ব্রেক্সিটের পর থমকে গেছে ব্রিটেনের অর্থনীতি

প্রকাশ: ২০২০-০২-১৩ ০১:২১:২৬

 

ব্রেক্সিট পরবর্তী সময়ে ব্রিটেনের অর্থনীতির অবস্থা নিম্নগামী। তার মধ্যে চায়না ক্রাইসিস যুক্ত হয়েছে। যা শুধু ব্রিটেন নয়, গোটা বিশ্বকে বড় ধরণের ঝাঁকুনি দিয়েছে। এদিকে ব্রিটেনে গেল নির্বাচনের পর অর্থনীতির চাকা শ্লথই নয়। একেবারেই থমকে। অক্টোবর থেকে ডিসেম্বরে ব্রিটেনের আর্থিক বৃদ্ধির ছবি ছিল এমনই। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, ব্রেক্সিট এবং নির্বাচনের সাঁড়াশির পাশাপাশি বিশ্ব অর্থনীতির মন্থরতাও ব্রিটেনের অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলেছে গত বছরের শেষ ত্রৈমাসিকে। পরবর্তী দু’বছরের বৃদ্ধির পূর্বাভাস ছাঁটাই করেছে ব্যাঙ্ক অব ইংল্যান্ড।

আমেরিকা ও চীনের মধ্যে শুল্ক-যুদ্ধের ধাক্কার বিরূপ প্রভাব পড়েছে সারা বিশ্বে। দুনিয়ার বৃহত্তম অর্থনীতি আমেরিকায় গত বছর বৃদ্ধির হার কমে হয়েছে ২.১%। যা ২০১৩ সালের পরে সবচেয়ে কম। অর্থনীতির চাকায় গতি আনতে নগদের জোগান বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে চিনের শীর্ষ ব্যাঙ্ক। আঁচ পড়েছে ইউরো অঞ্চলের দেশগুলির উপরেও। ২০১৯ সালে তা কমে হয়েছে ১.২%। এক বছর আগে তা ছিল ১.৮%। ধাক্কা খেয়েছে জাপান, জার্মানির মতো গুরুত্বপূর্ণ অর্থনীতিও। ২০১৯ সালে জার্মানির অর্থনীতি এগিয়েছে ০.৬% হারে।

এই পরিস্থিতিতে গত মঙ্গলবার ব্রিটেনের পরিসংখ্যান দফতরের মুখপাত্রের বিবৃতি, ‘‘২০১৯ সালের শেষ ত্রৈমাসিকে কোনও বৃদ্ধি হয়নি। পরিষেবা এবং নির্মাণ ক্ষেত্রের বৃদ্ধি হলেও কমেছে উৎপাদন। বিশেষ করে ধাক্কা খেয়েছে গাড়ি শিল্প।’’ দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, ওই তিন মাসে উৎপাদন ০.৮% কমেছে। তবে সারা বছরের বৃদ্ধির হার (১.৪%) আগের বছরের তুলনায় (১.৩%) সামান্য বেড়েছে। ব্রিটেনের শীর্ষ ব্যাঙ্ক আগামী দু’বছরে তাদের বৃদ্ধির পূর্বাভাস ছাঁটাই করেছে। জানিয়েছে, ২০২০ ও ২০২১ সালে তা হতে পারে যথাক্রমে ০.৮% এবং ১.৪%।

ইওয়াই আইটেম ক্লাবের প্রধান অর্থনৈতিক উপদেষ্টা হাওয়ার্ড আর্চার বলেছেন, “২০২০ সালের প্রথম প্রান্তিকে প্রথমদিকে ব্যবসায় এবং গ্রাহকের আস্থা স্পষ্টভাবে উন্নত হয়েছে এবং সামগ্রিক ধারণাটি যে এর ফলে অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপে কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তবে, এখনও অবধি কোন ধরণের সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে যে অর্থনীতি রাতারাতি ঘুরে দাঁড়াবে এবং যতটুকু বর্তমান আছে তা টিকিয়ে রাখা যায় কিনা তা বিচার করা কঠিন। ”

ব্রিটেনের অর্থমন্ত্রী অর্থমন্ত্রী সাজিদ জাভিদের দাবি, ব্রেক্সিট সংক্রান্ত জটিলতা কাটানো গিয়েছে। এ বার দীর্ঘমেয়াদি বৃদ্ধির পথে পা রাখবে দেশ। ওয়াকিবহাল মহলের একাংশের অবশ্য বক্তব্য, ইউরো অঞ্চলের সঙ্গে বাণিজ্য সংক্রান্ত কঠিন দরাদরি এর পরে সামলাতে হবে ব্রিটেনকে। গার্ডিয়ান অবলম্বনে

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।