Connect with us

অর্থনীতি

জরুরি আমদানি ছাড়া মিলছে না ডলার

Published

on

সিনো বাংলা

ব্যাংকগুলোতে ডলার সংকট আরও প্রকট আকার ধারণ করেছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে ডলারের জোগান কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। জরুরি পণ্য আমদানি ছাড়া কেন্দ্রীয় ব্যাংক ডলার ছাড়ছে না। শুধু ভোগ্যপণ্য, শিশুখাদ্য, ওষুধ, জ্বালানি ও শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে ডলারের জোগান দেওয়া হচ্ছে। এর বাইরে অন্য পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলোকে নিজস্ব উদ্যোগে ডলারের সংস্থান করে এলসি খুলতে হবে। এমনকি আগে নেওয়া স্বল্পমেয়াদি বৈদেশিক ঋণের কিস্তি পরিশোধেও কেন্দ্রীয় ব্যাংক ডলার দেওয়া হচ্ছে না। এসব খাতে ডলারের চাহিদা ব্যাংকগুলোকেই মেটাতে হবে। এদিকে ব্যাংকগুলোর কাছে চাহিদা অনুযায়ী ডলারের জোগান না থাকায় আমদানির এলসি খোলা যাচ্ছে না। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ধরে রাখতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক এসব পদক্ষেপ নিয়েছে।

সূত্র জানায়, রিজার্ভ অব্যাহতভাবে কমে যাচ্ছে। আগে এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়নের (আকু) দেনা বাবদ একসঙ্গে মোটা অঙ্কের দেনা পরিশোধের পর রিজার্ভ কমে গিয়ে আবার কিছুদিনের মধ্যেই বেড়ে যেত। এখন আর সেটি হচ্ছে না। উলটো আকুর দেনা পরিশোধ ছাড়াই দৈনন্দিন দেনা পরিশোধ করতেই রিজার্ভ কমে যাচ্ছে। প্রতি দুই মাসে গড়ে রিজার্ভ ২০০ কোটি ডলার করে কমছে। এভাবে কমে এখন রিজার্ভ দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ২২০ কোটি ডলারে। এ থেকে বিভিন্ন তহবিলে বরাদ্দ ৮০০ কোটি ডলার বাদ দিলে নিট রিজার্ভ থাকছে ২ হাজার ৪২০ কোটি ডলার। যা দিয়ে সাড়ে তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব। মার্চের প্রথম সপ্তাহেও আবারও আকুর দেনা বাবদ ১১০ কোটি ডলারের বেশি পরিশোধ করতে হবে। এর আগে আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিল থেকে ঋণের প্রথম কিস্তি বাবদ সাড়ে ৪৫ কোটি ডলার পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু এতে রিজার্ভের চাপ খুব বেশি কমবে না। তবে বিশ্বব্যাংকসহ অন্যান্য সংস্থার ঋণ পাওয়া গেলে চাপ কিছুটা কমতে পারে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক বৈদেশিক মুদ্রা আয়-ব্যয়ের ক্ষেত্রে নতুন কৌশল নিয়েছে। তারা রপ্তানি ও রেমিট্যান্স দিয়ে আমদানি ব্যয় মেটাতে চাচ্ছে। আগে এই আয়-ব্যয়ের মধ্যকার ঘাটতি ছিল ২৩০ কোটি ডলার। গত নভেম্বরে এ ঘাটতি ১০০ কোটি ডলারে নেমে এসেছে। ডিসেম্বরে এ ঘাটতি আরও কমেছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক আশা করছে রপ্তানি মার্চের মধ্যে বৈদেশিক মুদ্রা আয় ও ব্যয় সমান হবে। তখন রিজার্ভের ওপর চাপ আরও কমবে।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

