Connect with us

জাতীয়

মোবাইল কলরেট ও তামাক পণ্যে শুল্ক বৃদ্ধির ইঙ্গিত

Published

on

NBR

আগামী অর্থবছরের বাজেটে মোবাইল কল রেটের ওপর সম্পূরক শুল্ক ও তামাকজাত পণ্যের শুল্ক বৃদ্ধির চিন্তাভাবনা করছে সরকার। আগামী ১১ জুন ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার কথা রয়েছে। যদি সম্পূরক শুল্ক বাড়ানো হয়, তবে তা ঘোষণার দিন থেকেই এটা কার্যকর হবে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বাজেটে অর্থের সরবরাহ বৃদ্ধি ও তামাক বিরোধী সংগঠনগুলোর দাবির মুখে এ দুটি খাতে সম্পূরক শুল্ক বাড়াতে চায় এনবিআর। ইতোমধ্যে এনবিআর থেকে প্রস্তুতকৃত বাজেট প্রস্তাবনায় এমন প্রস্তাব যুক্ত করা হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে বাজেট প্রস্তাবের প্রকৃত সিদ্ধান্ত নেবে অর্থ মন্ত্রণালয়।

এনবিআরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে যেসব খাতে ক্ষতি কম হয়েছে ওইসব খাত থেকে সরকার ২০২০-২১ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে রাজস্ব বাড়ানোর পরিকল্পনা নিচ্ছে। সরকার চাচ্ছে জনজীবনে সরাসরি নেতিবাচক প্রভাব পড়ে এমন উৎসে করের বোঝা না চাপাতে। টেলিকম ও তামাক খাতসহ বেশকিছু খাতে করোনায় খুব বেশি প্রভাব পড়েনি। এসব বিবেচনায় এই খাতে সম্পূরক শুল্ক-কর কিছুটা বাড়ানোর চিন্তা করছে।

সূত্র জানায়, আসছে বাজেটে মোবাইল কল রেটে বিদ্যমান সম্পূরক শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করা হতে পারে। অর্থাৎ নতুন করে ৫ শতাংশ শুল্ক বৃদ্ধি পেতে পারে। বর্তমানে এছাড়াও মোবাইল ব্যবহারকারীরা টকটাইম এবং ক্ষুদে বার্তায় ১৫ শতাংশ ভ্যাট ও এক শতাংশ সারচার্জ রয়েছে।

Nogod-22-10-2022

আর মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারের ভ্যাট প্রযোজ্য আছে ৫ শতাংশ। অর্থাৎ সম্পূরক শুল্ক বাড়লে মোবাইল ফোনে কথা বলা, এসএমএস পাঠানো ও ইন্টারনেট ব্যবহারের খরচও বেড়ে যাবে। এক্ষেত্রে এনবিআরের যুক্তি হচ্ছে, সরকার করোনাভাইরাসের কারণে সাধারণ ছুটি আরোপের পর মোবাইল ফোন এবং ইন্টারনেটের ব্যবহার উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই হিসাবে এখান থেকে বড় আয় হতে পারে।

অন্যদিকে সিগারেট, বিড়ি, গুল ও জর্দাসহ তামাকজাত সামগ্রীর ওপর সম্পূরক শুল্ক বিভিন্ন ধাপে হতে পারে। বেশি রাজস্ব আদায়ের পরিকল্পনার অংশ হিসাবে এনবিআর সিগারেটের দামের স্ল্যাবগুলোও সংশোধন করতে পারে। তামাকবিরোধী সংস্থাগুলো স্বাস্থ্যের ওপর ক্ষতিকারক প্রভাব বিবেচনা করে তামাকজাত পণ্যের জন্য অতিরিক্ত শুল্কের দাবি করে আসছে।
এনবিআরের কাছে বাজেট প্রস্তাবগুলোতে সংগঠনগুলো অনুমান করেছিল যে, বাজেটে সিগারেটের জন্য নির্দিষ্ট কর এবং দ্বি-স্তরের মূল্য নির্ধারণের ব্যবস্থার মাধ্যমে এনবিআর প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত রাজস্ব আদায় করা সম্ভব।
বর্তমান দেশে মোট তামাক ব্যবহারকারী মানুষের সংখ্যা ৩ কোটি ৭৮ লাখের বেশি, যা মোট জনগোষ্ঠীর (১৫ বছর ও তদূর্ধ্ব) ৩৫.৩ শতাংশ। এর মধ্যে প্রায় ৪৮ শতাংশ অতিদরিদ্র জনগোষ্ঠী তামাক ব্যবহার করে, যা খুবই উদ্বেগজনক। এছাড়া ৪ কোটির বেশি মানুষেও ওপর ধূমপায়ীদের প্রভাব পড়ে।

