Connect with us

পর্যটন

চট্টগ্রাম-কলকাতা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করবে ইউএস-বাংলা

Published

on

জরুরি নিয়োগ

চট্টগ্রাম থেকে কলকাতায় ফ্লাইট পরিচালনা করবে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে প্রতিদিন বেলা ১১টা ১০ মিনিটে চট্টগ্রামের হযরত শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে কলকাতার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে এবং স্থানীয় সময় বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে কলকাতায় অবতরণ করবে।

একই দিন দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে কলকাতা থেকে উড্ডয়ন করে চট্টগ্রামে দুপুর ২টা ১০ মিনিটে পৌঁছাবে।

চট্টগ্রাম-কলকাতা রুটে ওয়ানওয়ের জন্য সর্বনিম্ন ভাড়া ৮ হাজার ৭৬০ টাকা এবং রিটার্ন ভাড়া ১৬ হাজার ৫৩৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ভাড়ায় সব ধরনের ট্যাক্স ও সারচার্জ অন্তর্ভূক্ত।

ইউএস-বাংলার মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) কামরুল ইসলাম জানান, চট্টগ্রাম থেকে অসংখ্য পর্যটক, শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ীরা ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে ভ্রমণ করে। চট্টগ্রাম থেকে কলকাতা ছাড়াও প্রতিদিন ঢাকা থেকে দুবার কলকাতা ও একবার চেন্নাই ফ্লাইট পরিচালনা করছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স।

শেয়ার করুন:

পর্যটন

‘চোখ ওঠা’ রোগীদের বিদেশ ভ্রমণ না করার অনুরোধ

Published

on

ফ্লাইট

অতি ছোঁয়াচে ‘চোখ ওঠা’ রোগ ছড়িয়ে পড়েছে রাজধানীতে। এ রোগে আক্রান্ত যাত্রীদের বিদেশ ভ্রমণ না করার অনুরোধ জানিয়েছে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ অনুরোধ জানান বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন মো. কামরুল ইসলাম।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্বাস্থ্য বিভাগে প্রতিদিন চোখ ওঠা আক্রান্ত বহির্গামী যাত্রী দেখা যাচ্ছে। এ প্রেক্ষিতে যাত্রীদের সুবিধার্থে বিদেশগামীদের চোখ ওঠার লক্ষণ প্রকাশের সাতদিনের মধ্যে সম্ভব হলে বিদেশ ভ্রমণ না করার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে।

এতে বলা হয়, তবে কোনো যাত্রীর যদি ভিসা সংক্রান্ত জটিলতা থাকে অথবা বিদেশ যাওয়া জরুরি হয় সেক্ষেত্রে চোখ ওঠা রোগে আক্রান্ত যাত্রী ভ্রমণ করলে বিএমডিসি রেজিস্টার্ড একজন চক্ষু বিশেষজ্ঞ অথবা এমবিবিএস ডাক্তারের শরণাপন্ন হবেন। পাশাপাশি উপযুক্ত প্রেসক্রিপশন, প্রয়োজনীয় ওষুধ এবং সানগ্লাস পরে বিমানবন্দরে উপস্থিত হবেন।

বিমানবন্দর স্বাস্থ্য বিভাগের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা রোগীর অবস্থা পর্যবেক্ষণ এবং উল্লেখিত ডকুমেন্টস যাচাই করে যাত্রীকে ভ্রমণের ফিটনেস সার্টিফিকেট দেবেন বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

রাজধানীতে বাড়ছে ‘চোখ ওঠা’ রোগ। অতি ছোঁয়াচে এ রোগ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে সর্বত্র দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। চক্ষু বিশেষজ্ঞরা অবশ্য বলছেন, চোখ উঠলে চিন্তার কিছু নেই। এ রোগে আক্রান্ত হলে শিশুরা পাঁচদিন আর প্রাপ্তবয়স্করা সাত বা সর্বোচ্চ ১০ দিনের মধ্যে সুস্থ হয়ে ওঠেন। তবে আক্রান্ত ব্যক্তিকে আইসোলেশনে (আলাদা) থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা।

