Connect with us

প্রবাস

কানাডায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশির মৃত্যু

Published

on

কানাডায় সড়ক দুর্ঘটনায় আসিফ সৈয়দ (২৭) নামে এক প্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে।

স্থানীয় সময় শনিবার (১১ জুলাই) দিবাগত রাত ৩টার দিকে কানাডার অটোয়া হাইওয়েতে নিয়ন্ত্রণ আসিফের গাড়ি দুর্ঘটনার শিকার হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।

দুর্ঘটনার শিকার হওয়া গাড়িটির চালক ছিলেন আসিফের চাচাতো ভাই নওশাদ সৈয়দ। গুরুতর অবস্থায় তাকে অটোয়ার জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সম্প্রতি লেখাপড়া শেষ করে আসিফ সৈয়দ চাকরিতে যোগ দিয়েছেন। তার বাবার নাম আসলাম সৈয়দ। নিহতের বাড়ি বাংলাদেশের বগুড়া জেলার বাদুরতলায়।

Nogod-22-10-2022
শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Advertisement

প্রবাস

৬৯ কোটি টাকা লটারি জিতলেন প্রবাসী হোটেলকর্মীর

Published

on

সাজেশ এনএইচ

দুবাইয়ে হোটেল কর্মী জ্যাকপট লটারিতে আড়াই কোটি দিরহাম জয়ী হয়েছেন। যা বাংলাদেশি প্রায় ৬৯ কোটি টাকা। আবু ধাবির বিগ টিকেট ড্রতে জয়ী এই হোটেল কর্মী ভারতীয় বংশোদ্ভূত।

আবু ধাবি বিগ টিকেট ড্র জয়ীর নাম সাজেশ এনএইচ। ৪৭ বছর বয়সী এই ব্যক্তি দুবাইয়ের কারামা এলাকার ইকাইস রেস্তোরাঁয় ক্রয় ব্যবস্থাপক হিসেবে কর্মরত আছেন। পুরস্কারের অর্থ হিসেবে তিনি পেয়েছেন আড়াই কোটি দিরহাম (বাংলাদেশি ৬৮ কোটি ৯৯ লাখ ৪৭ হাজার ৬১৪ টাকার বেশি)।

২০ জন সহকর্মীকে সাথে নিয়ে অনলাইনে টিকেট কিনেছিলেন সাজেশ। এখন সবার মাঝে পুরস্কারের এই অর্থ সমানভাবে ভাগ করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেছেন, আমি যে হোটেলে কাজ করি সেখানে ১৫০ জনের বেশি কর্মচারী রয়েছে। আমি তাদের সাথে আমার লটারি জয়ের একটি অংশ ভাগাভাগি করে নেব। আমি যতটা সম্ভব তাদের সাহায্য করতে চাই।

Nogod-22-10-2022

সহকর্মীরা অর্থ দিয়ে কী করতে পারেন, সেবিষয়ে তাদের সাথে বসে আলোচনা করবেন বলে জানিয়েছেন সাজেশ।

যদিও তিনি এখন কোটিপতি, তারপরও প্রত্যেক মাসে টিকেট কিনতে চান। বলেন, অভিজ্ঞতা আমাকে শিখিয়েছে কখনোই আমাদের স্বপ্ন দেখা বাদ দেওয়া যাবে না। আমরা টিকেট কেনা অব্যাহত রাখবো। আমাদের ভাগ্য বদলানোর চেষ্টা করবো।

আবু ধাবির বিগ টিকেটের পরবর্তী ড্র আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে। সেই সময় প্রথমবারের মতো সৌভাগ্যবান বিজয়ী ৩ কোটি দিরহাম পাবেন।

গত মাসে চীনে এক ব্যক্তি লটারিতে ৩ কোটি মার্কিন ডলার (বাংলাদেশি ২৫০ কোটি টাকার বেশি) জিতেন। তিনি ৮০ ইউয়ান (১১ মার্কিন ডলার) দিয়ে লটারির ৪০টি টিকেট কিনেছিলেন। এসব টিকেটের সাতটি সংখ্যা ছিল একই। পরে তিনি চীনা ওই লটারির গ্র্যান্ড পুরস্কার বিজয়ী হন। গত ২৪ অক্টোবর পুরস্কারের অর্থ বুঝে পান এবং ৫ মিলিয়ন ইউয়ান দান করেন তিনি।

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

প্রবাস

বাংলাদেশিদের বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠানোর আহ্বান রাষ্ট্রদূতের

Published

on

যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে। গতকাল (সোমবার) বাংলাদেশ দূতাবাস, লিসবন দিবসটি পালন করে।

