মার্চেন্ট বে বাংলাদেশে প্রথমবারের মত নিয়ে আসছে “ডিজিটাল ট্রেড উইক”

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২০-১০-০১ ১৭:২৭:৪৫

আগামীর প্রধান বৈশ্বিক বাণিজ্য পদ্ধতি যে ডিজিটাল ও অনলাইনভিত্তিক হবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ডিজিটাল ট্রেডের সুবিধা নিয়ে বিশ্ব বাজারে বিস্তার লাভ করেছে। বৈশ্বিক ডিজিটাল ট্রেডের এই ধারায় বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো “ডিজিটাল ট্রেড উইক” এর আয়োজন করতে যাচ্ছে মার্চেন্ট বে।

তারই অংশ হিসেবে আগামী ১৫ অক্টোবর থেকে ২১ অক্টোবর ৭ দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে “ডিজিটাল ট্রেড উইক”। এই ট্রেড উইকে বাংলাদেশের সাপ্লায়ার ও আন্তর্জাতিক ক্রেতারা ভার্চুয়াল্লি মিলিত হবেন। এই ডিজিটাল ট্রেড উইকে মার্চেন্ট বে বিশ্বের কাছে বাংলাদেশের সঙ্গে ডিজিটাল বাণিজ্যের সুযোগ প্রচার করবে। এই পুরো সপ্তাহে বাংলাদেশের থেকে সঠিক ধরণের সাপ্লায়ারদের খুঁজে পেতে এবং ব্যবসায়ের সুযোগ আরও ভালভাবে খতিয়ে দেখতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে অসংখ্য ক্রেতা আসবেন। মার্চেন্ট বে বায়ারদের কাছে ভেরিফায়েড সাপ্লায়ারদের প্রমোট করবে এবং বায়ারদের বাংলাদেশের মার্কেট ও সাপ্লায়ারদের ভালভাবে বুঝতে সহায়তা করবে।

ডিজিটাল ট্রেড উইকের সাতদিনই বিভিন্ন ধরনের সেশানে অংশ নেবেন দেশ বিদেশের বক্তারা। সেখানে ইন্ডাস্ট্রি লিডাররা ডিজিটাল ট্রেড, লিডারশিপ এবং বাংলাদেশের পোশাক শিল্প নিয়ে মূল্যবান তথ্য এবং আলোচনা উপস্থাপন করবে।

ডিজিটাল ট্রেড উইক সম্পর্কে মার্চেন্ট বে’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবরার হোসেন সায়েম বলেন, “তৈরি পোশাক খাতে ডিজিটাল ট্রেড উইক বাংলাদেশে এই প্রথম। এখানে অংশগ্রহণের রেজিট্রেশনের জন্য আলাদা কোনো ফি প্রদানের প্রয়োজন নেই। এখানে অংশগ্রহণের মাধ্যমে একজন সাপ্লায়ার বিশ্বের ৫০টি দেশের অসংখ্য ক্রেতাদের সঙ্গে সংযুক্ত হতে পারবেন। সাপ্লায়াররা যাতে ক্রেতাদের সঙ্গে সংযুক্ত হতে পারে সেজন্য প্রতি সাপ্লায়ারের সঙ্গে একজন সাকসেস ম্যানেজার নিয়োগ করে দেওয়া হবে। সাকসেস ম্যানেজার একজন সাপ্লায়ারের প্রোডাক্ট, ফ্যাক্টরি ক্যাপাসিটি ও অন্যান্য বিষয় বিবেচনায় নিয়ে ক্রেতাদের ম্যাচ করাবে এবং তাদের সাথে সংযুক্ত করে দিবে।”

তবে ডিজিটাল ট্রেড উইকে অংশ নেওয়ার সুযোগ পেতে হলে একজন সাপ্লায়ারকে তার তথ্য ভেরিফাই করে নিতে হবে। কেবল মার্চেন্ট বে’র দ্বারা ভেরিফায়েড সাপ্লায়াররা ডিজিটাল ট্রেড উইকে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। যাচাই করার জন্য নিজেদের প্রোফাইল থেকেই আবেদন করা যাবে। আবেদনের ভিত্তিতে মার্চেন্ট বে’র একজন প্রতিনিধি যাচাইকৃত প্রোটোকল অনুযায়ী সাপ্লাইয়ারদের দেওয়া তথ্য খতিয়ে দেখবেন। এরপর ওই সাপ্লাইয়ারকে ভেরিফায়েড ব্যাজ প্রদান করা হবে। ভেরিফায়েড সাপ্লায়ারদের প্রোডাক্ট ও প্রোফাইল সাকসেস ম্যানেজারের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী বায়ারদের কাছে প্রচার করা হবে।

বায়ারদের ক্ষেত্রেও মার্চেন্ট বে-তে রেজিস্ট্রেশনের জন্য কোনো ফি নেই। সিম্পল সাইন-আপের মাধ্যমে বায়াররা ডিজিটাল ট্রেড উইকে মার্চেন্ট বে’র ভেরিফায়েড সাপ্লাইয়ারদের সাথে সংযুক্ত হতে পারবেন।”

ইতোমধ্যে মার্চেন্টবে ডিজিটাল ট্রেড উইকের সঙ্গে স্ট্র্যাটেজিক পার্টনার হিসেবে যুক্ত হয়েছে জুনিয়ার চেম্বার ইন্টারন্যাশনাল (জেসিআই), বাংলাদেশ। জেসিআইয়ের ১০০+ দেশের দুই লাখের বেশি সদস্যকে ডিজিটাল ট্রেড উইকে ভিজিট করতে আমন্ত্রণ জানাবে জেসিআই বাংলাদেশ। তারা বাংলাদেশের সঙ্গে ব্যবসার সুযোগ খতিয়ে দেখবেন।

উল্লেখ্য, গত ২৬শে সেপ্টেম্বর এক ওয়েবিনারে উদ্বোধনের মাধ্যমে মার্চেন্ট বে তাদের যাত্রা শুরু করে। মার্চেন্ট বে একটি অনলাইন ভিত্তিক-বিটুবি ট্রেড প্লাটফর্ম। ট্রেড ডিজিটাইজেশান, সোর্সিং ডিজিটাইজেশান, উৎপাদন মনিটরিং নিয়েই মার্চেন্ট বের কাজ। ফ্যাক্টরি ও ক্রেতা উভয়ের পক্ষেই সোর্সিং সহজ করে সাপ্লাই চেইনের ডিজিটাইজেশন নিশ্চিত করতে মার্চেন্ট বে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

 

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।