এ পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক আমদানি আরও কমাতে চাচ্ছে। তারা আমদানির যে পূর্বাভাস দিয়েছে তাতে আগামী মার্চ পর্যন্ত নতুন এলসি খোলা গড়ে ৪৫০ কোটি ডলারের মধ্যে নামিয়ে আনবে। নভেম্বরে নতুন এলসি খোলা ৪৬৩ কোটি ডলারে নামিয়ে আনতে পারলেও ডিসেম্বরে তা বেড়ে ৫০০ কোটি ডলারে উঠেছে। এখন রোজার ও জ্বালানি পণ্য আমদানির এলসি খোলা বেড়েছে। বিশেষ করে চার মাস বন্ধ থাকার পর গ্যাস আমদানির এলসি খোলার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ভারত থেকে বিদ্যুৎও আমদানি করা হবে। এসব কারণে এলসি খোলা আবার বেড়ে যাবে। এলসি বাড়লে রিজার্ভেও চাপ বাড়বে।

বর্তমানে আমদানি কমাতে রোজানির্ভর ভোগ্যপণ্য, শিশুখাদ্য, ওষুধ, সার, জ্বালানি ও শিল্পের কাঁচামাল ছাড়া অন্য কোনো খাতে ডলারের জোগান দেওয়া হচ্ছে। এসব পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংক রিজার্ভ থেকে ডলার দিচ্ছে। এর বাইরে দিচ্ছে না। বাণিজ্যিক পণ্য আমদানি করতে ব্যাংকগুলোকে নিজস্ব উদ্যোগে ডলারের সংস্থান করতে হবে। বছরে প্রায় ৬০০ থেকে ৭০০ কোটি ডলারের বাণিজ্যিক পণ্য আমদানি হয়। শিল্পের যন্ত্রপাতি আমদানি হয় ৯০০ থেকে হাজার কোটি ডলারের। এসব খাতে ডলার মিলছে না। রপ্তানি করে যে ডলার পাওয়া যাচ্ছে তার প্রায় পুরোটাই রপ্তানিকারকরা কাঁচামাল ও তাদের আনুষঙ্গিক পণ্য আমদানিতে ব্যয় হচ্ছে। রেমিট্যান্সের যে ডলার পাওয়া যাচ্ছে তা দিয়ে ব্যাংকগুলো বাণিজ্যিক পণ্য আমদানির এলসি খুলছে ও আগের ঋণ শোধ করছে। কিন্তু রেমিট্যান্স প্রবাহ চাহিদার তুলনায় বাড়ছে খুবই কম। যে জন্য ব্যাংকে ডলার সংকটও প্রকট। এ সংকট মেটাতে এখন ব্যাংকগুলো চড়া দামে রেমিট্যান্সের ডলার কিনছে। এ ক্ষেত্রে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর শীর্ষ নির্বাহীদের সংগঠন বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাফেদা) বেঁধে দেওয়া দরও কার্যকর হচ্ছে না। বাফেদা রেমিট্যান্সে কেনার সর্বোচ্চ দর ১০৭ টাকা বেঁধে দিয়েছে। কিন্তু কিছু দুর্বল ব্যাংক ১১২ থেকে ১১৪ টাকা করেও রেমিট্যান্স কিনছে। ফলে প্রবাসীরা বাড়তি দাম পেয়ে ছোট ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছেন বেশি। এতে সাম্প্রতিক সময়ে ছোট ব্যাংকগুলোতে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়ে গেছে। অপেক্ষাকৃত বড় ব্যাংকগুলোর যাদের বিভিন্ন দেশে বড় নেটওয়ার্ক রয়েছে তাদের রেমিট্যান্স কমে গেছে। বেশি দামে রেমিট্যান্স কেনায় তারা আমদানির জন্যও চড়া দামে ডলার বিক্রি করছে। সব মিলে ডলার বাজারে নতুন অস্থিরতা দেখা দিয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদন থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা যায়, প্রতি মাসে রেমিট্যান্স আসছে ১৭০ কোটি ডলার। রপ্তানি আয় বাবদ আসছে ৫৩৬ কোটি ডলার। দুটো মিলে ডলার আসছে ৭০৬ কোটি ডলার। এর বাইরে বৈদেশিক অনুদান আসছে ৩৬ কোটি ডলার। বৈদেশিক বিনিয়োগ ১৫ কোটি ডলার। সব মিলে বৈদেশিক মুদ্রা মাসে আয় হচ্ছে ৭৫৭ কোটি ডলার। নভেম্বরে আমদানি ব্যয় হয়েছে ৭০৪ কোটি ডলার। ডিসেম্বরে তা আরও বেড়েছে। এর বাইরে শেয়ারবাজার থেকে বিদেশে পুঁজি প্রত্যাহার হচ্ছে মাসে গড়ে ৪৩ লাখ ডলার। বৈদেশিক ঋণ পরিশোধে ব্যয় হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ কোটি ডলার। এর বাইরে বিদেশ ভ্রমণ, চিকিৎসা ও শিক্ষা খাতেও ডলারের ব্যয় বাড়ছে। সব মিলে ঘাটতি থেকেই যাচ্ছে।

