Connect with us

এগ্রিবিজনেস

ওয়াকিং পাম: যে গাছ হাঁটতে পারে মানুষের মতো

Published

on

ওয়াকিং পাম

গাছও হাঁটতে পারে! শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। ইকুয়েডরের গভীর ট্রপিকাল রেইন ফরেস্টে এমন গাছের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। গাছটির নাম ক্যাশাপোনা। এর বৈজ্ঞানিক নাম Socratea exorrhiza বা walking palm।

এখন প্রশ্ন কীভাবে চলে বেড়ায় এই গাছ? স্লোভাকিয়ার রাষ্ট্রীয় গবেষণা প্রতিষ্ঠানের এক উদ্ভিদবিজ্ঞানী এই গাছটি নিয়ে গবেষণা করছেন। তিনি হলেন ব্রাতিস্লাভার স্লোভাক অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্সের প্যালিওবোটানিস্ট পিটার ভ্র্যানস্কি।

ইকুয়েডরের রাজধানী কুইটো থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বের বন সুমাকো বায়োস্ফেয়ার রিজার্ভ। ইউনেস্কো ঘোষিত সংরক্ষিত এ বনটিকে বলা হয় ‘হার্ট অব দ্য ইউনেস্কো’। এখানেই এক অদ্ভুত গাছের সন্ধান পেয়েছেন স্লোভাক ইনস্টিটিউট অব সায়েন্সেস ব্রাতিস্লাভার জীবাশ্মবিদ পিটার ভ্র্যানস্কি।

এক দিনে প্রায় ৩ ঘণ্টা গাড়িতে আর ১৫ ঘণ্টা নৌকায় চড়ে, পায়ে হেঁটে ও খচ্চরের গাড়িতে করে জঙ্গলের গভীরে প্রবেশ করে এগুলোর দেখা পান তিনি। এগুলো এক ধরনের পাম গাছ।

Nogod-22-10-2022

এই বনের গাছগুলো জে আর আর টলকিনের মহাকাব্য ‘লর্ড অব দ্য রিংস স্যাগা’য় বর্ণিত গাছের মতো সারা বন হেঁটে বেড়ায়! বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধান শুরু করেন ভ্রসাঙ্কসি। শুরুতেই তিনি পান অনাবিষ্কৃত ৩০ মিটারের একটি জলপ্রপাত, নতুন একটি টিকটিকি ও ব্যাঙের প্রজাতি।

ভ্র্যানস্কি জানান, মাটি ক্ষয় হয়ে যাওয়ার কারণে গাছগুলোর শিকড় থেকে জন্ম নেয় নতুন নতুন শিকড়। নতুন শিকড়গুলো মাটির প্রায় ২০ মিটার পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে এবং সেগুলো থেকে জন্ম নেয় নতুন গাছ। তিনি বলেন, ‘ঠিকমতো সূর্যের আলো এবং উর্বর মাটি থাকলে একটি গাছ জন্ম নিতে সময় লাগে প্রায় দুই বছর।’

ভ্র্যানস্কি জানান, দুই মাসের এ বিপজ্জনক অভিযানে তিনি প্রায় ১৫০ প্রজাতির নতুন জীবের সন্ধান পান। তবে এজন্য তাকে ১০ কেজি ওজন হারাতে হয়।

তিনি জানিয়েছেন, দক্ষিণ আমেরিকার ইকুয়েডরের বনাঞ্চলে প্রায়ই ভূমিক্ষয় হয়। ফলে গাছের শেকড় আলগা হয়ে ভিত নড়বড়ে হয়ে যায়। তাই শক্ত মাটির জন্য তড়িঘড়ি নতুন শিকড় তৈরী করে শক্ত মাটিতে গাছটি ক্রমশ গেঁথে যেতে থাকে এবং পুরোনো শিকড় ধীরে ধীরে মাটি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে থাকে। মূলত এক দিকে যখন সেই নতুন শিকড় শক্ত মাটিতে ক্রমশ গেঁথে যেতে থাকে, অন্য দিকে তখন পুরোনো শিকড়গুলো মাটি থেকে ক্রমশ তুলে নেয় এরা৷ এ ভাবেই গাছটি একটু একটু করে আগের জায়গা থেকে সরে যায়৷

