‘বেস্ট ব্র্যান্ড অ্যাওয়ার্ড ২০২০’ অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২১-০১-০২ ১৮:০৯:১৪

দেশের ব্র্যান্ডিং শিল্পের সবচেয়ে বড় সম্মাননা ‘বেস্ট ব্র্যান্ড অ্যাওয়ার্ড ২০২০’ পাওয়ার্ড বাই এআইইউবি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গতকাল শুক্রবার এক জমকালো ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের সেরা ব্র্যান্ডগুলোকে পুরস্কার প্রদানের মাধ্যমে সম্মাননা জানানো হয়।

১২তম বেস্ট ব্র্যান্ড অ্যাওয়ার্ডে ৩৭টি ক্যাটাগরিতে সর্বমোট ১০৫টি ব্র্যান্ডকে সম্মানিত করা হয়, এছাড়াও, পদক লাভ করেন সর্বশ্রেণীতে সেরা ১৫ ব্র্যান্ডের প্রতিনিধিরা। সেরা এ ১৫টি ব্র্যান্ডের মধ্যে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান লাভ করেছে যথাক্রমে বিকাশ, ক্লোজআপ এবং ইস্পাহানি।

দেশের ব্র্যান্ডগুলোকে অনুপ্রাণিত করতে, বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরাম গত ১২ বছর ধরে বেস্ট ব্র্যান্ড অ্যাওয়ার্ডের মাধ্যমে সর্বাধিক প্রিয় ব্র্যান্ডকে সম্মানিত করে চলেছে। বেস্ট ব্র্যান্ড অ্যাওয়ার্ডের উদ্দেশ্য কঠোর প্রচেষ্টার মাধ্যমে অর্জিত ব্র্যান্ডগুলির সাফল্যের প্রদর্শন এবং উদযাপন।

এ আয়োজনের উদ্দেশ্য হলো দেশে পরিচালিত ব্র্যান্ডগুলোর সফলতাকে সম্মাননার মাধ্যমে অনুপ্রাণিত করা। নিয়েলসেন- এর বিশ্বমানের জরিপ পদ্ধতি ‘উইনিং ব্র্যান্ডস’ অনুসারে দেশের সর্বাধিকপ্রিয় ব্র্যান্ডগুলোকে সম্মাননা জানানো হয়।

দেশজুড়ে প্রায় ৭ হাজার ৬০০ ভোক্তার অংশগ্রহণে পরিচালিত এ জরিপের ওপর ভিত্তি করে এ বছর মোট ৩৭টি ক্যাটাগরিতে এ পুরস্কার দেয়া হয়েছে। এই বছর স্ব-প্রশাসিত পর্যালোচনা অন্তর্ভুক্ত ছিল।

ব্র্যান্ডফেস্ট – ২০২০ এর সমাপনি অধিবেশনে বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরামকে অভিনন্দন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারী খাত ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান বলেন, “আমরা ২০২১ সালকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুতি নিচ্ছি, আমি অনুরোধ করছি প্রত্যেকেই তাদের ব্যক্তিগত অগ্রগতিতে যথাসাধ্য চেষ্টা করবে, সেই সাথে জাতিকে এগিয়ে নিয়ে যেতেও তারা সক্রিয়ভাবে তাদের ব্যক্তিগত ভূমিকা পালন করবে”।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরামের পরিচালক, উইমেন ইন লিডারশিপের (ডাব্লুআইএল) সভাপতি এবং বাংলাদেশ ক্রিয়েটিভ ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা নাজিয়া আন্দালিব প্রিমা মনোনীত প্রার্থীদের আন্তরিক অভিনন্দন জানান।

তিনি বলেন ‘স্থানীয় ব্র্যান্ডগুলোকে আরও প্রখর হতে হলে তাদেরকে আমাদের সংস্কৃতির বিস্তারে গভীর অনুসন্ধান করতে হবে এবং উন্নত বাংলাদেশের মানসিকতা বোঝার মাধ্যমে শক্তিশালী ব্র্যান্ডগুলি বিজ্ঞান ও আর্ট এর সাথে সম্পৃক্ত হতে হবে। তবেই ব্র্যান্ডগুলি টেকসই হবে কারণ এটি কার্যক্ষমতার সাথে সংবেদনশীলতার সেতুবন্ধন করে।’

অনুষ্ঠানে বেস্ট ব্র্যান্ড অ্যাওয়ার্ডের জরিপ পদ্ধতি সম্পর্কে বক্তব্য প্রদান করেন লিডার, কাস্টোমাইজেড ইন্টেলিজেন্স, নিয়েলসেন, সাউথ এশিয়া জনাব প্রাসান্ত কল্লেরি ।

বেস্ট ব্র্যান্ড অ্যাওয়ার্ডের ১২তম সংস্করণটি দেশের ব্র্যান্ড এবং মার্কেটিং এর বৃহত্তম উৎসব “ব্র্যান্ডফেষ্ট – দ্য নেক্সট বাংলাদেশ” এর সমাপনি অনুষ্ঠানের পর পরই শুরু হয়।

উল্লেখ্য যে, ৩ দিন ব্যাপী “ব্র্যান্ডফেস্ট – ২০২০” এর শেষ দিনের প্রতিপাদ্য ছিল – নীতি নির্ধারণ, ব্র্যান্ড হিসাবে এবং কীভাবে পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে আমরা আমাদের স্বাধীনতার ৫০তম বছরে অংশ নিতে পারি সে বিষয়ে বাংলাদেশের উপর মনোনিবেশ করা।

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।