চোখ ওঠা রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির চোখের ছোট ছোট রক্তনালী ফুলে যায়। ফুলে থাকা রক্তনালীগুলোর কারণেই চোখের রং লালচে হয়ে যায়, যেটাকে চোখ ওঠা বা ‘কনজাংকটিভাইটিস’ বলা হয়। যাদের বেশি চোখ ও মাথা ব্যথা থাকে তাদের কারও কারও অ্যান্টিবায়োটিক ড্রপ ব্যবহারের পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা।

শেয়ার করুন:
পুরো সংবাদটি পড়ুন

পর্যটন

অবশেষে পর্যটকদের ভ্রমণের সুযোগ দিচ্ছে ভুটান

Published

on

ফ্লাইট

দীর্ঘদিন পর অবশেষে আন্তর্জাতিক পর্যটকদের জন্য সীমান্ত উন্মুক্ত করছে ভুটান। ফলে শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) থেকে পুনরায় ভুটানে ভ্রমণের সুযোগ পাচ্ছেন বিভিন্ন দেশের পর্যটকরা।করোনা মহামারির কারণে প্রায় আড়াই বছর নিজেদের সীমান্ত বন্ধ রেখেছিল দেশটি।

পর্যটন শুল্কের ক্ষেত্রে টেকসই উন্নয়ন ফি নামে একটি সংশোধন এনেছে ভুটান। গত তিন দশক ধরে টেকসই উন্নয়ন ফি ৬৫ ডলার রাখা হলেও এখন তা বাড়িয়ে দুইশ ডলারে উন্নীত করা হয়েছে। ফলে দেশটিতে ভ্রমণের ক্ষেত্রে এখন থেকে পর্যটকদের অতিরিক্ত অর্থ গুনতে হবে।

২০২০ সালের মার্চে পর্যটকদের জন্য দুয়ার বন্ধ করে দেয় ভুটান। করোনার প্রথম কেস শনাক্ত হওয়ার পরই দেশটির সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিন্তু দেশটির আয়ের অন্যতম উৎসই পর্যটন। তাই দীর্ঘদিন ধরে সীমান্ত বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়তে হয়েছে ভুটানকে।

দেশটির জনসংখ্যা ৮ লাখের কিছু কম। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৬১ হাজারের বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এছাড়া মারা গেছে ২১ জন। ভুটানে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা কম হলেও গত দুই বছর সীমান্ত বন্ধ থাকায় অর্থনীতি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফলে দেশে দারিদ্র্য বেড়েছে।

২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর চীনে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। ভুটান করোনার বিরুদ্ধে লড়াই শুরু করে ২০২০ সালের ১৫ জানুয়ারি থেকে। শুরু হয় উপসর্গের ভিত্তিতে নমুনা পরীক্ষা। ওই বছরের ৬ মার্চ ভুটানে প্রথম আক্রান্তের খবর মেলে। সে সময় আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা ৩০০ জনকে চিহ্নিত করে নমুনা পরীক্ষা শুরু হয়। তাদের নেগেটিভ রিপোর্ট আসলেও পাঠানো হয় কোয়ারেন্টাইনে। নিয়ন্ত্রিত এমন পরিকল্পনার কারণে ছোট্ট দেশটি করোনা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হয়।

ভুটানের প্রধান অর্থনীতি পর্যটন হওয়া সত্ত্বেও কঠোর হাতে বিদেশিদের আগমন বন্ধ রাখে ভুটান। প্রায় সব রেস্টুরেন্ট, শপিংমল, জিম বন্ধ করে দেওয়া হয়। মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহারে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়। যারা বিদেশ থেকে এসেছিলেন, তাদের জন্য সরকারি খরচে থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়।

