চীনে প্রথম বিলেট রফতানি করলো জিপিএইচ ইস্পাত

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২০-১১-১৯ ১০:৪৯:০৬

চীনের বাজারে বিলেট রফতানি করে নতুন দিগন্ত উন্মোচন করলো বাংলাদেশের জিপিএইচ ইস্পাত। বুধবার (১৮ নভেম্বর) ভার্চুয়াল প্লাটফর্মের মাধ্যমে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে রফতানির জাহাজীকরণের উদ্বোধন করা হয়। অনুষ্ঠানে অংশ নেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন ও বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, করোনাকালীন দুঃসময়ের মধ্যেও জিপিএইচ ইস্পাত বিলেট রফতানি করে দেশ ও জাতির জন্য সম্ভাবনা ও সুসংবাদ বয়ে এনেছে। তারা ইস্পাত জগতে বিশাল কর্মযজ্ঞ সৃষ্টি করেছে। এ প্রসঙ্গে আন্তর্জাতিক বাজারে রফতানি বৃদ্ধির জন্য তিনি দূতাবাসগুলোকে সক্রিয় হওয়ার আহ্বান জানান।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, বিশ্বমানচিত্রে বাংলাদেশ এখন এক উদীয়মান অর্থনৈতিক শক্তির নাম। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ নেতৃত্বে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ এরই মধ্যে দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। গত এক যুগে শিল্পায়ন, কর্মসংস্থান, দারিদ্র্য বিমোচন, দক্ষ জনশক্তি তৈরি, নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন, জিডিপি প্রবৃদ্ধি, মাথাপিছু আয়, শিল্পপণ্য রফতানি, রেমিট্যান্সপ্রবাহ, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ, অবকাঠামো উন্নয়ন, নিরবচ্ছিন্ন পরিষেবাসহ সব খাতে বাংলাদেশ অভূতপূর্ব সাফল্য দেখিয়েছে। বাংলাদেশের উন্নয়ন অভিযাত্রায় শিল্প খাত অন্যতম চালিকাশক্তি হিসেবে ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে। দেশের ধারাবাহিক জিডিপি প্রবৃদ্ধির পেছনে রয়েছে শিল্প খাতের উল্লেখযোগ্য অবদান।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জিপিএইচ ইস্পাতের বিলেট রফতানির তথ্যটি পৌঁছে দেব। বাণিজ্যমন্ত্রী নিজেকে একজন রফতানিকারক উল্লেখ করে বলেন, পোশাক শিল্পের ন্যায় উৎপাদিত ইস্পাতসামগ্রী রফতানিপূর্বক জিপিএইচ ইস্পাত বৈদেশিক মুদ্রা আয়, বিদ্যুৎ ও গ্যাসসাশ্রয়ী পরিবেশবান্ধব সবুজ কারখানা সৃজন করেছে। এ প্রেক্ষাপটে জিপিএইচ ইস্পাতকে এমএস বিলেট ও এমএস প্রডাক্ট রফতানিতে নগদ প্রণোদনা দেয়ার আবেদনের বিষয়টি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষ বিবেচনায় রয়েছে।

চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহাবুবল আলম বলেন, জিপিএইচ ইস্পাত আমাদের প্রবীণ সদস্য ও উদীয়মান শিল্পপ্রতিষ্ঠান। তারা নন-ট্রাডিশনাল আইটেম বিলেট রফতানি করছে। বিলেট রফতানি করে বেসরকারি খাতের জন্য আন্তর্জাতিক সম্মান বয়ে এনেছে। তাদের আগামীতে চট্টগ্রাম চেম্বার অধিকতর সহায়তা দেবে।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের (চবক) চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল এসএম আবুল কালাম আজাদ বলেন, আজ শুধু জিপিএইচ ইস্পাতের নয়, চট্টগ্রাম বন্দরেরও গর্বের দিন। এতে নতুন শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলো অনুপ্রাণিত হবে। জিপিএইচ ইস্পাত তাদের অসাধারণ দক্ষতা ও সক্ষমতা দিয়ে ‘স্টেট অব আর্ট’ প্রযুক্তির আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন পণ্য উৎপাদন করছে।

জিপিএইচ প্লান্ট পরিদর্শনের অভিজ্ঞতায় সন্তোষ প্রকাশ করে ট্রেড ও ট্যারিফ কমিশন চেয়ারম্যান মুনসি শাহাবুদ্দিন আহামেদ বলেন, মুজিব শতবর্ষ এবং শেখ হাসিনার মিশন ও ভিশন বাস্তবায়নে এটি একটি নতুন সংযোজন।

জিপিএইচ গ্রুপ (এমডি) মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, রফতানির জন্য আন্তর্জাতিক মান অর্জনপূর্বক জিপিএইচ ইস্পাত অব্যবহূত বিলেট রফতানি করে বৈদেশিক মুদ্রা আয়, প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় এক লাখ লোকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে যাচ্ছি। একই সঙ্গে ২০২০-২১ অর্থবছরে ৭০ থেকে ১০০ মিলিয়ন ইউএস ডলারের সমপরিমাণ রফতানি উন্নীত করার পরিকল্পনা করেছি। সরকারি নীতিমালার সহায়তা পেলে বৈদেশিক বিনিয়োগ আকর্ষণে সক্ষম হব। আমরা আশা করব বাংলাদেশের অন্যান্য ইস্পাত উৎপাদক প্রতিষ্ঠানগুলো একই সঙ্গে রফতানিতে এগিয়ে আসবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, জিপিএইচ ইস্পাতের এএমডি মোহাম্মদ আলমাস শিমুল, পরিচালক এমএ রউফ, মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান, আব্দুল আহাদ, আজিজুল হক রাজু, স্বতন্ত্র পরিচালক মোকতার আহামদ। নির্বাহী পরিচালক (এফঅ্যান্ডবিডি) কামরুল ইসলাম এ অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।

অর্থসংবাদ/এসএ/১০:৪০/১১.১৯.২০২০

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।