এদের এই আনাগোনাকে অনেকে ‘মানুষের হাঁটার’ সাথে তুলনা করা হয়েছে। হুট করে অনেক দুরত্ব অতিক্রম করে না এই গাছ। প্রতিদিন দুই-তিন সেন্টিমিটার করে বছরে প্রায় কুড়ি মিটার দুরত্ব অতিক্রম করে এই গাছ। এর উচ্চতা হয় ১৫- ২০ মিটার, আর এর গোলাকার ডায়ামিটার হয় প্রায় ১৬ সেন্টিমিটার।

শোনা যায়, অন্যান্য পড়শী গাছ গায়ে হেলে পড়া একেবারেই পছন্দ করে না ক্যাশাপোনা। সেক্ষেত্রে নিজের স্থান বদল করে নেয় এই পাম গাছ।

তবে চলমান উদ্ভিদই সুমাকো বায়োস্ফিয়ার রিজার্ভের একমাত্র আশ্চর্য নয়৷ গাছের রকম-সকম নথিবদ্ধ করতে গিয়ে বনবাদাড়ে ঘুরতে ঘুরতে মেরুদণ্ডী পর্যায়ভুক্ত দু’টি নতুন ধরনের প্রাণীর অস্তিত্বও আবিষ্কার করেছেন ভ্র্যানস্কি ও গার্সিয়া৷ একটি গিরগিটি জাতীয়, অন্যটি নতুন এক প্রজাতির ব্যাঙ৷ আর ভ্র্যানস্কি জানান, যে দিন হঠাৎ জঙ্গলের মধ্যে একটি জায়গায় প্রায় দেড়শো রকমের আরশোলার সন্ধান পেয়েছিলেন, সেই দিনটির অভিজ্ঞতা তিনি হয়তো কোনও দিনই ভুলতে পারবেন না৷

কারণ, গোটা ইউরোপ মহাদেশ ধরে হিসেব করলেও আরশোলার এতগুলি জীবিত প্রজাতি পাওয়া যাবে না৷ আরশোলাগুলোর রঙের বাহারও তাক লাগানো৷ কোনওটা অন্ধকারে জ্বলজ্বল করে, কোনওটা আবার পাতার সঙ্গে নিজেকে এমন নিখুঁত ভাবে মিশিয়ে ফেলতে পারে যে, এক নজরে আলাদা করে ঠাহর করাই ভার৷

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
Advertisement

এগ্রিবিজনেস

‘সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদ আহরণে যুক্তরাষ্ট্রের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে চাই’

Published

on

শ ম রেজাউল করিম

সামুদ্রিক মৎস্যসম্পদ আহরণে যুক্তরাষ্ট্রের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে চান বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

শনিবার (২৯ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে বাংলাদেশের চিংড়ি খাতের রূপান্তরে যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগের সহায়তায় উইনরক ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের বাস্তবায়নে সেইফ অ্যাকোয়া ফার্মিং ফর ইকোনমিক অ্যান্ড ট্রেড ইমপ্রুভমেন্ট (সেফটি) প্রকল্পের সমাপনী অনুষ্ঠানে এসব কথা জানান তিনি।

শনিবার প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

তিনি জানান, সেফটি প্রকল্পের কার্যক্রম বাংলাদেশের চিংড়ি খাতে ব্যাপক সহযোগিতা দিয়েছে। প্রশিক্ষণ ও প্রযুক্তিগত সহযোগিতা কাজে লাগিয়ে এখন মাঠপর্যায়ে উদ্যোক্তাদের উৎপাদন দ্বিগুণেরও বেশি হচ্ছে। সেফটি প্রকল্পের সহযোগিতার ওপর ভর করে আরও সামনে এগিয়ে যেতে হবে।’