কোনো উপসর্গ দেখা দিলেই যাতে সঙ্গে সঙ্গে সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে যাওয়া যায় সেই ব্যবস্থাও করা হয়। ভুটানে ১৪ থেকে ২১ দিনের কোয়ারেন্টাইনও চালু করা হয়। এতে সংক্রমণের আশঙ্কাও কমেছে। একই সঙ্গে গণহারে করোনা পরীক্ষা চালু করে ভুটান।

এছাড়া করোনাকালে যাদের উপার্জন কমেছে, তাদের ভিটামিন ট্যাবলেটসহ ওষুধ, খাবার, পাঠানো থেকে শুরু করে সব ব্যবস্থা করেছে কর্তৃপক্ষ। এর সুফলও পেয়েছে তারা।

শেয়ার করুন:
পুরো সংবাদটি পড়ুন

পর্যটন

যশোর থেকে যাত্রী সংকটে বন্ধ ৭টি ফ্লাইট

Published

on

ফ্লাইট

পদ্মা সেতুর কারণে সড়ক পথে যাতায়াত সহজ হওয়ায় যশোর-ঢাকা রুটে বিমানে যাত্রী সংকট দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে উল্লেখিত রুটের ৭টি ফ্লাইট বন্ধ করে দিয়েছে দুটি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র মতে, যশোর-ঢাকা রুটে চলতি বছরের শুরু থেকে গত জুন মাস পর্যন্ত তিনটি এয়ারলাইন্সের ১৫টি ফ্লাইট চলাচল করতো। এগুলো হলো, বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, ইউএস বাংলা এবং নভোএয়ার। এ সময় যশোর বিমানবন্দর যাত্রীদের পদচারণায় মুখর ছিল। বিমানের টিকিটও সহজলভ্য ছিল না। চাহিদার কারণে দ্বিগুণ দাম দিয়ে যাত্রীদের বিমানের টিকিট সংগ্রহ করতে হতো।

কিন্তু গত ২৫ জুন দেশের সর্ববৃহৎ পদ্মা সেতু চালু হবার পর পরিস্থিতির পরিবর্তন হয়েছে। খুলনা ও সাতক্ষীরা জেলার ৭০ ভাগ মানুষ আকাশ পথে ঢাকায় যাতায়াত করছে না। তারা সড়ক পথে পদ্মা সেতু দিয়ে কম সময়ে ঢাকা যাচ্ছে। যশোর ও ঝিনাইদহের ৩০ ভাগ মানুষও সড়ক পথ ব্যবহার করছে বলে জানা গেছে। এ কারণে ভয়াবহ যাত্রী সংকটে পড়েছে যশোর থেকে ঢাকা চলাচলরত এয়ারলাইন্সগুলো।

বর্তমানে ওই রুটে বেসরকারি দুটি এয়ারলাইন্সের ৭টি ফ্লাইট বন্ধ হয়ে গেছে। এর মধ্যে ইউএস বাংলার ৭টি ফ্লাইটের মধ্যে চলাচল করছে তিনটি এবং নভোএয়ারের ৫টির মধ্যে চলাচল করছে দুটি। বাংলাদেশ বিমানের দুটি ফ্লাইট অব্যাহত রয়েছে। এ হিসেবে বর্তমানে প্রতিদিন ৭টি ফ্লাইট যশোর-ঢাকা রুটে চলাচল করছে।

শেয়ার করুন:
পুরো সংবাদটি পড়ুন

পর্যটন

সবসময়ই লাভের মধ্যেই ছিল বিমান বাংলাদেশ: প্রতিমন্ত্রী

Published

on

ফ্লাইট

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স আগেও লাভের মধ্যে ছিল, এখনো আছে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী।