জাতীয় শোক দিবসের মর্মের সঙ্গে সংগতি রেখে দূতাবাস প্রাঙ্গণে ব্যানার ও পোস্টার লাগানো হয়। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীরা সাদা-কালো পোশাক পরিধান করে যোগ দেন এবং কালো ব্যাজ ধারণ করেন।

সবাই শোক দিবস উপলক্ষে দূতাবাস প্রাঙ্গণে কর্মকর্তাদের নিয়ে রাষ্ট্রদূত তারিক আহসান জাতীয় পতাকা আনুষ্ঠানিকভাবে অর্ধনমিতকরণের মধ্য দিয়ে দিনব্যাপী কর্মসূচির সূচনা করেন।

এছাড়াও, দূতাবাসের প্রদর্শনী কক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সংগ্রামী বর্ণাঢ্য জীবনের যুগান্তকারী ঘটনাবলীর ওপর ‘আলোকচিত্রে বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য জীবন’ শীর্ষক এক আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। শিরোনাম সংবলিত এবং কালানুক্রমিকভাবে সাজানো আলোকচিত্র সমূহ দর্শনার্থীরা আগ্রহের সঙ্গে পরিদর্শন করেন।

Nogod-22-10-2022

দিবসটি উপলক্ষে সন্ধ্যায় এক স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়। এতে দূতাবাসের কর্মকর্তা/কর্মচারী, রাজনৈতিক দল, সংবাদ মাধ্যম, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা এবং ছাত্রসহ সর্বস্তরের প্রবাসী বাংলাদেশিরা অংশ নেন।

এ পর্বের শুরুতে রাষ্ট্রদূত ও দূতাবাসের কর্মকর্তা/কর্মচারী ও প্রবসী বাংলাদেশি বিভিন্ন সংগঠনের নেতা ও কর্মীরা দূতাবাসে স্থাপিত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। এরপর বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবার ও শহিদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর পাঠানো বাণী পাঠ করা হয়। এরপর একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচকরা বঙ্গবন্ধুর অতুলনীয় অবদান ও তার জীবনের উল্লেখযোগ্য দিকগুলো তুলে ধরেন। ১৫ আগস্ট ১৯৭৫-এর বর্বর হত্যাকাণ্ড স্মরণ করে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

রাষ্ট্রদূত তারিক আহসান বক্তব্যের শুরুতেই ১৫ আগস্ট ১৯৭৫-এর অভিশপ্ত রাতে প্রতিক্রিয়াশীল শক্তির নীল নকশায় শাহাদতবরণকারী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যসহ সকল শহিদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর প্রাণনাশের মাধ্যমে ষড়যন্ত্রকারীরা শুধু ব্যক্তি মুজিবুর রহমানকে হত্যা করেনি বরং তারা চেয়েছিল বঙ্গবন্ধুর আদর্শ তথা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নিশ্চিহ্ন করতে। কিন্তু ঘাতকেরা বাঙালির মন থেকে যেমন বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবিকে মুছে ফেলতে পারেনি; তেমনই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার চিরন্তন শিখাকেও নিভিয়ে দিতে পারেনি।

রাষ্ট্রদূত উপস্থিত সবাইকে, স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তির ষড়যন্ত্র রুখে দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রেখে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাকে বাস্তবে রূপান্তর করার কাজে সংকল্পবদ্ধ হওয়ার জন্য আহ্বান জানান।

এছাড়াও রাষ্ট্রদূত কোভিড পরবর্তীতে এবং ইউক্রেনে চলমান যুদ্ধের ফলে সৃষ্ট অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রতি বৈধপথে দেশে রেমিট্যান্স পাঠানোর আহ্বান জানান জানান।

আলোচনা পর্ব শেষে, স্বাধীনতা-পরবর্তীতে বাংলাদেশের রাষ্ট্র/সরকার প্রধান হিসেবে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব এবং বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বিষয়ের ওপর নির্মিত দুটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়। এরপর, বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে একটি সংক্ষিপ্ত সাংস্কৃতিক পর্ব নিবেদন করা হয়।

এ সময় বঙ্গবন্ধুর ওপর রচিত কবিতা আবৃত্তি করা হয়। সবশেষে, জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের অন্যান্য শহিদ সদস্য ও শহিদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে এবং দেশের অব্যাহত উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির জন্য বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

প্রবাস

যে কারনে দেশে বিনিয়োগে অনাগ্রহী প্রবাসীরা

Published

on

সক্ষমতা এবং ইচ্ছা থাকলেও প্রবাসীরা দেশে কেন বিনিয়োগে অনাগ্রহী ? এ বিষয়ে মতামত তুলে ধরেছেন দৈনিক যুগান্তরের সিনিয়র রিপোর্টার মো. মনির হোসেন। তিনি ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট’স ফোরামের (সিএমজেএফ) সাবেক সাধারণ সম্পাদক। সম্প্রতি তিনি যুক্তরাষ্ট্র ও সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর করেন। এ সময় তিনি প্রবাসী বাংলাদেশী কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ ও সেখানে দায়িত্বপ্রাপ্ত সরকারের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। সিনিয়র এ সাংবাদিক সফরের অভিজ্ঞতা নিজের ফেসবুক টাইমলাইনে স্ট্যাটাসের মাধ্যমে তুলে ধরেছেন।

