Connect with us

ব্যাংক

হুন্ডিতে রেমিট্যান্স প্রেরণকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে বিএফআইইউ

Published

on

হুন্ডি বা অন্য কোন অবৈধ পথে রেমিট্যান্স (বৈদেশিক মুদ্রা) প্রেরণের সাথে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)।

বুধবার (১৬ নভেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ডিপার্টমেন্ট অব কমিউনিকেশন্স অ্যান্ড পাবলিকেশন্স থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা ব্যাংকিং চ্যানেলের বাইরে (হুন্ডি বা অন্য কোন অবৈধ পথে) প্রেরণ করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। অবৈধ পথে রেমিট্যান্স প্রেরণের সাথে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে প্রমাণ সাপেক্ষে প্রচলিত আইনে বিএফআইইউ যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করছে।

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
Advertisement

কর্পোরেট সংবাদ

আইসিএমএবি বেস্ট কর্পোরেট অ্যাওয়ার্ড পেল রূপালী ব্যাংক

Published

on

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক ক্যাটাগরিতে রূপালী ব্যাংক লিমিটেড ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএমএবি) বেস্ট কর্পোরেট অ্যাওয়ার্ড-২০২১ অর্জন করেছে। সরকারি ব্যাংকসমূহের মধ্যে রূপালী ব্যাংক অ্যাওয়ার্ডটি অর্জন করে।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এমপির কাছ থেকে অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করেন ব্যাংকের চেয়ারম্যান কাজী ছানাউল হক ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর এন্ড সিইও মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর।

এ সময় বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

কর্পোরেট সংবাদ

‘মাস্টারকার্ড এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ডস ২০২২’ পেলো সাউথইস্ট ব্যাংক

Published

on

সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড ‘মাস্টারকার্ড প্রিপেইড বিজনেস’ এবং ‘মাস্টারকার্ড অনলাইন অ্যাকুয়ারিং বিজনেস’ ২টি ক্যাটোগরিতে “মাস্টারকার্ড এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ডস-২০২২” অর্জন করেছে।

সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুরুদ্দিন মো. সাদেক হোসাইন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি এম পির হাত থেকে অ্যাওয়ার্ডটি গ্রহণ করেন।

অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে ‘গেস্ট অব অনার’ হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মো. খুরশীদ আলম; চিফ অপারেটিং অফিসার ভিকাস ভার্মা, সাউথ এশিয়া মাস্টারকার্ড এবং মাস্টারকার্ড বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল সহ পার্টনার ব্যাংক, ফিনটেক ও মার্চেন্ট পার্টনার সমূহের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং আমন্ত্রিত সম্মানিত অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

ব্যাংক

আমদানির নামে অর্থপাচার, ১০০ এলসি বন্ধ করলো বাংলাদেশ ব্যাংক

Published

on

ওভার ইনভয়েসিং (অতিরিক্ত মূল্য দেখানো) করে পণ্য আমদানি করার কারণে ১০০ এলসি বন্ধ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার। পণ্য আমদানি-রপ্তানি প্রক্রিয়ার নামে ওভার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে বিদেশে অর্থপাচার করা হয় বলেও জানান তিনি।

গভর্নর বলেন, ‘আশ্চর্যজনকভাবে দেখলাম, ২০-২০০ শতাংশ পর্যন্ত ওভার ইনভয়েসিং (অতিরিক্ত মূল্য দেখানো) করে পণ্য আমদানি করা হয়েছে। এ রকম ১০০ এলসি বন্ধ করেছি আমরা।”

বৈদেশিক বাণিজ্যে পণ্যর দাম কম বা বেশি দেখিয়ে আমদানি নিয়ন্ত্রণ করতে পারলে ‘ট্রেড বেজড মানি লন্ডারিং’ বন্ধ করা সম্ভব বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বিআইডিএস আয়োজিত তিন দিনব্যাপী বার্ষিক উন্নয়ন সম্মেলনের প্রথম দিন বৃহস্পতিবার আব্দুর রউফ তালুকদার এসব কথা বলেন।

Nogod-22-10-2022

ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল ফিন্যান্সিয়াল ইন্টিগ্রিটির (জিএফআই) এক তথ্যে দেখা যায়, ২০০৪ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে মিস ইনভয়েসিং বা অস্বচ্ছ লেনদেনের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে পাচার হয়েছে ৮০৫ কোটি ৮০ লাখ ডলার।