মঙ্গলবার (৬ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় সচিবালয়ের গণমাধ্যম কেন্দ্রে সাংবাদিকদের সংগঠন বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ) আয়োজিত ‘বিএসআরএফ সংলাপ’ এ অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী। সংগঠনের সভাপতি তপন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে সংলাপের উপস্থাপনা করেন সাধারণ সম্পাদক মাসউদুল হক।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিমানের লোকজন সরকারি বেতন পায় বলে অনেক ধারণা আছে। আমাদের মন্ত্রণালয় অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের তুলনায় স্বতন্ত্র। আমাদের অধিনস্ত অধিদপ্তরগুলোও নিজেদের মতো চলতে হয়। এখানে সরকার থেকে কোনো বাজেট বরাদ্দ দেওয়া হয় না। বিমান যদি আয় করতে না পারে তাহলা তারা বেতন পাবে না। অন্যান্য অধিদপ্তরগুলোও একই রকমভাবে চলতে হয়। করোনায় আমাদের মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত প্রতিষ্ঠানগুলো অনেকটা বন্ধ ছিল, তারপরও আমরা চেষ্টা করেছি তাদের বেতন-ভাতা দেওয়ার। বিমান সবসময়ই লাভের মধ্যেই ছিল।

তিনি বলেন, করোনার সময় সরকার এক হাজার কোটি টাকা প্রণোদনা দিয়েছিল, সেখান থেকে আমরা ৭৮১ কোটি টাকা খরচ করেছি। আমরা এখনো বিমান লাভের মধ্যে আছি। বিশ্ববাজার অস্থিতিশীল, তেলের দাম বেড়েছে। এরমধ্যে টরেন্টো ফ্লাইটে ভালো সাড়া পেয়েছি, আমরা পুরোপুরি যাত্রী পেয়েছিলাম। আমরা চাই বিমান সঠিকভাবে চলুক। কেউ অনিয়ম করলে তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। এখন বিমান যথাসময়ে ফ্লাইটগুলো ছেড়ে যাচ্ছে।

মাহবুব আলী বলেন, এয়ারপোর্টে যাতে কোন যাত্রী হয়রানি হয়, সেদিক সতর্ক থাকতে বলেছি। অতিরিক্ত সতর্কতার কারণে আবার যেন কেউ হয়রানির শিকার না হয় সেদিকে নজর রাখতে বলেছি। সবাই যেন সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করে সেটি মনিটরিং করা হয়। বিমানের এমডি প্রতিদিনই এয়ারপোর্টে যান, তিনি নিজে উপস্থিত থেকে অনেক সময় মনিটরিং করেন। প্রধানমন্ত্রী চেয়েছেন যাত্রীদের যেন ভালো সার্ভিস দেওয়া হয়, সেদিকে সবসময় লক্ষ্য রাখা হচ্ছে। ২০২৩ এর অক্টোবরে নবনির্মিত থার্ড টার্মিনাল থেকে বিমান চলাচল করতে পারবে বলেও আশাপ্রকাশ করেন প্রতিমন্ত্রী।

তিনি আরও বলেন, কক্সবাজারকে আরও নান্দনিক করতে কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানের করতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সৈয়দপুরে নান্দনিক টার্মিনাল নির্মাণ হয়েছে। যশোরের টার্মিনালকে আধুনিক টার্মিনাল করা হয়েছে। বরিশাল বিমানবন্দরের কাজও আমরা হাতে নেবো। আমাদের বিমান বন্দরের কাঙ্ক্ষিত সেবা হয়তো দিতে পারিনি, তবে চেষ্টার ত্রুটি নেই। আমরা কার্গো সেবা সম্প্রসারণের জন্য সিলেটে কার্গো ভিলেজ করেছি, চট্টগ্রামেও সেটি করার উদ্যোগ নিয়েছি। কার্গো নিয়ে এখন তেমন সমস্যা হয় না। আন্তর্জাতিক মান রেখে বিমান যাতে সেবা দিতে পারে সেদিকে নজর রেখে আমরা কাজ করছি।

পর্যটন করপোরেশন নিয়ে তিনি বলেন, পর্যটন করপোরেশনকে কেন কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে নিয়ে যেতে পারিনি সেই প্রশ্নটি বার বার আসে। আমরা চাই বিদেশি বিনিয়োগও আসুক। করোনায় পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ ছিল, পরে সেটি খুলে দেওয়ার পর প্রথম মাসে ১ কোটি টাকা লাভ করেছি, দ্বিতীয় মাসে ২ কোটি টাকা লাভ করেছি। আমরা একটা সুফল আনতে চাই।