Nogod-22-10-2022

শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘বিশ্বের ৫০টির বেশি দেশে বাংলাদেশের মাছ এখন রপ্তানি হচ্ছে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে আমাদের আন্তরিক ও সচেষ্ট হতে হবে। আমাদের অভিষ্ট ও লক্ষ্যে পৌঁছাতে হবে। এ জন্য সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘যে সমুদ্র এলাকায় আমরা সার্বভৌমত্ব পেয়েছি, সেখানে বিপুলসংখ্যক মাছ রয়েছে। অপ্রচলিত মৎস্য সম্পদ রয়েছে। সে লক্ষ্যে আমাদের কর্মযজ্ঞ সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।’

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

এগ্রিবিজনেস

এয়ার প্ল্যান্টের পরিচিতি

Published

on

air-plant

এয়ার প্ল্যান্ট এমন এক ধরণের গাছ যেগুলোর জন্য কোন মাটির দরকার হয় না, এবং বাতাস থেকে প্রয়োজনীয় পানি ও পুষ্টি উপাদান সংগ্রহ করে থাকে। এদের শিকড় থাকে কিন্তু সেগুলো শুধু মাত্র গাছ বা পাথর এগুলোর সাথে আটকে থাকার কাজে লাগে। পানি বা পুষ্টি উপাদান সংগ্রহ করার কাজে লাগে না। গাছের পাতাতে অসংখ্য ছোট ছোট ছিদ্র থাকে যা দিয়ে তারা পানি ও পুষ্টি শোষণ করে নেয়।

এয়ার প্ল্যান্ট সাধারনত জলীয়বাষ্প পূর্ণ, স্যাঁতসেঁতে ট্রপিকাল ফরেস্টে হয়ে থাকে। যেখানে মোটামুটি প্রতিদিনই বৃষ্টি হয়। সেই জন্য যেখানে অর্কিড ভাল হয় সেই সব জায়গাতে এয়ার প্ল্যান্ট ও ভাল হয়।এয়ার প্ল্যান্টের জন্য সর্বোচ্চ ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা উপযোগী। এর বেশী তাপ হলে গাছ মরে যেতে পারে। এবং এমন জায়গাতে এগুলো রাখতে হবে যেখানে পর্যাপ্ত আলো- বাতাস চলাচল রয়েছে। এছাড়া কিছু কিছু এয়ার প্ল্যান্ট আছে যেগুলো মরুভুমিতে হয়ে থাকে এবং সেগুলো অনেক বেশি রোদ, তাপ ও পানি সল্পতা সহ্য করতে পারে।

তবে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে যেন এগুলো যেন সরাসরি সূর্যের আলোতে না আসে। সূর্যের আলো সরাসরি লাগলে গাছের সাইড দিয়ে পুড়ে যেতে পারে। এবং আপনার পছন্দের গাছ গুলো মারা যেতে পারে। অর্কিডের মতো উজ্জ্বল আলোকিত জায়গাতে এই গাছ গুলো রাখুন যেখানে বাতাস চলাচল খুব ভাল হয়।

বাসার জানালায়, বা ড্রইং রুমের এক কোনে এই গুলো ঝুলিয়ে রাখতে পারেন। এয়ার প্ল্যান্ট আপনি চাইলে গ্লাস/ফুলদানি জাতীয় কিছুর উপরে রেখে দিতে পারেন, এমনকি আপনি চাইলে মরা গাছের গুড়ি বা ডালের উপরও এয়ার প্ল্যান্ট সাজাতে পারেন। তবে যেভাবেই রাখুন না কেন চেষ্টা করবেন এমন ভাবে রাখতে যেন চাইলেই গাছ গুলো সরানো যায়। না হলে পানি দিতে অনেক ধরণের সমস্যা হতে পারে।

Nogod-22-10-2022

এয়ার প্ল্যান্ট যেহেতু ময়েস্ট এলাকার গাছ তাই এর জন্য পানি একটি অপরিহার্য জিনিস। আবার আমাদের দেশে গরম কালটা এয়ার প্ল্যান্টের জন্য স্বাভাবিকের চেয়ে বেশী গরম হওয়ায় কারনেও এর পানি প্রয়োজন বেশী হয়।

