারতে উৎপাদন করছে সিরাম ইন্সটিটিউট। এটি ছাড়াও ভারতের নিজস্ব টিকা কোভ্যাকসিন এবং ফাইজারের টিকাও জরুরি অনুমোদনের জন্য আবেদন করা হয়েছিল।

ভারতীয় গবেষকেরা বলছেন, কোভ্যাকসিন টিকার কার্যকারিতার তথ্য সামগ্রিকভাবে ভালো ফলাফল দিয়েছে। টিকাটির তৃতীয় ধাপে ২৫ হাজার আটশ’ অংশগ্রহণকারীর ওপর পরীক্ষা চালানো হচ্ছে। গত নভেম্বরে শুরু হওয়া এই পরীক্ষায় ইতোমধ্যে ২২ হাজার অংশগ্রহণকারীর ওপর টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে। প্রথম দুই ধাপের পরীক্ষায় ভালো কার্যকারিতা দেখা গেছে বলে জানা গেছে। আগামী মার্চ নাগাদ অন্তর্বর্তী চূড়ান্ত ফলাফল পাওয়ার আশা করছেন গবেষকেরা। গবেষকেরা জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে কোভ্যাকসিনের এক কোটি ডোজ উৎপাদন করে রাখা আছে।

কোভ্যাক্সিন টিকাটি তৈরি করেছে হায়দরাবাদের টিকা প্রস্তুতকারী সংস্থা ‘ভারত বায়োটেক’ ও সরকারি প্রতিষ্ঠান ‘ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ’ (আইসিএমআর)-ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজি (এনআইভি)। সংস্থার দাবি কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই এই টিকার ও দারুণ কার্যকর।

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।