এর আগে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সব ধরণের তামাক পণ্য উৎপাদন, সরবরাহ, বিপণন ও তামাকপাতা ক্রয়-বিক্রয় কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার এবং তামাক কোম্পানিগুলোকে দেয়া অনুমতিপত্র প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়ে শিল্প মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি পাঠিয়েছিল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেলের সমন্বয়কারী যুগ্ম সচিব মোঃ খায়রুল আলম শেখ স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে বলা হয়েছিল, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তামাককে কোভিড-১৯ সংক্রমণ সহায়ক হিসাবে চিহ্নিত করে এর ব্যবহার নিরুৎসাহিত করার কথা বলেছে।

ওই চিঠিতে আরও বলা হয়, কিন্তু তামাক কোম্পানিগুলোকে দেয়া উৎপাদন, সরবরাহ, ও বিপণন করার জন্য শিল্প মন্ত্রণালয়ের অনুমতিপত্র পরিস্থিতিকে জটিল করে তুলছে। জনস্বাস্থ্য সুরক্ষার স্বার্থে করোনাভাইরাসজনিত কোভিড-১৯ পরিস্থিতি মোকাবিলায় তামাক কোম্পানিকে প্রদত্ত অনুমতি প্রত্যাহারসহ সকল তামাক কোম্পানির উৎপাদন-সরবরাহ-বিপণন ও তামাকপাতা ক্রয়-বিক্রয় কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।’’

এই বিষয়ে শিল্প মন্ত্রণালয়ে একটি ভার্চুয়াল বৈঠকে শিল্প মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিবের পাশাপাশি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শীর্ষ কর্মকর্তারা যোগ দেন। সেখানে আলোচনার পর সিদ্ধান্ত হয় যে রাতারাতি এই খাত বন্ধ করে দেয়ার মতো সিদ্ধান্ত নেয়া ঠিক হবে না।

এর কারণ হিসাবে শিল্প সচিব মোঃ আবদুল হালিম বলেন, কয়েকটি বিষয় বিবেচনায় নিয়ে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তারা তামাক পাতা ক্রয় করা যাবে না বলে বলছে। কিন্তু তামাক পাতার সঙ্গে অসংখ্য চাষী জড়িত। তাহলে তো ওই চাষীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। দ্বিতীয়ত হলো, আমরা যদি বৈধভাবে উৎপাদন বিপণন বন্ধ করে দেই, তার মানে এই নয় যে ধূমপায়ীরা ধূমপান করবেন না। তখন কালোবাজারি হবে, সরকার রাজস্ব হারাবে। আমরা তামাকের প্রসার বা প্রচারের পক্ষে নই। আস্তে আস্তে এটা কমিয়ে আনতে হবে। এটা একটা শিল্প, এখানে প্রচুর লোকজন কাজ করছে। সুতরাং এখান থেকে অন্যদিকে শিফট করতে গেলে, সময় নিয়ে নিয়ে, কৌশল ঠিক করে সেটা করতে হবে। এই শিল্প কোথায় যাবে, লোকগুলো কোথায় যাবে – সেটা একটা সময়ের ব্যাপার।

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

জাতীয়

বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে চাই: প্রধানমন্ত্রী

Published

on

আমাদের সৌভাগ্য ২০২১ সালে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। আমরা যেহেতু ২০২১ সালে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছি, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে আমরা উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। আজকের নবীন অফিসাররাই হবে ২০৪১ সালের সৈনিক। যারা বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার (৪ ডিসেম্বর) চট্টগ্রামের ভাটিয়ারীর বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে (বিএমএ) ৮৩তম বিএমএ দীর্ঘমেয়াদি কোর্সের রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ পরিদর্শনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

দুর্যোগ-দুর্বিপাকে সেনাবাহিনী যথাযথ ভূমিকা পালন করছে। শক্তিশালী ও পেশাদার সেনাবাহিনী গড়ে তুলতে সর্বাধুনিক ও সময়োপযোগী যুদ্ধাস্ত্র ক্রয় করছে সরকার।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ।