এয়ার প্ল্যান্টের জন্য প্রতিদিন এক বেলা পানি স্প্রে করা জরুরী। সকাল সকাল পানি স্প্রে করা ভাল। কখনই ভর দুপুরে পানি স্প্রে করবেন না। এতে গাছের ক্ষতি হয়। চাইলে রাতে করতে পারেন কিন্তু কখনই দুপুর বেলা না। এছাড়া প্রতি ১৫ দিন পর পর এক বার করে ২৫-৩০ মিনিটের জন্য একটা গামলা বা পাত্রে পানি নিয়ে তার মধ্যে গাছ গুলো ভিজিয়ে রাখতে হবে।

এখন গাছে পানি স্প্রে করুন অথবা ভিজিয়ে রাখুন আপনাকে অবশ্যই খেয়াল করতে হবে এর পর যেন গাছ গুলো নিচের দিকে উলটা করে ঝুলানো থাকে। না হলে পাতার ফাকে ফাকে পানি জমে থাকবে এবং গাছ একদিনের মধ্যে মরে যাবে। পানি ঝরে গেলে আগের মতো যেখানে রাখা ছিল সেখানে রেখে দিন।

আর একটি সাবধানতার বিষয় হোল বাল্ব ওআলা যেমন বাল্বুসা, কেপুত মেডুসা এই টাইপএর এয়ার প্ল্যান্ট কখনই পানি তে সম্পূর্ণ ভাবে ডোবাবেন না। এতে এগুলোর বাল্বে পানি ঢুকে গাছ মরে যাবে। আবার যখন কোন গাছে ফুল আসবে তখনো একে পানিতে ডোবাবেন না। এয়ার প্ল্যান্ট খুবই সংবেদনশীল একটা গাছ, তাই আমি সব সময় এয়ার প্লান্টে পানি দেওয়ার জন্য ফিল্টার পানি ব্যাবহার করি। এতে গাছ সুস্থ থাকে।

এছাড়া আমি বৃষ্টির পানিও ধরে রাখি এবং মাঝে মাঝে আধা ঘণ্টার জন্য বৃষ্টির মধ্যে ভিজতে দেই। এতে গাছে স্বাভাবিক বৃদ্ধি হয় এবং স্বাস্থ্য ভাল থাকে। এয়ার প্লান্টে আলাদা করে সার দেওয়ার প্রয়োজন নেই। তবে সার দিতে খুব ইচ্ছা করলে ১৯/১৯/১৯ এন।পি।কে সার ১ লিটার পানিতে গুলে স্প্রে করতে পারেন।

আর প্রথম যখন আমি কোন এয়ার প্ল্যান্ট বাসায় আনি তখন সেগুলোকে আমি আধা ঘণ্টা ইপ্সপম সল্ট গুলানো পানিতে ভিজিয়ে রাখি এর পর পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নেই। এর ফলে পরিবহনের জন্য এয়ার প্লান্টে যে নিস্তেজ ভাব আসে তা দূর হয়ে যায়। আমি সাধারনত ১ বালতি (১৮ লিটার) পানি তে আমি আধা চা-চামচ ইপসম সল্ট নিয়ে থাকি। ব্যাবহারের পর এই পানি ফেলে দিবেন না। এটা জবা গাছ সহ অন্যান্য ফুল গাছের জন্য খুব উপকারী।

যেখানে এয়ার প্ল্যান্ট রাখবেন তার নিচে বা খুব কাছাকাছি কোন জায়গাতে একটি পানি ভরতি মুখ খোলা পাত্র রাখতে পারলে খুব ভাল হয়। এতে গাছ গুলো একটা হিউমিড পরিবেশ পাবে, আর বৃদ্ধি ভাল হবে।আমি ভারতের বিভিন্ন জায়গাতে সিরামিকের বাটির ভেতর বড় বড় ভেজা ইটের টুকরা রেখে তার উপর এয়ার প্ল্যান্ট রাখতে দেখেছি।

