কবুতরের বিভিন্ন রোগব্যাধি ও চিকিৎসা

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২০-১১-১০ ১৬:৫২:৩৮

বাণিজ্যিকভাবে বা শখ করে আজকাল অনেকেই কবুতর পোষেন। পুরোবিশ্বে কবুতরের কদর রয়েছে। কবুতর পালনে খরচ তুলনামূলকভাবে কম। রোগবালাইও খুব বেশি হয় না এবং পালন করাও সহজ। নিম্নে কবুতরের কিছু রোগব্যাধি ও তার চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করা হলো –

রোগের নাম : সালমেনেলোসিস/ প্যারাটইফোসিস।

কারণ : সালমোনেলা টাইফিমিউরিয়াম।

লক্ষণ : শ্লেষ্মাযুক্ত আঠালো, ফেনা ও দুর্গন্ধযুক্ত ডায়রিয়া দেখা দেয়। দেহ ক্রমাগত শুকিয়ে যায়। ভারসাম্য হীনতা ও পক্ষাঘাত দেখা দেয়।

চিকিৎসা : এন্টিবায়োটিক সেনসিটিভিটি টেস্ট করে সঠিক এন্টিবায়োটিক প্রয়োগ করতে হবে। আর ভিটামিনস ও মিনারেলস খাওয়াতে হবে।

প্রতিরোধ : ১। জীব নিরাপত্তা ব্যবস্থা মেনে চলতে হবে। ২। টিকা প্রদান করতে হবে।

রোগের নাম : পাসটিউরেলা মালটোসিডা

লক্ষণ : ডাইরিয়া, জ্বর, কোনো লক্ষণ ছাড়াই ২৪-৪৮ ঘন্টা মধ্যে কবুতর মারা যায়।

চিকিৎসা : এন্টিবায়োটিক সেনসিটিভিটি টেস্ট করে সঠিক এন্টিবায়োটিক প্রয়োগ করতে হবে। সঙ্গে ভিটামিনস ও মিনারেলস খাওয়াতে হবে।

প্রতিরোধ : ১। জীব নিরাপত্তা ব্যবস্থা মেনে চলতে হবে। ২। টিকা প্রদান করতে হবে।

রোগের নাম : করাইজা অথবা আউল’স হেড।

কারণ : হেমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা।

লক্ষণ : সর্দি, চোখের পাতা ফুলে প্যাঁচার মাথার মতো দেখায়। চোখ দিয়ে (muco-purulent) পদার্থ বের হয়।

চিকিৎসা : অ্যান্টিবায়োটিক সেনসিটিভিটি টেস্ট করে সঠিক অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োগ করতে হবে। সঙ্গে ভিটামিনস ও মিনারেলস খাওয়াতে হবে।

প্রতিরোধ : ১। জীব নিরাপত্তা ব্যবস্থা মেনে চলতে হবে। ২। টিকা প্রদান করতে হবে।

রোগের নাম : মাইকোপ্লাজমোসিস।

কারণ : মাইকোপ্লাজমা কলাম্বিনাম।

লক্ষণ : সর্দি, চোখ ও নাক দিয়ে প্রথমে পানি এবং পরে muco-purulent পদার্থ নির্গত হয়। মুখ ও কন্ঠ অত্যধিক প্রদাহে স্ফীত থাকে এবং দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়। শ্বাসকষ্ট হয়।

চিকিৎসা : টিয়ামুলিন, টাইলোসিন এনরোফ্লুক্সসিন, স্পাইরামাইসিন, লিনকোমাইসিন গ্রুপের অষুধ।

প্রতিরোধ : ১। জীব নিরাপত্তা ব্যবস্থা মেনে চলতে হবে। ২। টিকা প্রদান করতে হবে।

রোগের নাম : ক্ল্যামাইডিওসিস অথবা অরনিথোসিস।

কারণ : ক্ল্যামাইডিয়া সিটাসি।

লক্ষণ : চোখ ও নাক দিয়ে পানি পড়ে। স্বাস্থ্যে অবনতি ঘটে। আর রোগ ভোগের পর মারা যায়।