এসময় অন্যদের মধ্যে সংগঠনের সহ-সভাপতি মোতাহার হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক মেহ্দী আজাদ মাসুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আকতার হোসেন, অর্থ সম্পাদক মো. শফিউল্লাহ সুমন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. বাহরাম খান, কার্যনির্বাহী সদস্য ইসমাইল হোসাইন রাসেল, হাসিফ মাহমুদ শাহ, শাহাদাত হোসেন রাকিব উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন:
পুরো সংবাদটি পড়ুন

পর্যটন

দুবাই বিমানবন্দরে যাত্রী সংখ্যা বেড়েছে তিন গুণ

Published

on

ফ্লাইট

দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (এপ্রিল-জুন) যাত্রী সংখ্যা বেড়েছে তিন গুণ। বিশ্বের সবচেয়ে ব্যস্ততম এ বিমানবন্দর এরই মধ্যে ব্যবহার করেছে ১ কোটি ৪২ লাখ যাত্রী। যেটা আগের বছরের জুনে শেষ হওয়া প্রান্তিকের তুলনায় ১৯১ শতাংশ বেশি।

৪৫ দিন সংস্কারকাজের জন্য রানওয়ে বন্ধ থাকার পরও এ চিত্র দেখা গিয়েছে। কাতারে হতে যাওয়া ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপের কারণে যাত্রী সংখ্যা আরো বাড়বে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

দুবাই বিমানবন্দরের চিফ এক্সিকিউটিভ পল গ্রিফিতস বলেন, এ পুনরুদ্ধার অর্জনের ক্ষেত্রেই যে শুধু দুবাই বিমানবন্দর সফল হয়েছে তা-ই নয়, বরং এ সময়ে গ্রাহকদের সেবা প্রদানের বিষয়টিও নিশ্চিত করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, মহামারী শুরুর সময়ে আমরা জানতাম যে এ নাটকীয় পতন শেষে একটি নাটকীয় উত্থান দেখা দেবে। সেজন্য আমরা ভালোমতোই প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। আমাদের ব্যবস্থায় সব ধরনের ব্যবসার তথ্য ব্যবহার করে কখন থেকে পুনরুদ্ধার শুরু হবে সেটা পূর্বানুমান করতে পেরেছিলাম। তাই প্রস্তুতি নিতে বিমানবন্দর-সংশ্লিষ্ট সেবা প্রদানকারী সদস্যদের সঙ্গে আগে থেকেই কাজ করতে পেরেছিলাম।

গ্রিফিথস বলেন, করোনা মহামারীর প্রভাব থেকে উঠে আসার বিষয়টি খুব অভূতপূর্ব, ২০২২ সালে পুনরুদ্ধার পরিস্থিতি আরো শক্তিশালী হয়েছে, বিশেষ করে দ্বিতীয় প্রান্তিকে।

গত জুনে আন্তর্জাতিক যাত্রী চলাচল আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় বেড়েছে ২৩০ শতাংশ। ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য বলছে, এ প্রবৃদ্ধি হয়েছে এশিয়া-প্যাসিফিকের বেশকিছু অংশ থেকে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার কারণেই।

দুবাই বিমানবন্দর জানিয়েছে, চলতি বছরের প্রথমার্ধে যাত্রী চলাচলের সংখ্যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় দ্বিগুণেরও বেশি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ৭৯ লাখে। এরই মধ্যে যাত্রী চলাচলের সংখ্যা নভেল করোনাভাইরাস মহামারীপূর্ব ২০১৯ সালের প্রথমার্ধের তুলনায় বেড়েছে ৬৭ দশমিক ৫ শতাংশ।