আমার মনে হয় এটাও গাছ সুস্থ রাখার বেশ ভাল উপায় এবং এইভাবে রাখলে বেবি প্ল্যান্ট গুলো খুব সহজেই বড় হয়ে যায়। তো এয়ার প্ল্যান্টের যত্ন নিয়ে আজকে এই পর্যন্তই। আশা করছি এই ভিডিও তা আপনাদের কাজে লাগবে।

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

এগ্রিবিজনেস

যেভাবে যত্ন নিলে শিমের ফলন ভালো হবে

Published

on

বাংলাদেশে শিম অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি সবজি। পুষ্টিকর, সুস্বাদু হওয়া সবাই এ সবজিটি অত্যন্ত পছন্দ করেন। চাষে সঠিক পদ্ধতি ও সঠিক যত্ন নিলে অধিক ফলন পাওয়া যায়। সেই সঙ্গে বেশ লাভবানও হওয়া যায়। শিম শীতকালীন সবজি হলেও এটি এখন সারাবছর চাষ করা হয়।

শিমের চারা ও তার আশপাশের আগাছা নিড়ানি দিয়ে নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে। তাছাড়া মাঝে মধ্যে নিড়ানি দিয়ে চারার গোড়ার মাটি খুঁচিয়ে আলগা ও ঝুরঝুরে করে রাখতে হবে। শিমের খরা সহ্য করার ক্ষমতা থাকলেও বৃষ্টির অভাবে মাটিতে রসের ঘাটতি হলে পানি সেচ দিতে হবে।

শিমের জমিতে সার উপরি প্রয়োগের কাজ দুই কিস্তিতে করতে হয়। প্রথম কিস্তি চারা গজানোর এক মাস পর এবং দ্বিতীয় কিস্তি গাছে দুই-চারটি ফুল ধরার সময়। প্রতি কিস্তিতে মাদা প্রতি ২৫ গ্রাম ইউরিয়া ও ২৫ গ্রাম এমওপি সার গাছের গোড়ার চারদিকে (গোড়া থেকে ১০ থেকে ১৫ সেন্টিমিটার দূরে) উপরি প্রয়োগ করে মাটির সাথে ভালোভাবে মিশিয়ে দিতে হবে।

সার প্রয়োগের সময় মাটিতে রসের অভাব হলে ঝাঁঝরি দিয়ে পানি সেচ দিতে হবে।

দেশি শিমের পাতায় কালো দাগ ও ফোস্কা পড়া দেখা দিলে মেনকোজেব জাতীয় ছত্রাকনাশক স্প্রে করতে হয়। আর পাতায় হলুদ মোজাইক রোগ হলে গাছটি তুলে পুড়িয়ে ফেলতে হয়। রোগটি জ্যাসিড বা সাদা মাছির কারণে হয়। এজন্য অন্যান্য সুস্থ গাছে ইমিডাক্লোরপিড বা ফেনথিয়ন গ্রুপের কীটনাশক স্প্রে করে জ্যাসিড বা সাদামাছি নিয়ন্ত্রণ করতে হয়।

Nogod-22-10-2022

শিকড় পচা রোগ হলে আক্রান্ত গাছ তুলে বাকি গাছে ও মাটিতে ভালো করে কার্বেন্ডাজিম জাতীয় ছত্রাকনাশক স্প্রে করতে হয়। শিমের গোড়া ও শিকড় পচা রোগ সাধারণত বর্ষার শুরুতে বা অতি বর্ষণের ফলে গোড়ায় পানি জমলে হয়। তবে মাঝে মাঝে আবহাওয়ার আর্দ্রতা বেড়ে গেলে ও উচ্চ তাপমাত্রায় গোড়া পচা রোগের প্রকোপ দেখা দেয়।

গাছের বৃদ্ধির যেকোনো অবস্থাতেই এ রোগ হতে পারে। মাটির ঠিক উপরে গাছের কাণ্ডে লালচে বাদামি দাগ পড়ে। ধীরে ধীরে এই দাগ বিস্তার লাভ করে। বেশি হলে শিকড়েও ছড়িয়ে পড়ে। আক্রান্ত অংশ আস্তে আস্তে শুকিয়ে যায় ফলে গাছ দুর্বল হয়। ফলন কম হয়, কখনো কখনো গাছ মরেও যেতে পারে।