Nogod-22-10-2022

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৭৫ সালের পর দীর্ঘ ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে। তখন সেনাবাহিনীকে আধুনিকায়ন করার পদক্ষেপ নেওয়া হয়। আমরা শান্তি চাই, যুদ্ধ নয়। জাতির পিতাই বলেছেন- সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়, আমরা তা মেনে চলছি।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের জনগণের আর্থসামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্য স্থির করে আমাদের সুবর্ণজয়ন্তী ২০২১ সাল পালন করেছি। ২০২০ সালে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী পালন করেছি।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় সীতাকুণ্ডের ভাটিয়ারীর বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে (বিএমএ) পৌঁছান তিনি। সেখান থেকে দুপুরে পলোগ্রাউন্ড পাঠে জনসভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে তিনি ভাষণ দেবেন।

এদিকে জনসভা উপলক্ষে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। নগরের অলিগলি রাজপথ ছেয়ে গেছে পোস্টার, ব্যানার ও তোরণে। সকাল থেকেই মিছিল নিয়ে জনসভাস্থলে যাচ্ছেন নেতাকর্মীরা। এরই মধ্যে জনসভা ঘিরে নিরাপত্তাব্যবস্থা নিয়েছে পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এই জনসভার আয়োজন করা হয়েছে।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রাম সফরে ৩০টি প্রকল্পের উদ্বোধন এবং চারটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। এজন্য জনসভার মঞ্চের পাশে ভিত্তিফলকগুলো স্থাপন করা হয়েছে।

অর্থসংবাদ/কেএ

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

অর্থনীতি

ইসলামী ব্যাংক থেকে ঋণ অর্থপাচার কিনা অনুসন্ধানের নির্দেশ

Published

on

ইসলামী ব্যাংক থেকে এস আলম গ্রুপসহ পৃথক চারটি প্রতিষ্ঠানের নামে ৩৪ হাজার ৩৬০ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার ঘটনায় অর্থপাচার হয়েছে কি না সেটি দুদক ও বিএফআইইউ সংশ্লিষ্টদের অনুসন্ধান করার জন্যে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

অনুসন্ধান শেষে চার মাসের মধ্যে এ বিষয়ে অগ্রগতি প্রতিবেদন জমা দেওয়া জন্য বলা হয়েছে সংশ্লিষ্টদের।

এছাড়া বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে অর্থ লোপাটের ঘটনায় কর্তৃপক্ষের নিষ্ক্রিয়তাকে কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না এবং তাদের বিরুদ্ধে কেন যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত। একই সঙ্গে এস আলম গ্রুপের চেয়ারম্যানকে বলা হয়েছে তাদের সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে এ আদেশ দেন।

Nogod-22-10-2022

অর্থসংবাদ/কেএ

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

জাতীয়

যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না কাল

Published

on

গ্যাস পাইপ লাইন কাজের জন্য আগামীকাল সোমবার ঢাকার আশেপাশে বিভিন্ন এলাকায় সব শ্রেণির গ্রাহকদের ১২ ঘণ্টা গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের পক্ষ থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গ্যাস পাইপ লাইনের জরুরি টাই-ইন কাজের জন্য আগামী ৫ ডিসেম্বর সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, সাভার ক্যান্টনমেন্ট, সাভার চামড়া শিল্প এলাকা, পাবলিক সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারসহ সাভারের আওতাধীন এলাকায় সকল শ্রেণির গ্রাহকদের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে এবং আশেপাশের এলাকায় গ্যাসের স্বল্পছা বিরাজ করতে পারে।

গ্রাহকদের সাময়িক অসুবিধার জন্য তিতাস কর্তৃপক্ষ দুঃখ প্রকাশ করেছে।

Nogod-22-10-2022

অর্থসংবাদ/এসএম

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

জাতীয়

আজ চট্টগ্রামে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

Published

on

দশ বছর আগে চট্টগ্রামের পলোগ্রাউন্ড মাঠে সর্বশেষ জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বন্দরনগরীর উন্নয়নের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন। ছয় বছর পর ২০১৮ সালে পটিয়ার জনসভায় সেই দায়িত্বের কথা মনে আছে জানিয়ে কিছুটা সময় চেয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, নির্ধারিত সময়েই চট্টগ্রাম উন্নয়নের সব প্রকল্প শেষ হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার দেওয়া প্রতিশ্রুতি পূরণ করেছেন বলে মনে করেন চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। দশ বছর পর আজ তিনি যে চট্টগ্রামে আসছেন, সেটা উন্নয়নের ছোঁয়ায় বদলে যাওয়া এক নতুন বন্দরনগরী। যার প্রতিশ্রুতি তিনি দিয়েছিলেন দশ বছর আগে। স্থানীয় নেতাকর্মীরা বলছেন প্রধানমন্ত্রী কথা রেখেছেন।