দেশের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিপিডি মিস ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে অর্থ পাচারের বিষয়টি বেশ আগে থেকে বলে আসছে। ডলারের সাম্প্রতিক সংকটের মধ্যে দেশ থেকে অর্থ পাচারের বিষয়টিও নতুন করে আলোচনায় আসছে।

গত ১৫ নভেম্বর এক অনুষ্ঠানে গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদারও বলেন, পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে মূল্য অতিরিক্ত দেখানো (ওভার ইনভয়েসিং) এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে মূল্য কম দেখানোর (আন্ডার ইনভয়েসিং) বিষয়টি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পর্যবেক্ষণে ধরা পড়েছে।

করোনাভাইরাস মহামারী পরবর্তী সময়ে অর্থনৈতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করলে বাড়তে থাকে পণ্য আমদানিতে ঋণপত্র খোলা এবং নিষ্পত্তির পরিমাণ। এ ধারা অব্যাহত থাকে চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকেও।

আমদানি বাণিজ্য বৃদ্ধির বিপরীতে রপ্তানি আয় ও রেমিটেন্স সেভাবে বৃদ্ধি না পাওয়া বৈদেশিক মুদ্রা ব্যবস্থাপনায় বড় ধরনের চাপে পড়ে বাংলাদেশ। আমদানি খরচ বৃদ্ধি পাওয়ায় গত বছরের আগস্টে থাকা ৪৮ বিলিয়ন ডলারের রিজার্ভ নেমে এসেছে ৩৩ দশমিক ৮৬ বিলিয়নে।

আর চলতি হিসাবে ঘাটতি ক্রামগত বৃদ্ধি পাওয়ায় গত এপ্রিল থেকে আমদানি নিয়ন্ত্রণ ও কড়াকড়ি আরোপ করতে শুরু করে বাংলাদেশ ব্যাংক। বছরের শুরুতেও গড়ে প্রতি মাসে ৮ বিলিয়নের উপরে হওয়া আমদানি অক্টোবরে ৪ বিলিয়নের ঘরে নামিয়ে এনেছে সরকার।

এই কড়াকড়ির পর ব্যবসায়ীদের মধ্যে অনেকেই অভিযোগ করছেন, আমদানি ঋণপত্র (এলসি) খুলতে দেওয়া হচ্ছে না বৈদেশিক মুদ্রার সংকটে। এ বিষয়টি নিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করে গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার বৃহস্পতিবার বিআইডিএস এর বার্ষিক উন্নয়ন সম্মেলনে বলেন, “আমরা কোনো এলসি বন্ধ করিনি, এটি সত্য নয়। আমরা ‘প্রাইস কন্ট্রোল’ (মূল্য নিয়ন্ত্রণ) করছি। যাতে সঠিক দরে পণ্য আমদানি ও রপ্তানি হয়।”

তিনি বলেন, “বিলাসী পণ্য আমদানিতে শুল্ক বাড়ানো ও নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে মাত্র। কারণ হচ্ছে, আপাতত এসব বিলাসী পণ্য কম এলেও কোনো সমস্যা হবে না।”

অতিরিক্ত ও কম মূল্য দেখিয়ে করতে চাওয়া এলসি বন্ধ করে দেওয়া হলেও পরে তা সংশোধন করে প্রকৃত দরে আমদানি করতে চাইলে ব্যবসায়ীরা এলসি করতে পারছেন বলে জানান গভর্নর।

তিনি বলেন, ওভার ইনভয়েসিং হচ্ছে কি না, তা দেখতে গত বছর এবং এবছরের অনেক এলসির তথ্য নিয়ে গত জুলাই থেকে যাচাই-বাছাই শুরু করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তখনই ২০-২০০ শতাংশ পর্যন্ত দাম বাড়িয়ে পণ্য আমদানির বিষয়টি তারা জানতে পারেন।

পণ্য বাণিজ্যে আন্ডার ইনভয়েসিং হচ্ছে কি না– তা যাচাইয়েরও উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলেন গভর্নর।

তিনি বলেন, ‘একলাখ ডলারের মূল্যর গাড়ি আমদানি করা হয়েছে মাত্র ২০ হাজার ডলারে। এতে বোঝা যায়, বাকি অর্থ তারা হুন্ডির মাধ্যমে দিয়েছে।