চারা অবস্থায় আক্রান্ত হলে চারা মারা যায়। অন্য সুস্থ গাছে বিশেষ করে গাছের গোড়ায় কপারযুক্ত ছত্রাকনাশক বা বাড়িতে তৈরি বোর্দো মিশ্রণ ৭ দিন পরপর ২ থেকে ৩ বার স্প্রে করলে সুফল পাওয়া যায়।

দেশী শিমগাছের বয়স্ক অবস্থায় মোজাইক বা মরিচা রোগ দেখা যায়। এটি ছত্রাকঘটিত রোগ। মাঘ মাসের শুরুর দিকে বিশেষ করে এ সময় দু-এক পশলা বৃষ্টি হলে বা বেশি কুয়াশা হলে এই রোগ দেখা দেয়।

শিম গাছের পাতায় বিশেষ করে নিচের দিকের পুরনো পাতায়, কাণ্ডে ও ডগায় বা কখনো কখনো শুঁটিতে মরিচা রোগের আক্রমণ দেখা যায়। এর আক্রমণে ছোট ছোট বাদামি ধূসর রঙের দাগ পড়ে পাতায়। পরে দাগগুলো আকারে বাড়ে, গোলাকার বা কোণবিশিষ্ট হয় এবং গাঢ় বাদামি রং ধারণ করে। শেষে বড় দাগগুলো কালো রঙে রূপান্তরিত হয়।

সাধারণত দাগগুলো একত্রিত হয়ে এক জায়গায় থাকে এবং অনেক সময় পরস্পর মিশে গিয়ে বড় দাগের সৃষ্টি করে। মরিচা রোগ প্রতিকারের ভালো উপায় হচ্ছে রোগ প্রতিরোধী জাতের চাষ করা। বারি ও ইপসা জাতের শিমগুলো এই রোগ প্রতিরোধী। একবার এ রোগে গাছ আক্রান্ত হলে রোগ দমন করা যায় না। গাছ তুলে পুড়িয়ে ফেলতে হয়।

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

এগ্রিবিজনেস

সারের কৃত্রিম সংকট রোধে ডিলারদের ৫৭ লাখ টাকা জরিমানা: কৃষিমন্ত্রী

Published

on

সারের কৃত্রিম সংকট ও কারসাজি রোধে সারা দেশে আগস্ট মাসে ৩৮৩টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। এর মাধ্যমে বিভিন্ন অনিয়মে জড়িত ৩৮৩জন ডিলার ও খুচরা ব্যবসায়ীকে ৫৭ লাখ ৬৮ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক।

মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) বিকালে সচিবালয়ে ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত পাম ভিয়েট চিয়েনের সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। এসময় কৃষিসচিব মো. সায়েদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, শুধু জরিমানা নয়, সার কারসাজিতে জড়িত ডিলারদের লাইসেন্স বাতিল করা হবে। লাইসেন্স দিয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয়। সেজন্য, লাইসেন্স বাতিলের জন্য তাদের নাম শিল্প মন্ত্রণালয়ে প্রেরণের কাজ চলছে।

তিনি বলেন, আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত সারের মজুতে কোন সমস্যা নেই। গুদামে পর্যাপ্ত সার রয়েছে। একইসাথে, গত বছরের তুলনায় এ বছর বরাদ্দও বেশি দেয়া হয়েছে। তারপরও কোথাও কোথাও সারের সংকটের কথা শুনা যাচ্ছে। এটি হতে পারে না। ডিলার ও খুচরা ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি মাঠ প্রশাসন বা মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের কারো গাফিলতি পাওয়া গেলে-তাদেরকেও শাস্তির আওতায় আনা হবে।