চিকিৎসা : ক্লোরটেট্রাসাইক্লিন, টাইলোসিন, লিনকোমাইসিন, স্পাইরামাইসিন ইত্যাদি

প্রতিরোধ : ১। জীব নিরাপত্তা ব্যবস্থা মেনে চলতে হবে। ২। টিকা প্রদান করতে হবে।

রোগের নাম : নিউক্যাসল অথবা প্যারামিক্সো ভাইরাস-১।

কারণ : প্যারামিক্সো ভাইরাস টাইপ-১।

লক্ষণ : সবুজ রংয়ের ডায়রিয়া, শ্বাস-প্রশ্বাসে কষ্ট, মুখ হা করে শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণ করে। ভারসাম্যহীনতা, মাথা ঘোরা, পাখা ও পায়ের পক্ষাঘাত ইত্যাদি।

চিকিৎসা : এন্টিবায়োটিক, এমাইনো এসিড, ভিটামিন, ইমিউনো স্টিমুলেটর।

প্রতিরোধ : জৈব নিরাপত্তা ব্যবস্থা মেনে চলতে হবে। টিকা প্রদান করতে হবে।

রোগের নাম : ডিফথেরো স্মল পক্স (বসন্ত রোগ)।

কারণ : বোরেলিয়া কলাম্বরি ভাইরাস।

লক্ষণ : পালকহীন ত্বক বিশেষ করে চোখ, ঠোঁটের চারপাশে এবং পায়ে ক্ষত বা পক্স দেখা যায়।

চিকিৎসা : অ্যান্টিবায়োটিক, এমাইনো এসিড, ভিটামিন এ এবং সি, ইমিউনো স্টিমুলেটর, টপিক্যাল আইওডিন।

প্রতিরোধ : জৈব নিরাপত্তা ব্যবস্থা মেনে চলতে হবে।

রোগের নাম : পরজীবী রোগ

কারণ : আইমেরিয়া, এসকারিস, ক্যাপিলারিয়া, ট্রাইকোমোনা।

লক্ষণ : দুর্বলতা, খাদ্য গ্রহণে অনীহা, শুকিয়ে যাওয়া, ডাইরিয়া (মলে রক্ত থাকে ককসিডিয়া), পুষ্টিহীনতা ও অবশেষে মৃত্যু ঘটে।

চিকিৎসা : কৃমিনাশক, ভিটামিন ও মিনারেল প্রিমিক্স, এমাইনো এসিড।

প্রতিরোধ : জৈব নিরাপত্তা ব্যবস্থা মেনে চলতে হবে।

অপুষ্টিজনিত ও বিপাকীয় রোগ

ভিটামিন-এ এর ঘাটতি : দেহে ক্ষত হয়, দৃষ্টিশক্তি হ্রাস পায় এবং অক্ষিঝিল্লির প্রদাহ দেখা দেয়। ক্ষুধা কমে যায়, দৈহিক বৃদ্ধি ও পালকের গঠণ ব্যাহত হয়। উৎপাদ ও ডিম তা দেওয়ার ক্ষমতা হ্রাস পায়।

নিয়মিত ভিটামিন, প্রিমিক্স ও মিনারেল প্রদান অথবা ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাদ্য প্রদান করতে হবে।

ভিটামিন ডি এর ঘাটতি : অস্থি নরম ও বাঁকা হয়ে যায়, ডিম উৎপাদন ও তা দেওয়ার ক্ষমতা কমে।

ভিটামিন ডি ও মিনারেল প্রিমিক্স প্রদান, ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার (কডলিভার অয়েল, ফিস মিল) প্রদান করতে হবে।

ভিটামিন ই : এনসেফালোম্যালাশিয়া রোগ হয়, পক্ষাঘাতের ফলে চলতে অসঙ্গতি দেখা দেয়। বুক ও পেটের নিচে তরল পদার্থ জমে, ইডিমা হয়। ডিমের উর্বরতা কমে যায়।

সেলিনিয়ামসহ ভিটামিন ই প্রদান করতে হবে। ভিটামিন ই সমৃদ্ধ খাবার (শস্য দানা, গম, চাউলে কুড়া, শুটকি মাছ) খাওয়াতে হবে।

ভিটামিন কে : রক্তক্ষরণের কারণে রক্তশূন্যতা দেখা দেয়।

ভিটামিন কে প্রিমিক্স ও মিনারেল প্রদান। ভিটামিন কে সমৃদ্ধ খাদ্য প্রদান (সবুজ শাকসবজি ও মাছের গুঁড়া)।