এ ঘাটতি বৈদেশিক স্বল্পমেয়াদি ঋণ নিয়ে এবং আগের ঋণ পরিশোধের মেয়াদ বাড়িয়ে এখন সমন্বয় করা হচ্ছে। কিন্তু নতুন ঋণ ও আগের ঋণ পরিশোধ স্থগিত করায় ডলারের ওপর আগামীতে চাপ আরও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের দাম কমে আসছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে আমদানি ব্যয় কমে যাবে। তখন বৈদেশিক মুদ্রার চাপও কমবে।

অর্থসংবাদ/কেএ

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Advertisement

অর্থনীতি

প্রথম আন্তর্জাতিক হিসাববিজ্ঞান সম্মেলন শুরু ২৮ জানুয়ারি

Published

on

সিনো বাংলা

দেশে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক হিসাববিজ্ঞান সম্মেলন শুরু হচ্ছে আগামী শনিবার (২৮ জানুয়ারি)। রাজধানীর বনানীর হোটেল শেরাটনে দুই দিনব্যাপী এ সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বাংলাদেশ একাউন্টিং এসোসিয়েশন (বিএএ) ও ইন্ডিয়ান একাউন্টিং এসোসিয়েশন রিসার্চ ফাউন্ডেশন (আইএএআরএফ) যৌথভাবে এ সম্মেলনের আয়োজন করছে।

বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) জাতীয় প্রেস ক্লাবের মানিক মিয়া হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান বাংলাদেশ একাউন্টিং এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ড. হারুনুর রশিদ। একাউন্টিং এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. সাইয়েদুজ্জামান, কোষাধ্যক্ষ হায়দার আহমেদ খান এফসিএ, নির্বাহী সদস্য মো. মনিরুজ্জামান, ঢাকা রিজিওনের সভাপতি অধ্যাপক মাসুম রাব্বানী খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয় একাউন্টিং অ্যালামনাই এসোসিয়েশনের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম হাওলাদার এবং ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, দুই দিনব্যাপী সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন সরকারের মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী। প্রথম দিন বিশেষ অতিথি থাকবেন অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন। ২৯ জানুয়ারি সমাপনী অধিবেশনে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, হিসাববিজ্ঞান সম্পর্কিত পেশায় নিয়োজিত ব্যক্তিদের নিয়ে হিসাববিজ্ঞান সেবা উন্নতকরনের মধ্য দিয়ে দেশের শাসনব্যবস্থা উন্নত করা, পেশাভিক্তিক এবং সামাজিক বন্ধন দৃঢ় করা ও দেশ-বিদেশে প্রতিনিধিত্ব করাই অ্যাকাউন্টিং এসোসিয়েশনের মূল লক্ষ্য। এর প্রেক্ষিতে ‘হিসাববিজ্ঞান ও আর্থিক ব্যবস্থাপনার নবতর ইস্যুসমূহে শিক্ষাবিদ ও পেশাজীবিদের ভূমিকা’ প্রতিপাদ্য নিয়ে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক হিসাববিজ্ঞান সম্মেলনের আয়োজন করা হচ্ছে।