Nogod-22-10-2022

এমওপি সার প্রসঙ্গে মন্ত্রী জানান,আগস্ট মাসে আজকে পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারিভাবে আমদানিকৃত ১ লাখ ৮০ হাজার টন এমওপি সার দেশে পৌঁছেছে। আগামী সেপ্টেম্বর মাসে ১ লাখ ১৬ হাজার টন সার দেশে পৌঁছবে। অন্যদিকে, সেপ্টেম্বরে ৫১ হাজার টন ও অক্টোবরে ৭০ হাজার টন এমওপি সারের চাহিদা রয়েছে। ফলে চাহিদার চেয়ে মজুত অনেক বেশি থাকবে।

উল্লেখ্য, চাহিদার বিপরীতে দেশে সব রকমের সারের পর্যাপ্ত মজুত রয়েছে। বর্তমানে (২৫ আগস্ট) ইউরিয়া সারের মজুত ৬ লাখ ৫৬ হাজার মেট্রিক টন, টিএসপি ৩ লাখ ৯৪ হাজার টন, ডিএপি ৮ লাখ ২৩ হাজার টন, এমওপি ২ লাখ ৭৩ হাজার টন। সারের বর্তমান মজুতের বিপরীতে আমন মৌসুমে (আগস্ট থেকে অক্টোবর মাস পর্যন্ত) সারের চাহিদা হলো ইউরিয়া ৬ লাখ ১৯ হাজার টন, টিএসপি ১ লাখ ১৯ হাজার টন, ডিএপি ২ লাখ ২৫ হাজার টন, এমওপি ১ লাখ ৩৭ হাজার টন। বিগত বছরের একই সময়ের তুলনায়ও সারের বর্তমান মজুত বেশি।

চালের দাম শিগগিরই কমবে উল্লেখ করে মন্ত্রী আরও বলেন, ভিয়েতনাম থেকে ২ লাখ ৩০ হাজার টন চাল আনা হচ্ছে। জিটুজি ভিত্তিতে এ চাল আনা হচ্ছে। চাল আসতে ১৫-২০ দিন লাগতে পারে। এছাড়া, রাশিয়া থেকে ৩ লাখ টন গম আনা হচ্ছে। অন্যদিকে, দেশে প্রায় ১৮ লাখ টন খাদ্য মজুত আছে। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ৫০ লাখ পরিবারকে ১৫ টাকা কেজিতে চাল দেয়া হবে। এছাড়া, টিসিবির মাধ্যমে ১ কোটি পরিবারকে ৩০ টাকা কেজিতে চাল বিতরণ করা হবে। ওএমএসেও চাল বিক্রি করা হবে। সব মিলিয়ে চালের দাম শিগগিরই কমবে।

এর আগে ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূতের সাথে বৈঠকে দুদেশের কৃষি সহযোগিতা বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা হয়। ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত পাম ভিয়েট চিয়েন বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম ও নেদারল্যান্ডসের মধ্যে কৃষি সহযোগিতার জন্য ত্রিপক্ষীয় চুক্তি করার প্রস্তাব প্রদান করেন। তিনি বলেন, ভিয়েতনাম ও নেদারল্যান্ডসের মধ্যে কৃষি সহযোগিতা রয়েছে। নেদারল্যান্ডসের সহযোগিতার ফলে ভিয়েতনামের কৃষি উন্নত হয়েছে। যেহেতু তিনটি দেশই ডেল্টা, কাজেই তাদের পারস্পরিক সহযোগিতায় সবপক্ষই উপকৃত হবে।

ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত জানান, কাজুবাদাম রপ্তানিতে ভিয়েতনাম বর্তমানে প্রথম এবং কফি রপ্তানিতে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। কাজুবাদাম-কফি রপ্তানির ৫০% সে দেশে উৎপাদিত হয়, বাকীটা ভারত ও আফ্রিকার দেশসমূহ থেকে এনে প্রক্রিয়াজাত করা হয়।