দেশের বাজারে আপেল বিক্রির উদাহরণ দিয়ে গভর্নর বলেন, “বাজারে যে দরে আপেল বিক্রি হচ্ছে, তার চেয়ে কম দরে আমদানি করা হচ্ছে। দর কম দেখানোতে সরকারের রাজস্ব আয়ও কমছে এখান থেকে। এভাবে আন্ডার ইনভয়েসিং এর মাধ্যম পণ্য আমদানি হচ্ছে, যে দর কম দেখানো হচ্ছে, তা হুন্ডির মাধ্যমে পরিশোধ করা হচ্ছে। হুন্ডিতে ব্যবহার করা হচ্ছে প্রবাসীদের না পাঠানো রেমিট্যান্স।

ব্যাংক ঋণে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ সুদহার বেঁধে দেওয়ার বিষয়ে গভর্নর বলেন, কৃষি খাতে অনেক দেশই কম সুদে ঋণ দেয়। এটি সরকারের দিক থেকে করা হয়। আর ব্যাংকারদের পক্ষ থেকে সিএমএসএমই খাতে সুদহার বড়িয়ে ৯ শতাংশের ‘ক্যাপ’ তুলে দেওয়ার দাবি করা হয়। তখন খরচ বৃদ্ধির বিষয়টিকে তারা যুক্তি হিসেবে দেখায়।

“এ খাতের খরচ কমিয়ে আনার কৌশল হিসেবে সিএমএসএমই খাতে ব্যাংকগুলোকে ২ শতাংশ সুদে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ঋণ অর্থ নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়েছে পুনঃঅর্থায়ন তহবিল গঠন করে। এখন তারা কম সুদের তহবিল পাওয়ায় এ খাতে সুদহার তুলে দেওয়ার প্রয়োজন নেই।”

তার মতে, ব্যবসায়ীদের জন্য মেয়াদী ও চলতি মূলধনের ঋণ সুদহারে ৯ শতাংশের সীমা তুলে দেওয়ার ‘সঠিক সময়’ এখন নয়।

গভর্নর বলছেন, মহামারী পরবর্তী সময়ে যে দুটো সমস্যা অর্থনীতিতে দেখা যাচ্ছে, তার একটি হচ্ছে রিজার্ভ, অন্যটি মূল্যস্ফীতি। এই মূল্যস্ফীতির বৃদ্ধি মুদ্রা সরবরাহ থেকে আসেনি। এটি আমদানি দর বেড়ে যাওয়ার ঘটনা থেকে হয়েছে।

বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহ বৃদ্ধির কারণ ব্যাখ্যা করে তিনি বলেছেন, আমদানিতে ডলারের খরচ ও বিনিময় মূল্য বৃদ্ধিতে ঋণ প্রবাহ বেড়েছে। উচ্চ বিনিময় হারকে সমন্বয় কেরলে ঋণ প্রবৃদ্ধি অনেক কম দেখাবে।

ডলারে দাম বেড়ে যাওয়া প্রসঙ্গে গভর্নর বলেছেন, “বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময় হার বাজার অনুযায়ী হওয়া উচিত। এখন তা বাজারে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এ কারণেই খোলা বাজারে ১২১ টাকায় উঠে যাওয়া ডলার এখন ১১০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। আর আমদানি পর্যায়ে ডলারের দর এখন ১০৩-১০৪ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। যা কয়েক মাস আগেও বেশি ছিল।

আমদানি, রপ্তানি, রেমিটেন্স ও নগদ বিক্রিতে ভিন্ন ভিন্ন দর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “আমরা দর নিয়ন্ত্রণ (রেগুলেটেড ম্যানেজমেন্ট) ব্যবস্তাপনায় যাব না। আমরা বাজারমূখি করব ধীরে ধীরে। শিগগিরই ভিন্ন ভিন্ন দর একটি সমন্বিত দরে চলে আসবে। এত বেশি ব্যবধান থাকবে না।”

রেমিটেন্সে প্রবৃদিধ কমার জন্য হুন্ডিকে দায়ী করে গভর্নর বলেন, “রেমিটেন্স কমে যাওয়ার বড় কারণ হচ্ছে হুন্ডি। এ জন্য রেমিটেন্স আনা সহজ ও আমদানিতে ওভার ও আন্ডার ইনভয়েসিং বন্ধ করা হচ্ছে।