২০২২ সালের প্রথমার্ধে ৭১ লাখ ২০ হাজার আন্তর্জাতিক সফরকারীকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে দুবাই। যেটা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় তিন গুণ বেশি। সেই সময়ে এ বিমানবন্দর ব্যবহার করেছিলেন ২৫ লাখ ২০ হাজার যাত্রী। বৈশ্বিক অর্থনীতি ও পর্যটন খাতে কিছু অভূতপূর্ব চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও এমন চিত্র দেখা গিয়েছে বলে মন্তব্য দুবাইয়ের অর্থনীতি ও পর্যটন বিভাগের।

২০২২ সালে ৬ কোটি ২৪ লাখ যাত্রী সংখ্যা ছাড়িয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা করছে দুবাই বিমানবন্দর। আগে যেখানে মে মাসে বিমানবন্দরটি পূর্বাভাসে জানিয়েছিল মোট যাত্রী সংখ্যা ৫ কোটি ৮৩ লাখ হবে। দুবাই বিমানবন্দরের সবচেয়ে বেশি যাত্রী যায় ভারতের, বছরে দুবাই বিমানবন্দরে যায় দেশটির ৪০ লাখ মানুষ, সৌদি আরব থেকে যায় ২০ লাখ যাত্রী আর যুক্তরাজ্য থেকে ১৯ লাখ।

ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের বেশকিছু বিমানবন্দরে বিভিন্ন ধরনের বিঘ্ন, লম্বা লাইনে অপেক্ষা এবং দেরিতে ব্যাগ আসার সমস্যা থাকলেও দুবাই বিমানবন্দর জানিয়েছে, ডিপারচার পাসপোর্ট কন্ট্রোলে বিমানবন্দরটির ৯৬ শতাংশ যাত্রীকে ৫ মিনিটের কম সময় লাইনে অপেক্ষা করতে হয়। তাছাড়া ছেড়ে যাওয়ার সময়ে নিরাপত্তা পরীক্ষার জন্য ৯৭ শতাংশ যাত্রীকে ৩ মিনিটেরও কম সময় অপেক্ষা করতে হয়।

শেয়ার করুন:
পুরো সংবাদটি পড়ুন

পর্যটন

পর্যটন খাত বিকাশে যৌক্তিক ভ্যাট-ট্যাক্স আরোপের সুপারিশ

Published

on

ফ্লাইট

পর্যটন খাতের বিকাশে যৌক্তিক পর্যায়ে ভ্যাট-ট্যাক্স আরোপ চায় সংসদীয় কমিটি। বুধবার (২৪ আগস্ট) সংসদ ভবনে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটি অর্থ মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এবং ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করে। পরে কমিটি তাদের আন্তঃসভা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করেছে।

জানা গেছে, সংসদীয় কমিটির আগের বৈঠকে পর্যটন খাতের ভ্যাট-ট্যাক্স নিয়ে আলোচনা হয়। ওই বৈঠকে কমিটির সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বলেন, পর্যটন শিল্প বিকাশে প্রচলিত ভ্যাট-ট্যাক্স অন্তরায়। এ বিষয়ে বৈঠকে বহুবার আলোচনা হলেও কোনো সুরাহা করা যাচ্ছে না। ওই বৈঠকে তিনি বিষয়টি নিয়ে ঢাকার দুই মেয়র, অর্থসচিব ও এনবিআর চেয়ারম্যানকে ডাকার বিষয়ে মতামত দেন। পরে তা সুপারিশ আকারে নিয়ে আসা হয়।

ভ্যাট-ট্যাক্স বিষয়ে পর্যটন করপোরেশন তার প্রতিবেদনে বলেছে, পর্যটন করপোরেশনের সেবামূল্যের ওপর ১৫ শতাংশ, সেবার মালামাল ক্রয়ের ওপর ৫ শতাংশ রাজস্ব প্রাপ্তির ওপর ৫ শতাংশ আয়কর দিতে হয়। সংস্থাটি সার্বিক আয়ের ওপর ২৫ শতাংশ ভ্যাট ও আয়কর পরিশোধসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন ভাতাদি পরিশোধ করে প্রতিষ্ঠানটির অস্তিত্ব রক্ষা দূরূহ হয়ে উঠেছে।

