Connect with us

সারাদেশ

কক্সবাজারে বিজিবি ও বিজিপির মধ্যে দু’দিনের সীমান্ত সম্মেলন সম্পন্ন

Published

on

কিউআই

কক্সবাজারের টেকনাফে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপির) মধ্যে রিজিয়ন কমান্ডার পর্যায়ে দু’দিনের সীমান্ত সম্মেলন শেষ হয়েছে।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর রিজিয়ন কমান্ডার পর্যায়ের দু’দিনব্যাপী সীমান্ত সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘটে।

সম্মেলনে মাদক পাচার, অবৈধ অনুপ্রবেশ, আন্ত:রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসবাদ, সীমান্ত নিরাপত্তা, তথ্য বিনিময়, সমন্বিত টহল, পারস্পরিক আস্থা বৃদ্ধি ইত্যাদি বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

এতে বিজিবির ১৫ সদস্যের প্রতিনিধি দলে নেতৃত্ব দেন বিজিবি’র কক্সবাজার রিজিয়নের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজম-উস-সাকিব।

এতে বিজিবি’র উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ ছাড়াও স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধিবৃন্দ অন্তর্ভুক্ত ছিলেন।

অন্যদিকে মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশের বিগ্রেডিয়ার জেনারেল হেটেট লুইন এর নেতৃত্বে ১৬ সদস্যের মিয়ানমার প্রতিনিধি দল সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেন।

এর আগে বুধবার সম্মেলনে অংশগ্রহণের জন্য মিয়ানমার প্রতিনিধিদল নৌপথে শাহপরীরদ্বীপ জেটিঘাট হয়ে টেকনাফে আসে। মিয়ানমার প্রতিনিধিদল বাংলাদেশে পৌঁছালে বিজিবি’র পক্ষ থেকে তাদেরকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও অভ্যর্থনা জানানো হয়।

এসময় বিজিবি’র একটি সুসজ্জিত দল মিয়ানমার প্রতিনিধিদলের প্রধানকে ‘গার্ড অব অনার’ প্রদান করে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

সারাদেশ

ক্যাম্পে ৫ রোহিঙ্গাকে অপহরণ

Published

on

কিউআই

কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে পাঁচজন রোহিঙ্গা যুবককে অপহরণ করেছে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা। শুক্রবার রাত ৮টার দিকে টেকনাফের ২৫ নম্বর আলীখালি ক্যাম্পের ডি/২০ ব্লকের রহিম উল্লাহ দোকানের সামনে থেকে তাদের অপহরণ করে নিয়ে যায়।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

শনিবার (৩জুন) বিকেলে মুঠোফোনে অপহরণের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ১৬ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের উপ-অধিনায়ক পুলিশ সুপার (মিডিয়া) জামাল পাশা।

অপহৃতরা হলেন-টেকনাফের ২৫ নম্বর ক্যাম্পের আলীখালী ব্লকের ডি/২২-এর নূর হোসেনের ছেলে মোহাম্মদ ইউনুস (৩২), একই ক্যাম্পের সামসু আলমের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (১৬), মোহাম্মদ রফিকের ছেলে মোহাম্মদ সুলতান (২৪), আব্দুর রহমানের ছেলে আবদুল্লাহ (১৬) ও মোহাম্মদ সৈয়দের ছেলে আনোয়ার ইসলাম (১৮)।

জামাল পাশা বলেন, শুক্রবার রাত ৮টার দিকে অজ্ঞাত অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা ২৫ নম্বর ক্যাম্পের বসবাসরত পাঁচজন রোহিঙ্গা যুবককে অস্ত্রের মুখে ডি/২০ ব্লকের রহিম উল্লাহ (৩২) নামে একজন রোহিঙ্গার দোকানের সামনে থেকে মুখোশ পরিহিত অবস্থায় অপহরণ করে নিয়ে যায়।

ওই ক্যাম্পের মাঝি নুরুল আমিন বলেন, ঘটনার একদিন পার হলেও এখন পর্যন্ত অপহৃতদের কোনো খোঁজ খবর পাওয়া যায়নি । তবে অপহরণের ঘটনাটি তাদের পরিবার আলিখালী এপিবিএন পুলিশ ক্যাম্পে অবগত করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