এবারের সম্মেলনে উদীয়মান অর্থনীতিতে হিসাববিজ্ঞান শিক্ষা ও গবেষণা, সরকারি আর্থিক ব্যবস্থাপনা, সরকারি প্রতিষ্ঠান ব্যবস্থাপনা, বাণিজ্য জগতের পরিপার্শ্বিক ব্যবস্থাপনা, প্রতিষ্ঠানের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণে ব্যবস্থাপনার ভূমিকা এবং আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকরণসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রায় ৫০টি গবেষণাপত্র প্রকাশ করা হবে।

দুই দিনব্যাপী এ সম্মেলনে আমেরিকান অ্যাকউন্টিং এসোসিয়েশনের প্রাক্তন সভাপতি প্রফেসর ড. শ্যাম সুন্দর এবং আইএএআরএফ সভাপতি প্রফেসর ড. ভবতোষ ব্যানার্জিসহ বিভিন্ন দেশের অতিথিরাও অংশ নেবেন।

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অর্থনীতি

বেপজায় ৬ মিলিয়ন ডলারে নির্মাণ হচ্ছে পোশাক কারখানা

Published

on

সিনো বাংলা

বেপজা অর্থনৈতিক অঞ্চলে ৬.০৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগে একটি তৈরি পোশাক কারখানা স্থাপন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশি কোম্পানি ভাইয়া অ্যাপারেলস লিমিটেড।

বুধবার বাংলাদেশ রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ এলাকা কর্তৃপক্ষ (বেপজা) এবং ভাইয়া অ্যাপারেলস লিমিটেডের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

বেপজার সদস্য (বিনিয়োগ উন্নয়ন) আলী রেজা মজিদ এবং ভাইয়া অ্যাপারেলস লিমিটেড এর চেয়ারম্যান মোঃ শাখাওয়াত হোসেন মামুন নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। বেপজার নির্বাহী চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল আবুল কালাম মোহাম্মদ জিয়াউর রহমান চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান প্রত্যক্ষ করেন।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

দেশীয় এ প্রতিষ্ঠানটি বার্ষিক ৬ মিলিয়ন পিস বিভিন্ন ধরনের জ্যাকেট, ভেস্ট, কাভারঅল, প্যান্ট, শার্ট, সুইমিং ট্রাংক, টি-শার্ট, বক্সার, ট্যাংক টপ প্রভৃতি উৎপাদন করবে। কারখানাটিতে ২২০৬ জন বাংলাদেশি নাগরিকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প নগরে বেপজার সর্ববৃহৎ প্রকল্প বেপজা অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপিত হচ্ছে। একসময়ের জোয়ারের পানিতে তলিয়ে থাকা অনাবাদী এই এলাকা একটি প্রাণচঞ্চল শিল্প এলাকায় পরিণত হতে চলেছে। বেপজা অর্থনৈতিক অঞ্চলে শিল্প স্থাপনের লক্ষ্যে ভাইয়া অ্যাপারেলস লিমিটেডসহ ১৬টি প্রতিষ্ঠানকে অনুমতি দিল বেপজা। প্রতিষ্ঠানসমূহের মোট প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ ৩৭০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বেপজার নির্বাহী পরিচালক (প্রশাসন) মোঃ জাকির হোসেন চৌধুরী, নির্বাহী পরিচালক (জনসংযোগ) নাজমা বিন্তে আলমগীর, নির্বাহী পরিচালক (এন্টারপ্রাইজ সার্ভিসেস) মোঃ খুরশীদ আলম, নির্বাহী পরিচালক নাহিদ মুন্সী, বেপজা অর্থনৈতিক অঞ্চলের প্রকল্প পরিচালক মোঃ এনামুল হক এবং অতিরিক্ত নির্বাহী পরিচালক (বিনিয়োগ উন্নয়ন) মোঃ ফজলুল হক মজুমদার উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অর্থনীতি

