বাংলাদেশে ফেসবুকের ‘বি ডিসকাভারড’ ক্যাম্পেইন শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২০-১২-২৩ ১২:২৫:০৩

ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে ব্যবসায়িক সফলতা অর্জন করে আসছেন, এমন উদ্যোক্তাদের গল্প তুলে ধরতে ফেসবুক সোমবার (২১ ডিসেম্বর) থেকে বাংলাদেশে বি ডিসকাভারড’ ক্যাম্পেইন শুরু করেছে। ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসার সহায়তায় বিশ্বব্যাপী ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে বাংলাদেশি উদ্যোক্তাদের অভিজ্ঞতা বিনিময়ের সুযোগ করে দেবে ফেসবুক।

বি ডিসকাভারড’ ক্যাম্পেইনের আওতায় ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে কয়েক পর্বের লাইভ আলোচনা আয়োজন করা হবে। সেখানে উদ্যোক্তারা তাদের অভিজ্ঞতা এবং অনলাইনে সফলতার কৌশল সম্পর্কে আলোচনা করবেন। আলোচনায় উদ্যোক্তাদের সঙ্গে ফেসবুক মুখপাত্ররা ডিজিটাল টুলস ও ফিচারস সম্পর্কে টিপস প্রদান করবেন যা ব্যবসায়িক ভাবনাকে বাস্তবে রূপ দিতে সহায়তা করবে। এই ক্যাম্পেইন ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে কম খরচে কীভাবে ব্যবসাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে, সেই বিষয়ে আগ্রহীদের গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ প্রদান করবে।

ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন করতে কর্পোরেট প্রশিক্ষক ও ডন সামদানি ফ্যাসিলিটেশন এর প্রতিষ্ঠাতা গোলাম সামদানি ডন ফেসবুকে একটি লাইভ ভার্চুয়াল আলোচনা পরিচালনা করেন। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন দুইজন বাংলাদেশি উদ্যোক্তা, ফেসবুক এবং বাংলাদেশ সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)-এর প্রতিনিধি।

মহামারির কারণে বাংলাদেশে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা, বিশেষ করে নারী উদ্যোক্তারা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে’, বলেন ফেসবুকের এশিয়া প্যাসিফিকের ইমার্জিং মার্কেটস এর ডিরেক্টর জর্ডি ফোর্নিস।

স্টাইল ইকোর প্রতিষ্ঠাতা ও স্বত্বাধিকারী সায়মা রহমান এবং কুকআপসের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নামিরা হোসেন আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। তারা ফেসবুকের মাধ্যমে সফল ব্যবসায়ী হয়ে ওঠার অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। তারা জানান, মহামারির সময়ে কীভাবে ব্যবসার কৌশল পরিবর্তন করে তারা ফেসবুকে গ্রাহকদের সঙ্গে সংযুক্ত থেকেছেন এবং নানা বাঁধা পেরিয়ে অনলাইনে তাদের সেবা সবার কাছে পৌঁছে দিয়েছেন।

বেসিসের সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির ডিজিটাল টুলস জেন্ডারভিত্তিক বৈষম্য দূর করতে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের অবদান সম্পর্কে আলোচনা করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের দুর্গম প্রান্ত থেকে স্বপ্নচারী ও উদ্যোক্তাদের ফেসবুক তাদের পণ্য বিক্রয়ের সুযোগ করে দিয়েছে। আমি আশা করছি, ভবিষ্যতেও ফেসবুক বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, বিশেষ করে নারী উদ্যোক্তাদের সহায়তা করে যাবে। এতে যেমন আমাদের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি আসে, সেই সঙ্গে তারাও আর্থিকভাবে আরো স্বাবলম্বী হতে পারে।’

চলতি মাসে ফেসবুক, অর্গানাইজেশন অব ইকোনোমিক কো-অপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এবং ওয়ার্ল্ড ব্যাংক-এর সম্মিলিত প্রয়াসে প্রকাশিত হয় গ্লোবাল স্টেট অব স্মল বিজনেস রিপোর্ট। এতে দেখা গেছে, বিশ্বব্যাপী ৩৫ শতাংশ ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসা মহামারির পরে নতুন কর্মপদ্ধতির সঙ্গে খাপ খাওয়াতে ডিজিটাল টুলস ও প্ল্যাটফর্মের সহযোগিতা নিয়েছে। বাংলাদেশে জরিপকৃত ৪৬ শতাংশ উদ্যোক্তা গত মাসে তাদের পণ্যের চার ভাগের এক ভাগ ডিজিটাল টুলসের সহায়তায় বিক্রি করেছেন। এছাড়া ৬১ শতাংশ উদ্যোক্তা ব্যবসার ভবিষ্যৎ নিয়ে আশাবাদী।

ফেসবুক বিশ্বজুড়ে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের যেভাবে সহযোগিতা করছে সে সম্পর্কে আরও জানতে ভিজিট: www.facebook.com/business।

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।