“রেমিটেন্স আনা সহজ করতে মোবাইলে আনার সুযোগ হচ্ছে। রেমিট্যান্স পাঠানোর খরচ বন্ধ করা হয়েছে। আগামী ৩-৬ মাস অপেক্ষা করতে হবে। প্রবাসীরা নিজেই রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবেন। তখন রেমিট্যান্সে একটি বড় উল্লম্ফন দেখা যাবে।”

রাষ্ট্রায়ত্ব গবেষণা সংস্থা বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ (বিআইডিএস) এর উদ্যোগে তিন দিনব্যাপী এই বার্ষিক উন্নয়ন সম্মেলন শুরু হয়েছে গুলশানের হোটেল লেকশোরে। সম্মেলনের সভাপতিত্ব করছেন সংস্থাটির মহাপরিচালক ড. বিনায়ক সেন।

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

ব্যাংক

কোনো ব্যাংকই দেউলিয়া হবে না : পরিকল্পনামন্ত্রী

Published

on

কোনো ব্যাংকই দেউলিয়া হবে না মন্তব্য করে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, আমাদের ব্যাংকিং খাত নিয়ে এখন অনেক আলোচনাই হচ্ছে। কিছু কিছু বিষয় গণমাধ্যমেও আসছে। তবে দু’একটি ঘটনার কারণে গোটা ব্যাংকিং ব্যবস্থা নিয়ে রায় দেওয়া উচিৎ নয়।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) রাজধানীর কৃষিবিদ ইন্সটিটিউটে আয়োজিত অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, এখানে আইন রয়েছে, অন্যায় হয়ে থাকলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কোনো ব্যাংকই দেউলিয়া হবে না। কয়েকদিন আগে একটা গুজব ছড়িয়েছিল যে ব্যাংকে টাকা পাওয়া যাচ্ছে না। যেটা সম্পূর্ণ ভুল। একটা শ্রেণি অসৎ উদ্দেশ্যে এসব গুজব ছড়ায়।

এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, সরকার এখন কিছুটা চাপে রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী সবাইকে বলছেন মিতব্যয়ী হতে। মূল্যস্ফীতি এখন নিম্নগামী। খাদ্য, তেল, গ্যাসের দাম কমছে। আমাদের দেশেও মূল্যস্ফীতি কিছুটা কমেছে। আগামী মাসে এটা আরও কমে যাবে। কারণ সামনে নতুন ধান, সবজির মৌসুম। সামনে আমাদের অর্থনৈতিক অবস্থা আরও ভালো হবে।

Nogod-22-10-2022

অর্থসংবাদ/এনএন

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অর্থনীতি

ইসলামী ব্যাংক থেকে ১১ প্রতিষ্ঠানের ঋণ ছাড় বন্ধ করলো বাংলাদেশ ব্যাংক

Published

on

ইসলামী ব্যাংক থেকে ১১ প্রতিষ্ঠানকে আগ্রাসীভাবে ঋণ দেওয়ার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে একটি তদন্ত শুরু করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তারই অংশ হিসেবে, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এসব কোম্পানিকে ৯ হাজার ১৩৫ কোটি টাকা ঋণ ছাড় বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে।

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘আমাদের একটি টিম ব্যাংকটি পরিদর্শন করে এসব অনিয়মের ব্যাখ্যা চেয়েছে। এ-সংক্রান্ত নথিপত্র সংগ্রহ করা হয়েছে’।

এদিকে ইসলামী ব্যাংকে বড় ধরনের ঋণ অনিয়মের ঘটনা নিয়ে আনুষ্ঠানিক কোনো মন্তব্য করেনি বাংলাদেশ ব্যাংক। নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষটির মুখপাত্রও কোনো মন্তব্য করতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র জি এম আবুল কালাম আজাদ বলেছেন, ইসলামী ব্যাংকের ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের একটি টিম কাজ করবে। ‘ইতোমধ্যে তারা দুদিন ইসলামী ব্যাংকে গেছেন। তারা আরও চারদিন সেখানে যাবেন’।

Nogod-22-10-2022

অর্থসংবাদ/এনএন

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন
Advertisement
December 2022
S M T W T F S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031

কর্পোরেট সংবাদ

ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ার

ফেসবুকে অর্থসংবাদ