পদত্যাগে বাধ্য হলেন আইডিআরএর চেয়ারম্যান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, অর্থসংবাদ.কম, ঢাকা প্রকাশ: ২০২২-০৬-১৫ ১৩:০১:৩৪, আপডেট: ২০২২-০৬-১৫ ১৩:০৭:০৫

বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) চেয়ারম্যান ড. এম মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সম্প্রতি ড. মোশাররফ এবং তার স্বার্থসংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাবে ৪২ কোটি টাকারও বেশি লেনদেনের তথ্য পেয়েছে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। এরই মধ্যে এ সংক্রান্ত একটি গোয়েন্দা প্রতিবেদন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কাছে পাঠিয়েছে আর্থিক খাতের গোয়েন্দা সংস্থাটি। এসব দুর্নীতিতে জড়িত থাকার কারনে তাকে পদত্যাগ করতে হলো। বুধবার (১৫ জুন) সকালে তিনি পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

জানা যায়, গত ১ জুন দুদক থেকে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে আইডিআরএ চেয়ারম্যানের কাছে সম্পদের হিসাব চাওয়া হয়েছে। নোটিশ পাওয়ার ২১ কার্যদিবসের মধ্যে তাকে দুদকের কাছে সম্পদ বিবরণী জমা দিতে বলা হয়েছে।

এদিকে বীমা খাতের বিভিন্ন কোম্পানিতে ড. মোশাররফের বিনিয়োগের বিষয়টি নিয়ে উচ্চ আদালতেও রিট চলমান রয়েছে।

জানা যায়, এর আগে ড. এম মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে ৫০ লাখ টাকা ‘ঘুষ দাবির’ অভিযোগ উঠেছিলো। এছাড়া তার বিরুদ্ধে বিধিবহির্ভূত শেয়ার ব্যবসা, দুর্নীতি ও অর্থপাচারের অভিযোগে তার ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছিলো।

আরও জানা যায়, ২০১৭ সালের ৯ মে তিনি ‘লাভস অ্যান্ড লাইভস অর্গানিকস লিমিটেড’ ও ২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি ‘গুলশান ভ্যালি অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড’ নামের দুটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন। এই দুই কোম্পানিতে পরিচালক ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হিসাবে মোশাররফ নিজে এবং তার স্ত্রী জান্নাতুল মাওয়া পরিচালক হিসেবে রয়েছেন। আইডিআরএ চেয়ারম্যান মোশাররফ এ দুই কোম্পানির নামে একটি করে প্রভিডেন্ড ফান্ড ও একটি করে গ্র্যাচুইটি ফান্ডসহ মোট ৪টি ফান্ড গঠন করে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করেন। তিনি নিজেই উল্লিখিত চার ফান্ডের বোর্ড অব ট্রাস্টি, যা বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ আইন, ২০১০-এর পরিপন্থি।

গত বছরের ৯ নভেম্বর বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ আইডিআরএ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তের আবেদন নিষ্পত্তি করতে নির্দেশ দেন। পরবর্তী ৩০ দিনের মধ্যে এ বিষয়ে গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কে দুদক ও এফআইইউ’কে জানাতে বলেন আদালত।

একইসঙ্গে আইডিআরএ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়ে অনুসন্ধান/তদন্তে বিবাদীদের ব্যর্থতা কেন আইনগত কর্তৃত্ব-বর্হিভূত হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন আদালত। অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব, দুদক, এনবিআর’র চেয়ারম্যান, বিএফআইইউ’র নির্বাহী পরিচালক ও শ্রম অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে রুলের জবাব দিতে বলে আদালত।

ড. এম মোশাররফ হোসেন ২০১৮ সালের এপ্রিলে আইডিআরএ’র সদস্য নিযুক্ত হন। পরবর্তীতে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান হন তিনি।

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।