‘সালমার স্পেল ম্যাচ জিতিয়েছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২০-১১-১০ ১৮:০০:০৩

স্বল্প রানের ম্যাচ, জিততে হলে প্রয়োজন দারুণ বোলিং। সুপারনোভাসের বিপক্ষে সেই দায়িত্ব দক্ষ হাতে পালন করলেন সালমা খাতুন। ভারতের উইমেন টি-টোয়েন্টি চ্যালেঞ্জের ফাইনালে ‘ম্যাচজয়ী স্পেল’ করা বাংলাদেশের এই স্পিনারের ভূয়সী প্রশংসা করলেন ট্রেইলব্লেজার্স অধিনায়ক স্মৃতি মান্ধানা।

ফাইনালে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জেতা মান্ধানার মতে, ম্যাচ জিতিয়েছে সালমার দুর্দান্ত স্পেল।

শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সোমবার সুপারনোভাসকে ১৬ রানে হারিয়ে টুর্নামেন্টটিতে প্রথম শিরোপা জিতেছে ট্রেইলব্লেজার্স। ১১৯ রানের লক্ষ্য দিয়ে সালমার বোলিং নৈপুণ্যে প্রতিপক্ষকে ১০২ রানেই আটকে দেয় তারা। চার ওভার হাত ঘুরিয়ে ১৮ রানে তিন উইকেট নেন বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক।

ইনিংসে ষষ্ঠ বোলার হিসেবে বল হাতে নিয়ে ত্রয়োদশ ওভারে সালমা দেন ৫ রান। পরের ওভারে ৫ রান দিয়ে ফেরান শশিকলা সিরিবর্ধনেকে। অভিজ্ঞ অফ স্পিনারের তৃতীয় ওভারে আসেনি উইকেট, তবে রান দেন মাত্র ৪।

শেষ দুই ওভারে সুপারনোভাসের যখন দরকার ২৮ রান। হাতে বেশ কিছু বিকল্প ছিল, তবে অধিনায়ক মান্ধানা আস্থা রাখেন সালমার ওপর। দুর্দান্ত অফ স্পিনে ১৯তম ওভারে ৪ রান দিয়ে তিনি তুলে নেন দুই উইকেট। আউট করেন প্রতিপক্ষ অধিনায়ক হারমানপ্রিত কাউর ও পুজা ভাস্ত্রাকারকে। সেই ওভারে আরেকটি উইকেট আসে রানআউটে। ট্রেইলব্লেজার্সের জয়ও প্রায় নিশ্চিত হয়ে যায়।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে সালমার বোলিংয়ে নিজের মুগ্ধতার কথা জানান মান্ধানা।

“সে (সালমা) ছিল দুর্দান্ত। ওইরকম স্পেলই ম্যাচ জেতায়। অভিজ্ঞ একজন ক্রিকেটার সে। আমি কেবল তাকে বলেছি, নিজের ওপর বিশ্বাস রাখতে এবং সে প্রতিদান দিয়েছে। তার স্পেলগুলো ছিল ম্যাচজয়ী।”

ভারতের উইমেন টি-টোয়েন্টি চ্যালেঞ্জে প্রথমবারের মতো খেলতে গিয়েই সালমা পেলেন শিরোপার স্বাদ। তিন দলের এই টুর্নামেন্টে নিজ দলের সব ম্যাচেই খেলেছেন তিনি।

প্রথম ম্যাচে প্রতিপক্ষের ৮ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর বোলিং পেয়ে দুই ওভারে কেবল ৪ রান দিয়ে উইকেটশূন্য ছিলেন, দল পেয়েছিল বড় জয়। পরের ম্যাচে দলের হারে ২৫ রানে নিয়েছিলেন একটি উইকেট।

অর্থসংবাদ/ এমএস

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।