বাংলাদেশে কাজুবাদাম ও কফির চাষ সম্প্রসারণে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে জানিয়ে কৃষিমন্ত্রী এক্ষেত্রে ভিয়েতনামের সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি বলেন,গত ২ বছরে আমরা ২০ লাখ কাজুবাদামের চারা কৃষকদেরকে দিয়েছি। ইতোমধ্যে এসব গাছে কাজুবাদামের ফলন শুরু হয়েছে। আশা করছি, কাজুবাদাম উৎপাদনে বাংলাদেশও ভাল করবে।

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

এগ্রিবিজনেস

দেশে কোনোদিন খাদ্য সংকট হবে না: কৃষিমন্ত্রী

Published

on

দেশে ভবিষ্যতে আর কোনোদিন খাদ্য সংকট হবে না জানিয়ে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, দেশ থেকে মঙ্গা শব্দ মুছে গেছে।

সোমবার (২৯ আগস্ট) বিকেলে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে সেচভবন মিলনায়তনে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন আয়োজিত দোয়া ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশের সাড়ে ১৬ কোটি মানুষের খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করা খুবই চ্যালেঞ্জিং। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বর্তমান সরকার বহুমুখী পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। পুরোনো কম উৎপাদনশীল ধানের জাত ব্রি-২৮ ও ২৯ এর পরিবর্তে উচ্চ উৎপাদনশীল নতুন জাত ব্রি-৮৮, ৮৯, ৯২ ও বঙ্গবন্ধু ধান-১০০ এর চাষ দ্রুত সম্প্রসারণে কাজ চলছে। সেগুলো ব্যস্তবায়ন করে ভবিষ্যতের বাড়তি খাদ্য চাহিদা মোকাবিলা করা হবে।

এদিকে মন্ত্রী বলেন, জিয়াউর রহমান জাতিকে বিভক্ত করে গেছেন। সে না থাকলে এটি কখনোই সম্ভব হতো না। জিয়া ছিলেন ক্ষমতালোভী। তার কোনো আদর্শ ছিল না। মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিলেও তার চিন্তা-চেতনার মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আদর্শ প্রবেশ করেনি, জিয়া মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ গ্রহণও করেনি। সে জন্য জিয়া এ দেশে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিকে সমাজের সর্বত্র প্রতিষ্ঠিত করেছিল, দেশকে পাকিস্তানের ধারায় ফিরিয়ে নিতে চেয়েছিল।

Nogod-22-10-2022

তিনি আরও বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি এখনো সমাজের সর্বত্র ঘাপটি মেরে আছে। তারা সুযোগ পেলেই দেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করে। সুযোগ পেলেই তারা বলে রবীন্দ্রনাথের গান কেন বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত হবে। তারা এখনো বাংলাদেশের পতাকা নামিয়ে পাকিস্তানের পতাকা উত্তোলন করতে চায়।

ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দেশ ধ্বংস করতে নানা ষড়যন্ত্র চলছে। বিএনপি-জামায়াত, স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি ও কিছু বুদ্ধিজীবী সারাদিন কামনা করছে দেশ যেন দেউলিয়া হয়ে যায়। দেউলিয়া হলে অরাজকতা সৃষ্টি করে তারা আবার ক্ষমতায় আসবে- এই তাদের কামনা। কিন্তু তাদের এ স্বপ্ন পূরণ হবে না।

ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনের আহ্বায়ক সেলিম হোসেন ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে ও সদস্যসচিব মিন্টু খানের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শম রেজাউল করিম, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম, কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক সংসদ সদস্য উম্মে কুলসুম স্মৃতি, সংসদ সদস্য শাহাদারা মান্নান ও কৃষিসচিব মো. সায়েদুল ইসলাম।

এছাড়া বিএডিসির চেয়ারম্যান এএফএম হায়াতুল্লাহ, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক মো. হামিদুর রহমান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বেনজীর আলম, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক শাহজাহান কবীর, বিসিএস (কৃষি) অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি রেজওয়ানুল ইসলাম, বর্তমান সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সারাদেশ থেকে আগত ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনের সদস্যরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন
Advertisement
December 2022
S M T W T F S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031

কর্পোরেট সংবাদ

ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ার

ফেসবুকে অর্থসংবাদ