১৬ এপিবিএন এর পুলিশ সুপার জামাল পাশা আরও জানান, রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরাই এ অপহরণ করতে পারে৷ তাদের বিষয়ে খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিষয়ে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল হালিম বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অপহরণের বিষয়ে কোনো এখনো পাইনি। এবিষয়ে খোঁজ নেয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

সারাদেশ

মহেশখালীতে অস্ত্রসহ ডাকাত গ্রেপ্তার

Published

on

কিউআই

কক্সবাজারের মহেশখালীতে অস্ত্রসহ নাছির উদ্দীন নামে একাধিক মামলার এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

বৃহস্পতিবার (১ জুন) ভোর সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার মাতারবাড়ি ইউনিয়নের রাঙ্গাখালী মইন্নার ঘোনার খামার বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে ২টি দেশীয় তৈরী পিস্তল ও ১টি লম্বা কিরিচ উদ্ধার করা হয়।

গ্রেপ্তার নাছির উদ্দীন মাতারবাড়ি মাইঝপাড়া গ্রামের আবু ছৈয়দের পুত্র।

পুলিশ জানায়, গ্রেপ্তার নাছির উদ্দীন একজন পেশাদার ডাকাত। সে এলাকায় নাছির ডাকাত নামে পরিচিত।

মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রনব চৌধুরী জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাতারবাড়ি ক্যাম্পের এসআই মোহাম্মদ ইমরান হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশদের একটি দল নাছির ডাকাতকে গ্রেপ্তার করে। তার বিরুদ্ধে হত্যা, ডাকাতি, অস্ত্র, পুলিশ আক্রান্ত মামলাসহ মোট ৫টি মামলা বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন আছে।

তিনি আরও জানান, নাছির ডাকাতকে গ্রেপ্তারের পর এলাকার মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

সারাদেশ

মহেশখালীতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাড়ি খাদে, চালক নিহত

Published

on

কিউআই

কক্সবাজারের মহেশখালীতে একটি যাত্রীবাহী টমটম (ব্যাটারিচালিত রিকশা) খাদে পড়ে চালক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছে আরও এক মহিলাযাত্রী। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

বৃহস্পতিবার (১ জুন) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার বড় মহেশখালী ইউনিয়নের মাহারাপাড়াস্থ ইউসুফ নুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে প্রধান সড়কে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত চালকের নাম নুরুল হাসেম (৩৮)। তিনি বড়মহেশখালী ইউনিয়নের গুলগুলিয়া পাড়া গ্রামের নুরুল ইসলামের পুত্র। আর আহত মহিলার নাম সালমা খাতুন (৫০), তিনি নতুন বাজার এলাকার আবুল খায়েরের স্ত্রী।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ প্রনব চৌধুরী বলেন, উপজেলার নতুন বাজার থেকে যাত্রী নিয়ে টমটমটি পানির ছড়া বাজারের দিকে যাচ্ছিল। এসময় এক মাদরাসার ছাত্র রাস্তা পার হচ্ছিল। তাকে বাঁচাতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাতে পড়ে উল্টে যায় টমটমটি। এসময় চালক ও এক যাত্রীকে মুমূর্ষু অবস্থায় মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক চালক নুরুল হাসেমকে মৃত ঘোষণা করেন এবং সালমা খাতুন মাথায় গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

নিহতের শ্যালক ওসমান গনি জানান, মরদেহ হাসপাতাল থেকে বাড়িতে নেয়া হয়েছে। দুর্ঘটনার বিষয়ে তাদের কোন অভিযোগ নেই।

মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ প্রনব চৌধুরী আরো জানান, দুর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এই বিষয়ে নিহতের পরিবারের কোন অভিযোগ না থাকায় মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

সারাদেশ

চকরিয়ায় পুকুরে ডুবে প্রাণ গেল শিশুর

Published

on

কিউআই

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার চিরিংগা ইউনিয়নের বুড়ি পুকুর এলাকায় পুকুরে পানিতে পড়ে মোহাম্মদ মোস্তাকিম (২) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