অর্থসংবাদের পাঠকদের জন্য স্ট্যটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো:

বাংলাদেশি প্রবাসীদের একটি অংশ, বিদেশেও সামর্থবান। দেশে তাদের বিনিয়োগের সক্ষমতা ও ইচ্ছা দুটিই রয়েছে। কিন্তু নানা কারণে তারা বাংলাদেশের উপর বিরক্ত। এরমধ্যে অধিকাংশ প্রবাসীর কমন একটি সমস্যা দেশে থাকা তাদের জমি-জমা সহায় সম্পত্তি দখল হয়ে যাচ্ছে। আত্মীয় স্বজন এবং পাড়া প্রতিবেশিরাই এ কাজ করছে। এমনিতেই বিদেশ যাওয়ার সময় সহায় সম্পত্তির একটি অংশ বিক্রি করে দিতে হয়। এরপর যা বাকী থাকে, তাও দখল হয়ে যায়।

নিউইয়র্কের কাওরানবাজার শপের মালিক বুলবুল। সেখানে ৪টি বিশাল ডিপার্টমেন্টাল স্টোর রয়েছে তার। অনেক মানুষের কর্মসংস্থান। কিন্তু বাংলাদেশের সব সম্পত্তি দখল হয়ে গেছে। তিনি জানান-আইনের আশ্রয় নিতে চাইলেও তেমন কোনো লাভ হয় না। কারণ তারা স্বল্প সময়ের জন্য দেশে আসেন। ফলে আইনি প্রক্রিয়ায় যে সময় লাগে, ওই পরিমাণ সময় তাদের কাছে থাকে না।

Nogod-22-10-2022

দ্বিতীয়ত কিছু ক্ষেত্রে পুলিশ বলে, আপনিতো দেশে থাকেন না। পাড়া প্রতিবেশিকে সম্পত্তিটুকু দান করে যান। কোনো কোনো ক্ষেত্রে প্রতিকার চাইতে গেলেও বিদেশ থেকে এসেছে, এটি শুনলে পুলিশের রেটও কয়েকগুন বেড়ে যায়। শুধু বুলবুল নয়, এ রকম হাজারও অভিযোগ রয়েছে, বাংলাদেশ দূতাবাসে। প্রবাসীদের বক্তব্য হলো দেশের নীতি নির্ধারকরা তাদের নিয়ে অনেক কথা বলেন। দেশের গর্ব, রেমিট্যান্স যোদ্ধাসহ নানা উপাধী দেওয়া হয়। কিন্তু বিদেশ যাওয়া থেকে শুরু করে কোনো ক্ষেত্রে সরকারের তেমন সহযোগিতা মেলে না।

তাদের মতে, বাংলাদেশের মানুষ কাজ করতে চায় না। প্রবাসী ও বিদেশিরা এয়ার পোর্টে নামার পর টয়লেটে গেলেও পেছনে দুইজন বকশিশের জন্য দাঁড়িয়ে থাকে। এতে দেশের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। বাংলাদেশে অর্থনৈতিকভাবে যে উন্নয়ন হচ্ছে, তার সঙ্গে এসব যায় না। বিদেশিরা বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য না আসার, এটাও একটা কারণ।

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

প্রবাস

মালয়েশিয়ায় কর্মী যাবে চলতি মাসেই

Published

on

বাংলাদেশি কর্মীরা জুন মাস থেকেই মালয়েশিয়ায় যেতে পারবেন। সর্বনিম্ন বেতন বাংলাদেশি টাকায় ৩০ হাজার (১৫০০ রিংগিত) হবে বলে জানিয়েছেন প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ।

বৃহস্পতিবার (২ জুন) বিকেলে প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে মালয়েশিয়ার প্রতিনিধি দলের সঙ্গে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠক শেষে এ কথা জানান মন্ত্রী।মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী এম সারাভানান ও দেশটির প্রতিনিধি দল বৈঠকে অংশ নেন।

এসময় মন্ত্রী বলেন, আগামী পাঁচ বছরে ৫ লাখ কর্মী নেওয়ার কথা জানিয়েছে মালায়েশিয়া। প্রথম বছরে দুই লাখ কর্মী যাবে। তবে আমার কাছে মনে হচ্ছে তাদের যত কর্মীর চাহিদা, তাতে প্রথম বছরেই পাঁচ লাখ লোক যাবে।