প্যাকেটজাত চাল, ডাল, তৈল, ঘি, আটা, ময়দাসহ পানীয় ও জুসসহ বিভিন্ন পণ্যে উৎপাদন পর্যায়ে একাধিকবার ভ্যাট দেওয়া হয় উল্লেখ করে তারা পণ্যের মোট দামের ওপর ভ্যাট নির্ধারণের পরিবর্তে বর্ধিত মূল্যের ওপর যৌক্তিকহারে করারোপের কথা বলে। পর্যটন করপোরেশন ২০২১-২২ অর্থবছর পর্যন্ত করপোরেট ট্যাক্স ৪৩ কোটি ৪ লাখ ৮৪ হাজার টাকা, লভ্যাংশ বাবদ ৮ কোটি ২০ লাখ ২১ হাজার টাকা, ভ্যাট বাবদ ৩৪ কোটি ৭৩ লাখ ১৬ হাজার পরিশোধ করেছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

সংসদ সচিবালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বৈঠকে পর্যটনশিল্প বিকাশে দেশে প্রচলিত ভ্যাট ও ট্যাক্স অন্তরায় হিসেবে কাজ করার বিষয়টি নিয়ে ঢাকা উত্তর/দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, অর্থ মন্ত্রণালয় এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সমন্বয়ে আন্তঃসভা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়।

কমিটি কক্সবাজার বিমানবন্দর এলাকার ভাঙনপ্রবণ স্থানগুলো চিহ্নিত করে তা রক্ষায় জেলা প্রশাসন, সিভিল এভিয়েশন অথরিটি ও মন্ত্রণালয়ের সমন্বিত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ করে।

কমিটির সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠকে আশেক উল্লাহ রফিক, আনোয়ার হোসেন খান ও সৈয়দা রুবিনা আক্তার অংশগ্রহণ করেন।

শেয়ার করুন:
পুরো সংবাদটি পড়ুন

ফেসবুকে অর্থসংবাদ

ফ্লাইট
জাতীয়2 hours ago

শেখ হাসিনার জন্যই দেশজুড়ে শান্তির সুবাতাস বইছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ফ্লাইট
জাতীয়4 hours ago

আইজিপির দায়িত্ব নিলেন চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন

ফ্লাইট
সারাদেশ4 hours ago

এক টাকায় পছন্দের পোশাক,সহযোগীতায় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ

ফ্লাইট
কর্পোরেট সংবাদ6 hours ago

স্বপ্ন এখন মৌলভীবাজারের শেরপুরে

ফ্লাইট
জাতীয়6 hours ago

বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা সরকারের দায়িত্ব: তথ্যমন্ত্রী

ফ্লাইট
পরিবেশ6 hours ago

৩ দিনের মধ্যে সাগরে লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে, বাড়বে বৃষ্টি

ফ্লাইট
জাতীয়6 hours ago

র‍্যাবের ডিজি হিসেবে দায়িত্ব নিলেন এম খুরশীদ হোসেন

ফ্লাইট
ক্রিকেট7 hours ago

আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রাইজমানি ঘোষণা

ফ্লাইট
জাতীয়8 hours ago

আমাদের হাঁটু ভাঙবে না, কোমরও ভাঙবে না: কাদের

ফ্লাইট
রাজধানী11 hours ago

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেফতার ৫৯

তারিখ অনুযায়ী খবর

October 2022
S M T W T F S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  
Advertisement
Advertisement

এ সপ্তাহের আলোচিত

সম্পাদক : হায়দার আহমেদ খান এফসিএ

কার্যালয় : ৫৬ পুরানা পল্টন, শখ সেন্টার, লেভেল-৪, ঢাকা।

news.orthosongbad@gmail.com

+8801791004858

স্বত্ব © ২০২২ অর্থসংবাদ