বুধবার (৩১ মে) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে বুড়িপুকুর ৪নং ওয়ার্ড পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। শিশু মোস্তাকিম ওই এলাকার জয়নাল আাবেদীনের পুত্র।

নিহতের স্বজন যুবলীগনেতা অহিদুজ্জামান অহিদ জানান, মোস্তাকিমকে ঘরে দেখতে না পেয়ে পরিবারের সবাই সবখানে খোঁজাখুঁজি করে পায়নি। পরে পাশ্ববর্তী চাচার পুকুরের পানিতে ভাঁসতে দেখে তার চাচী। ছেলেটি ওই পরিবারের একমাত্র সন্তান ছিলেন।

এ বিষয়ে চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা চন্দন কুমার চক্রবর্তী জানান, একটি শিশু পুকুরে পড়ে মৃত্যু হয়েছে জেনেছি। বিষয়টি নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

সারাদেশ

টেকনাফে অস্ত্র ও ইয়াবাসহ আটক ২

Published

on

কিউআই

কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গা ডাকাত সর্দার নূর কামাল সহ ও তার সহযোগী কে অস্ত্র,গুলি, ইয়াবাসহ আটক করেছে র‍্যাব। বুধবার (৩১ মে) দুপুর দেড় টার দিকে টেকনাফে জাফর মার্কেট মাদক উদ্ধার অভিযানে তাদের আটক করা হয়।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

আটকৃতরা হলেন, উপজেলার নয়াপাড়া মোছনী ক্যাম্প-২৬ এর আবুল কালামের ছেলে নূর কামাল ওরফে মো.সলিম (২২)। উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের নাজির আহমদের ছেলে মো. ইসমাইল (২১)

র‍্যাবের পক্ষ থেকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন র‍্যাব-১৫ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামসুল আলম খান

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি, উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের ফাজর মার্কেট বাজারের মা মেডিকো ঔষধের দোকানের সামনে পাকা রাস্তার উপর কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী মাদক বিক্রয়ের উদ্দেশ্য অবস্থান করছে। এমন সংবাদে র‍্যাবের চৌকস দল ঘটনা স্থলে অভিযান চালিয়ে রোহিঙ্গাসহ দুই জন মাদক কারবারি কে আটক করা হয়েছে। এসময় তাদের দেহ ও সাথে থাকা ব্যাগ তল্লাশি করে দুই টি ওয়ান শুটারগান তিন রাউন্ড কার্তুজ দুইটি গুলির খোসা এবং ৫০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানান, আটক রোহিঙ্গা কামাল ওরফে সলিম রোহিঙ্গার একজন কুখ্যাত ডাকাত সর্দার। সে টেকনাফের পাহাড় কেন্দ্রিক অপহরণের মূলহোতা এবং ভয়ংকর কিশোর গ্যাংয়ের পরিচালনা করে । তারা মাদক সেবন, কেনাবেচা, অপহরণ, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি, খুন ও ধর্ষণসহ বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত রোহিঙ্গা সলিম ও তার সহযোগীরা অস্ত্রের মুখে সাধারণ রোহিঙ্গা নাগরিক ও স্থানীয়দের জিম্মি রেখে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আদিপত্য বিস্তার করে আসছিল বলে স্বীকার করে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শামসুল আলম আরো জানান, তারা পরস্পর যোগসাজশে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর গ্রেপ্তার এড়াতে বিভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করে নানা রকম অপরাধ মূলক কার্যক্রমের পাশাপাশি অবৈধভাবে সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে মাদক সংগ্রহ করে কক্সবাজার সহ বিভিন্ন এলাকায় মাদক বিক্রি করে আসছে। আজ অস্ত্র, কার্তুজ ও ইয়াবা সহ ডাকাত সর্দার নূর কামাল ও তার সহযোগী র‍্যাবে কাছে আটক হয়।

উদ্ধারকৃত অস্ত্র, কার্তুজ ও ইয়াবা সহ তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য টেকনাফ মডেল থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে জানান র‍্যাবের এই কর্মকর্তা।

শেয়ার করুন:-
অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনো সংবাদ বা কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন
Advertisement
Advertisement
June 2023
SMTWTFS
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930