১,৭৯৫ কোটি টাকার ১০ ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২০-০৯-০৩ ১৪:৪৮:৩০

সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ২১তম সভায় এক হাজার ৭৯৫ কোটি ১৬ লাখ ১২ হাজার ২২২ টাকা ব্যয়ে মোট ১০টি প্রস্তাব অনুমোদিত হয়েছে। অনুমোদিত প্রস্তাবে জিওবি ৬৩০ কোটি ৬৮ লাখ ১৪ হাজার ৮৮৫ টাকা এবং বেসরকারি খাত থেকে ১ হাজার ১৬৪ কোটি ৪৭ লাখ ৯৭ হাজার ৩৩৭ টাকা নির্বাহ করা হবে। গতকাল অর্থ মন্ত্রণালয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামালের সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় অনুমোদিত প্রস্তাবগুলো হলো কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) কর্তৃক ১.৫০ (৫%+) লাখ টন টিএসপি সার ৪০০ কোটি ২৬ লাখ ৯৯ হাজার ৫৮৫ টাকায় মরক্কো থেকে আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে এবং কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) কর্তৃক ২.১০ (৫%+) লাখ টন ডিএপি সার ৬৯৫ কোটি ৬৮ লাখ ৬৯ হাজার ৮১৫ টাকায় মরক্কো থেকে আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন (বিসিআইসি) কর্তৃক কাফকো, বাংলাদেশ থেকে ৩০ হাজার টন ব্যাগড গ্র্যানুলার ইউরিয়া সার ৬৮ কোটি ৫২ লাখ ২৭ হাজার ৯৩৭ টাকায় ক্রয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

সেতু বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে পিপিপি প্রকল্পের ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের জন্য বহুতল বিশিষ্ট ভবন (এ+১৪) ও অন্যান্য স্থাপনা নির্মাণের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ডিডিসি লিমিটেডের চুক্তির মেয়াদ সেপ্টেম্বর ২০২২ পর্যন্ত ২৪ মাস বৃদ্ধির প্রস্তাব অনুমোদিত হয়েছে। এতে ভেরিয়েশন বাবদ অতিরিক্ত খরচ হবে ৬ কোটি ২৩ লাখ ৭০ হাজার ৩৩৫ টাকা। ভেরিয়েশনের কারণ: অতিরিক্ত কাজ হিসেবে মূল প্রকল্পের ক্ষতিগ্রস্ত একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ১২টি মসজিদ এবং অতিরিক্ত তিনটি বহুতল ভবনের ডিজাইন ও নির্মাণকাজ তদারকি।

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের আওতায় গণপূর্ত অধিদপ্তর কর্তৃক রাজারবাগ পুলিশ লাইনস ঢাকায় ২০তলা আবাসিক ভবন নির্মাণকাজের জন্য অনুমোদন করা হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৮২ কোটি ৬৩ লাখ ২১ হাজার ৬২৫ টাকা। এতে পুলিশের আবাসন সমস্যা কিছুটা লাঘব হবে। এছাড়া গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের আওতায় গণপূর্ত অধিদপ্তর কর্তৃক চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন এলাকায় দ্বিতীয় পুলিশ লাইনস ২০তলা আবাসিক ভবন নির্মাণকাজের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৮১ কোটি ৪৫ লাখ ৩৪ হাজার ১৮৯ টাকা।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের আওতায় মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন মোংলা বন্দর চ্যানেলের আউটারবার নামক স্থানে প্রকল্প এলাকায় প্রায় ৪১.৯৫ লাখ ঘনমিটার অতিরিক্ত ড্রেজিং করার জন্য সংশোধিত চুক্তি সম্পাদনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে ভেরিয়েশন বাবদ অতিরিক্ত ব্যয় হবে ৮৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকা।

এছাড়া বিদ্যুৎ বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কর্তৃক ‘শতভাগ পল্লী বিদ্যুতায়নের জন্য বিতরণ নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের লক্ষ্যে এক লাখ ১৯ হাজার ২১২টি এসপিসি পোল ক্রয়ের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে মোট ব্যয় হবে ১৫৯ কোটি ৮৯ লাখ ৮১ হাজার ৬১৮ টাকা। এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে রাজশাহী, রংপুর, খুলনা ও বরিশাল অঞ্চলে।

বিদ্যুৎ বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কর্তৃক ‘শতভাগ পল্লী বিদ্যুতায়নের জন্য বিতরণ নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের জন্য ৭৯ কোটি ১৭ লাখ ৬৬ হাজার ১৪০ টাকা ব্যয়ে প্রস্তাব অনুমোদন হয়। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে রাজশাহী, রংপুর, খুলনা ও বরিশাল বিভাগে।

জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের আওতায় পেট্রোবাংলা কর্তৃক ৩৪ লাখ ৯০ হাজার ২০০ এমএমবিটিই এলএনজি ১৩২ কোটি ৯৩ লাখ ৪০ হাজার ৯৭৮ টাকায় ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে।

 

 

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।