তিনি বলেন, আমি মন্ত্রী হওয়ার পর ভেবেছিলাম মালয়েশিয়া বাজারে কর্মী পাঠাতে পারব না। হয়তো ব্যর্থ হয়েই বাড়ি ফিরব। আজ একটি সমঝোতায় এসেছি। জুন মাসের মধ্যে কর্মী পাঠানো শুরু করব।

Nogod-22-10-2022

‘আজ আমাদের সিদ্ধান্ত হয়েছে। তারা বন্ধ সেক্টরগুলো খুলবে। বেতন ১৫০০ রিঙ্গিত হবে। তাদের কর্মী তালিকা দেওয়া হবে, সেখান থেকে যাবে। তাদের সিলেকশন অনুযায়ী মেডিকেল হবে।’

মন্ত্রী বলেন, কোনো সিন্ডিকেট নয়, আমরা তাদের দেশের সব বৈধ রিক্রুটিং এজেন্সির তালিকা পাঠিয়েছি। এটি পছন্দ তাদের। তারা লোক নেবে তাদের পছন্দে। এখানে ২৫-৫০ নেই।

খরচের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, মালয়েশিয়ার মন্ত্রী আমাদের বলেছেন যে, তারা জিরো খরচে লোক নিতে চেষ্টা করবেন। আশা করছি আগের যে হিসাব এক লাখ ৬০ হাজারের কথা ছিল এবার তার চেয়ে কম হবে।

আসা-যাওয়ার টিকিট, মালয়েশিয়ায় কোভিড-১৯ পরীক্ষা, কোয়ারেন্টাইন, থাকা-খাওয়াসহ বিভিন্ন খরচ নিয়োগ দাতা বহন করবে। বাংলাদেশের অংশে পাসপোর্ট, মেডিকেলসহ অন্যান্য খরচ কর্মীকে বহন করতে হবে।

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন

প্রবাস

ফ্রান্সে সন্ত্রাসী হামলায় বাংলাদেশি নিহত

Published

on

ফ্রান্সে সন্ত্রাসী হামলায় আহত মুন্সীগঞ্জের প্রবাসী সোহেল রানা (৩৫) মারা গেছেন। বুধবার (২৫ মে) ফ্রান্সের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

সোহেল রানা মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের খিদিরপুর গ্রামের আব্দুল আজিজ মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় রেস্টুরেন্টের মালিক বাদী হয়ে ফ্রান্সের স্থানীয় থানায় মামলা করেছেন।

সোহেল রানার তিন বছরের এক শিশু সন্তান রয়েছে। তিনি স্ত্রী ও শিশুসন্তানসহ প্যারিসের নিকটবর্তী লাকর্নভ এলাকায় বসবাস করতেন।

নিহতের স্বজনরা জানিয়েছে, সোহলে রানা প্যারিসের ঐতিহাসিক স্থাপনা বাসতিলের একটি রেস্টুরেন্টে রাতে কাজ করতেন। কাজ শেষে শনিবার ভোর ৫টার দিকে বাড়ি ফেরার উদ্দেশে বের হন। এ সময় রেস্টুরেন্টের সামনে সন্ত্রাসীরা তার ওপর হামলা করে।

Nogod-22-10-2022

এ সময় তিনি মাথায় আঘাত পেয়ে জ্ঞান হারান। পরে পথচারীরা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে। হাসপাতালে ভর্তির পর থেকে তার আর জ্ঞান ফেরেনি।

সোহেল রানার চাচাত ভাই আরশাদ আকাশ বৃহস্পতিবার বলেন, সোহেল রানা একজন সহজ-সরল মানুষ ছিলেন। কারও সঙ্গে তার বিরোধ থাকার কথা না। আফ্রিকানরা ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যেই হামলা করেছে বলে আমাদের ধারণা। এ ঘটনায় রেস্টুরেন্টের মালিক বাদী হয়ে মামলা করেছেন। বাংলাদেশ দূতাবাসও এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিচ্ছে। ময়নাতদন্তের পর আগামী সোম অথবা মঙ্গলবার মরদেহ দেশে আসতে পারে।

তিনি বলেন, ওই দেশে হত্যাকাণ্ড ঘটলেও যারা জড়িত তাদের সামান্য শাস্তি দেওয়া হয়। আমরা খুনিদের সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড চাই।

শেয়ার করুন:
বিজনেস নিউজ পোর্টাল অর্থসংবাদে প্রকাশিত ও প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
পুরো সংবাদটি পড়ুন
Advertisement
December 2022
S M T W T F S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031

কর্পোরেট সংবাদ

ক্যাম্পাস টু ক্যারিয়ার

ফেসবুকে অর্থসংবাদ