এ বছর আর হচ্ছে না বিপিএল

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২০-১০-১১ ২২:২৫:৩২

চলছে ওয়ানডে ফরম্যাটের বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ, পরিকল্পনায় রয়েছে পাঁচ দলের টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট আয়োজনের। এ দুটো সফলভাবে শেষ করতে পারলে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ (ডিপিএল) আয়োজনের ব্যাপারেও আশাবাদী বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড; কিন্তু কোথাও শোনা যাচ্ছে না, বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) কথা।

বিসিবি কি আদৌ ভাবছে বিপিএলের অষ্টম আসর আয়োজন নিয়ে? নাকি করোনাভাইরাসের কারণে হারিয়ে যাবে ২০২০ সালের বিপিএল? নাকি সর্বশেষ আসরের মতো ডিসেম্বর-জানুয়ারি মিলিয়ে করা হবে বিপিএলের পরবর্তী আসর? এ নিয়ে ধোঁয়াশা ছিল প্রচুর। জানা ছিল না কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য। অবশেষে বোর্ডের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিলেন সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

বিপিএল নিয়ে কোনো চিন্তাভাবনা আছে কি বোর্ডের? এমন প্রশ্নের জবাবে সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সাফ জবাব, ‘এ বছর তো আর হচ্ছে না। সামনের বছরেরটা দেখা যাবে। সেটাও পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করবে। কোনো খেলাই আমরা বাদ দিতে চাচ্ছি না। আমরা সবগুলোই ফেরাতে চাচ্ছি। কিন্তু সবকিছুই আসলে পরিস্থিতির ওপর।’

প্রেসিডেন্টস কাপ, টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট কিংবা ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের ব্যাপারে আশাবাদী হলেও বিপিএলের সম্ভাবনা সরাসরি উড়িয়ে দেয়ার কারণটাও ব্যাখ্যা করেন পাপন। বিপিএলে সব দলে অন্তত ৭-৮ জন করে আসেন বিদেশি খেলোয়াড়। করোনা পরিস্থিতির কারণে ঠিক কতজন খেলোয়াড়কে পাওয়া যাবে কিংবা তাদের কোয়ারেন্টাইনে রাখার বিষয়টাও খুব জটিল।

পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার আগে বিপিএল আয়োজনের চিন্তা নেই বোর্ডের। আজ (রোববার) প্রেসিডেন্টস কাপের দ্বিতীয় ইনিংস চলাকালীন করা সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে কথা বলেন বিসিবি সভাপতি। যেখানে বিপিএল ছাড়াও উঠে এসেছে দেশে ক্রিকেট ফেরানো নিয়ে বিসিবির বিস্তারিত পরিকল্পনা।

বিপিএলের সম্ভাবনা নাকচ করে দেয়ার কারণ হিসেবে পাপনের ভাষ্য, ‘বিপিএল আয়োজন করতে হলে বিদেশি খেলোয়াড় অবশ্যই রাখতে হবে। তাদের নিরাপত্তার বিষয় আছে। এছাড়া টিভি প্রোডাকশনেরও একটি বিষয় আছে। বিপিএলে খেলোয়াড় সংখ্যা, টিম ম্যানেজম্যান্ট- সবই অনেক বেশি। এটা সামাল দেয়া যাবে কি না তা এখনই বলা সম্ভব নয়।’

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।