ক্ষুদ্র ঋণের সুদহার ডাবল ডিজিটে রাখার দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশ: ২০২০-০১-১৪ ১২:১৭:৫৪, আপডেট: ২০২০-০১-১৪ ১২:২২:৩৪

ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা (এসএমই) খাতের ঋণকে সিঙ্গেল ডিজিটের বাইরে রাখার দাবি জানিয়েছেন ব্যাংকগুলোর চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকরা (এমডি)। তারা বলেন, ক্ষুদ্র ঋণে কস্ট অব ফান্ড বা তহবিল সংগ্রহে খরচ বেশি। এর জবাবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে জানাব। তবে আপনারা সিঙ্গেল ডিজিট কার্যকরের যে ওয়াদা দিয়েছেন। তা যথাসময়ে কার্যকর করবেন। আমাকে বেইজ্জতি করবেন না।

সোমবার অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর চেয়ারম্যান ও এমডিদের এক বৈঠকে এ দাবি জানানো হয়। রাজধানীর গুলশানে বেসরকারি ব্যাংকের পরিচালকদের সংগঠন- বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ব্যাংকসের (বিএবি) কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে সব ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও এমডিরা উপস্থিত ছিলেন।
ব্যাংকের এমডিদের সংগঠন-অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) চেয়ারম্যান এবং ইস্টার্ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আলী রেজা ইফতেখার বলেন, ক্ষুদ্র ঋণে খরচ বেশি। সে কারণে এসএমই ঋণকে সিঙ্গেল ডিজিটের বাইরে রাখা যায় কিনা বিবেচনা করবেন। এ সময় তার এই মতকে অন্যান্য ব্যাংকের এমডিরাও সমর্থন জানান।

অর্থমন্ত্রী বলেন, আজ আপনারা এসএমই ঋণকে সিঙ্গেল ডিজিটের বাইরে রাখার কথা বলছেন। অথচ দেশের উন্নয়নে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের অবদান কোনো অংশে কম নয়। বিশে^র সব দেশে এসএমই ঋণকে গুরুত্ব দেয়া হয়। মালয়েশিয়াতে এসএমই ব্যাংকও আছে। তিনি বলেন, সবাই বলাবলি করছে এপ্রিলের পর আপনারা বলবেন যে দুই মাস পর জাতীয় বাজেট, বাজেটের পরই সিঙ্গেল ডিজিট কার্যকর করব। এটার কিন্তু কোনো সুযোগ নেই। আপনারা যা চেয়েছেন দিয়েছি। আমরা উভয় পক্ষ উইন-উইন সিচুয়েশনে আছি। অতএব আর পেছনে যাওয়ার সুযোগ নেই। তিনি আরও বলেন, ব্যাংকের পরিচালন ব্যয় কমান। একজনের গ্রাহক আরেকজন ছিনিয়ে, বা ভাগিয়ে নেবেন না। অর্থাৎ লোন টেকওভার বন্ধ করুন।

বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব ব্যাংকসের (বিএবি) সভাপতি ও এক্সিম ব্যাংকের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মজুমদার বলেন, এবার আমরা ১ এপ্রিল থেকেই ব্যাংক ঋণের সুদ এক অংকে নামিয়ে আনব। তবে বেসরকারি ব্যাংকে সরকারি আমানত ৫০ শতাংশ দেয়ার যে ঘোষণা আছে, তা কার্যকর করতে হবে। বিশেষ করে ৬ শতাংশের বেশি সুদ দিয়ে কেউ আমানত সংগ্রহ করতে পারবে না। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সুষ্পষ্ট সার্র্কুলার থাকতে হবে। আর সরকারি কোনো সংস্থা আমানতের সুদ ৬ শতাংশের বেশি নেবে না-এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রণালয় থেকে সার্কুলার জারি করতে হবে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, স¤প্রতি স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক থেকে ৩০০ কোটি টাকা তুলে নিয়ে গেছে সরকারি একটি প্রতিষ্ঠান। এভাবে আরও অনেক প্রতিষ্ঠান আমানত তুলে নিয়ে যাচ্ছে। তাহলে আমরা কোথায় যাবো? এ সময় অর্থমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি দেখছি। এ বিষয়ে আজই (মঙ্গলবার) সংসদে বিল উত্থাপন করা হবে। কিন্তু আপনারা যথাসময়ে সিঙ্গেল ডিজিট কার্যকর করবেন। আমাকে আপনারা অপমান বা লজ্জিত করবেন না। এ সময় ফ্লোর নিয়ে প্রিমিয়ার ব্যাংকের চেয়ারম্যান ডা. এইচ বি এম ইকবাল বলেন, আমাদের (টেক্স) আয়কর আরও কমিয়ে আনেন। বিভিন্ন ব্যবসায় তো আয়কর দিয়ে যাচ্ছি। এনআরবি গেøাবাল ব্যাংকের চেয়ারম্যান নিজাম চৌধুরী বলেন, কর না বাড়িয়ে করের আওতা বাড়ান। এ সময় অর্থমন্ত্রী বলেন, ঠিকাছে আপনাদের থেকে কর নেব না। তবে সবাই মিলে আমাকে বাজেট ঘাটতির ৩ লাখ ৩৫ হাজার কোটি টাকা দেন। এটা হলে আর কোনো কর নেব না।

ব্যাংক ঋণে সুদেরহার কমানোর উদ্যোগের অংশ হিসাবে এ বৈঠকটি হয়েছে। গত ১ জানুয়ারি থেকে শিল্প খাতে ঋণের সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিট কার্যকর করার কথা। কিন্ত শেষ মুহূর্তে এসে গত ৩০ ডিসেম্বর অর্থমন্ত্রী বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর চেয়ারম্যান ও এমডিদের সঙ্গে এক বৈঠকে ঋণের সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিট করার সিন্ধান্ত তিন মাস পিছিয়ে দেন। ১ জানুয়ারির পরিবর্তে আগামী ১ এপ্রিল থেকে ক্রেডিট কার্ড ছাড়া সব খাতে ঋণের সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিট কার্যকর করার ঘোষণা বহাল আছে।

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।