রিজার্ভ থেকে ৮৫০ কোটি ডলার বিক্রি

Published

on

সিনো বাংলা

ডলারের তীব্র সংকট দীর্ঘদিন ধরেই। সংকট কাটাতে উচ্চাভিলাসী পণ্য আমদানিতে নিরুৎসাহিত করার পাশাপাশি নানা পদক্ষেপ নিয়েছে কেন্দ্রীয় বাংক। তবে সংকট যে সহসা কাটছে না, এ এখন অনেকটাই স্পষ্ট। এ অবস্থায় বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে প্রতিনিয়ত ডলার সহায়তা দিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। মূলত, জরুরি আমদানির দায় মেটাতেই এ ডলার সহায়তা।

এরপরও আটকে আছে কোটি কোটি টাকার পণ্য। ডলার সংকটে আমদানিকারকদের চাহিদা মেটাতে ব্যর্থ হচ্ছে ব্যাংকগুলো। এসব সমস্যার সমাধান দিতে ২০২২-২৩ অর্থবছরের সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারির ২৩ তারিখ পর্যন্ত) ৮৫০ কোটি বা ৮ দশমিক ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। দেশের ইতিহাসে এর আগে কোনো এক পুরো অর্থবছরেও রিজার্ভ থেকে এতো পরিমাণ ডলার বিক্রি হয়নি।

সবশেষ গত ২০২১-২২ অর্থবছরের পুরো সময়ে রিজার্ভ থেকে ৭ দশমিক ৬২ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ডলার সহায়তা দেওয়ার কারণে রপ্তানি আয় ও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স বাড়ার পরও রিজার্ভ কমছে। সবশেষ গত সোমবার (২৩ জানুয়ারি) বাংলাদেশ ব্যাংক রিজার্ভ থেকে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের কাছে পাঁচ কোটি ডলার বিক্রি করেছে। ফলে দিনশেষে রিজার্ভের পরিমাণ কমে দাঁড়িয়েছে ৩২ দশমিক ৪৭ বিলিয়ন ডলার।

ব্যাংক সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রিতে নতুন রেকর্ড তৈরি হয়েছে। গত ২০২১-২২ অর্থবছরে রিজার্ভ থেকে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ৭৬২ কোটি বা ৭ দশমিক ৬২ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করেছিল। ২০২০-২১ অর্থবছরে ডলারের সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় বাজার থেকে উল্টো প্রায় ৮০০ কোটি বা ৮ বিলিয়ন ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

চলতি অর্থবছরের সাত মাস না পেরোতেই ৮৫০ কোটি বা ৮ দশমিক ৫০ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বিশ্লেষকেরা বলছেন, রেমিটেন্স ব্যাংকিং চ্যানেলে আরও বাড়াতে হবে। পাশাপাশি রপ্তানি বাড়াতে পারলে অভ্যন্তরীণ ডলার সংকট অনেকাংশে কমে আসবে। চলতি মাস জানুয়ারির প্রথম ২০ দিনে দেশে এক হাজার ৩১৫ মিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স এসেছে।

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অর্থনীতি

জানুয়ারির ২০ দিনে রেমিট্যান্স এসেছে ১৪ হাজার কোটি টাকা

Published

on

সিনো বাংলা

ডলার সংকটের মধ্যেই সুবাতাস বইছে প্রবাসী আয়ে। চলতি জানুয়ারি মাসের ২০ তারিখ পর্যন্ত ১৩১ কোটি ৫২ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে দেশে। বাংলাদেশি মুদ্রায় (প্রতি ডলার ১০৭ টাকা হিসাবে) এর পরিমাণ ১৪ হাজার কোটি টাকার বেশি। অর্থাৎ প্রতিদিন গড়ে আসছে ৬ কোটি ৫৭ লাখ ডলারের বেশি। রেমিট্যান্সের এ ধারা অব্যাহত থাকলে মাস শেষে দুই বিলিয়ন বা ২০০ কোটি ডলার ছাড়িয়ে যাবে।