ভিটামিন বি ১ : পা, ডানা ও ঘাড়ে পক্ষাঘাত হয়। ঘাড়ের পক্ষাঘাতের ফলে ঘাড় পেছন দিকে করে আকাশের দিকে মুখ করে থাকে, চলনে অসঙ্গতি পরিলক্ষিত হয়। ভিটামিন বি ১ সমৃদ্ধ প্রিমিক্স ও মিনারেল প্রদান (চাউলের কুড়া, গমের গুঁড়া, শাক সবজি)

ভিটামিন বি ২ : ছানার পা পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়। পরে নখ বা আঙ্গুল বাঁকা হয়ে যায়। ছানার দৈহিক বৃদ্ধি ব্যাহত হয়।

ভিটামিন বি ২ সমৃদ্ধ প্রিমিক্স ও মিনারেল (সবুজ শাক সবজি, ছোলা, খৈল, আলফা-আলফা, ঈষ্ট)

ভিটামিন বি ৬ : ক্ষুধামন্দ্যা দেখা দেয়। ছানার বৃদ্ধি ব্যাহত হয়। প্যারালাইসিস ও পেরোসিস হতে পারে। ভিটামিন বি ৬ সমৃদ্ধ প্রিমিক্স ও মিনারেল (শস্য, মাছের গুঁড়া, আলফা-আলফা, ঈষ্ট ইত্যাদি)

ভিটামিন বি ১২ : বৃদ্ধি ব্যাহত হয় ও রক্তশূন্যতা দেখা দেয় ডিমের উর্বরতা হ্রাস পায়। ভিটামিন বি ১২ সমৃদ্ধ প্রিমিক্স ও মিনারেল প্রদান। ভিটামিন বি ১২ সমৃদ্ধ খাদ্য প্রদান (যকৃত, মাংস ফিসমিল ইত্যাদি)

ফলিক এসিড : রক্তশূন্যতা দেখা দেয়। বৃদ্ধি ব্যাহত হয় ও পালক কম গজায়। ০.০১৪ মিগ্রা প্রতিদিনের প্রয়োজন। ফলিক এসিড সমৃদ্ধ প্রিমিক্স ও সাথে ম্যানগানিজ (সহ) প্রদান করতে হবে। ফলিক এসিড সমৃদ্ধ খাদ্য প্রদান (যকৃত, ঈষ্ট)।

ম্যানটোথেনিক এসিড : বৃদ্ধি ব্যাহত হয় ও চর্ম রোগ হয়। পা ও চোখের চারিপাশে নেক্রোসিস হয়। ডিমের উর্বরতা হ্রাস। ০.৩৬ মিগ্রা প্রতিদিনের প্রয়োজন। প্যানটোথেনিক এসিড সমৃদ্ধ ভিটামিন প্রদান (চীনাবাদাম, আখের গুড়, ঈষ্ট, চাউলের কুড়া, গমের ভূষি ইত্যাদি)

বায়োটিন : পেরোসিস, ডিমের উর্বরতা হ্রাস ও চর্ম প্রদাহ দেখা দেয়। ০.০০২ মিগ্রা প্রতিদিনের প্রয়োজন। বায়োটিন সমৃদ্ধ ভিটামিন ও খাদ্য প্রদান।

খনিজ পদার্থ (সোডিয়াম, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, আয়োডিন, ম্যানগানিজ, কপার এন্ড কোবাল্ট, আয়রন : হাড় গঠন ও বৃদ্ধি ব্যাহত হয়। ডিমের খোসা নরম হয়। রক্তশূন্যতা দেখা দেয়। পেরোসিস ও প্যারালাইসিস হয়।

পাখিকে নিয়মিত ভিটামিন, খনিজ সমৃদ্ধ প্রিমিক্স ও খাদ্য প্রদান করতে হবে।

এমাইনোএসিড

আমিষ বিভিন্ন প্রকার এমাইনো এসিড সরবরাহ করে যা দেহ গঠনের জন্য অত্যাবশ্যক। সুতরাং পাখিকে এমাইনো এসিড সমৃদ্ধ খাদ্য (শুটকি মাছের গুড়া, সরিষা, তিল ও চীনাবাদামের খৈল) সরবরাহ করতে হবে।

অর্থসংবাদ/এসআর

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।