দেশে উন্নয়ন হয়নি, বাংলাদেশ শ্রীলংকার পথে যাচ্ছে-দাবি করে বিএনপি নেতারা সারা দেশ ঘুরে জনগণকে সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে নামার ডাক দিচ্ছেন। এমন একটি সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রামবাসীকে তাদের নিজের আয়নায় দেখাবেন উন্নয়নের বাস্তব চিত্র। সেই আয়োজনেই আজ তিনি বন্দরনগরী চট্টগ্রামে আসছেন। বিকালে ভাষণ দেবেন ঐতিহাসিক পলোগ্রাউন্ড মাঠের জনসভায়। সেখানে চট্টগ্রামের উন্নয়নে গৃহীত সব প্রকল্পের চিত্র এক এক করে তুলে ধরবেন শেখ হাসিনা। চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ এই জনসভার আয়োজন করেছে। দেড় মাস আগে (১২ অক্টোবর) এই পলোগ্রাউন্ড মাঠেই বিএনপির জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা এ সরকারের সমালোচনা করে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

সরকারের গৃহীত উন্নয়নমূলক কর্মসূচি তুলে ধরতে এবং বিএনপির ‘মিথ্যাচার’র জবাব দিতে সংসদ নির্বাচনের আগে সারা দেশ সফরের ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসাবে চট্টগ্রামে জনসভায় আজ ভাষণ দেবেন শেখ হাসিনা। সেই সঙ্গে ৩০টি প্রকল্প উদ্বোধন করবেন তিনি। এছাড়া আজ চট্টগ্রামের ভাটিয়ারিতে বাংলাদেশ মিলিটারি অ্যাকাডেমিতে ৮৩ বিএমএ দীর্ঘমেয়াদি কোর্সের কমিশন প্রাপ্তি উপলক্ষ্যে আয়োজিত ‘রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ-২০২২’-এ যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে ২৪ নভেম্বর তিনি যশোরে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় বক্তৃতা করেন। ৭ ডিসেম্বর সমুদ্রসৈকতের শহর কক্সবাজারে আরেকটি জনসভায় ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত তার এই জেলা ও মহানগর সফর কর্মসূচি চলতেই থাকবে বলে জানিয়েছে আওয়ামী লীগ।

ব্যাপক প্রস্তুতি : দীর্ঘ দশ বছর পর বন্দরনগরীতে আসছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। তাই প্রস্তুতির যেন শেষ নেই। স্থানীয় আওয়ামী লীগ এবং ভ্রাতৃপ্রতিম ও সহযোগী সংগঠনগুলো পলোগ্রাউন্ড মাঠের এই জনসভা সফল করতে গত এক মাস ধরে প্রস্তুতি নিচ্ছে। গোটা বন্দরনগরী সেজেছে নতুন রূপে। প্রধানমন্ত্রীর জনসভাকে স্মরণকালের বৃহৎ জনসভায় রূপ দেওয়ার জন্য আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ঘুম হারাম করা প্রস্তুতি শেষ। এই জনসভাকে কেন্দ্র করে নেতাকর্মীদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা। পুরো শহরে বিরাজ করছে সাজ সাজ রব। ব্যানার-ফেস্টুন আর তোরণের নগরীতে পরিণত হয়েছে চট্টগ্রাম। আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের অনেকেই প্রস্তুতি দেখতে এক সপ্তাহ আগে থেকেই চট্টগ্রাম অবস্থান করছেন। শনিবার সকালে শীর্ষ নেতারা মাঠ পরিদর্শন করে সর্বশেষ প্রস্তুতির বিষয়টি পরখ করেন।

Nogod-22-10-2022

মাঠ পরিদর্শন শেষে গণমাধ্যমকে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর জনসভা উপলক্ষ্যে চট্টগ্রামজুড়ে ব্যাপক সাড়া জেগেছে, মানুষের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। আমরা আশা করছি পলোগ্রাউন্ডের মাঠ পূর্ণ করে মাঠের বাইরে আরও আট-দশগুণ মানুষ হবে।