এর আগের মাস ডিসেম্বরে এসেছিল ১৬৯ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে এ তথ্য।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তা জানান, বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠাতে প্রবাসীদের উৎসাহিত করা হচ্ছে। রেমিট্যান্সে প্রণোদনাও বাড়ানো হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নানা উদ্যোগও কাজে আসছে। এখন রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়তে শুরু করেছে। আমাদের সামনে দুটি ঈদ আছে। ঈদ কেন্দ্র করে রেমিট্যান্স প্রবাহ আরও বাড়বে।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

এর আগে চলতি ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই ও আগস্ট) টানা দুই বিলিয়ন ডলার করে রেমিট্যান্স এসেছিল দেশে। এর পরের মাস সেপ্টেম্বর থেকে টানা পাঁচ মাস দেড় বিলিয়ন ডলারের আশপাশে আটকে থাকে রেমিট্যান্স।

জুলাই মাসে এসেছিল ২০৯ কোটি ৬৩ লাখ ডলার, আগস্টে এসেছিল ২০৩ কোটি ৬৯ লাখ ডলার। অর্থাৎ অর্থবছরের শুরুর দুই মাস দুই বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছিল।

এর পরই কমতে থাকে রেমিট্যান্স প্রবাহ। সেপ্টেম্বরে এসেছিল ১৫৩ কোটি ৯৬ লাখ ডলার, অক্টোবরে এসেছিল ১৫২ কোটি ৫৫ লাখ ডলার, নভেম্বরে ১৫৯ কোটি ৪৭ লাখ ডলার আর আর সদ্য বিদায়ী ডিসেম্বরে প্রায় ১৭০ কোটি ডলার বা ১৬৯ কোটি ৯৬ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন বিভিন্ন দেশে বসবাসরত বাংলাদেশিরা।

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অর্থনীতি

পেনশন পাবেন সব নাগরিক, সংসদে বিল পাস

Published

on

সিনো বাংলা

দেশের সব নাগরিককে পেনশনের আওতায় আনতে সংসদে ‘সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থাপনা বিল-২০২৩’ পাস হয়েছে। এর ফলে ৬০ বছর পর আজীবন পেনশন সুবিধা ভোগ করতে পারবেন নাগরিকরা। এই সুবিধা পেতে ১৮ বছর থেকে ৫০ বছর বয়সী নাগরিকদের নির্ধারিত হারে চাঁদা দিতে হবে।

এছাড়া বিশেষ বিবেচনায় পঞ্চাশোর্ধ্বরাও এই আইনের আওতায় নিরবচ্ছিন্ন ১০ বছর চাঁদা পরিশোধ করে পেনশন সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে স্কিমে অংশগ্রহণের তারিখ থেকে নিরবচ্ছিন্ন ১০ বছর চাঁদা প্রদান শেষে তিনি যে বয়সে উপনীত হবেন, সে বয়স হতে আজীবন পেনশন প্রাপ্য হবেন। আজীবন বলতে পেনশনারের বয়স ৭৫ বছর পর্যন্ত বিবেচনা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদে বিলটি স্থিরকৃত আকারে পাস হয়।

অর্থসংবাদের মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

এটি পাসের প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এর আগে বিলের ওপর আনীত জনমত যাচাই-বাছাই কমিটিতে প্রেরণ ও সংশোধনী প্রস্তাবগুলো কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়। তবে কতিপয় সংশোধনী গৃহীত হয়।

পেনশন আইনে বলা হয়েছে, চাঁদাদাতা ধারাবাহিকভাবে কমপক্ষে ১০ বছর চাঁদা দিলে মাসিক পেনশন পাবেন। চাঁদাদাতার বয়স ৬০ বছর পূর্তিতে পেনশন তহবিলে পুঞ্জীভূত মুনাফাসহ জমার বিপরীতে পেনশন দেওয়া হবে। বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশিরা এই কর্মসূচিতে অংশ নিতে পারবেন।

আইনে আরও বলা আছে, নিম্ন আয়ের নাগরিকদের অথবা অসচ্ছল চাঁদাদাতার ক্ষেত্রে পেনশন তহবিলে মাসিক চাঁদার একটি অংশ সরকার অনুদান হিসেবে দিতে পারবে।

বিলে বলা হয়েছে, একজন পেনশনার আজীবন পেনশন সুবিধা পাবেন। তবে পেনশনে থাকাকালীন ৭৫ বছর পূর্ণ হওয়ার আগে মারা গেলে তার নমিনি অবশিষ্ট সময়ের জন্য (৭৫ বছর পর্যন্ত) মাসিক পেনশন পাবেন। চাঁদাদাতা ১০ বছর চাঁদা দেওয়ার আগে মারা গেলে জমা করা অর্থ মুনাফাসহ তার নমিনিকে ফেরত দেওয়া হবে।

এছাড়া পেনশনের জন্য জমা দেওয়া অর্থ, কোনো পর্যায়ে এককালীন তোলার প্রয়োজন হলে সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ঋণ হিসেবে তুলতে পারবেন, যা ফিসহ পরিশোধ করতে হবে। পেনশন থেকে পাওয়া অর্থ আয়কর মুক্ত থাকবে। পেনশনের জন্য নির্ধারিত চাঁদা বিনিয়োগ হিসেবে গণ্য করে কর রেয়াতের জন্য বিবেচিত হবে।

সর্বজনীন পেনশন পদ্ধতিতে সরকারি অথবা আধা সরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত কিংবা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান অংশ নিতে পারবে। এক্ষেত্রে কর্মী ও প্রতিষ্ঠানের চাঁদার অংশ নির্ধারণ করবে কর্তৃপক্ষ। তবে সরকারি সিদ্ধান্ত না দেওয়া পর্যন্ত সরকারি ও আধা সরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে কর্মরতরা পেনশন ব্যবস্থার আওতাবহির্ভূত থাকবেন।

এই আইন কার্যকর হওয়ার পর সরকার প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে পাঁচ সদস্যের একটি জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ গঠন করবে। যার প্রধান হবেন নির্বাহী চেয়ারম্যান। আর বাকি চারজন সদস্য হিসেবে থাকবেন। এদের নিয়োগ করবে সরকার। তাদের চাকরির মেয়াদ শর্তবিধি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হবে। কর্তৃপক্ষ ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ব্যয় নির্বাহ করবে সরকার। সরকারের অনুমোদন নিয়ে এ কর্তৃপক্ষ ঋণ নিতে পারবে।

এছাড়া পেনশন ব্যবস্থাপনার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ১৬ সদস্যের একটি পরিচালনা পর্ষদ গঠনের বিধান রাখা হয়েছে বিলে। এর চেয়ারম্যান হবেন অর্থমন্ত্রী। এতে সদস্য হবেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব, অর্থ বিভাগের সচিব, এনবিআর চেয়ারম্যান, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব, সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান, এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি, এপ্লয়ার্স ফেডারেশনের সভাপতি এবং উইমেন চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি। আর পর্ষদের সদস্য সচিব হবেন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সম্বলিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের সংবিধানের ১৫ অনুচ্ছেদের দফা (ঘ)-এর বিধান অনুযায়ী, সামাজিক নিরাপত্তার অধিকার ও অন্যান্য অভাবগ্রস্থার ক্ষেত্রে নাগরিকদের সরকারি সাহায্য লাভের অধিকারের বিধান অন্তর্ভুক্ত করে একটি পূর্ণাঙ্গ আইন আবশ্যক। উন্নয়নের অগ্রযাত্রার সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় রাখা ও দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে সামাজিক নিরাপত্তা বলয়ের আওতায় আনার বিষয়টি নিশ্চিতে সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থাপনা আইন বিল প্রণয়ন করা সমীচীন।

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন
Advertisement
January 2023
SMTWTFS
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031 

ফেসবুকে অর্থসংবাদ