চট্টগ্রামে এ সরকারের মেয়াদের উল্লেখযোগ্য প্রকল্প : বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর ১৪ বছরে চট্টগ্রামে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। এতে ব্যয় হয়েছে হাজার হাজার কোটি টাকা। নগরীতে তিনটি ফ্লাইওভার নির্মাণ করেছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (চউক)। সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে চট্টগ্রামের লালখান বাজার থেকে শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পর্যন্ত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের কাজ চলছে। বহদ্দারহাট থেকে নতুন ব্রিজ পর্যন্ত ৬ লেনের সংযোগ সড়ক হয়েছে। কর্ণফুলীর তীর ঘেঁষে রিংরোড, মেরিনড্রাইভ সড়ক নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে। মীরসরাইয়ে ৩০ হাজার একর জমিতে হচ্ছে বঙ্গবন্ধু শিল্পপার্ক। দোহাজারি থেকে ঘুনধুম পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণের কাজ শেষের পথে। চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতা নিরসনে ৫ হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ চলমান। ১০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম টানেল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেলের নির্মাণ কাজও শেষের পথে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি এই টানেলের প্রথম টিউবের উদ্বোধন করেছেন ২৬ নভেম্বর। চট্টগ্রামে মেট্রোরেলের সমীক্ষার জন্যও প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে নির্দেশ দিয়েছেন।

কালুরঘাট সেতু নির্মাণ ও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক ফোরলেনে উন্নীত করার দাবি : আজকের জনসভা থেকে চট্টগ্রামবাসী সুনির্দিষ্টভাবে কালুরঘাট সেতু নির্মাণ ও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক ফোরলেনে উন্নীত করার ঘোষণা প্রত্যাশা করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে।

যে ৩০ প্রকল্প আজ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ জনসভা থেকে ৩০টি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন ঘোষণা করবেন। চারটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। এসব প্রকল্পের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রকল্পই বেশি রয়েছে। যে চারটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হবে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে-নৌ পরিবহণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে মীরসরাই ও সন্দ্বীপ অংশে জেটিসহ আনুষঙ্গিক স্থাপনাদি নির্মাণ। আনোয়ারায় বাংলাদেশ মেরিন অ্যাকাডেমির আধুনিকীকরণ, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অধীনে পাঁচলাইশ আবাসিক এলাকায় আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসম্পন্ন জাতিসংঘ সবুজ উদ্যান এবং বিদ্যুৎ বিভাগের অধীনে চট্টগ্রামের বিপিসি ভবন নির্মাণ প্রকল্প।

অর্থসংবাদ/কেএ

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন

জাতীয়

পরিবহন খাতে বিদ্যুৎ ব্যবহার করবে সরকার: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

Published

on

পরিবহন খাতে বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিকল্পনা রয়েছে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, পরিবহন খাতে অনেক জ্বালানি খরচ হচ্ছে। ইউরোপ ও আমেরিকাতে পরিবহনে বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হচ্ছে। যা অনেক সাশ্রয়ী। আমাদের তেল খরচ কমাতে হবে। সেক্ষেত্রে পরিবহনে ইলেকট্রিসিটি ব্যবহারের পরিকল্পনা রয়েছে।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) বিদ্যুৎ ভবনে আয়োজিত ‘এনার্জি ট্রানজিশন: গ্লোবাল কনটেক্স অ্যান্ড বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের সমস্যা হলো লেস কস্ট এনার্জি। ভোক্তার কাছে যেন সাশ্রয়ী মূল্যে বিদ্যুৎ পৌঁছাতে পারি সে বিষয়টা দেখতে হবে। আমাদের বিশেষ করে শিল্পখাতে জরুরি গ্যাস দরকার হচ্ছে। তারা বলছে, আমার কালকে গ্যাস দরকার। আপনারা কবে ড্রিল করবেন, কবে উত্তোলন করবেন, আমাদের সেই সময় নেই। সেটা একটা বিষয়।

তিনি আরও বলেন, একসময় বিশ্ব চিন্তা করেছে তেল দিয়েই সব চলবে। তখন চিন্তা ছিল না গ্যাস এলএনজি করে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নেওয়া যাবে। ১৫-২০ বছর আগেও সে চিন্তা ছিল না। এখন সেটা বাস্তবতা। সমানে আরও টেকনোলজির দিকে আগাচ্ছে বিশ্ব।

Nogod-22-10-2022

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মাহবুব হাসান, বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব হাবিবুর রহমান, ডিজি মোহাম্মদ হোসাইন, জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. ম তামিম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ও জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. বদরূল ইমাম প্রমুখ।

অর্থসংবাদ/এসএম

শেয়ার করুন:
(অর্থসংবাদে প্রকাশিত কোনও তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।)
পুরো সংবাদটি পড়ুন
Advertisement
December 2022
S M T W T F S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031

কর্পোরেট সংবাদ

ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ার

ফেসবুকে অর্থসংবাদ